দৈনিক আক্রান্ত হাজার ছাড়াল, শনাক্তের হার ১৩.৩০

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
দৈনিক শনাক্ত হাজার ছাড়াল, শনাক্তের হার ১৩.৩০ শতাংশ

দৈনিক শনাক্ত হাজার ছাড়াল, শনাক্তের হার ১৩.৩০ শতাংশ

  • Font increase
  • Font Decrease

ফের করোনার প্রকোপ বাড়ছে। ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের হার। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে এক হাজার ১৩৫ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫৯ হাজার ২০৯ জনে। শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৩০ শতাংশ। 

বুধবার (২২ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা বেড়ে ২৯ হাজার ১৩৪ জনে দাঁড়িয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ৮ হাজার ৫৩৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৩০ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১২২ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৬ হাজার ১০৫ জন।

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশের পাশে থাকবে ভারত: প্রণয় ভার্মা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার প্রণয় ভার্মা বলেছেন, নয়াদিল্লী আগামী দিনগুলোতে ঢাকার পাশে থাকতে প্রস্তুত রয়েছে। ভারত ‘নেইবারহুড ফার্স্ট’ নীতিতে বাংলাদেশকে সবচেয়ে বেশি প্রধান্য দিয়ে থাকে।

মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় মৈত্রী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদানকালে তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা সেনানিবাসের কুর্মিটোলা গলফক্লাবে মৈত্রী দিবসের ৫১তম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ভারতীয় হাই কমিশন এই অভ্যর্থনা ও সঙ্গীত সন্ধ্যার আয়োজন করে।

প্রণয় ভার্মা বলেন, ভারত ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছিল এবং অধিকতর সমৃদ্ধি ও সাফল্যের পথচলায় আগামী দিনগুলোতেও পাশে থাকবে। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে দু’দেশের নেতারাই প্রতিশ্রুতিবদ্ধ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভারত বাংলাদেশের সঙ্গে তার সম্পর্ককে সর্বাধিক প্রাধান্য দিয়ে থাকে। আমাদের জন্য এটা ‘নেইবারহুড ফার্স্ট’, কিন্তু প্রতিবেশীদের মধ্যেও ‘বাংলাদেশ ফার্স্ট’।

তিনি বলেন, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যকার বর্তমান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কটি সত্যিই বহুমুখী এবং একে অপরের জাতীয় উন্নয়নের সম্পূরক। ১৯৭১ সালের এই দিনে, বাংলাদেশের স্বাধীনতার ১০ দিন আগেই, ভারত বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও স্বার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি দিয়েছিল।

ভারতীয় হাই কমিশনার বলেন, বিগত ৫১ বছরে ভারত-বাংলাদেশ অংশীদারিত্বের অর্জন ও ভবিষ্যৎ অঙ্গীকারের প্রতিফলন ঘটানোর সুযোগ হিসেবে এই দিনের গুরুত্ব তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ভারত বাংলাদেশের মধ্যকার এই বন্ধুত্ব ১৯৭১ সালে অভিন্ন উৎসর্গের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত এবং এই সম্পর্কের শিকড় ইতিহাস, ভাষা ও সংস্কৃতির দ্বারা অনেক গভীরে প্রোথিত।

তিনি আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের ত্যাগের মহিমা এবং বঙ্গবন্ধুর মূল্যবোধ, আদর্শ ও স্বপ্নসিক্ত আমাদের এই মৈত্রীবন্ধনের শিকড় অত্যন্ত গভীরে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা দক্ষিণ-এশিয়ার রাজনৈতিক মানচিত্র পরিবর্তন করেছে উল্লেখ করে ভারতীয় হাই কমিশনার বলেন, অধিকন্তু বাংলাদেশের স্বাধীনতা আমাদের আদর্শিক মানচিত্রেরও পরিবর্তন ঘটিয়েছে। আপনাদের স্বাধীনতা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করেছে যে, অন্য যে কোন কিছুর চেয়ে আমাদের দু’দেশের জনগণের মধ্যে অভিন্ন সংস্কৃতি, সভ্যতা ও ভাষার বন্ধন ঐতিহ্যগতভাবেই আমাদের মধ্যে নিবিড় সংযোগ গড়ে তুলেছে।

তিনি জোর দিয়ে বলেন, বিগত ৫০ বছরে উভয় দেশেরই গুরুত্বপূর্ণ সাফল্য অর্জিত হয়েছে। তাদেরকে এখন নিশ্চিত করতে হবে যেন তাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম ১৯৭১ সালের ইতিহাস বুঝতে পারে এবং সেই আদর্শ হৃদয়ে ধারণ করতে পারে। ভার্মা আরও বলেন, আমাদের সৈন্যরা মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে রক্ত ঝরিয়েছেন। এই অটুট বন্ধনের কারণেই পরীক্ষার সময় আমরা সব সময় পরস্পরের পাশে দাঁড়াব।

ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, ভারত-বাংলাদেশের সহযোগিতা শুধু ব্যবসা-বাণিজ্য, উন্নয়ন অংশীদারিত্ব, নিরাপত্তা ও সীমান্ত ব্যবস্থাপনায়ই সীমাবদ্ধ নয়, বরং জ্বালানি, আইটি ও মহাকাশের মতো নতুন নতুন ক্ষেত্রগুলোতেও আমরা পরস্পরকে সহযোগিতা করে যাচ্ছি। বাংলাদেশ আজ ভারতের বৃহত্তম উন্নয়ন সহযোগী- এই অংশীদারিত্বের পরিমাণ ৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি।

তিনি বলেন, একই সঙ্গে বাংলাদেশে ইন্ডিয়ান হাই ইম্পেক্ট কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট তৃণমূল পর্যায়ে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদান রাখছে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও ভারত ও বাংলাদেশ ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে।

তিনি বলেন, ভারত এ মাসে জি-২০ সভাপতি হওয়ার পর, আমাদের আমন্ত্রণে বাংলাদেশ অতিথি রাষ্ট্র হিসেবে এতে যোগ দিয়েছে বলে আমরা অত্যন্ত সন্তুষ্ট।

এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

;

বাংলাদেশের রাজনৈতিক সহিংসতায় যুক্তরাষ্ট্রের উদ্বেগ



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের বিরোধী রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের হয়রানি, গ্রেফতার এবং বিরোধী দলের সমাবেশ করতে বাধা দেওয়ার খবরে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে মুখপাত্র নেড প্রাইস এক প্রশ্নের জবাবে এই উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, আইনের শাসনের প্রতি সম্মান দেখাতে এবং সহিংসতা, হয়রানি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন থেকে বিরত থাকতে আমরা সব রাজনৈতিক দলের প্রতি আহ্বান জানাই।

নেড প্রাইস বাংলাদেশে রাজনৈতিক সহিংসতা ও ভীতি প্রদর্শনের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, মতপ্রকাশে স্বাধীনতা রক্ষা করা, সমাবেশ ও শান্তিপূর্ণ জমায়েত নিশ্চিত করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

কোনও দল বা প্রার্থীকে ভীতি প্রদর্শন বা কেউ সহিংস আচরণের শিকার যেন না হয়, সেটি নিশ্চিত করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে নেড প্রাইস আরও বলেন, সত্যিকারের নির্বাচনে প্রার্থীরা সহিংসতা ও হয়রানিমুক্ত পরিবেশে ভোট করবেন। সহিংস ঘটনার স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ তদন্ত করার জন্য আমরা সরকারকে উৎসাহিত করছি।

এ সময় তিনি বাংলাদেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, সম্প্রতি পিনাকী ভট্টাচার্যসহ তিনজনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলা নিয়ে আমরা অবগত আছি। এই আইন নিয়ে আমাদের উদ্বেগের কথা আমরা সুস্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছি। আমাদের মানবাধিকার প্রতিবেদনেও আমরা এ নিয়ে কাজ করেছি।

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

;

গাবতলীতে প্রবেশ পথে পুলিশের চেকপোস্ট, তল্লাশি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পুলিশের বিশেষ অভিযানের অংশ হিসেবে গাবতলী এলাকায় চেকপোস্ট বসিয়ে ঢাকায় আসা দূরপাল্লার যানবাহনগুলোতে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। বিপুল সংখ্যক পুলিশ চেকপোস্টে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

বুধবার (৭ ডিসেম্বর) রাতে সরেজমিনে দেখা যায়, আমিনবাজার ব্রিজ পার হয়ে ঢাকার প্রবেশ মুখে গাবতলী এলাকায় পুলিশের চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। চেকপোস্টে বাস, ট্রাক, মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেল থামিয়ে চালক এবং যাত্রীদের নানা বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন পুলিশ সদস্যরা। এসময় যাত্রীদের কাছে ঢাকায় আসার কারণও জানতে চাওয়া হচ্ছে।

এদিকে পুলিশের কাছে যাদের সন্দেহজনক মনে হচ্ছে তাদের আরও অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

তবে গাবতলীতে পরিচালিত চেকপোস্টটি বিশেষ কোনো উদ্দেশ্য পরিচালিত হচ্ছে না বলে জানিয়েছে পুলিশ। এটি একটি রুটিন ওয়ার্কের চেকপোস্ট যা সারা বছর কার্যকর থাকে। তবে আসন্ন ১০ ডিসেম্বর হতে যাওয়া বিএনপির গণসমাবেশ কেন্দ্র করে চেকপোস্টটিতে পুলিশের উপস্থিতি বাড়ানো হয়েছে।

এ বিষয়ে দারুস সালাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তোফায়েল আহমেদ বলেন, গাবতলী এলাকার চেকপোস্ট অনেক আগে থেকেই। রুটিন ওয়ার্ক হিসেবে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। চেকপোস্টে ঢাকায় আসা গাড়িকে অনেক সময় তল্লাশি করা হয়ে থাকে। তবে বিএনপির সমাবেশ সামনে রেখে চেকপোস্টে পুলিশের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে।

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

;

রামুতে পাহাড় ধসে প্রাণ গেল একই পরিবারের ৪ জনের



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কক্সবাজার
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কক্সবাজারের রামু উপজেলায় পাহাড় ধসে একই পরিবারের ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার (৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের লট ঘোনা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- ওই এলাকার আজিজুর রহমান, তার স্ত্রী রহিমা খাতুন, শাশুড়ি দিলফুরুস বেগম ও পুত্রবধূ নাছিমা আকতার।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফাহমিদা মুস্তফা। ইউএনও জানান, আজিজ ও তার পরিবার রাতে এক সঙ্গে বসে খাবার খাচ্ছিলেন। সে সময় পাহাড় ধসে বাড়ির ওপর পড়লে চাপা পড়ে যান তারা।

রামুর কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শামশুল আলম জানান, রাতে নিহত পরিবারের সকলে খাবার খাওয়ার সময় হঠাৎ পাহাড় ধস হয়। এসময় পাহাড়ের মাটি বাড়ির রান্নাঘরে পড়লে তারা মাটি চাপা পড়ে ঘটনাস্থলে মারা যান।

রামু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ারুল ইসলাম সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে রামু থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ফায়ার সার্ভিসের সহযোগিতায় মাটি খুঁড়ে মরদেহ উদ্ধার করে।

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

;