এদেশে বিপন্ন রাম কুত্তা



অধ্যাপক ড. আ ন ম আমিনুর রহমান
মালয়েশিয়ার তাইপেং চিড়িয়াখানায় বিশ্রামরত রাম কুত্তার দল। ছবি: লেখক

মালয়েশিয়ার তাইপেং চিড়িয়াখানায় বিশ্রামরত রাম কুত্তার দল। ছবি: লেখক

  • Font increase
  • Font Decrease

কোনো এককালে বৃহত্তর চট্টগ্রাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম ও সিলেটের মিশ্র চিরসবুজ বনে অবাধে ঘুরে বেড়াত প্রাণীগুলো। দল বেঁধে ওরা শিকার করত হরিণ, বুনো শুয়োর, বন ছাগল, এমনকি গরু-মহিষও। ওদের কবল থেকে বাঘ-চিতাবাঘও রক্ষা পেত না বলে প্রচলিত আছে। অন্তত ১৯৫০ সাল পর্যন্ত এভাবেই চলছিল।

কিন্তু এরপরই ওদের উপর নেমে আসে বিপর্যয়। কৃষি জমি ও মানুষের বাসস্থানের জন্য বন কেটে জমি উদ্ধার, কাঠের জন্য বন উজাড় এবং প্রাণীগুলো ও ওদের খাদ্য অর্থাৎ তৃণভোজী প্রাণীদের অবাধ শিকারের কারণে দিনে দিনে সংখ্যা কমে এক সময়ের সচরাচর দৃশ্যমান (Common) প্রাণীগুলো বর্তমানে একেবারেই বিরল (Rare) ও বিপন্ন (Endangered) হয়ে পড়েছে।

মালয়েশিয়ার তাইপেং চিড়িয়াখানায় একটি রাম কুত্তা। ছবি: লেখক

যদিও ২০০০ সাল পর্যন্ত ওদেরকে হবিগঞ্জের রেমা-কালেঙ্গা অভয়ারণ্যেও দেখা যেত বলে শুনেছি, কিন্তু বর্তমানে ওদের আবাসস্থল মারাত্মকভাবে সংকুচিত হয়ে চট্টগ্রাম বিভাগের পার্বত্য জেলাগুলোর অল্পকিছু এলাকা; রাঙামাটির কাসালং ও রাইখং সংরক্ষিত বনাঞ্চল, পাবলাখালী বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য, বান্দরবানের সাঙ্গু বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য ইত্যাদিতে সীমাবদ্ধ হয়ে পড়েছে। তবে, কয়েক বছর আগে হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে ওদের অস্তিত্বের প্রমাণ মিলেছে। সেকারণে আমার ধারণা ওরা এখনও রোম-কালেঙ্গা এবং সিলেটের আরও কিছু বনেও থাকতে পারে।

মেট্রো টরেন্ট চিড়িয়াখানায় একটি রাম কুত্তা। ছবি: লেখক

আজ থেকে প্রায় ত্রিশ বছর আগে পাল্প উড বিভাগ, কাপ্তাইয়ে চাকুরিরত খালাত ভাই ফরেস্টার শফিকুর রহমানের ওখানে কাছে বেড়াতে গিয়ে ওর কাছেই ওদের সম্পর্কে প্রথম শুনেছিলাম। এরপর ১৯৯৮ সালে কানাডার গুয়েল্প বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস এস্টেট অ্যানিম্যাল হসপিটালে পোষা প্রাণীর চিকিৎসায় উচ্চতর প্রশিক্ষণ নেয়ার সময় মেট্টো টরন্টো চিড়িয়াখানায় গিয়ে প্রথম ওদের দেখি। ওখানে কৃত্রিমভাবে প্রাকৃতিক পরিবেশ সৃষ্টি করে ওদের রাখা হয়েছিল।

প্রাণীগুলোর চেহারা, আচরণ ও চলাফেরা শফিক ভাইয়ের বর্ণনার সঙ্গে হুবহু মিলে যায়। টরন্টো চিড়িয়াখানায় ওদের দেখে আমি এতটাই বিমোহিত হয়ে গিয়েছিলাম যে, মনে হয়েছিল পার্বত্য চট্টগ্রামের গহিন অরণ্যেই যেন ওদের দেখছি। কতক্ষণ যে সেই কৃত্রিম বনে হারিয়ে গিয়েছিলাম জানি না, কানাডা প্রবাসী সুমন সাইয়েদ ভাইয়ের ধাক্কায় বাস্তবে ফিরে এলাম। এরপর পটাপট কয়েকটা ছবি তুললাম। পরবর্তীতে ২০১৪ সালে মালয়েশিয়ার প্রথম চিড়িয়াখানা তাইপেং জু ও নাইট সাফারিতে দিনে-রাতে ওদেরকে আবারও দেখি।

মালয়েশিয়ার তাইপেং চিড়িয়াখানায় কৃত্রিমভাবে বানানো গুহার সামনে একটি রাম কুত্তা। ছবি: লেখক

কয়েক বছর আগে সিলেটের টিলাগড় ইকো পার্কে গিয়ে শফিক ভাইয়ের সঙ্গে দেখা হলে তিনি বললেন, এখনও ওরা টিকে আছে। তিনি ওদেরকে স্বচক্ষে দেখা ছাড়াও বেশ ক’টি অঞ্চলে ওদের পদচিহ্নও দেখেছেন। বন্যপ্রাণী গবেষক ‘ক্রিয়েটিভ কনজারভেশন অ্যালায়েন্স’-এর মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা শাহরিয়ার সিজার রহমানের সাথে আলাপকালে জানা যায়, বেশ ক’বছর আগে তারা বান্দনবানের সাঙ্গু-মাতামুহুরী উপত্যকায় ওদের অস্তিত্বের প্রমাণ পেয়েছেন। সাঙ্গু-মাতামুহুরী উপত্যকার স্থানীয় ম্রোদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন এবং সেখানকার বন্যপ্রাণী ও তাদের আবাস সংরক্ষণে কাজ করতে গিয়ে ম্রোদের ভাষায় ‘শুই’ নামে পরিচিত প্রাণীগুলোর সঙ্গে অন্তত দু’বার তার দেখা হয়েছে। উপত্যকার গহীনে ওদের পায়ের চিহ্নও দেখছেন তিনি। সর্বোপরি ‘ক্রিয়েটিভ কনজারভেশন অ্যালায়েন্স’-এর কর্মীদের পাতা ক্যামেরা ফাঁদে বেশ ক’বার প্রাণীগুলোর চলাফেরার চিত্রও ধরা পড়েছে।

কানাডার মেট্রো টরেন্ট চিড়িয়াখানায় বিশেষ ভঙ্গিমায় রাম কুত্তা। ছবি: লেখক

হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানের পাখি-প্রাণী পর্যবেক্ষণ করতে গিয়ে ২০১৯ সালে ওখানকার গাইডদের কাছে আজব এক প্রাণীর কথা শুনি। প্রাণীগুলোকে ওরা চোখে না দেখলেও সেগুলোর দ্বারা গত্যাকৃত গরু ও শুকরের দেহাবশেষ তারা দেখেছেন এবং আমাকেও দেখিয়েছিলেন। পরবর্তীতে একটি গবেষক দলের পাতা ক্যামেরা ফাঁদে প্রাণীগুলোর চলাফেরার চিত্রও ধরা পড়ে এবং প্রাণীগুলোর পরিচয় জানা যায়।

যাহোক, বৃহত্তর চট্টগ্রাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং সিলেটের এই বিরল ও বিপন্ন শিকারি প্রাণীগুলোর নাম রাম কুত্তা। লাল কুত্তা, বন কুত্তা বা ডোল নামেও পরিচিত। ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে ওরা জংলি কুকুর, চ্যু, সোনহা, সোন বা ডোল নামে পরিচিত। ইংরেজি নাম এশিয়াটিক ওয়াইল্ড ডগ, রেড ডগ বা ডোল (Asiatic Wild Dog, Red Dog or Dhole)| ক্যানিডি (Canidae) গোত্রভুক্ত প্রাণীটির বৈজ্ঞানিক নাম Cuon alpinus (কুয়ন অ্যালপিনাস) অর্থাৎ পাহাড়ি কুকুর। বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, ভুটান, নেপাল, চীন ও রাশিয়াসহ এশিয়ার অনেক দেশেই ওদের দেখা মেলে। আগেই বলেছি, একসময় এদেশে ওদেরকে সচরাচর দেখা গেলেও বর্তমানে একেবারেই বিরল ও বিপন্ন হয়ে পড়েছে।

বান্দরবানের সাঙ্গুতে উপজাতীয়দের হাতে মৃত রাম কুত্তা। ছবি: ক্রিয়েটিভ কনজারভেশন অ্যালায়েন্স

রাম কুত্তা শিয়াল, কুকুর ও নেকড়ের জাতভাই। তবে চেহারায় শিয়ালের সঙ্গেই মিল বেশি। আকারে নেকড়ে ও শিয়ালের মাঝামাঝি। নাগের আগা থেকে লেজের গোড়া পর্যন্ত লম্বায় ৪৫ থেকে ৬০ সেন্টিমিটার; লেজ ২০ থেকে ২৭ সেন্টিমিটার। ওজন ১০ থোকে ২০ কেজি। পা খাটো, লেজ ঝোঁপালো ও নাকের উপরের অংশ খানিকটা উঁচু। মাথা ও দেহের উপরের অংশের লোম বাদামি-লাল। ঋতুভেদে রঙ হালকা থেকে গাঢ় হতে পারে। কানের ভেতরটা, মুখের নিচ, গলা ও দেহের নিচের অংশ সাদা। ঝোঁপালো লেজের আগা কালো।

হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে রাম কুত্তার দ্বারা মৃত ও ভক্ষণকৃত বুনো শুকরের হাড়সহ দেহাবশেষ। ছবি: লেখক

রাম কুত্তা সামাজিক প্রাণী। দলবদ্ধভাবে থাকে; দিনের বেলা শিকার করে। দলে ২ থেকে ৩০টি পর্যন্ত কুকুর থাকতে পারে। ওরা সচরাচর মাঝারি আকারের প্রাণী, যেমন- হরিণ, শূকর, ছাগল ইত্যাদিকে আক্রমণ করে। প্রয়োজনে বনগরু বা মহিষের মতো বড় পশুকেও আক্রমণ করতে পারে। বন কুকুরের দল কোনো প্রাণীকে সামনে ও পিছনে উভয় দিক থেকেই আক্রমণ করে ও তাড়িয়ে নিয়ে যায়। তাড়াতে তাড়াতে ক্লান্ত করে ফেলে। ওরা যে প্রাণীকে লক্ষ্যবস্তু হিসাব ঠিক করে তাকে না মারা পর্যন্ত ছাড়ে না। তাড়ানো অবস্থাতেই জীবিত প্রাণীটিকে খাবলে খেতে থাকে। আর এভাবে ১০ থেকে ১৫টি কুকুর মিলে অল্প সময়ের মধ্যেই যে কোন প্রাণীকে সাবাড় করে ফেলতে পারে। খাদ্য স্বল্পতার সময় ফল ও সরীসৃপও খায়। কুকুরের মতো ঘেঁউ ঘেঁউ করে না। বরং শিস দেয়ার মতো শব্দ করে ডাকে।

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে রাম কুত্তা কর্তৃক মৃত গরুর দেহাবশেষ। ছবি: লেখক

ওরা সচরাচর ভালুক, চিতাবাঘ বা বাঘকে এড়িয়ে চলে; তবে আক্রান্ত হলে তাদেরও রেহাই নেই। ১৯৭০ সালে প্রকাশিত ভারতের জীবজন্তু নামক পুস্তকে লেখক শ্রীরাম শর্মা রাম কুত্তা কীভাবে বাঘকে আক্রমণ সে সম্পর্কে কিছুটা আলোকপাত করেছেন যা সংক্ষেপে এখানে তুলে ধরছি।

আগেই বলেছি ওরা বাঘকে বেশ সমীহ করে, আর বাঘও ওদেরকে এড়িয়েই চলে। কিন্তু ঘটনাচক্রে যদি ওরা কখনো বাঘের মারা শিকারের কাছে পৌঁছে যায়, আর বাঘ থাবা মেরে যদি দু’একটা কুকুরকে মেরে ফেলে তখন কিন্তু বাঘ মামার আর রক্ষা নেই। তবে তখনই ওরা বাঘকে আক্রমণ করে না। কারণ ওরা জানে বাঘের একেকটা থাবায় একেকটা কুকুরের তালগোল পাকিয়ে যেতে পারে, এমন কি মারাও যেতে পারে। কাজেই ওরা বাঘকে আক্রমণ না করে খানিকটা দূর থেকে চারিদিক দিয়ে ঘিরে ফেলে এবং বিরক্ত করতে থাকে; শান্তিতে থাকতে দেয় না। বাঘ যখন তার শিকার বা মড়ি খেতে বসে তখন বাঘের পিছন দিকে ওরা কামড়ে দেয়। বাঘ যখন রেগে গিয়ে ওখান থেকে উঠে হাঁটা শুরু করে, তখন ওরাও নিরাপদ দূরত্বে থেকে চারদিক দিয়ে ঘিরে বাঘকে অনুসরণ করতে থাকে। বাঘ যখন ক্ষেপে গিয়ে জোড়ে হাঁটতে থাকে তখন রাম কুত্তারাও বাঘের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে জোড়ে হাঁটা শুরু করে। বাঘ যখন পিপাসা মেটাতে পানিতে নামে, তখন ওরা বাঘের লেজ ও পিছন দিকে কামড়ে দেয়। বাঘ রেগে গিয়ে পিছন দিকে লাফ দিলে ওরা নিরাপদ দূরত্বে চলে যায়। আবার যখন বাঘ পানি পান করতে যায়, তখন ওরা আবারও বাঘকে জ্বালাতে শুরু করে। কোনোভাবেই বাঘকে পানি পান করতে দেয় না। তবে বাঘকে পানি পান না করতে দিলেও নিজেরা পালাক্রমে পানি পান করে আসে।

যাক, এবার কিন্তু বাঘ ভয় পেয়ে যায় এবং পানি ছেড়ে দূরে গিয়ে একটু আরাম করার জন্য বসে পড়ে। তবে কুকুরগুলো কোনোভাবেই বাঘকে আরামে থাকতে দেয় না। আরাম করতে করতে বাঘ যখন খানিকটা ঝিমুতে শুরু করে, তখন কুকুরগুলো বাঘের মুখে থাবা দেয়। কয়েকটিতে মিলে বাঘের লেজ টানাটানি করতে থাকে। এতে বাঘ খুব অপমান বোধ করে। আর তাই রাগে-দুঃখে বাঘ দৌড়–তে শুরু করে। দৌড়–তে দৌড়–তে বাঘের পায়ের নিচের চর্বি গলে যায় ও বাঘ ক্লান্ত হয়ে পড়ে। ক্ষুধায়, তৃষ্ণায় ও ক্লান্তিতে বাঘ যখন প্রায় আধমরা হয়ে যায়, তখনই যমদূতের মতো কুকুরগুলো বাঘের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে ও দেহের বিভিন্ন স্থানে কামড়াতে থাকে। ধস্তাধস্তিতে দু’একটা কুকুর মারা গেলেও নাছোড়বান্দা কুকুরগুলো রনে ভঙ্গ দেয় না। বরং ওরা আরও উদ্যমে বাঘের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে ও শেষ পর্যন্ত বাঘকে হত্যা করে ছাড়ে।

যাক, এবার রাম কুত্তার প্রজনন ও বংশবৃদ্ধি সম্পর্কে জানা যাক। ওরা মাটিতে গর্ত খুঁড়ে বা পাহাড়ের গুহায় বাস করে। সেপ্টেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত ওদের প্রজননকাল। স্ত্রী ৬০ থেকে ৬৫ দিন গর্ভধারণের পর মাটির গর্ত বা পাহাড়ের গুহায় ৪ থেকে ৬টি বাচ্চা প্রসব করে। শুধু মা-বাবাই যে বাচ্চা লালনপালন করে তা নয়, বরং একাজে দলের অন্যান্য সদস্যরাও সাহায্য করে। প্রায় এক বছর বয়সে বাচ্চারা পূর্ণবয়স্ক হয়ে যায়। ওদের আয়ুষ্কাল প্রায় দশ বছর।

প্রবন্ধটির লেখক ও আলোকচিত্রী ড. আ ন ম আমিনুর রহমান একজন বন্যপ্রাণী জীববিজ্ঞানী, প্রাণী চিকিৎসা বিশেষজ্ঞ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক।

E-mail:[email protected], [email protected]

   

কুরচি ফুল, দেশি হয়েও আজ ভিনদেশি



মবিনুল ইসলাম, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম ঢাকা
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সন্ধ্যার আবছা আলোয় ঢাকা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় তীব্র একটা সুগন্ধে মনটা ভাল হয়ে গেল। বুঝতে পারলাম এটি একটি ফুলের গন্ধ, যারা রাত্রে সুগন্ধ ছড়ায়। অন্যান্য ফুলের গন্ধের চেয়ে এর গন্ধটা একটু যেন বেশি তীব্র। খুঁজতে লাগলাম গাছটিকে। অবশেষে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সামনে কোর্টস গার্ডেনে গাছটিকে খুঁজে পেলাম। গাছটিকে চিনে রাখলাম।

পরদিন দিনের আলোয় গাছটিকে ভাল করে লক্ষ্য করলাম। একটু অপরিচিত ঠেকলো। ভাবলাম বিদেশি কোনো ফুল গাছ হবে হয়তো। গাছটি সনাক্ত করতে গাছ, ফুল আর পাতার ছবি তুলে পাঠালাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ জসীম উদ্দিনকে। তিনি দেখে সাথে সাথেই জানালেন গাছটির নাম কুরচি। আমাদের দেশীয় উদ্ভিদ।

ঢাকা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সামনে কোর্টস গার্ডেনে কুরচি গাছ

উইকিপিডিয়াতে গাছটির আদি বাসস্থান মধ্য ও দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারতীয় উপমহাদেশ, ইন্দোচীন এবং চীনের কিছু অংশের নাম লেখা রয়েছে।

ড. জসীম বলেন, কুরচি আমাদের দেশীয় উদ্ভিদ। আমরা এটি রিপোর্ট করার আগেই হয়তো আফ্রিকা কিংবা অন্য কোনো স্থান হতে রিপোর্টিং হয়ে গেলে সেটি ওই স্থানের আদি উদ্ভিদ হয়ে যায়। শুধু কুরচি নয় এমনিভাবে আমাদের অনেক দেশীয় উদ্ভিদ বিদেশি হয়ে গেছে। অথচ আমাদের প্রাচীন আয়ুর্ব্বেদ শাস্ত্রে ও সাহিত্যে কুরচির উল্লেখ আছে।

তিনি আরও বলেন, কুরচি গাছের স্বাভাবিক উচ্চতা ১০ থেকে ২০ ফুট। ফুল অনেকটা রঙ্গন ফুলের মতো, নিচের অংশ নলাকৃতি এবং উপরের অংশ মুক্ত পাপড়িতে ছড়ানো। পাঁচটি পাপড়ির মুক্ত অংশ ঈষৎ বাঁকানো, বর্ণ দুধসাদা এবং তীব্র সুগন্ধি কিন্তু মধুর।

ড. জসীম আক্ষেপ করে বলেন, দেখতে সুন্দর ও তীব্র সুগন্ধিযুক্ত হওয়া সত্ত্বেও বাগানীদের কাছে শোভাবর্ধনকারী উদ্ভিদ হিসেবে তেমন কদর পায়নি। ফলে একসময় এ গাছ যত্রতত্র চোখে পড়লেও এখন আর তেমন চোখে পড়ে না। চট্টগ্রাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম ও মধুপুরের শালবনে প্রচুর কুরচি গাছের দেখা মেলে। ঢাকায় রমনা উদ্যান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যানেও কুরচি গাছ আছে।

