জাতীয় শোক দিবসে ইফা আয়োজিত প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ইসলামিক ফাউন্ডেশনের লোগো, ছবি: বার্তা গ্রাফিক্স

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের লোগো, ছবি: বার্তা গ্রাফিক্স

  • Font increase
  • Font Decrease

জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে জাতীয় শোক দিবস ২০২০ উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন আয়োজিত জাতীয় শিশু-কিশোর প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন হয়েছে।

সোমবার (৩১ আগস্ট) সকালে পৃথক পৃথক আয়োজনের মাধ্যমে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানসমূহে স্ব-স্ব জেলা ও বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিভাগীয় পরিচালক এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা সংযুক্ত হন। প্রতিটি জেলা ও বিভাগীয় কার্যালয় অনলাইনে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয়ের সঙ্গে অনুষ্ঠানে সংযুক্ত হয়।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অনলাইনে সংযুক্ত হন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. মোয়াজ্জেম হোসেন।

এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি স্বাধীন, শোষণ ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখেছিলেন। এ জন্য তিনি আজীবন সংগ্রাম করেছেন। বঙ্গবন্ধু অনুধাবন করেছিলেন সোনার বাংলাদেশ গড়তে নৈতিক বোধসম্পন্ন মানুষ তৈরি করা জরুরি। আর এই চিন্তা থেকেই বঙ্গবন্ধু ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন। ইসলামিক ফাউন্ডেশন জাতির পিতার সেই স্বপ্ন পূরণে আলোকিত মানুষ তৈরির কাজ করে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক আনিস মাহমুদ।

অনুষ্ঠানে বরিশাল, সিলেট, নওগাঁ, নাটোর, শরীয়তপুর, শেরপুর, পঞ্চগড়, নীলফামারী ও নেত্রকোনাসহ বিভিন্ন জেলার জেলা প্রশাসক ও বিভাগীয় কমিশনারগণ বক্তব্য রাখেন।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয় থেকে মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ফারুক আহম্মেদ (যুগ্ম-সচিব), ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন বিভাগের পরিচালকসহ কর্মকর্তারাও অনলাইনে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সংযুক্ত হন। প্রতিযোগিতায় বিভাগীয় পর্যায়ে ৯৬ জন ও জাতীয় পর্যায়ে ১২ জন শিক্ষার্থীকে পুরস্কৃত করা হয়।

উল্লেখ্য, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২০২০ উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন আগস্ট মাসে অনলাইনে স্কুল, কলেজ, আলিয়া মাদরাসা, কওমি মাদরাসা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে কেরাত, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের অনুকৃতি ও উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। ১৬ আগস্ট থেকে ২৪ আগস্ট পর্যন্ত প্রতিযোগিতার বিচার প্রক্রিয়া অনলাইনে সম্পন্ন হয়।

বিভাগীয় পর্যায়ে ১ম স্থান অর্জনকারী শিক্ষার্থীদের নিয়ে কেন্দ্রীয়ভাবে প্রধান কার্যালয়ে ২৭ আগস্ট চূড়ান্ত প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। বিভাগীয় পর্যায়ে ৯৬ জন ও জাতীয় পর্যায়ে মোট ১২ জন শিক্ষার্থীকে পুরস্কৃত করা হয়।

এ ছাড়া জাতির পিতার শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন জাতির পিতার জীবন ও কর্ম শীর্ষক অনলাইন আলোচনা সভা, দেশের সকল মসজিদসহ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সকল ইউনিট ও জাতির পিতার সমাধিস্থলে কোরআনখানী, দোয়া মাহফিল ও ফ্রি চিকিৎসা সেবাসহ মাসব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে।