আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় ইসলামী আন্দোলনের ত্রাণ বিতরণ



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় ত্রাণ বিতরণ করেছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, ছবি: সংগৃহীত

আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় ত্রাণ বিতরণ করেছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত দুর্গত এলাকা পরিদর্শন শেষে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ।

রোববার (৭ জুন) খুলনা ও সাতক্ষীরার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন শেষে প্রায় দুই হাজার পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতা করা হয়েছে। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমির মাওলানা আব্দুল আউয়াল পীর সাহেব খুলনার নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার বিভিন্ন ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার মানুষের মাঝে নগদ অর্থ প্রদান করেন। ওই প্রতিনিধি দলে দলটির রাজনৈতিক উপদেষ্টা অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, সাতক্ষীরা জেলা ইসলামী আন্দোলনের সভাপতি মাওলানা শামসুজ্জামানসহ মুজাহিদ কমিটির সদর, শ্রমিক আন্দোলন, ছাত্র আন্দোলন, যুব আন্দোলন জেলা নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

দলের মহাসচিব প্রিন্সিপাল মাওলানা ইউনুছ আহমাদের নেতৃত্বে অপর একটি দল খুলনা জেলার কয়রা উপজেলার বিভিন্ন ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতা করেন। এ দলে কেন্দ্রীয় সদস্য মাওলানা খলিলুর রহমান, শ্রমিক নেতা মুফতি মোস্তফা কামাল, মুজাহিদ কমিটির সদর, শ্রমিক আন্দোলন, ছাত্র আন্দোলন, যুব আন্দোলন জেলা নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সাহায্য বিতরণের সময় মাওলানা আব্দুল আউয়াল পীর সাহেব খুলনা বলেন, অসহায়, দুর্গত ও মজলুম মানুষের সেবা করা আল্লাহর নির্দেশ। নবী করীম (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি পেটভরে আহার করল, অথচ তার আশেপাশের মানুষ অনাহারে রাত কাটাল, সে আমার উম্মত নয়।’ বঞ্চিত ও নিপীড়িত মানুষের সেবা করা ইসলামের নির্দেশ। ইসলামি শাসন প্রতিষ্ঠিত না থাকায় মানুষ অসহায় জীবনযাপন করছে। ইসলাম রাষ্ট্রীয়ভাবে প্রতিষ্ঠিত থাকলে কোনো মানুষকে এভাবে অসহায় জীবনযাপন করতে হতো না। এ জন্য ইসলামকে রাষ্ট্রীভাবে বিজয় করতে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

দলের মহাসচিব মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেন, উপকূলীয় অঞ্চল খুলনা ও সাতক্ষীরা অঞ্চলে বেড়িবাঁধ নির্মাণে সীমাহীন দুর্নীতি হয়েছে। নামকাওয়াস্তে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করে সব টাকা দলীয় লোকজন লুটপাট করে খেয়েছে। ফলে উপকূলীয় অঞ্চলে আম্পানসহ ঘূর্ণিঝড়ে সীমাহীন ক্ষতির মুখোমুখি হতে হয় এসব অঞ্চলের মানুষের।

তিনি বলেন, আম্পানে দুগর্ত এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত জনগণের পাশে দাঁড়ানো সবার মানবিক দায়িত্ব। এ সময় তিনি ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যে সমাজের বিত্তবানদেরকে এগিয়ে আসারও আহ্বান জানান।