সুগন্ধে ভরা কুরচি ফুল গাছ

কুরচির ঔষধিগুণ সমন্ধে তিনি বলেন, পুরো কুরচি গাছটিই ঔষধি গুণে ভরা। কুরচি গাছের বাকল ডায়রিয়া ও পাতলা পায়খানার মহৌষধ। হাঁপানি রোগে শিকড়ের রস দারুণ উপকারী। কোষ্ঠকাঠিন্য, প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া, কৃমি রোগ ও মুখের ঘায়ে এর শিকড়, পাতা ও বাকল খুব কার্যকর। তবে এটি ওষুধ হিসেবে ব্যবহারের ক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়ার উপদেশ দেন তিনি।

কুরচি অ্যাপোসাইনেসি পরিবারের একটি ক্ষুদ্র পত্রমোচী মাঝারী বৃক্ষ। পাহাড়-পর্বতে এই গাছ হরহামেশাই দেখা যায় বলে হয়তো এর অন্য নাম গিরিমল্লিকা। এ ছাড়া কুরচি গাছটি কুটজ, ইন্দ্রযব, ইন্দ্রজৌ, বৎসক, কলিঙ্গ, প্রাবৃষ্য, শত্রুপাদপ, সংগ্রাহী, মহাগন্ধ, কোটিশ্বর নামেও পরিচিত। এর নরম কাঠ থেকে পুতুল ও খেলনা তৈরি হয়।

;

শহুরে হস্তশিল্প প্রেমীদের সৌখিনতার রাজ্য দোয়েল চত্বর

  ‘এসো হে বৈশাখ’



গুলশান জাহান সারিকা, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
শহুরে হস্তশিল্প প্রেমীদের সৌখিনতার রাজ্য দোয়েল চত্বর

শহুরে হস্তশিল্প প্রেমীদের সৌখিনতার রাজ্য দোয়েল চত্বর

  • Font increase
  • Font Decrease

শত বছরের পুরোনো ঐতিহ্যের অংশ হয়ে বাঙালির জীবনের সাথে মিশে আছে নানান হস্তশিল্প। আবহমান বাংলা ও বাঙালির জীবন বৈচিত্র্যের সাথে জড়িয়ে আছে কারুশিল্প, মৃৎশিল্প। এসব কুটির শিল্প শুধু সৌখিন হাতের কারুকাজই নয়, এগুলো যেন বাঙালির জীবনের গল্প বলে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলের বিপরীতে শিশু একাডেমির পাশে দোয়েল চত্বরে সারা বছরই চলে হস্তশিল্প মেলা। সারি সারি বাহারি কারুকাজের নানান হস্তশিল্পের পসরা সাজিয়ে বসেছে দোকানিরা। ছোট- বড় মাটির ফুলদানি, টব, ওয়ালমেট, কলমদানি, মাটির তৈরি হাতি, ঘোড়া, ব্যাংক, প্লেট, বাটি, গ্লাস, চামচ, সহ দেওয়াল ও ঘর সজ্জার জিনিস মেলে এখানে। সামনে পহেলা বৈশাখকে কেন্দ্র করে মাটির হাড়ি কলসিতে চড়ছে নতুন রঙ। 

দোকানগুলোতে দেখা যায় পুরোদস্তুর বাঙ্গালিয়ানার ছাপ। মাটির তৈরি হরেক রকম জিনিস, পোড়ামাটির টেরাকোটার কাজ, কাঠের খোঁদায় করা বিভিন্ন কারুকার্য। শহুরে হস্তশিল্প প্রেমীদের জন্য সৌখিনতার রাজ্য যেন রাজধানীর দোয়েল চত্বর এলাকা। মৃৎশিল্প, কারুশিল্প, বেত শিল্পের মেলবন্ধনে হস্তশিল্প প্রেমীরা তাই হারিয়ে যায় সৌখিনতার এ রাজ্যে।


দোয়েল চত্বরে মৃৎশিল্পের পাশাপাশি কাঠ, বেত, পাট, পিতল, ও কাঁসার তৈরি পণ্য গুলো ও আকর্ষণীয় করে ক্রেতাদের। কাঠের খোঁদায় করা গহনার বাক্স, টেবিল ল্যাম্প, ওয়ালম্যাট, পাটের তৈরি ব্যাগ, পুতুল শোপিস সহ কাঠের ও মাটির গহনা কিনতে দোয়েল চত্বর যান সৌখিন মানুষেরা। বাংলা নববর্ষে এসব পণ্যের চাহিদা বেশি হয়।

ঢাকা গেট থেকে শিশু একাডেমির পথে যেতে ফুটপাত জুড়ে ৪০ টির অধিক দোকান রয়েছে। প্রায় ৩০ বছর আগে কয়েকটি দোকানে মাটির তৈরি নানা জিনিস দিয়ে বিক্রি শুরু হয় পরে তার সাথে যুক্ত হয় নানা হস্তশিল্পের বাহারি পন্য, চাহিদাও সময়ের  সাথে বাড়ে দোকানের সংখ্যাও। সাভার, পটুয়াখালী সহ নানা স্থানের কুমোরটুলি থেকে তারা এসব জিনিস নিয়ে এসে বিক্রি করেন। কুমোরটুলিতে চলে কুমোরের মাটির সাথে হাতের আর মনের খেলা। মাটির তাল বানিয়ে, চাক ঘুরিয়ে, হাতের আদলে তৈরি করে নানা রকম সৌখিন জিনিস। সেসব জিনিস স্থান পায় শহুরে বৈঠক খানার সৌন্দর্য বর্ধনে। আর শহরের মানুষ এসব জিনিস খুব সহজে পায় ঢাবির দোয়েল চত্বর এলাকায়।


প্রায় ২৫ বছর ধরে দোয়েল চত্বরে ব্যবসা করছেন গোলাম মৃৎশিল্পের স্বত্বাধিকারী আরিফুল ইসলাম। তিনি বার্তা ২৪ কে বলেন, "অনেক বছর ধরেই এখানে ব্যাবসা করছি বছর পঁচিশেক হবে । দেশি-বিদেশি নানা পর্যটক সহ শহরের অনেক মানুষ আমাদের থেকে জিনিস নিয়ে যায়। শৌখিন মানুষ ঘর সাজাতে এদিক থেকে কিনে নিয়ে যায়। আমরা পটুয়াখালী থেকে মাটির জিনিস আনি। পহেলা বৈশাখের সময় এসব জিনিস বেশি বিক্রি হয়। তাছাড়া সারাবছরই চাহিদা থাকে। "

রেওয়ান হ্যান্ডি ক্রাফট থেকে শাহাদাত হোসেন জানান, " আমাদের এখানে বাঁশ, কাঠ বেত, পিতল, পাট ও মাটির সামগ্রী খুচরা, পাইকারি ভাবে বিক্রি হয়। ঘর সাজানোর জিনিসপত্র বেশি। মাটির ডিনারসেট, গহনা, পাটের ব্যাগও আছে। পহেলা বৈশাখ আসলে বিক্রি দিগুণ হয়। সাভার, পটুয়াখালী থেকে তৈরি জিনিস আসে এখানে আমরা আবার রংকরি, কাচ বসাই আরও সুন্দর করি, সারাবছর মাস প্রতি ৮০ থেকে ১ লাখ টাকা বিক্রি হয় প্রায় প্রত্যেক টা দোকানে। পহেলা বৈশাখের সময় মাটির পাত্রের চাহিদা বাড়ে। "

দোয়েল চত্বর থেকে ঘর সাজানোর জিনিস কিনতে আসা শাহনেওয়াজ খানম জানান, " আমার বাসার মাটির বেশিরভাগ জিনিস এখান থেকে নেওয়া। ৫০ টাকা থেকে ২৫০০ টাকা পর্যন্ত জিনিস পাওয়া যায়। মাটির গহনা, কাঠের গহনা, টেরাকোটা সবই কম দামে পাওয়া যায়। "

বাঙালির লোক সাংস্কৃতির ঐতিহ্য গ্রাম ছাড়িয়ে শোভা পায় শহুরে জীবনের সৌখিনতায়। কারুশিল্প, মৃৎশিল্প ছাড়া ও কাঠ, বাঁশ, বেতের তৈরি বিভিন্ন হস্ত শিল্পের ঐতিহ্য বাংলার মানুষ আষ্টে পিষ্টে লালন করে তাদের যাপিত জীবনধারায়, সৌখিনতায় যার খোঁজে মানুষ যায় দোয়েল চত্বর সংলগ্ন হস্তশিল্প মেলায়।

;

বাঙালির চৈত্র সংক্রান্তি



ফিচার ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
চৈত্র সংক্রান্তি / ছবি : সংগৃহীত

চৈত্র সংক্রান্তি / ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চৈত্র মাসের শেষ দিনে পালন করা হয় চৈত্র সংক্রান্তি। বাঙালি ঐতিহ্যের অন্যতম উৎসব সংক্রান্তি। পুরাতনকে বিদায় দিয়ে জীর্ণতা দূর করার আনন্দ উৎসব এই সংক্রান্তি। চৈত্র মাসের শেষ দিনে সংক্রান্তি পালন করার মাধ্যমে নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত হয় বাঙালিরা।

ঘরবাড়ি, পথঘাট সেজে ওঠে রঙিন আলপনায়। ধানের ছড়া, কলসি, ফুল, লতা-পাতা নানারকম নকশা ফুটে ওঠে আলপনায়। তার সাথে বাঘ, পেঁচা, পাখি নানারকম রঙিন মুখোশ তৈরি করা হয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে মঙ্গল শোভাযাত্রা এবং র‌্যালিতে নামে মানুষ।     

এছাড়াও খাওয়া দাওয়া আছেই! মুড়ি, মুরকি, নিমকি, বাতাসা, নকুলদানা, গুড় সহ নানারকম খাবারের আয়োজন করা হয় সংক্রান্তিতে।ৎ

