লোক দেখানো ইবাদত নয়



সাবরিনা ওবায়েদ আনিকা, অতিথি লেখক, ইসলাম
মানুষের প্রশংসা পাওয়ার জন্য ইবাদত-বন্দেগি নয়

মানুষের প্রশংসা পাওয়ার জন্য ইবাদত-বন্দেগি নয়

  • Font increase
  • Font Decrease

ইবাদত-বন্দেগি মানব জীবনে সাফল্য ও ব্যর্থতার পরিমাপক। কিন্তু মূল্যবান এই ইবাদত অনেক সময় অর্থহীন হয়ে যায়, বান্দার সামান্য ভুলের জন্য। পরকালের নেক আমলের যথাযথ প্রতিদান লাভের প্রধান শর্ত হলো- যাবতীয় ইবাদত আল্লাহর জন্য একনিষ্ঠ হওয়া। তাতে জাগতিক কোনো উদ্দেশ্য ও স্বার্থ জড়িয়ে না ফেলা, বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ ত্রুটিমুক্ত হওয়া। মহান আল্লাহ বলেন, ‘তাদের কেবল একনিষ্ঠ হয়ে আল্লাহর ইবাদতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’ -সুরা বাইয়্যিনাহ : ৫

ইবাদত-বন্দেগি প্রকাশ্যে পালনের পাশাপাশি গোপনে পালনের প্রতিও বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে ইবাদত-বন্দেগির ক্ষেত্রে প্রধানতম বিষয় হলো- আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের নিমিত্তে ইবাদত করা। দ্বিতীয় বিষয় হলো, ইবাদতটি সুন্নত অনুযায়ী করা। তৃতীয়, ইবাদতটি মানুষকে দেখানোর মানসিকতায় না করা। সব ধরনের ইবাদতের ক্ষেত্রে এগুলো প্রযোজ্য। ইবাদত প্রকাশ্য কিংবা অপ্রকাশ্য- এটা মূখ্য নয়।

কিছু ইবাদত রয়েছে যেগুলো প্রকাশ্যে করতে হয়। যেমন- নামাজ। নামাজ মসজিদে এসে জামাতের সঙ্গে প্রকাশ্যে আদায় করতে হয়। হজ বায়তুল্লায় যেয়ে প্রকাশ্যে পালন করতে হয়। আর কিছু ইবাদত গোপনে পালন করা যায়। যেমন- জিকির, কোরআন তেলাওয়াত, নফল নামাজ ও দান-সদকা ইত্যাদি।

ইসলামি স্কলারদের অভিমত হলো, যে ইবাদত অপ্রকাশ্যে করা যায়, তা অপ্রকাশ্যে করাই উত্তম। আর যা লুকিয়ে করা যায় না, তা প্রকাশ্যেই করতে হবে। এ প্রসঙ্গে কোরআনে কারিমে ইরশাদ হয়েছে, ‘যারা আল্লাহ ও শেষ দিবসের আশা রাখে এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ করে, তাদের জন্যে রাসুলুল্লাহর মধ্যে উত্তম নমুনা রয়েছে।’ -সুরা হুজুরাত : ২১

আল্লাহতায়ালার নিকট আমল কবুল হওয়ার জন্য লৌকিকতামুক্ত এবং কোরআন-সু্ন্নাহ নির্দেশিত নিয়মে হওয়া অপরিহার্য। যে লোক দেখানোর জন্য ইবাদত করবে, সে ছোট শিরক করার দায়ে দোষী সাব্যস্ত হবে এবং তার আমল বরবাদ হয়ে যাবে।

নিজের আমলের কথা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ুক এবং লোকেরা শুনে বাহবা দিক এ নিয়তে যে ইবাদত-বন্দেগি করবে সে শিরকে নিপতিত হবে। এমন লোকদের সম্পর্কে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, হজরত ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসুলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি মানুষকে শোনানোর জন্য কাজ করে আল্লাহ তার বদলে তাকে (কেয়ামতের দিন) শুনিয়ে দেবেন। আর যে লোক দেখানোর জন্য কাজ করে আল্লাহ তার বদলে তাকে (কেয়ামতের দিন) দেখিয়ে দেবেন।’ -সহিহ বোখারি : ৬৪৯৯

লোক দেখানো কোনো কাজ আল্লাহ কবুল করেন না

বর্ণিত হাদিসের অর্থ হলো, তিনি এ জাতীয় লোককে কেয়ামতের দিন মানুষের সামনে অপমানিত করবেন এবং কঠোর শাস্তি দেবেন। আরও বলা হয়েছে, যে আল্লাহ ও মানুষ উভয়ের সন্তুষ্টিকল্পে ইবাদত করবে, তার আমল বরবাদ হয়ে যাবে। হাদিসে কুদসিতে এসেছে, মহান আল্লাহ বলেন, ‘আমি অংশীবাদিতা (শিরক) থেকে সকল অংশীদারের তুলনায় বেশি মুখাপেক্ষিহীন। যে কেউ কোনো আমল করে এবং তাতে অন্যকে আমার সঙ্গে শরিক করে, আমি তাকে ও তার আমল উভয়কেই বর্জন করি।’ -সহিহ মুসলিম : ২৯৮৫

তবে আল্লাহর সন্তুষ্টির নিমিত্তে কোনো আমল শুরুর পর যদি তার মধ্যে লোক দেখানো ভাব জাগ্রত হয় এবং সে তা ঘৃণা করে ও তা থেকে সরে আসতে চেষ্টা করে, তাহলে তার ওই আমল শুদ্ধ হবে। কিন্তু যদি সে তা না করে; বরং লোক দেখানো ভাব মনে উদয় হওয়ার জন্য প্রশান্তি ও আনন্দ অনুভব করে, তাহলে অধিকাংশ আলেমের মতে তার ওই আমল বাতিল হয়ে যাবে।

ইবাদতের বাহ্যিক ত্রুটি হলো, তা হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর সুন্নত অনুযায়ী না হওয়া, ইবাদতের পূর্বশর্ত পূরণ না করা। আর ইবাদতের অভ্যন্তরীণ ত্রুটি হলো- নিয়তের অসততা। তা হলো, আল্লাহর সন্তুষ্টি ব্যতীত অন্যকোনো উদ্দেশ্যে ইবাদত করা। যেমন- মানুষের প্রশংসা, সামাজিক প্রভাব-প্রতিপত্তি, কারও দৃষ্টি আকর্ষণ ইত্যাদির মোহে ইবাদত করা।

ইসলামি পরিভাষায় একে রিয়া এবং বাংলা ভাষায় ‘লোক-দেখানো’ বা ‘প্রদর্শনপ্রিয়তা’ বলা হয়। প্রদর্শনপ্রিয়তা নিয়তের অসততা, যা ইবাদতকে মূল্যহীন করে দেয়। নিয়ত ঠিক না হলে আল্লাহর কাছে বান্দার কোনো কাজ গ্রহণযোগ্য নয়। নিয়ত শুদ্ধ হলে আল্লাহ জাগতিক কাজকে ইবাদতের মর্যাদা দেন। আবার নিয়ত শুদ্ধ না হলেও ইবাদতসমূহ প্রত্যাখ্যান করেন। হাদিসে হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘নিশ্চয় কাজের ফলাফল নিয়তের ওপর নির্ভরশীল।’ -সহিহ বোখারি : ১

মানুষের ভেতর প্রদর্শনপ্রিয়তা বিচিত্র রূপে প্রকাশ পায়। কেউ ইবাদতের সময় প্রত্যাশা করে মানুষ তার ইবাদত দেখে প্রশংসা করুক। কেউ আশা করে, মানুষ বিস্মিত হোক। কারও ইচ্ছা থাকে মানুষ তার ইবাদত দেখে তাকে সম্মান ও শ্রদ্ধা করুক। কারও উদ্দেশ্য থাকে ইবাদতের কারণে মানুষের ভেতর তার প্রভাব-প্রতিপত্তি বাড়ুক।

প্রদর্শনের উদ্দেশ্য যাই হোক না কেন, তার পরিণতি ভয়াবহ। এমন ইবাদত আল্লাহর কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। পরকালে এসব ইবাদত ব্যক্তির জন্য বোঝা ও আক্ষেপের কারণ হবে। মুসলিম শরিফে বর্ণিত এক দীর্ঘ হাদিসে হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) কেয়ামতের দিন লোক-দেখানো আমলকারীদের বিচারের একটি চিত্র তুলে ধরেছেন, যাতে একজন শহীদ (আল্লাহর পথে জীবন উৎসর্গকারী), একজন কোরআনের শিক্ষক ও একজন দানবীরের আলোচনা এসেছে। যারা খ্যাতি ও সুনামের মোহে জেহাদ, কোরআন শিক্ষা ও দান করত। তারা তাদের আমলের প্রতিদান থেকে বঞ্চিত হয়। আল্লাহ তাদের বলেন, ‘তোমরা যা চেয়েছ, পৃথিবীতে তা পেয়েছ। সুতরাং আজ আমার কাছে তোমাদের কোনো প্রাপ্য নেই।’ -সহিহ মুসলিম : ৩৫২৭

