আরব আমিরাতে মসজিদ খুলে দেওয়ার প্রস্তুতি চলছে



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
শেখ জায়েদ মসজিদ, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ছবি: সংগৃহীত

শেখ জায়েদ মসজিদ, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নির্ধারিত স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ সাপেক্ষে আরব আমিরাতে পুনরায় চালু হচ্ছে মসজিদ ও অন্যান্য ধর্মীয় উপাসনালয়। এ লক্ষে চলছে প্রস্তুতি। তবে ঠিক কবে নাগাদ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলো জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হবে তা এখনও ঘোষণা করা হয়নি। এ ঘোষণা দেবে দেশটির ইসলামিক বিষয় ও দাতব্য কার্যক্রম বিভাগ।

খালিজ টাইমসের খবরে বলা হয়েছে, আরব আমিরাতের মসজিদগুলো চালু করার আগে এ সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করার জন্য একটি গাইডলাইন তৈরি করা হয়েছে। এরই মধ্যে কয়েকটি মসজিদে এসব নির্দেশিকার পোস্টার লাগানো হয়েছে। মসজিদগুলো খোলার সময় এসব নির্দেশিকা মুসল্লিদের অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

গাইডলাইনে বলা হয়েছে, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত মসজিদগুলো খোলার পরও নারীদের নামাজের স্থান বন্ধ থাকবে। ৬০ বছরের বেশি এবং ১২ বছরের কম বয়সী শিশুরা মসজিদে নামাজ পড়তে আসতে পারবে না।

নতুন গাইডলাইনে আরও বলা হয়েছে, মসজিদে দুই কাতারের মধ্যে একটি কাতার ফাঁকা রাখতে হবে। দু’জন মুসল্লির মধ্যে ১.৫ মিটার ফাঁকা রেখে নামাজের দাঁড়াতে হবে। সব মুসল্লির গ্লাভস ও মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক। সব মুসল্লিকে জায়নামাজ নিয়ে মসজিদে আসতে হবে। হ্যান্ডশেক করা চলবে না। দূর থেকে সালাম দিতে পারবেন। নামাজের আগে বা পরে মুসল্লিরা কোনো কারণে একত্রিত হতে পারবেন না। ইমামের পেছনে ফরজ নামাজ শেষ হওয়ার পর দ্বিতীয় জামাত করা যাবে না। জামাতে ফরজ নামাজ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মসজিদ ত্যাগ করতে হবে। যারা কোভিড-১৯ রোগীর সংস্পর্শে আছেন তাদেরকে অন্য নামাজিদের সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য মসজিদে আসতে নিষেধ করা হয়েছে। যারা দীর্ঘস্থায়ী রোগে ভুগছেন, তাদের অন্যদের সুরক্ষার জন্য মসজিদে নামাজ পড়তে নিষেধ করা হয়েছে গাইডলাইনে।

মসজিদে টানিয়ে দেওয়া হয়েছে নতুন নির্দেশিকা, ছবি: সংগৃহীত

গাইডলাইনে বলা হয়েছে, আজানের সময় থেকে জামাতে ফরজ নামাজ শেষ হওয়া পর্যন্ত ২০ মিনিটের জন্য মসজিদ উন্মুক্ত থাকবে। ফরজ নামাজ আজানের পরপরই আদায় করা হবে। প্রতিটি জামাতের নামাজের পর মসজিদটি বন্ধ করা হবে। সব ধরণের বিতরণ কঠোরভাবে নিষিদ্ধ। বাথরুম ও অজুর স্থান পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।

সংযুক্ত আরব আমিরাত ১৬ মার্চ সকল মসজিদে সর্বসাধারণের নামাজ স্থগিত করার কথা ঘোষণা করে। পরে এ সংক্রান্ত একটি ফতোয়া জারি করে জাতীয় সঙ্কট ও জরুরি ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ ও জেনারেল অথরিটি ফর ইসলামিক অ্যাফেয়ার্স অ্যান্ড এন্ডোমেন্টস (জিএআইএ)।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে কয়েক হাজার মসজিদ, ৪০টিরও বেশি খ্রিস্টান গির্জা ও হিন্দু মন্দির রয়েছে।