চৈত্র সংক্রান্তি

বাঙালির উৎসব হলেও হিন্দু ধর্মানুসারীদের জন্য একটি ধর্মীয় উৎসবও বটে। লোকাচার অনুযায়ী এই দিনকে পুণ্য লাভের সুযোগ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তাই সংক্রান্তিতে নানারকম হিন্দুধর্মীয় রীতিও পালন করা হয়। নতুন বছর যেন ভালোভাবে কাটে এই প্রার্থনায় ব্রত করা হয়। তাছাড়া দান সেবাও করে তারা। সংক্রান্তির আগের দিন তারা নীল পূজা করে, যা মূলত শিব নীলকণ্ঠের উপাসনা। এছাড়া, সংক্রান্তির দিন শিবের গাজন পূজা করা হয়। অনেক স্থানে একে চড়ক পূজাও বলা হয়।  

সময় যত যাচ্ছে মানুষ তত আধুনিক হচ্ছে। তবে কেমন যেন এক গোড়ামি ধারণা মানবমনে ধারন করা হয়েছে যে, পশ্চিমা সংস্কৃতি মানেই আধুনিক! নিজস্ব সংস্কৃতির লালন পালনের মাধ্যমেও যে আধুনিকতা বহন করা যায় যা যেন সকলে ইচে্ছ করেই ভুলে যেতে চায়। আগে, বঙ্গগ্রামে প্রতিটি বাংলা মাসেই সংক্রান্তি পালন করা হতো। তবে সময়ের সাথে সাথে সেই ঐতিহ্য বিলুপ্ত প্রায়। কোনো রকমে বেঁচে আছে বছরের দুই মাসের সংক্রান্তি। কনকনে শীতে পৌষ মাসের শেষ দিন পালন করা হয় পৌষ সংক্রান্তি। অন্যদিকে বছরের শেষ মাস, চৈত্রের শেষেও বাঙালিরা চৈত্র সংক্রান্তি উদযাপন করে।     

;

‘আলোর স্কুল’ জামাল স্যারের স্বপ্নের পাঠাগার



মায়াবতী মৃন্ময়ী, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
জামাল স্যারের পাঠাগার উদ্বোধন করছেন ড. মাহফুজ পারভেজ/ বার্তা২৪

জামাল স্যারের পাঠাগার উদ্বোধন করছেন ড. মাহফুজ পারভেজ/ বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

স্বপ্ন শুরু হয়েছিল শৈশবে ফেনী শহরে। তারপর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রজীবনে। সর্বশেষে চট্টগ্রাম শহরের পাঁচলাইশে। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের সৃজনশীলতা বিকাশে পথ ও পন্থা খুঁজছিলেন তিনি। চেষ্টা করছিলেন তাদের মননশীলতার চর্চাকে উন্মুক্ত করতে। সেই কাজ করতে গিয়ে সরকারি চাকরি বা ব্যবসায় নিজেকে নিয়োজিত করেন নি। থেকে গেছেন ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যেই। তার আসল নাম কাজী জামালউদ্দিন বলে এখন কম লোকেই ডাকে। সবাই বলে জামাল স্যার, চট্টগ্রামের পাঁচশাইশের জামাল স্যার।

জামাল স্যার দিন-রাত এক করে শিক্ষার্থীদের সঙ্গ দেন। তাদের দুর্বলতা কাটাতে চিন্তা-ভাবনা ও চেষ্টা করেন। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের নিয়ে দফায় দফায় বসেন মটিভেশনাল সেশানে। তারপর একজন ছাত্র বা ছাত্রী যখন শিক্ষাজীবনে সফলতার সঙ্গে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে সক্ষম হয়, তখন তার চোখের কোণে দেখা যায় আনন্দাশ্রু। আর পিছিয়ে থাকা শিক্ষার্থীটির পরিবার জুড়ে বয়ে যায় খুশির হিল্লোল। ‘এমন পরিস্থিতি আমার জীবনের সবচেয়ে সুখের সময়‘, বললেন জামাল স্যার।

‘সঠিক দিক-নির্দেশনা না পেয়ে অনেক সম্ভাবনাময় শিক্ষার্থী সফল হতে পারে না। তারা হতাশ ও জীবনবিমুখ হয়ে যায়। স্কুল ও বাবা-মা ব্যস্ততার কারণে তাদের সমস্যাগুলো দরদ ও মনোযোগ দিয়ে দেখার সময় ও সুযোগ পান না।  ফলে সম্ভাবনা থাকার পরেও অনেকেই সফল হয় না। আমি তাদের দুর্বলতা ও সমস্যাগুলো নিয়ে কাজ করি। সমস্যাকে সম্ভাবনায় রূপান্তরিত করি,‘ জানালেন জামাল স্যার।

তিনি বলেন, ‘আমি গতানুগতিক কোচিং এ বিশ্বাস করি না। আমি মনে করি, প্রতিটি সিলেবাস ও পাঠ্যক্রমে কিছু অপূর্ণতা থাকায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কার্যকর সংযোগ হয় না। এই গ্যাপটি ধরিয়ে দিতে পারলেই সমস্যা পরিণত হবে সম্ভাবনায়।‘

বই উপহার পেলো শত শিক্ষার্থী/বার্তা২৪

জামাল স্যারের মতে, ‘প্রতিটি শিক্ষার্থী একই রকমের সমস্যার সম্মুখীন হয় না। তাদের সমস্যা বহুমাত্রিক। আবার স্কুলগুলোর সমস্যাও নানামুখী। এগুলোকে বিচার-বিশ্লেষণ করে সংযোগ সাধন করা আমার কাজ।‘

তিনি জানান, ‘আমাদের স্কুলগুলো মূলত আধাদিনের। বাকী সময় শিক্ষার্থী থাকে মাঝিবিহীন নৌকার মতো। অভিভাবকরাও নিজের কাজের শেষে সন্তানদের যথেষ্ট সময় দিতে পারেন না। এতে শিক্ষার্থীরা জীবনের মূল পথ খুঁজে পায় না। অথচ তাদেরকে সঠিক দিশা দেখানো হলে দেশের মানবসম্পদ বিকাশের কথ মসৃণ হবে। তাদের অন্যান্য সুপ্ত প্রতিভা এবং লাইফস্কিল ডেভেলপ করলে সে শুধু ভালো ছাত্রই হবে না, ভালো ও সফল মানুষ হবে।‘

এ কারণেই বিকল্প স্কুলের মতো একটি লাইব্রেরি গড়েছেন তিনি। শিশু-কিশোরদের উপযোগী বিষয়ভিত্তিক সমায়ক বই রয়েছে সেখানে। তার মতে, ‘ইন্টারনেটে অনেক ফেক ও অসম্পূর্ণ তথ্য থাকে। শুধু নেটে বসে হাজারো তথ্যের অনুসরণ করলে শিক্ষার্থীরা সৃজনশীল চিন্তা ও মননশীল প্রচেষ্টার শক্তি হারাবে। এজন্য তাদেরকে বই ও পাঠাগার মুখী করতে হবে।“

চট্টগ্রামের পাঁচলাইশের পাশাপাশি নিজের জন্মস্থান ফেনী শহরেও জামাল স্যার শিক্ষা নিয়ে কাজ করছেন। গড়ে তুলেছেন ভিন্নধর্মী, জীবনমুখী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ভাষা আন্দোলনের অমর স্মৃতি বিজড়িত ফেব্রুয়ারি মাসে মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন-এর সঙ্গে একযোগে শতাধিক শিক্ষার্থীকে বই উপহার দিয়েছেন তিনি। গত ৯ ফেব্রুয়ারি বিকালে বন্দরনগরী চট্টগ্রামর পাঁচলাইশ আবাসিক এলাকার ডা.সালাউদ্দীন ভবনে আনন্দমুখর পরিবেশে এই বই উপহার উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। সেদিনই আনুষ্ঠানিকভাবে তার পাঠাগারের উদ্বোধন করা হয়।

চট্টগ্রামে সৃজনশীল পাঠদানের পথিকৃৎ জামাল স্যারের সভাপতিত্বে বই উৎসব ও পাঠাগার উদ্বোধনে প্রধান অতিথি ছিলেন মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান, বার্তা২৪.কম‘র অ্যাসোসিয়েট এডিটর, চট্টগ্রাম সেন্টার ফর রিজিওনাল স্টাডিজ, বাংলাদেশ (সিসিআরএসবিডি)-এর নির্বাহী পরিচালক এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মাহফুজ পারভেজ। বিশেষ অতিথি ছিলেন আন্তর্জাতিক ইসলামিক ইউনিভার্সিটি চট্টগ্রামের প্রফেসর ড. আবুল কালাম আজাদ। উপস্থিত ছিলেন আরো অনেক শিক্ষাবিদ ও অভিভাবক।

অনুষ্ঠানে ড. মাহফুজ পারভেজ বলেন, সভ্যতার আদি সূচনা থেকে আজকের অত্যাধুনিক জগত পর্যন্ত গ্রন্থাগার বা লাইব্রেরির উপস্থিতি বিদ্যমান এবং মানব জাতির সাংস্কৃতিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক অগ্রগতি ও বিকাশের প্রতীক রূপে বিবেচিত। লাইব্রেরি-বিহীন সমাজের ঐতিহ্যগত শেকড়, সাংস্কৃতিক দ্যুতি ও বুদ্ধিবৃত্তিক ভিত্তি দুর্বল। প্রাচীন সভ্যতা থেকে আজকের পৃথিবীতে বিশেষায়িত ও সাধারণ গ্রন্থাগার যেমন রয়েছে, তেমনি রয়েছে গণগ্রন্থাগার বা পাবলিক লাইব্রেরি, যা সভ্যতার চাকাকে সচল রেখেছে এবং মানব জাতির মেধার ভাণ্ডারকে প্রজন্মব্যাপী সম্প্রসারিত করে চলেছে। জামাল স্যারের স্বপ্নের পাঠাগার আসলে একটি ‘আলোর স্কুল‘।

;