অন্য আয়াতে যারা লোক-দেখানো ইবাদত করে তাদের নিন্দা করে বলা হয়েছে, ‘ধ্বংস সেসব নামাজির জন্য, যারা তাদের নামাজের ব্যাপারে উদাসীন, যারা প্রদর্শন, নিত্য-প্রয়োজনীয় জিনিস দেওয়া থেকে বিরত থাকে।’ -সুরা মাউন : ৪-৭

 

ইংল্যান্ড থেকে পায়ে হেঁটে হজে যাচ্ছেন আদম মুহাম্মদ



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ইংল্যান্ড থেকে পায়ে হেঁটে হজে যাচ্ছেন আদম মুহাম্মদ

ইংল্যান্ড থেকে পায়ে হেঁটে হজে যাচ্ছেন আদম মুহাম্মদ

  • Font increase
  • Font Decrease

‘সব ধরনের মন্দের বিরুদ্ধে শান্তি যাত্রা’র অংশ হিসেবে পবিত্র হজ পালনের জন্য ইংল্যান্ড থেকে পায়ে হেঁটে সৌদি আরবের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছেন আদম মুহাম্মদ নামের ইরাকি। মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) পর্যন্ত তিনি তুরস্কের ইস্তাম্বুলের সিলিভরিতে এসে পৌঁছেছেন। ইংল্যান্ড থেকে গত বছরের ১ আগস্ট যাত্রা শুরু আদম। তার আশা, সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে, আগামী জুলাই মাসের মধ্যে তুরস্ক থেকে সিরিয়া এবং জর্ডান পাড়ি দিয়ে তিনি সৌদি আরবের পবিত্র মক্কা নগরী পৌঁছতে পারবেন।

আদম মুহাম্মদ হেঁটে চললেও তার সঙ্গে রয়েছে তিন চাকার একটি ট্রলি। যাতে তার আসবাবপত্র বহন করছেন। মজার বিষয় হলো, এই টলি তাকে খুব একাট ঠেলতে হয় না। রাস্তায় দেখা হওয়া উৎসুক মানুষ তা টেনে নিয়ে যান। ওই টলিতে লেখা রয়েছে, ‘শান্তি যাত্রা, ইংল্যান্ড থেকে মক্কা।’ টলিতে একটি সাদা পতাকা লাগানো আছে।

টলি ঠেলে ঠেলে যাচ্ছেন আদম মুহাম্মদ

 

ইরাকি বংশোদ্ভূত আদম গত ২৫ বছর ধরে ইংল্যান্ডে ব্রিটেনে বসবাস করছেন। যাত্রা শুরুর জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতির জন্য আদমের দুই মাস সময় লেগেছে। একটি ব্রিটিশ দাতব্য সংস্থা তাকে সহায়তা করেছে।

পায়ে হেঁটে মক্কা যাত্রা প্রসঙ্গে আদম বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে আমার হৃদয় থেকে একটি আওয়াজ আসছে। সেই আওয়াজকে আমি উপেক্ষা করতে পারিনি। এ জন্য আমি বাড়ি থেকে মক্কা পর্যন্ত দীর্ঘ রাস্তা অতিক্রম করার চেষ্টা করছি। আশা করি, আমি এটা সুন্দরভাবে শেষ করতে পারবো। আমার হৃদয়ের ডাক, জ্বলন্ত আগ্নেয়গিরি হয়ে আছে।’

তুরস্কে পৌঁছানোর পর অনলাইনে অনেকেই আদম মুহাম্মদের দুঃসাহসিক যাত্রা সম্পর্কে অবগত হন। পরে তাকে তুরস্কের বিভিন্ন গণমাধ্যম প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তাকে দেখতে, তার সঙ্গে কথা বলতে ভীড় জমায়। মাতিন উলুকুশ নামের এক তুর্কি নাগরিক দুই দিন তাকে সঙ্গ দিয়েছেন।

ইস্তাম্বুলের সিলিভরিতে আদম



মুহাম্মদ নামের আরেক তুর্কি নাগরিক বলেন, তিনিও আদম মুহাম্মদকে যাত্রাপথে সঙ্গ দিয়ে সহযোগিতা করেছেন। টেকিরদাগ থেকে ইস্তাম্বুল পর্যন্ত তিনি তার সঙ্গেই ছিলেন। তুরস্কের মানুষের আন্তরিকতা তাকে মুগ্ধ করেছে।

ইংল্যান্ড থেকে মক্কায় হেঁটে হজপালনের যাওয়া প্রথম ব্যক্তি আদম মুহাম্মদ নন। এর আগে ২০২০ সালে ফরিদ ফাইদি নামের এক ব্যাক্তি ইসলাম সম্পর্কে পশ্চিমা মিডিয়ার ভুল ধারণা দূর করতে এই ধরনের যাত্রা করেছিলেন।

;

সুন্দর নামাজ ক্ষমার কারণ



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সুন্দর নামাজ ক্ষমার কারণ

সুন্দর নামাজ ক্ষমার কারণ

  • Font increase
  • Font Decrease

হজরত উবায়দা বিন সামেত রাযিয়াল্লাহু আনহুর বর্ণনায়, হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘আল্লাহতায়ালা পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ ফরজ করেছেন। যে ব্যক্তি সময় অনুযায়ী উত্তমরূপে অজু করে, রুকু-সিজদা পূর্ণ করে, পূর্ণ মনোযোগসহ নামাজ আদায় করবে, তার জন্য আল্লাহর ওয়াদা- তিনি তাকে ক্ষমা করে দেবেন। যে তা করবে না, তার প্রতি আল্লাহর কোনো দায়িত্ব নেই। ইচ্ছা করলে তাকে ক্ষমা করতে পারেন আবার না-ও পারেন।’ -সুনানে আবু দাউদ : ২৩৬

ইসলামি স্কলারদের মতে, পরিপূর্ণ পবিত্রতা, সঠিক নিয়ম-শৃঙ্খলা ও শুদ্ধ উচ্চারণের চেষ্টা ছাড়া নামাজের কল্যাণ পাওয়া যায় না। এ ছাড়া নামাজের সুফল লাভে আরও কতগুলো বিষয় রয়েছে- সেগুলো মেনে চলা। এসব বিষয়ের অন্যতম হলো-

ধীরে ধীরে নামাজ আদায়
আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘জীবনে সুখে-দুঃখে বিচলিত হয় না তারা, যারা নামাজের মধ্যে ধীর, স্থির ও স্থায়ী। যারা নামাজের শিক্ষাকে সংরক্ষণ করে।’ -সুরা মাআরিজ : ২৩-৩৪

হাদিস থেকে জানা যায়, হজরত আবু বকর (রা.) খুঁটির মতো নিশ্চল হয়ে নামাজে দাঁড়াতেন।

আসলে নামাজের পঠিত কোরআনের আয়াত ও দোয়াগুলোর যথাযথ উচ্চারণ এবং রুকু-সিজদা সবকিছু ধীরে ধীরে ও প্রশান্তির সঙ্গে আদায় করাই হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর শিক্ষা। এ অভ্যাস না করলে নামাজের কল্যাণ পাওয়া সম্ভব নয়।

বিনম্রভাবে নামাজ আদায়
আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘মুমিন তারাই আল্লাহর স্মরণে যাদের অন্তর ভীত বিহবল হয়, কোরআনে কারিমের আয়াত শুনলে ঈমান বৃদ্ধি পায়, আল্লাহর ওপর ভরসা করে, জীবনে নামাজ কায়েম করে এবং আল্লাহর অনুমোদিত পন্থায় আয় ও ব্যয় করে।’ -সূরা আনফাল : ২

তিনি আরও বলেন, ‘আপনি শুধু তাদেরকেই সতর্ক করতে পারেন যারা না দেখে তাদের রবকে ভয় করে এবং নামাজ কায়েম করে।’ -সুরা ফাতির : ১৮

কোরআনে কারিমে আরও ইরশাদ হয়েছে, ‘তোমাদের সত্যিকার বন্ধু একমাত্র আল্লাহ ও তার রাসুল এবং ওই সব মুমিন, যারা নামাজ কায়েম করে, জাকাত আদায় করে ও আল্লাহর সামনে নত হয়।’ –সুরা মায়িদা : ৫৫

তিনি আরও বলেন, ‘সফলতা লাভ করবে সে সব মুমিন; যারা নামাজের মধ্যে ভীত-বিহ্বল।’ -সুরা মুমিনুন : ১

হজরত আবু আইউব আনসারি (রা.)-এর বর্ণনায় এক সাহাবির উপদেশ প্রার্থনার জবাবে হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যখন তুমি নামাজে দাঁড়াবে ওই ব্যক্তির ন্যায় দাঁড়াবে, যে দুনিয়া থেকে বিদায় নিচ্ছে।’ –মেশকাত

মুমিনের অন্তরকে গর্ব, অহঙ্কার ও উদাসীনতা থেকে মুক্ত করে কৃতজ্ঞ ও বিনীত করার উত্তম মাধ্যম হচ্ছে- নামাজ।

বুঝে বুঝে নামাজ আদায়
হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, আমি হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে বলতে শুনেছি, আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আমি নামাজকে আমার ও বান্দার মধ্যে ভাগ করে নিয়েছি। বান্দা আমার কাছে যা চায় তা সে পাবে। বান্দা যখন বলে, ‘আলহামদুলিল্লাহি রাব্বিল আলামিন’ আল্লাহ তখন বলেন, আমার বান্দা আমার প্রশংসা করল। …আমার বান্দার জন্য তাই যা সে চাইল।’

অন্যত্র তিনি বলেন, ‘তোমাদের কেউ যখন নামাজে দাঁড়ায়, তখন সে তার রবের সঙ্গে গোপনে কথা বলে এবং তার ও কেবলার মাঝেই তার রব বিরাজ করেন।’ –সহিহ বোখারি

এ হাদিস দু’টি থেকে বুঝা যায়, নামাজ হচ্ছে আল্লাহর সঙ্গে বান্দার কথোপকথন। ইমাম অথবা নিজের উচ্চারণে তার বাণী শোনা, তার কাছে প্রার্থনা করা, অনুতপ্ত হওয়া, ক্ষমা চাওয়া, অঙ্গীকার করা ইত্যাদি।

হজরত আবু হুরায়রা (রা.)-এর বর্ণনায় হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘তোমাদের কারও বাড়ির সামনে যদি একটি প্রবহমান নদী থাকে এবং প্রতিদিন পাঁচবার তাতে গোসল করে, তাহলে তার শরীরে কোনো ময়লা থাকতে পারে কি? সাহাবাগণ বললেন, না। হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, এটাই হচ্ছে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের উদাহরণ। এর সাহায্যেই আল্লাহ তার যাবতীয় গোনাহ দূর করে দেন।’ –সহিহ বোখারি ও মুসলিম

এসব আয়াত ও হাদিস অধ্যয়নে যে উপলব্ধিটুকু পাওয়া যায়, তা হচ্ছে- কোরআন এসেছে মানুষকে সত্য পথ দেখানোর জন্য, আর নামাজ এসেছে সে পথে চলার শক্তি জোগানোর জন্য। তাই নামাজ শুধু পড়লেই দায়িত্ব শেষ হয়ে যায় না। নামাজ থেকে শিক্ষা নিয়ে ও শক্তি সঞ্চয় করে একটি মহৎ জীবন গড়াই নামাজের মূল উদ্দেশ্য, যাতে সমাজটি হয়ে ওঠে সুখ, শান্তি ও উন্নতির আবাস। আর এটা যদি আমরা করতে পারি তাহলেই ‘নামাজ’ হবে আমাদের জন্য জান্নাতের চাবি।

;

অহঙ্কারমুক্ত জীবন, জান্নাত লাভের কারণ



মো. আকতার হোসেন, অতিথি লেখক, ইসলাম
নিশ্চয়ই আল্লাহ এমন লোককে পছন্দ করেন না, যে বড় হওয়ার গৌরব করে ও অহঙ্কার করে

নিশ্চয়ই আল্লাহ এমন লোককে পছন্দ করেন না, যে বড় হওয়ার গৌরব করে ও অহঙ্কার করে

  • Font increase
  • Font Decrease

মানুষ যখন নিজকে অন্যকোনো মানুষ থেকে উন্নত, উত্তম, ক্ষমতাধর কিংবা বড় মনে করে অথবা কাউকে কোনোভাবে নিজের চেয়ে হেয় মনে করে তখন তার এই মানসিকতাকে অহঙ্কার বলে। এটি একটি মানসিক অনুভূতি, তবে কাজে-কর্মে এর প্রকাশ ঘটে। হাদিসের ভাষ্য অনুযায়ী, অহঙ্কার একমাত্র আল্লাহর অধিকার। কোনো মানুষ যখন গর্ব অহঙ্কার করে তখন মূলত সে আল্লাহর অধিকারে হস্তক্ষেপ করে। কারণ মানুষ আল্লাহ প্রদত্ত নেয়ামত নিয়েই অহঙ্কারে লিপ্ত হয়।

আল্লাহতায়ালা পৃথিবীতে সবাইকে তার নেয়ামত ধন-সম্পদ, ক্ষমতা, মেধা ও যোগ্যতা সমানভাবে প্রদান করেন না। তার এই নেয়ামত কাউকে দেন আবার কাউকে দেন না, কারও ক্ষেত্রে কমবেশি করেন। মানুষের উচিত হলো, আল্লাহ প্রদত্ত নেয়ামতের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা। মানুষ যখন আল্লাহর নেয়ামতের কথা ভুলে এটাকে নিজের সম্পদ কিংবা উপার্জন মনে করে, তখনই অহঙ্কারের সূত্রপাত হয়। অহঙ্কারের কারণে আল্লাহর সঙ্গে বান্দার সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যায়।

কোরআন ও হাদিসে অহঙ্কারী ব্যক্তির পরিণতি ও শাস্তি সম্পর্কে বিশদ আলোকপাত করা হয়েছে। আল্লাহ অহঙ্কারীকে ভালোবাসেন না ও পছন্দ করেন না। কোরআনে কারিমের বিভিন্ন স্থানে আল্লাহর ঘোষণা-

‘নিশ্চয়ই আল্লাহ এমন লোককে পছন্দ করেন না, যে বড় হওয়ার গৌরব করে ও অহঙ্কার করে।’ –সুরা আন নিসা : ৩৬

‘মানুষের দিক থেকে মুখ ঘুরিয়ে রেখে কথা বলো না এবং পৃথিবীতে গর্বের সঙ্গে চলবে না। নিশ্চয়ই আল্লাহ কোনো বড়াইকারী ও অহঙ্কারীকে পছন্দ করেন না।’ -সুরা লুকমান : ১৮

‘যাতে তোমাদের যতটুকুই ক্ষতি হয়ে গেছে সে জন্য তোমরা হতাশ না হও এবং আল্লাহ তোমাদেরকে যা কিছু দিয়েছেন তাতে তোমরা খুশিতে আত্মহারা না হও। আল্লাহ এমন লোকদেরকে পছন্দ করেন না, যারা নিজেদেরকে বড় মনে করে এবং অহঙ্কার করে।’ –সুরা হাদিদ : ২৩

অহঙ্কারী ব্যক্তির সর্বশেষ পরিণতি হলো- জাহান্নাম। কেননা সে অহঙ্কারের মাধ্যমে আল্লাহর গোলামি হতে নিজেকে মুক্ত করে বেপরোয়া হয়ে যায়। নিজকে অনেক বড় ও ক্ষমতাবান এবং শক্তিশালী মনে করে এবং মানুষকে অবজ্ঞা ও তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য মনে করে।

এ প্রসঙ্গে হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) হাদিসে ইরশাদ করেন, ‘যার অন্তরে অণু পরিমাণ অহঙ্কার রয়েছে সে জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে না। এক ব্যক্তি বললেন, কোনো ব্যক্তি পছন্দ করে তার কাপড় সুন্দর হোক, তার জুতা সুন্দর হোক (তাও কি অহঙ্কার?) হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, নিশ্চয়ই আল্লাহতায়ালা সুন্দর এবং তিনি সৌন্দর্যকে পছন্দ করেন। প্রকৃতপক্ষে অহঙ্কার হলো- আল্লাহর গোলামি থেকে বেপরোয়া হওয়া এবং মানুষকে অবজ্ঞা করা।’ –সহিহ মুসলিম

শুধু পরকাল নয়, মহান আল্লাহ অহঙ্কারের শাস্তি দুনিয়াতেও প্রদান করে থাকেন। ইতিহাসে দেখা যায়, পূর্বের অনেক জাতিকে ধন-সম্পদ ও শাসনক্ষমতা নিয়ে অহঙ্কার ও বাড়াবাড়ির কারণে আল্লাহ দুনিয়াতেই দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করেছেন।

ইরশাদ হয়েছে, ‘এমন কত জনপদ আমি ধ্বংস করে দিয়েছি, সেখানকার লোকেরা ধন-সম্পদের অহঙ্কার করত। এই যে তাদের বাড়িঘর পড়ে আছে, যেখানে তাদের পর কম লোকই বসবাস করেছে। শেষ পর্যন্ত আমি (এ সবেরই) ওয়ারিশ হয়েছি।’ –সুরা কাসাস : ৫৮

আদ, সামুদ, মাদিয়ান ও লুত (আ.)-এর সম্প্রদায়ের ধ্বংসের ইতিহাস কোরআন-হাদিসে বর্ণিত হয়েছে। এ ছাড়া পূর্ববর্তী আরও অনেক শাসক ও ক্ষমতাধরদের অহঙ্কার প্রদর্শন করায় আল্লাহ তাদের সমুচিত শিক্ষা দিয়েছেন এবং তাদের করুণ পরিণতির ইতিহাস বিশ্ববাসীর জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে আছে। ফেরাউন, হামান, নমরুদের মতো শাসকদের ইতিহাস আজো মানুষ ঘৃণাভরে স্মরণ করে।

প্রকৃত মুমিন ও আল্লাহর দ্বীনের পথের দায়ীরা (ইসলামের পথে আহ্বানকারী) যেকোনো অবস্থায় গর্ব ও অহঙ্কার পরিত্যাগ করবে। তাদের কথা, কাজ ও আচরণে অহঙ্কার নয় বিনয় প্রকাশ পাবে। কেননা মুমিনের ভূষণ আর অহঙ্কার খোদাদ্রোহী ও আখেরাতে অবিশ্বাসীদের ভূষণ।

মুমিনদের উদ্দেশে মহান আল্লাহ বলেন, ‘মাটির বুকে গর্বের সঙ্গে চলবে না। নিশ্চয়ই তুমি কখনও পদচাপে জমিনকে বিদীর্ণ করতে পারবে না, আর পাহাড়ের সমান উঁচু হতেও পারবে না।’ –সুরা বনি ইসরাইল : ৩৭

হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, আল্লাহতায়ালা আমার কাছে এই মর্মে অহি প্রেরণ করেছেন, তোমরা সকলে বিনয়ী হও, যাতে কেউ কারোর সঙ্গে বাড়াবাড়ি করতে না পারে এবং কেউ কারোর সঙ্গে গর্ব করতে না পারে। -সুনানে আবু দাউদ

অনেক মানুষ আছে, যারা দামি ও মূল্যবান পোশাক পরিধান করে অহঙ্কার প্রকাশ করে। তাদের ব্যাপারে হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি অহঙ্কারবশত স্বীয় বস্ত্র মাটির ওপর দিয়ে টেনে চলে, কেয়ামতের দিন আল্লাহ তার দিকে তাকাবেন না। তখন হজরত আবু বকর (রা.) বলেন, আমার লুঙ্গি অসতর্ক অবস্থায় ঢিলা হয়ে পায়ের গিরার নিচে চলে যায়, যদি না আমি তা ভালোভাবে বেঁধে রাখি। অতঃপর রাসুল (সা.) বলেন, তুমি তা অহঙ্কারবশত কর না। -সহিহ বোখারি

অহঙ্কার নেক আমল নষ্ট করে দেয়। অহঙ্কার থেকে বাঁচতে আল্লাহ প্রদত্ত ধন-সম্পদ, জ্ঞান যোগ্যতাকে আল্লাহ প্রদত্ত দয়া, রহমত ও নেয়ামত ভেবে এসবের শোকরিয়া আদায় করতে হবে। আর যে ব্যক্তি এসব নেয়ামত পাননি তার জন্য মহান রবের দরবারে দোয়া করতে হবে। যাতে আল্লাহ তাকেও এসব নেয়ামত দান করেন। আর এই মানসিকতা পোষণ করতে হবে, আমি যে ইবাদত-বন্দেগি করছি তা আল্লাহ প্রদত্ত নেয়ামতের তুলনায় অতি নগণ্য। কাজেই আমার গর্ব করার কিছুই নেই। আল্লাহ প্রদত্ত এ নেয়ামত যেকোনো মুহূর্তে ছিনিয়ে নিতে পারেন, তিনি একজন বাদশাকে স্বল্প সময়ের ব্যবধানে ফকিরে পরিণত করতে পারেন। আমাদের সব নেয়ামত আল্লাহর দান। আর এ নিয়ে গর্ব করার অর্থ, দানকারীর দানের অবজ্ঞা করা। অতএব আমাদের সর্বদা সাবধান থাকতে হবে যাতে কখনোই সম্পদ, শক্তি, ক্ষমতা, শিক্ষা, সৌন্দর্য, পেশা বা অন্যকোনো নেয়ামতের কারণে অহঙ্কার না করি এবং হেয়প্রতিপন্ন না করি।

;

আল্লাহতায়ালা যাদের ভালোবাসেন



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আল্লাহ সৎকর্মশীলদের ভালোবাসেন

আল্লাহ সৎকর্মশীলদের ভালোবাসেন

  • Font increase
  • Font Decrease

মহান আল্লাহর ভালোবাসা ও তার সন্তুষ্টি অর্জন মুমিন জীবনের পরম লক্ষ্য। আল্লাহতায়ালা কোরআনে কারিমের বিভিন্ন স্থানে এমন কিছু গুণের কথা উল্লেখ করেছেন, যেগুলোর কারণে ওই বান্দাদের তিনি ভালোবাসেন। আল্লাহতায়ালার ভালোবাসার মানুষদের সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে-
১. ‘আল্লাহ সৎকর্মশীলদের ভালোবাসেন।’ -সুরা বাকারা : ১৯৫
২. ‘আল্লাহ পবিত্র মানুষদের ভালোবাসেন।’ -সুরা তওবা : ১০৮
৩. ‘আল্লাহ তওবাকারীদের ভালোবাসেন।’ –সুরা বাকারা : ২২২
৪. ‘আল্লাহ মুত্তাকিদের ভালোবাসেন।’ -সুরা আলে ইমরান : ৭৬
৫. ‘আল্লাহ ধৈর্যশীলদের ভালোবাসেন।’ -সুরা আলে ইমরান : ১৪৬
৬. ‘আল্লাহ (তার ওপর) নির্ভরকারীদের ভালোবাসেন।’ -সুরা আলে ইমরান : ১৫৯
৭. ‘আল্লাহ ন্যায়নিষ্ঠদের ভালোবাসেন।’ -সুরা মায়িদা : ৪২

বুজুর্গ আলেমরা বলেছেন, আল্লাহতায়ালা ও বান্দার সম্পর্ক পারস্পরিক। মূলত বান্দা যখন আল্লাহমুখী হয়, তখন আল্লাহতায়ালা তাকে ভালোবাসার ছায়ায় আশ্রয় দেন। হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ হওয়াকে ভালোবাসে, আল্লাহও তার সঙ্গে সাক্ষাৎ হওয়াকে ভালোবাসেন; আর যে ব্যক্তি আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ হওয়াকে অপছন্দ করে, আল্লাহও তার সঙ্গে সাক্ষাৎ হওয়াকে অপছন্দ করেন।’ –সহিহ বোখারি : ৬৫০৮

যেভাবে আল্লাহর ভালোবাসা পাওয়া যায়
আল্লাহতায়ালার ভালোবাসা লাভে প্রথম কাজ হলো- জাগতিক সম্পর্কগুলোকে ছিন্ন করা। অর্থাৎ গায়রুল্লাহর ভালোবাসাকে মন থেকে বের করে দেওয়া। কেননা দুই জিনিসের ভালোবাসা এক অন্তরে জমা হতে পারে না। পাশাপাশি আল্লাহর শ্রেষ্ঠত্ব, তার গুণাবলি ও নেয়ামতগুলোর কথা স্মরণ করা এবং তা নিয়ে চিন্তা-গবেষণা করা।

আল্লাহর প্রতি অনুরাগ
যেহেতু মুমিন আল্লাহকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসে, তাই মুমিন তার অন্তরে সবসময় আল্লাহর প্রতি অনুরাগ অনুভব করবে। অনুরাগ হলো এমন প্রিয় ও কাঙ্ক্ষিত বস্তু, যার কিছুটা জানা ও কিছুটা অজানা, তাকে পরিপূর্ণ জানা ও দেখার সহজাত আগ্রহ। অনুরাগ ভালোবাসার জন্য অপরিহার্য। হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) দোয়া করতেন, ‘হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে আপনার পবিত্র চেহারার দর্শন এবং আপনার সাক্ষাতের প্রতি অনুরাগ ও আগ্রহ প্রার্থনা করছি।’ -সুনানে নাসায়ি : ১৩০৫

অনুরাগীর প্রতি আল্লাহর অঙ্গীকার
যারা আল্লাহর প্রতি অনুরাগ পোষণ করে, তাদের ব্যাপারে আল্লাহর অঙ্গীকার হলো, ‘যে আল্লাহর সাক্ষাতের আশা পোষণ করে, তার জন্য আল্লাহর নির্ধারিত সময় অবশ্যই আছে।’ -সুরা আনকাবুত : ৫

ভালোবাসার পুরস্কার সন্তুষ্টি
যারা আল্লাহকে ভালোবাসে এবং তার ওপর সন্তুষ্ট থাকে, তাদের জন্য আল্লাহর পুরস্কার হলো তার সন্তুষ্টি। আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আল্লাহ তাদের প্রতি সন্তুষ্ট হয়েছেন এবং তারা আল্লাহর প্রতি সন্তুষ্ট হয়েছে।’ -সুরা তওবা : ১০০

আল্লাহর ওপর সন্তুষ্টিতেই সৌভাগ্য
বান্দার জন্য সবচেয়ে বড় সৌভাগ্যের বিষয় হলো, আল্লাহর সিদ্ধান্তে সন্তুষ্ট হতে পারা। হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘মানুষের সৌভাগ্যের অন্যতম হলো- আল্লাহ তার জন্য যে ফায়সালা করেছেন তার ওপর সন্তুষ্ট থাকা।’ -তিরমিজি : ২১৫১
আল্লাহর সিদ্ধান্তের ওপর সন্তুষ্ট থাকার অর্থ হলো- অন্তরে কোনো দ্বিধা ও আপত্তি না থাকা এবং মুখে অসন্তোষ প্রকাশ না করা। যখন বান্দা আল্লাহর সিদ্ধান্তে পুরোপুরি সন্তুষ্ট থাকে, তখন তার মনের ভেতর কোনো কষ্ট অনুভব করে না।

;