কওমি মাদরাসা খোলার অনুমতি নিয়ে ধূম্রজাল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ঢাকা, বার্তা২৪.কম
কওমি মাদরাসার ক্লাসরুম, ছবি: সংগৃহীত

কওমি মাদরাসার ক্লাসরুম, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দিন দিন দেশের কওমি মাদরাসাসমূহ খোলার দাবি জোরালো হচ্ছিল। সংশ্লিষ্টদের মতে, দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব কমে এসেছে। সরকারও নিয়মিত বুলেটিন বন্ধ করে দিয়েছে। চাকরি, বাজার, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান সব কিছু খুলে দেওয়া হচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে মাদরাসা বন্ধ করে রাখার কোনো মানে নেই। বরং দ্বীনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিলে সেখানে শিক্ষার পাশাপাশি এ মহামারি থেকে উত্তরণে আল্লাহর কাছে দোয়ার সুযোগ তৈরি হবে।

এই যুক্তিতে কওমি মাদরাসার বোর্ড ও আলেম-উলামাদের পক্ষ থেকে দ্রুত মাদরাসা খুলে দেওয়ার দাবি জানানোর পাশাপাশি দেন-দরবার ও তদবির শুরু হয়। এর প্রেক্ষিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুব শিগগিরই দেশের সব কওমি মাদরাসা খোলার বিষয়ে আশ্বাস পেয়েছেন কওমি আলেমরা। তবে কবে নাগাদ আনুষ্ঠানিকভাবে খুলে দেওয়া হবে কিংবা ক্লাসসহ সামগ্রিক কার্যক্রম শুরু হবে- সে বিষয়ে নির্দিষ্ট কিছু জানা যায়নি।

মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) জাতীয় দীনি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের সহ-সভাপতি ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ তার ফেসবুকে এ তথ্য জানান। এরপর বনশ্রী জামিয়া দারুল উলুমের প্রিন্সিপাল মাওলানা ইয়াহইয়া মাহমুদ এক ভিডিও বার্তায় এ সংবাদ নিশ্চিত করেন।

কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল বাংলাদেশ মাদরাসা খোলার বিষয়ে এখন কিছু বলেনি। সার্বিক বিষয়ে আলোচনা করতে সংস্থাটির স্থায়ী কমিটির সভা আহ্বান করা হয়েছে ২৪ আগস্ট। এর আগে পরীক্ষা উপ-কমিটির সভা হবে ২২ আগস্ট। বৈঠকে পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ এবং পরীক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে।

মাদরাসাগুলো খোলার ব্যাপারে এখনও সরকারি কোনো প্রজ্ঞাপন কিংবা নির্দেশনা আসেনি। তাই নির্দিষ্টভাবে বলা যাচ্ছে না- কবে খুলছে কওমি মাদরাসাগুলো। আর কবে থেকে পরীক্ষা শুরু হবে কিংবা শিক্ষার্থীরা মাদরাসায় আসা শুরু করবেন। এটা নিয়ে এক ধরনের ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি যে যার মতো করে ব্যাখ্যা দিয়ে পরিস্থিতি আরও জটিল করে তুলেছেন। ছাত্র-অভিভাবকরা এটা নিয়ে দুশ্চিন্তায় সময় কাটাচ্ছেন।

মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) বিকেল পাঁচটার দিকে আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল বাংলাদেশের ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে সংস্থাটির অফিস সম্পাদক মু. অছিউর রহমান এক পোস্টে জানান, ‘আল হাইয়াতুল উইলয়া বাংলাদেশ এর পরীক্ষা উপ-কমিটির সভা আহ্বান করা হয়েছে শনিবার, ২২ আগস্ট এবং স্থায়ী কমিটির সভা আহ্বান করা হয়েছে সোমবার, ২৪ আগস্ট। পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ এবং পরীক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সভায় আলোচনা হবে।

উল্লেখ্য, আল হাইয়াতুল উইলয়া বাংলাদেশ কর্তৃক গঠিত সাব-কমিটি মাদরাসা খোলার বিষয়ে গত ১২ আগস্ট হাইয়ার চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রধানমন্ত্রী বরাবর লিখিত পত্রসহ কেবিনেট সচিবের সঙ্গে সাক্ষাত করেন এবং তার মধ্যস্থতায় প্রধানমন্ত্রীর নিকট ওই পত্র পৌঁছান। ওই পত্রের জবাবে কেবিনেট সচিব সাব-কমিটির আহবায়ক মাওলানা মাহফুজুল হককে ফোনে জানান, আপনারা প্রস্তুতি শুরু করতে পারেন। ২/১ দিনের মধ্যে বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে।’

