চার বছর পার হলেও নিজস্ব ভবন পায়নি ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ড



তোফায়েল আহমেদ, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
চার বছর পার হলেও নিজস্ব ভবন পায়নি ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ড

চার বছর পার হলেও নিজস্ব ভবন পায়নি ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ড

  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, শেরপুর এবং জামালপুর চার জেলা নিয়ে ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে দেশের ১১তম শিক্ষা বোর্ড হিসেবে ময়মনসিংহ মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড। চার বছর পেরুলেও শিক্ষা বোর্ডটি এখনও পায়নি নিজস্ব ভবন। বর্তমানে নগরীর কাঠগোলায় পৃথক দু’টি ভাড়া ভবনে চলছে শিক্ষা বোর্ডের কার্যক্রম। এক অফিস থেকে আরেক অফিসের দুরত্ব প্রায় আধা কিলোমিটার। দুই অফিসে সমন্বয় করে কাজ করতে বেগ পোহাতে হচ্ছে কর্মকর্তা কর্মচারীদের। প্রস্তাবিত ১৪০ জন জনবলের স্থলে রয়েছে মাত্র ৩৩ জন। জায়গা স্বল্পতা,  কম সংখ্যক জনবলসহ বিভিন্ন সমস্যা নিয়েই  কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটিকে।

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের উপপরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (উচ্চ মাধ্যমিক) এসএম মোবাশ্বির হোসাইন জানান,  ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ড ভাড়া বাসায় তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। একটি শিক্ষা বোর্ডের কার্যক্রম পরিচালনা করতে গেলে অনেক জায়গার প্রয়োজন। একটি ভবনে জায়গা না হওয়ায় আমাদেরকে আরেকটি ভবন ভাড়া নিতে হয়েছে। যা একটা ভবন থেকে আরেকটা ভবনের দূরত্ব প্রায় আধা কিলোমিটার। জরুরি কাজের প্রয়োজন হলে এক অফিস থেকে আরেক অফিসে যাওয়া আসা করতে অনেক সময়ের অপচয় হয়। যদি নিজস্ব ভবন থাকত তাহলে এ সমস্যাটা হত না। তখন এক ভবনেই সব কাজ করা যেত।

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ড উপ-সচিব (প্রশাসন ও সংস্থাপন) মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান জানান, নানান প্রতিকূলতার মধ্যে দিয়ে শিক্ষা বোর্ড তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। এত প্রতিকূলতা থাকার পরও শিক্ষা বোর্ড দেশ সেরা রেজাল্ট উপহার দিয়েছে। একটি নিজস্ব ভবনের অভাবের কারনে কাজ করতে বেগ পেতে হচ্ছে। এছাড়াও আরো অনেক সমস্যা আছে। জয়গা স্বল্পতার কারণে এক কক্ষে বসে কয়েকজন কর্মকর্তাকে কাজ করতে হচ্ছে৷ স্টাফদের আবাসিক সমস্যা, যাতায়ত সমস্যা। একই জায়গায় গোডাউন ও অফিস দুটোই চালিয়ে যেতে হচ্ছে।

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের সহকারী বিদ্যালয় পরিদর্শক নাজমুল আলম সিদ্দিকী বলেন, যেখানে অন্যান্য শিক্ষা বোর্ডের জনবল রয়েছে দেড়শ জনের বেশি সেখানে আমাদের এখানে জনবল রয়েছে মাত্র ৩৪-৪০ জন। এই কম সংখ্যক জনবল নিয়ে একটি অফিসের কার্যক্রম পরিচালনা করা অনেক কঠিন বিষয়। অনেক সময় তিন জনের কাজ একাই করতে হয়। সরকার যদি চাহিদানুযায়ী জনবল নিয়োগ দিত তাহলে এমন সমস্যার সম্মুখীন হতে হতো না।

ময়মনসিংহ নাগরিক আন্দোলন কমিটির যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শিব্বির আহম্মেদ লিটন বলেন, অনেক কষ্টে অর্জিত ময়মনসিংহ মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের নিজস্ব ভবন না হওয়াটা দুঃখজনক। দীর্ঘদিনের আন্দোলন সংগ্রামের পর আমরা ময়মনসিংহকে বিভাগ হিসেবে পেয়েছি, ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন পেয়েছি, একটি শিক্ষা বোর্ড পেয়েছি। কিন্তু এই বিভাগের সকল উন্নয়নমুলক কাজ বারবার বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। বিভাগ প্রতিষ্ঠার পর পরিকল্পিত বিভাগীয় শহর গড়ে তোলার কার্যক্রম মুখ থুবরে পড়ে আছে। আমরা চাই না শিক্ষা বোর্ডও মুখ থুবড়ে পড়ে থাকুক। সরকার যেন অচিরেই ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডকে নিজস্ব ভবনে কার্যক্রম পরিচালনা করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবে বলে মনে করেন এই নাগরিক নেতা।

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড.গাজী হাসান কামাল বলেন, প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে এখন পর্যন্ত ময়মনসিংহ শিক্ষাবোর্ড নানা সংকটের মধ্যে কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। ভবনে জায়গা সংকট, লোকবল সংকট, আবাসিক সমস্যা, যাতায়াত সমস্যাসহ বিভিন্ন সমস্যা রয়েছে। তবে এত সমস্যার পরেও আশার কথা হচ্ছে ময়মনসিংহ বিভাগীয় শহরের জন্য জমি অধিগ্রহণের বিষয়টি একনেক সভায় অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। অচিরেই অনুমোদন পেলে অন্যান্য স্থাপনার পাশাপাশি ১০ একর জায়গা নিয়ে গড়ে উঠবে পূর্ণাঙ্গ শিক্ষা বোর্ড।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষায় ৯৭.৫২ শতাংশ পাশের হারে দেশের প্রথম হয় ময়মনসিংহ মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড।

ঈদে ঢাকা ছাড়তে মানতে হবে ১২ নির্দেশনা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ঈদে ঢাকা ছাড়তে মানতে হবে ১২ নির্দেশনা

ঈদে ঢাকা ছাড়তে মানতে হবে ১২ নির্দেশনা

  • Font increase
  • Font Decrease

পবিত্র ঈদুল আজহা প্রিয়জনের সঙ্গে উদযাপন করতে রাজধানী থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ফিরতে শুরু করেছেন মানুষ। ঈদ আনন্দ নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করার লক্ষ্যে ১২টি নির্দেশনা মেনে চলার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) ।

নির্দেশনাগুলো হলো—

১. ঢাকা মহানগরীতে দূরপাল্লার ও আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালের অভ্যন্তরে এবং বাইরের সড়কে বাস রেখে বা থামিয়ে যাত্রী ওঠানো যাবে না। যাত্রীরা টার্মিনালের ভেতরে থাকা অবস্থায় বাসের আসনগ্রহণ করতে পারেন। সংশ্লিষ্ট বাসের প্রতিনিধিদের এ বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে।

২. ঢাকা মহানগরীতে আন্তঃজেলা ও দূরপাল্লার বাসগুলো টার্মিনাল সংলগ্ন প্রধান সড়কের অংশ দখল করে থামবে না।

৩. ভ্রমণকালে ঢাকা মহানগরের প্রবেশ ও বের হওয়ার পথের গণপরিবহনগুলো শৃঙ্খলা মেনে চলতে হবে, যেন অযাচিত যানজটের সৃষ্টি না হয়।

৪.ঢাকা মহানগর থেকে ছেড়ে যাওয়া দূরপাল্লার যানবাহনগুলোকে অতিরিক্ত যাত্রী ও মালামাল বহন থেকে নিবৃত থাকতে হবে।

৫. আন্তঃজেলা পরিবহনের যাত্রীরা বা গমনপ্রত্যাশীদের প্রধান সড়কে এসে অপেক্ষা বা দাঁড়িয়ে না থেকে টার্মিনালের ভেতরে অবস্থান করতে হবে।

৬. ঢাকা মহানগর থেকে দূরপাল্লার রুট পারমিটবিহীন বা অননুমোদিত রুটে কোনো বাস চলাচল করবে না। বাসের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাই এ বিষয়টি কঠোরভাবে মেনে চলবেন এবং কর্তৃপক্ষকে সহায়তা করবেন।

৭. বাসের ভেতরে যাত্রীদের অপরিচিত কারও কাছ থেকে কিছু না খাওয়ার জন্য পরামর্শ দেওয়া হলো।

৮. সংশ্লিষ্ট যাত্রীরা অবশ্যই যানবাহনে টিকিট সঙ্গে রাখবেন।

৯. যাত্রীদের মালামাল নিজ হেফাজতে সাবধানে রাখবেন।

১০. কোনো যানবাহনেই ছাদের ওপর অতিরিক্ত যাত্রী বহন করবে না।

১১. যাত্রী তোলার ক্ষেত্রে বাসচালকরা এমন কোনো অসম প্রতিযোগিতায় অংশ নেবেন না। এতে সড়কের শৃঙ্খলায় বিঘ্ন ঘটে ও জীবনহানির শঙ্কা থাকে।

১২. করোনার প্রকোপ ঊর্ধ্বগতি বিধায় পরিবহন চালক ও যাত্রী সবাইকে যথাযথ স্বাস্থবিধি অনুসরণ করে যাতায়াত করতে হবে।

প্রয়োজনে ট্রাফিক কন্ট্রোল রুমের মোবাইল নম্বর ০১৭১১-০০০৯৯০ অথবা জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ কল করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ।

;

রাজশাহীতে নিহত কিশোরের লাশ নিয়ে বিক্ষোভ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
রাজশাহীতে নিহত কিশোরের লাশ নিয়ে বিক্ষোভ

রাজশাহীতে নিহত কিশোরের লাশ নিয়ে বিক্ষোভ

  • Font increase
  • Font Decrease

 

রাজশাহীতে পূর্ব শত্রুতার হত্যাকাণ্ডের শিকার কিশোরের লাশ নিয়ে বিক্ষোভ করেছেন এলাকাবাসী। সোমবার বেলা ৩টার দিকে এলাকাবাসী নগরীর রেলগেট এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। প্রায় ৪৫ মিনিট চলে তাদের এই বিক্ষোভ।

এর আগে রোববার রাত ৯টার দিকে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। নিহত কিশোরের নাম মো. সনি (১৭)। তার বাবার নাম রফিকুল ইসলাম পাখি। বাড়ি নগরীর রেলগেট এলাকায়। রফিকুল জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি। নিহত সনি এ বছরের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

নগরীর হেতেমখাঁ সবজিপাড়া এলাকার সমবয়সী কিছু ছেলে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তুলে নিয়ে গিয়ে সনিকে কুপিয়ে হত্যা করে। রাতে সনিসহ তার আরও তিন বন্ধুকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের সামনে থেকে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়।

একপর্যায়ে সনি ও তৈয়বুর নামে আরেকজনকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। হেতেমখাঁ সবজিপাড়ায় নিয়ে দুজনকেই কোপানো হয়। পরে হাসপাতালে নেওয়া হলে সনিকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। অন্যজন চিকিৎসাধীন।

এ ঘটনায় সনির বাবা রফিকুল ইসলাম রাতেই আটজনের নাম উল্লেখ করে বোয়ালিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা করেছেন। আসামিরা হলেন- মঈন ওরফে আন্নাফ (২০), তার মা বিথী (৩০), মো. রাহিম (১৯), সিফাত (১৯), শাহী (১৯), সোরাব খান লাল (৪০), শিউলী (৪২) ও আনিম (১৮)। আসামিদের সবার বাড়ি হেতেমখাঁ সবজিপাড়া এলাকা। এদের মধ্যে বিথী রাজশাহী মহানগর মহিলা দলের ক্রীড়া সম্পাদক। শিউলী কমিটির সদস্য। আসামিদের কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

তাই সোমবার দুপুরের পর রাজশাহী মেডিকেল কলেজের মর্গে সনির লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হলে স্বজনেরা লাশ নিয়ে যান নগরীর শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান চত্বরে। তারা প্রায় ৪৫ মিনিট সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। বিক্ষোভ থেকে তারা সনির খুনিদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন।

এ সময় সেখানে গিয়ে বক্তব্য দেন জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ও নগরীর ২৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাহাতাব হোসেন চৌধুরী, ১৩ নম্বরের কাউন্সিলর আবদুল মমিন, ১৪ নম্বরের কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন আনার ও ১৫ নম্বরের কাউন্সিলর আবদুস সোবহান লিটন। তারা খুনিদের গ্রেপ্তারে পুলিশকে ২৪ ঘণ্টা সময় বেধে দেন।

নগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতরা ঘটনার পরই গা-ঢাকা দিয়েছেন। তাদের আটকের চেষ্টা চলছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে আসামিরা ধরা পড়বে।

;

হালদায় সাড়ে ৩ হাজার মিটার ঘেরাজাল পুড়িয়ে ধ্বংস



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
হালদায় সাড়ে ৩ হাজার মিটার ঘেরাজাল পুড়িয়ে ধ্বংস

হালদায় সাড়ে ৩ হাজার মিটার ঘেরাজাল পুড়িয়ে ধ্বংস

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস প্রজনন ক্ষেত্র ও বঙ্গবন্ধু মৎস হেরিটেজ হালদা নদী থেকে অভিযান চালিয়ে সাড়ে ৩ হাজার মিটার অবৈধ জাল জব্দ করে পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়।

মঙ্গলবার (৪ জুলাই) দুপুর সাড়ে ১২ টা থেকে ২টা পর্যন্ত নদীর মোহনা বোয়ালখালীর উত্তর কদুলখীল এলাকায় এ অভিযান চালান সদরঘাট নৌ পুশিল।

সদরঘাট নৌ পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বার্তা২৪'কে বলেন, চট্টগ্রাম অঞ্চলের নৌ পুলিশ সুপার মুমিনুল ইসলাম ভূঁইয়া স্যারের নির্দেশনায় দুপুরে এ অভিযান চালানো হয়। এসময় সাড়ে তিন হাজার মিটারের ১৫ টি চরঘেরা জাল জ্বদ করা হয়। পরবর্তীতে জালগুলো পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়।

হালদা নদীতে মা মাছ ও জীববৈচিত্র্য রক্ষা করার জন্য অভিযান ও টহল অব্যাহত থাকবে বলে জানান নৌ পুলিশের এ কর্মকর্তা।

;

কোম্পানীগঞ্জে অটোরিকশা-পিকঅ্যাপ ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নোয়াখালী
কোম্পানীগঞ্জে অটোরিকশা-পিকঅ্যাপ ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২

কোম্পানীগঞ্জে অটোরিকশা-পিকঅ্যাপ ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২

  • Font increase
  • Font Decrease

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ব্যাটারী চ্যালিত অটোরিকশা ও বেপরোয়া গতির পিকঅ্যাপ ভ্যানের মুখোমুখি সংষর্ষে ২ অটোরিকশা যাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এ দুর্ঘটনায় অটোরিকশা চালক মামুন (৪৫) গুরুতর আহত হয়েছে।  

নিহত জালাল উদ্দিন মিলন (৪৮) কবিরহাট উপজেলার চাপরাশিরহাট ইউনিয়নের হানিফ বিএসসি বাড়ির মন্নান দরবেশের ছেলে ও লিলি বেগম (৩৫) কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চরএলাহী ইউনিয়নের বাদামতলী এলাকার আলী সওদাগরের স্ত্রী।  

সোমবার (৪ জুলাই) দুপুর ৩টার দিকে উপজেলার চরফকিরা ইউনিয়নের ৬নম্বর ওয়ার্ডের বিজয় নগরের বাংলাবাজার টু সোনাপুর সড়কের তের চোরার বেড়ি দোকান ঘর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।  

চরফকিরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জায়দল হক কচি জানান, দুপুর ৩টার দিকে উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের বাংলাবাজার এলাকা থেকে একটি পিকঅ্যাপ ভ্যান সোনাপুরের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। এসময় পিকঅ্যাপ ভ্যানটি চরফকিরা ইউনিয়নের তের চোরার বেড়ি দোকান ঘর এলাকায় পৌঁছলে চাপরাশিরহাট সংযোগ সড়ক থেকে একটি অটোরিকশা বাংলাবাজার টু সোনাপুর সড়কে উঠলে পিকআপ ভ্যানের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মিলন গুরুত্বর আহত হয়ে মারা যায়। অপরদিকে, গুরুতর আহত অবস্থায় অটোরিকশা যাত্রী লিলি বেগম ও অটোরিকশা চালক মামুনকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক লিলি বেগমকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসির দায়িত্বে থাকা পরিদর্শ (তদন্ত) এসএম মিজানুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। স্থানীয় লোকজন পিকআপ ভ্যান ও ঘাতক চালককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে নিহতদের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

;