তাইওয়ানের স্বাধীনতা চাইলেই মৃত্যুদণ্ড দিবে চীন



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

তাইওয়ান ভূখণ্ডের চারপাশে একের পর এক নৌমহড়া চালানোর পর এবার কট্টর আইন পাস করেছে রক্ষণশীল চীন। এ আইন অনুযায়ী, ভূখণ্ডটির স্বাধীনতা দাবি করলেই মৃত্যুদণ্ড প্রদান করা হবে।

শনিবার (২২ জুন) দ্য গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তাইওয়ানের স্বাধীনতার পক্ষকে সমর্থনকারীদের মৃত্যুদণ্ডের শাস্তির বিষয়টি বিচারিক নির্দেশিকায় যুক্ত করেছে চীন। ফৌজদারি অপরাধের বিশেষ গুরুতর মামলার ক্ষেত্রে এ শাস্তি প্রযোজ্য হবে। 

যারা তাইওয়ানের স্বাধীনতার পক্ষ নেবেন পরিস্থিতি বুঝে তাদের ১০ বছর থেকে শুরু করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডও হতে পারে বলে আদেশে উল্লেখ আছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, চিনহুয়া জানিয়েছে, শুক্রবার (২১ জুন) বেইজিংয়ের জারি করা নির্দেশনায় দেশকে বিভক্ত ও বিচ্ছিন্নতা উসকে দেওয়ার জন্য তাইওয়ানের স্বাধীনতাপন্থিদের শাস্তির কথা জানানো হয়েছে। এ ছাড়া ভূখণ্ডের স্বাধীনতার প্রচেষ্টায় মূল ভূমিকা পালনকারী এবং রাষ্ট্র ও জনগণের ক্ষতিকারীদের মৃত্যুদণ্ডের কথা বলা হয়েছে।

চীনের এমন আদেশ জারির পর তার তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে তাইওয়ান। তারা জানিয়েছে, বেইজিং পুরো তাইওয়ানে কোনো আইনি এখতিয়ার রাখে না। এ ছাড়া বেইজিং নিয়ম মানতে যে নির্দেশনা দিয়েছে তা তাইওয়ানের জনগণের জন্য মানা বাধ্যতামূলক নয়।

তাইওয়ানের মেইনল্যান্ড অ্যাফেয়ার্স কাউন্সিল এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, চীনের এমন পদক্ষেপ তাইওয়ান প্রণালিজুড়ে জনগণের মধ্যে সংঘাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য উসকানি হিসেবে কাজ করবে। এ পদক্ষেপ বেইজিং ও তাইওয়ানের মধ্যে সম্পর্কের জন্য ইতিবাচক উন্নয়নে সহায়ক নয়।

চিনহুয়া জানিয়েছে, বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের সঙ্গে জড়িত এবং রাষ্ট্রকে বিভক্ত করে এমন কর্মকাণ্ড চালাতে নির্দেশ দেওয়া ব্যক্তিদের উদ্দেশ্য করে বেইজিং এমন নির্দেশনা দিয়েছে। শুক্রবার থেকেই এটি কার্যকর করা হয়েছে।

চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম পিপলস ডেইলি জানিয়েছে, শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে শীর্ষ নিরাপত্তা কর্মকর্তা সান পিং এ নির্দেশিকা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, এ নির্দেশনা অনুসারে অভিযুক্ত বিচ্ছিন্নতাবাদীদের ওপর আইনি পদক্ষেপের ধারালো খড়্গ সব সময় উঁচুতে ঝুলবে। 

তিনি আরও বলেন, তাইওয়ানের সব জনগণকে লক্ষ্য করে এটি জারি করা হয়নি। কেবল তাইওয়ানের স্বাধীনতা নিয়ে ওকালতি করা কিছু বিচ্ছিন্নতাবাদীদের লক্ষ্য করে এটি জারি করা হয়েছে।

তাইওয়ানকে নিজেদের ভূখণ্ড হিসেবে বিবেচনা করে চীন। ফলে এ ভূখণ্ডকে নিজেদের সঙ্গে যুক্ত করতে শক্তিপ্রয়োগের কথাও জানিয়ে আসছে দেশটি। এরই অংশ হিসেবে সম্প্রতি ভূখণ্ডের ওপর চাপ বাড়িয়েছে তারা। এমনকি তাইওয়ানের আশপাশে বেশ কয়েকটি সামরিক মহড়াও দিয়েছে চীন। গত মাসে তাওয়ানের নতুন প্রেসিডেন্ট লাই চিং তে দায়িত্ব নেওয়ার পর সর্বশেষ মহড়া চালায় তারা।

ট্রাম্পের ওপর হামলা, প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনায় ওঠে এলো ঘটনা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রিপাবলিকান পার্টির প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারণায় হামলার বর্ণনা দিয়েছেন ওই সমাবেশে থাকা এক প্রত্যক্ষদর্শী।

রোববার (১৪ জুলাই) বিবিসির এক প্রতিবেদনে সেই তথ্য তুলে ধরা হয়।

ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারে থাকা ওই প্রত্যক্ষদর্শী বিবিসিকে জানান, ট্রাম্পের বক্তব্যে শুরু হওয়ার ৫ থেকে ৭ মিনিট পর একজন ব্যক্তিকে একতলা বাড়ির ছাদের ওপর হামাগুড়ি দিতে দেখি। তখন তার সাথে একটি রাইফেলও ছিল। এ বিষয়টি তিনি ও তাঁর বন্ধুরা নিরাপত্তা বাহিনীকে সতর্ক করার আগেই ট্রাম্পকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়তে থাকেন ওই হামলাকারী। তবে কয়েক মিনিটের মধ্যেই হামলার ঘটনা ঘটে যায়।

তবে বিবিসির পক্ষ থেকে প্রত্যক্ষদর্শীদের এসব কথা নিরপেক্ষভাবে যাচাই করা সম্ভব হয়নি বলেও প্রতিবেদনে জানানো হয়।

এ ঘটনার পর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনসহ অন্যান্য নেতারা। 

হামলার পরে সিক্রেট সার্ভিস এক বিবৃতিতে জানায়, পেনসিলভানিয়ার বাটলারে স্থানীয় সময় শনিবার (১৩ জুলাই) সন্ধ্যা সোয়া ছয়টার দিকে ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারের মঞ্চ লক্ষ্য করে সন্দেহভাজন হামলাকারী একাধিক গুলি ছুড়েছেন। তিনি সমাবেশস্থলের বাইরে থেকেই হামলা চালান। এতে মঞ্চের সামনে দর্শকসারিতে থাকা একজন নিহত হন। গুরুতর আহত হয়েছেন আরও দুজন। গুলিতে ট্রাম্পের ডান কানের ওপরের অংশে ফুটো হয়ে গেছে। সিক্রেট সার্ভিসের সদস্যদের গুলিতে সন্দেহভাজন হামলাকারী ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন।

এদিকে হামলার এ ঘটনায় তদন্ত শুরু হয়েছে। সিক্রেট সার্ভিসের সদস্যরা যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাকে (এফবিআই) ঘটনাটি অবহিত করেছেন বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে। 

;

ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলেছেন বাইডেন



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চলতি বছরের নভেম্বরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এর অংশ হিসেবে পেনসিলভানিয়ায় এক নির্বাচনী প্রচারে হামলার শিকার হন আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ট্রাম্প।

ট্রাম্প জানান, এতে তার ডান কানের ওপরের অংশ ফুটো হয়ে গেছে। চিকিৎসা নেওয়ার পর হাসপাতাল ছেড়েছেন।

এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। কথা বলেছেন গুলিবিদ্ধ ট্রাম্পের সাথে।

রোববার (১৪ জুলাই) হোয়াইট হাউজের বরাত দিয়ে বিবিসি এ তথ্য জানায়।

হোয়াইট হাউসের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, এ ঘটনা শোনার পরই প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে কথা বলেছেন।

তবে তাদের মধ্যে কি নিয়ে কথা হয়েছে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেননি ওই কর্মকর্তা।

এছাড়াও তিনি পেনসিলভানিয়ার গভর্নর জোশ শাপিরো এবং বাটলারের মেয়র বব ড্যান্ডয়ের সাথেও কথা বলেছেন। 

;

হাসপাতাল ছেড়েছেন ট্রাম্প



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও আগামী নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। পেনিসেলভেনিয়ার বাটলার শহরে হওয়া এই হামলায় অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন তিনি। ঘটনার পরই স্থানীয় একটি হাসপাতালে তাকে ভর্তি করানো হয়।

চিকিৎসা শেষে ট্রাম্প হাসপাতাল ছেড়েছেন বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

রোববার (১৪ জুলাই) বিবিসি জানায়, চিকিৎসা শেষে ট্রাম্প হাসপাতাল ছেড়েছেন। তবে তিনি এখন কোথায় যাচ্ছেন তা স্পষ্ট নয়। পেনিসেলভেনিয়ার বাটলার শহরের সমাবেশ শেষে আজ নিউ জার্সির বেডমিনস্টারে তার যোগ দেওয়ার কথা ছিল। 

এই সমাবেশের পর উইসকনসিনের মিলওয়াকিতে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর কথা রয়েছে।

;

২০০ ফুট দূর থেকে ট্রাম্পকে হামলা করা হয়



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
২০০ ফুট দূর থেকে ট্রাম্পকে হামলা করা হয়/ ছবিঃ সংগৃহীত

২০০ ফুট দূর থেকে ট্রাম্পকে হামলা করা হয়/ ছবিঃ সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নির্বাচনী প্রচারণায় গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এ ঘটনার পরপরই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গুলিতে হামলাকারী নিহত হয়েছেন।

২০০ থেকে ৩০০ ফুট দূরত্বে এ হামলা চালানো হয়েছে বলে জানান দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

আইনশৃঙ্খলা প্রয়োগকারী একাধিক কর্মকর্তা সিবিএস নিউজকে জানান, ট্রাম্পকে একটি এআর-স্টাইলের রাইফেল দিয়ে গুলি করা হয়েছে। প্রায় ২০০ থেকে ৩০০ ফুট দূরত্বের অবস্থান থেকে এ হামলা চালানো হয়।

এ ঘটনার পরপরই হামলাকারী আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে নিহত হয়েছেন বলেও জানান ওই কর্মকর্তারা। 

;