এদিকে সোমবার জাতীয় দীনী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের এক প্রতিনিধি দল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, করোনায় বন্ধ থাকা দেশের কওমি মাদরাসাগুলো খুলে দেওয়ার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই সিদ্ধান্ত দেবেন।

তিনি জানান, অতি দ্রুততম সময়ের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা ও পরামর্শ করে তার মতামতের ভিত্তিতে দেশের কওমি মাদরাসাগুলো খুলে দেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

প্রতিনিধি দলের সদস্য মাওলানা ইয়াহইয়া মাহমুদ মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) চার মিনিট একত্রিশ সেকেন্ডের ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘সকালে ধন্যবাদ জানিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কেবিনেট সচিবকে একটি ম্যাসেজ দিলাম। এরপর সকাল নয়টা সাত মিনিটে উনার একটি ম্যাসেজ পেলাম।

ম্যাসেজে তিনি লিখেছেন, ‘ওয়ালাইকুম সালাম! মাই থ্যাংকস! টেক পিপারেশন ফর এর‌্যাঞ্জিং এক্সামেনেশন।’ অর্থাৎ তিনি খুব দ্রুত পরীক্ষার প্রস্তুতি গ্রহণের জন্য আমাদের অনুরোধ করেছেন। সেই পরিপ্রেক্ষিত আমি আপনাদের সুসংবাদ দিতে চাই যে, খুব দ্রুত হাইয়াতুল উলইয়ার মিটিং ডেকে পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হবে- ইনশাআল্লাহ। আপনারা প্রস্তুত থাকুন।

মাওলানা ইয়াহইয়া মাহমুদ আরও বলেন, আমরা ধরে নিতে মাদরাসার কিতাব বিভাগের খোলার অনুমতি দিয়েছে সরকার। তাই কিতাব বিভাগের কার্যক্রমও এখন থেকে আমরা চালু করতে পারি। আশা করি, আর কোরো সরকারি বাঁধা আসবে না- ইনশাআল্লাহ।

ভিডিও বার্তায় অবশ্য তিনি সবাইকে সতর্ক করে বলেন, স্বাস্থ্যবিধির প্রতি যত্মবান হওয়া প্রতিটি মাদরাসার দায়িত্বশীল যারা আছেন, তাদের জন্য অপিহার্য। এদিকে সকলকে লক্ষ্য রাখার অনুরোধ জানান তিনি।

হাইয়াতুল উলইয়ার বিবৃতি আর দীনী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের এক প্রতিনিধি দলের সদস্যদের কথায় এটা স্পষ্ট যে, মাদরাসা খোলার কোনো নির্দিষ্ট তারিখ ঘোষণা করা হয়নি। আশ্বাস দেওয়া হয়েছে আর প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে পরীক্ষার।

হাইয়াতুল উলইয়ার একাধিক সদস্য বার্তা২৪.কমকে বলেন, এসবই মৌখিক আশ্বাস। লিখিত বা সরকারি প্রজ্ঞাপন ছাড়া মাদরাসা খোলার নির্দিষ্ট কোনো তারিখ আমরা ঘোষণা করতে পারি না। তবে, অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, ১ সেপ্টেম্বর থেকে নিয়মতান্ত্রিকভাবে সবকিছু চালু করতে পারবো, এর আগে নয়। এর মধ্যে আনুষঙ্গিক কাজ-কর্মগুলো শেষ করা যাবে। 

প্রসঙ্গত, করোনা মহামারির কারণে দেশের প্রায় ২২ হাজার কওমি মাদরাসার ২৫ লক্ষাধিক শিক্ষার্থী বিগত শিক্ষাবর্ষের বার্ষিক পরীক্ষা দিতে পারেনি। ঈদুল ফিতরের পর কওমি মাদরাসাগুলোর নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হলেও করোনার কারণে তা স্থগিত রাখা হয়। তবে ১২ জুলাই থেকে দেশের সব হাফিজিয়া মাদরাসা চালুর অনুমতি দিয়েছে সরকার। এরও আগে ১ জুন দেশের কওমি মাদরাসায় ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে অফিস খোলার অনুমতি দিয়েছিল সরকার।

করোনা মহামারির কারণে গত ১৮ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সব মাদরাসাও বন্ধ ঘোষণা করা হয়। প্রায় পাঁচ মাস ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় ব্যাঘাত হয়েছে। আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে সরকার।

মাঝে অবশ্য কওমি মাদরাসার সম্মিলিত শিক্ষা বোর্ড আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশ নিজেরাই সিদ্ধান্ত নেয় ৮ আগস্ট থেকে কওমি মাদরাসার সব শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করার। পরে তারা এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন।