করোনা মোকাবিলায় খুলনা জেলা প্রশাসনের সভা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, খুলনা
করোনা মোকাবিলায় খুলনা জেলা প্রশাসনের সভা /ছবি: বার্তা২৪.কম

করোনা মোকাবিলায় খুলনা জেলা প্রশাসনের সভা /ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকারি খাদ্য গুদামে ১৭ লাখ মেট্রিক টন ধান ও সাড়ে ৩ লাখ মেট্রিক টন গম মজুদ থাকায় দেশে খাদ্য সংকট হওয়ার সুযোগ নেই। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজারদর নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনের নজরদারি অব্যাহত থাকবে। সরকারি চাকরিজীবীদের নিজ কর্মস্থলে অবস্থানের সরকারি নিদের্শনা দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (২৩ মার্চ) দুপুরে খুলনা জেলা প্রশাসন আয়োজিত এক সভায় এসব কথা জানানো হয়। 

এছাড়া আরো জানানো হয়, করোনাভাইরাসের (কোভিড ১৯) সংক্রমণ ঠেকাতে খুলনা জেলায় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার ব্যতীত অন্যান্য সাপ্তাহিক হাট ও গরু-ছাগলের হাট বন্ধ থাকবে। খুলনা নগরীতে বিকেল পাঁচটার পরে চায়ের দোকান খোলা রাখা যাবে না। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব একটি দুর্যোগ তৈরি করায় জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটিকে জরুরি অবস্থার ন্যায় সক্রিয় রাখতে হবে।

এছাড়া দাকোপের আংটিহারায় ভারত হতে আগত ক্লিংকারবাহী জাহাজ হতে নাবিকদের বাংলাদেশের অভ্যন্তরে না নামার বিষয়টি কঠোরভাবে পর্যবেক্ষণ করা হবে।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে সার্কিট হাউজ সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় খুলনা সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ, পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ, উপপুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মো. এহসান শাহ, গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিসহ জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এসময় খুলনার বিভিন্ন উপজেলা হতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা ডিভিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভায় যুক্ত হন এবং করোনভাইরাস প্রতিরোধে উপজেলা পর্যায়ে গৃহীত পদক্ষেপসমূহ তুলে ধরেন।

সভায় আরো জানানো হয়, সরকারের বিশেষ উদ্যোগে স্বল্পতম সময়ের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ কিট ও চিকিৎসকদের নিরাপত্তা উপকরণসমূহ উপজেলা পর্যায়ে পৌঁছাবে। বিদেশ ফেরতদের বাড়িতে সঙ্গরোধ নিশ্চিত করা হচ্ছে। সঙ্গরোধে থাকা ব্যক্তিদের প্রয়োজনের সময় চিকিৎসাকেন্দ্রে আনার জন্য আলাদা অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রাখা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :