আফিফের ঝলকে টাইগারদের পুঁজি ১৫৮



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আফিফ হোসেন

আফিফ হোসেন

  • Font increase
  • Font Decrease

দলের অন্য সবাই ব্যাট হাতে সফল হলেও ব্যতিক্রম কেবল আফিফ হোসেন ও নুরুল হাসান সোহান। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে নিজেদের ঝালিয়ে নিলেন দুজনে।

ব্যাটিংয়ে ঝলক দেখিয়ে অসাধারণ এক ফিফটি আদায় করে নেন আফিফ। ৫৫ বলে ৭ বাউন্ডারি ও ৩ ছক্কায় সাজান তিনি ৭৭* রানের দুর্বার এক হার না মানা ইনিংস। 

আর ২৫ বলে ২ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় ৩৫ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন সোহান। দুজনের ব্যাটিংয়ের ওপর নির্ভর করে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৫৮ রানের লড়াকু পুঁজি গড়েছে টাইগাররা।

আমিরাতের হয়ে দুটি উইকেট নেন কার্তিক মেইয়াপ্পান। একটি করে উইকেট নেন জোয়ার ফরিদ, আয়ান আফজাল খান ও সাবির আলী।

জিতলেই শেষ ষোলো সৌদি আরবের, মেক্সিকোর অনেক হিসাব

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
জিতলেই শেষ ষোলো সৌদি আরবের, মেক্সিকোর অনেক হিসাব

জিতলেই শেষ ষোলো সৌদি আরবের, মেক্সিকোর অনেক হিসাব

  • Font increase
  • Font Decrease

কাতার বিশ্বকাপের ড্রতে ‘সি’ গ্রুপে পড়েছিল আর্জেন্টিনা, পোল্যান্ড, মেক্সিকো ও সৌদি আরব। ফুটবল ঐতিহ্য কিংবা বিশ্বকাপের পারফরম্যান্সের হিসাবে সৌদি আরবকে হিসেবের মধ্যে ধরার লোক ছিল কিনা সন্দেহ। কিন্তু সেই সৌদি আরব এখন বিশ্বকাপে দ্বিতীয়বারের মতো শেষ ষোলোর সম্ভাবনায়।

প্রথম ম্যাচে বিশ্বকাপের অন্যতম বড় অঘটন ঘটিয়ে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে দেওয়ার পর শেষ ষোলো থেকে এক জয়ের দূরত্বে আছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি।

এবার নিজেদের প্রথম ম্যাচে আর্জেন্টিনাকে ২-১ গোলে হারিয়েছে সৌদি আরব। লিওনেল মেসি পেনাল্টি থেকে গোল করার পর পিছিয়ে পড়া আরব দেশটি দারুণ প্রত্যাবর্তনে সেদিন ম্যাচ জিতে নেয়।

আজ বুধবার (৩০ নভেম্বর) লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় সৌদি আরব মুখোমুখি হবে মেক্সিকোর। জিতলেই শেষ ষোলোতে নিশ্চিতভাবে যাচ্ছে তারা।

মেক্সিকো বিশ্বকাপের গত সাত আসরের প্রত্যেকটিতে শেষ ষোলোতে উঠেছিল। সৌদি আরব যদি মেক্সিকোকে পরাজিত করে তবে বিদায় নিশ্চিত মেক্সিকোর। অন্যদিকে, ম্যাচ জিতলে ১৯৯৪ বিশ্বকাপের পর আরব দেশটি দ্বিতীয়বারের মতো যাবে নকআউট পর্বে।

পোল্যান্ড ৪ পয়েন্ট নিয়ে ‘সি’ গ্রুপের শীর্ষে, আর্জেন্টিনা ও সৌদি আরবের চেয়ে তারা ১ পয়েন্টে এগিয়ে। ১ পয়েন্ট নিয়ে সবার শেষে থাকা মেক্সিকোকে আজ রাতে জিততেই হবে। কেবল জিতলেই হবে না, তাকিয়ে থাকতে অন্য ম্যাচের ফলাফলের দিকেও। গ্রুপের অন্য ম্যাচে আর্জেন্টিনা হার এড়ালে জিতেও গ্রুপ পর্ব টপকাতে ব্যর্থ হবে মেক্সিকানরা।

যদি পোল্যান্ড হারে কিংবা আর্জেন্টিনার সঙ্গে ড্র করে তাহলে এই দুটি দলের সঙ্গে গোল ব্যবধান কমিয়ে নকআউট পর্বে যাওয়ার দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে মেক্সিকোকে।

সৌদি আরবের নকআউট ভাগ্য তাদের হাতেই। মেক্সিকোকে হারালেই পরের পর্বে তারা। তবে ড্র করলে তাদের চাওয়া থাকবে, পোল্যান্ড যেন হারায় আর্জেন্টিনাকে। আর্জেন্টিনার বিপক্ষে জয়ের আত্মবিশ্বাস কাজে লাগিয়ে ৯৪ ফেরানোর মিশনে নামছে হার্ভ রেনার্ডের শিষ্যরা।

দলটির কোচ বলেছেন, বিশ্বকাপ শুরুর আগে হয়তো কেউই ভাবেনি আমরা উঁচু পর্যায়ের ফুটবল খেলতে পারি। কিন্তু আমরা তা করে দেখিয়েছি। মেক্সিকোর বিপক্ষে আমরা শেষ মিনিট পর্যন্ত চেষ্টা করে যাব এবং হাল ছাড়ব না।

অবশ্য পরিসংখ্যান মেক্সিকোর পক্ষে। বিশ্বকাপে দল দু'টি পরস্পরের মুখোমুখি না হলেও সৌদি আরবের বিপক্ষে পাঁচবারের দেখায় কখনও হারেনি মেক্সিকো; চারটি জয় ও একটি ড্র তাদের ঝুলিতে।

;

মেসির স্ত্রীর ফেসবুক-টুইটার আইডি নেই, পোস্ট ভুয়া

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
মেসির স্ত্রীর ফেসবুক-টুইটার আইডি নেই, পোস্ট ভুয়া

মেসির স্ত্রীর ফেসবুক-টুইটার আইডি নেই, পোস্ট ভুয়া

  • Font increase
  • Font Decrease

আর্জেন্টাইন ফুটবলের মহাতারকা লিওনেল মেসির স্ত্রী আন্তোনেলা রোকুজ্জোর নামে ফেসবুকে একটি পোস্ট ভাইরাল হয়েছে।

ভাইরাল হওয়া ওই পোস্টে এডিট করে মেসির হাতে বাংলাদেশের পতাকা তুলে ধরা হয়েছে। যে ছবিটি গত সোমবার আর্জেন্টিনার পেশাদার ফুটবল লিগের অফিসিয়াল সামাজিক মাধ্যম আইডি থেকে শেয়ার দেওয়া হয়েছিল।

রোকুজ্জোর নামের ওই ফেসবুক পেজে ক্যাপশনে লেখা হয়, আপনি জানেন কি আর্জেন্টিনার পর বাংলাদেশে বিশাল সংখ্যক আর্জেন্টিনা সমর্থক রয়েছে, অসাধারণ।

তবে জানা গেছে, এটি ভুয়া। মূলত মেসির স্ত্রীর কোনো ফেসবুক আইডি কিংবা পেজ নেই।

সোশ্যাল মিডিয়ায় রোকুজ্জোর একমাত্র ভেরিফায়েড আইডি রয়েছে ইনস্টাগ্রামে। সেখানে বায়োতে তিনি জানিয়েছেন, আমার টুইটার (আইডি) নেই। আমার ফেসবুক (আইডি) নেই।

ফেসবুকে মেসির স্ত্রীর নামে ১৩ লাখ ফলোয়ার থাকা যে আইডি রয়েছে, সেটি ভুয়া। এটি রোকুজ্জো নন, চালাচ্ছেন অন্য কেউ।

মেসির স্ত্রীর নামেই এই ফেসবুক পোস্টও ভাইরাল হয়েছে। সামাজিক মাধ্যমে আর্জেন্টিনার সমর্থকেরা এই পোস্টও শেয়ার করে চলেছেন।

বিশ্বকাপ ফুটবল নিয়ে বাংলাদেশের ফুটবল উন্মাদনা সারাবিশ্বের নজর কেড়েছে। ফিফার অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডল থেকে ঢাকার ফুটবল উত্তেজনার একাধিক ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে।

;

যেভাবে শেষ ষোলোতে যাবে আর্জেন্টিনা

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
যেভাবে শেষ ষোলোতে যাবে আর্জেন্টিনা

যেভাবে শেষ ষোলোতে যাবে আর্জেন্টিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

কাতার বিশ্বকাপ শুরুর আগে টানা ৩৬ ম্যাচ অপরাজিত ছিল আর্জেন্টিনা। গ্রুপ পর্যায়ের প্রথম ম্যাচে যেখানে উড়ে কথা ছিল সৌদি আরবের, সেখানে লেগেছে বড় ধাক্কা। প্রথম ম্যাচেই এশিয়ার দলটির কাছে হেরে যায় দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন এবং এবারের বিশ্বকাপের অন্যতম ফেবারিট আর্জেন্টিনা।

সৌদি আরবের বিপক্ষে হারের এই ধাক্কা এখনও সামলে উঠতে পারেনি লিওনেল স্কলানির দল। দ্বিতীয় ম্যাচে যদিও স্বস্তির জয় পেয়েছে মেক্সিকোর বিপক্ষে তবে এখনও নিশ্চিত নয় শেষ ষোলো।

‘সি’ গ্রুপের শেষ রাউন্ডের ম্যাচ খেলতে নামার আগে আর্জেন্টিনা আছে গ্রুপের দ্বিতীয় অবস্থানে; পয়েন্ট তাদের ৩। গ্রুপ শীর্ষে পোল্যান্ড; এক জয় আর এক ড্রয়ে ৪ পয়েন্ট ইউরোপের দেশটির। তৃতীয় স্থানে সৌদি আরব; তাদেরও পয়েন্টও ৩। আর ১ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের তলানিতে মেক্সিকো।

আজ বুধবার (৩০ নভেম্বর) পোল্যান্ডের বিপক্ষে গ্রুপ পর্যায়ের শেষ ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা। বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় অনুষ্ঠিত হবে এই ম্যাচ।

পোল্যান্ড-আর্জেন্টিনা ম্যাচ ড্র হলে ৫ পয়েন্ট নিয়ে পোল্যান্ড শীর্ষে ও ৪ পয়েন্ট নিয়ে আর্জেন্টিনা থাকবে দুইয়ে। এক্ষেত্রে আর্জেন্টিনার নকআউট পর্বে যাওয়ার ভাগ্য নির্ধারিত হবে সৌদি আরব-মেক্সিকো ম্যাচে। কারণ, ওই ম্যাচে সৌদি আরব জিতে গেলে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নেবে আর্জেন্টিনা।

তবে যদি আর্জেন্টিনা-পোল্যান্ড ও মেক্সিকো-সৌদি আরব ম্যাচ দুটোই ড্র-তে শেষ হয়, সেক্ষেত্রে নকআউট পর্ব নিশ্চিত হবে আর্জেন্টিনা ও পোল্যান্ডের। এক্ষেত্রে গোল ব্যবধানের কারণে বাদ পড়বে সৌদি আরব।

অন্যদিকে আর্জেন্টিনা যদি পোল্যান্ডকে হারায় আবার সৌদি আরব মেক্সিকোকে হারায় সেক্ষেত্রে নকআউট পর্বে যাবে আর্জেন্টিনা ও সৌদি আর। বাদ পড়বে পোল্যান্ড ও মেক্সিকো।

তবে আর্জেন্টিনা পোল্যান্ডের বিপক্ষে হারলে মেক্সিকো সৌদি আরবকে হারালেও বাদ পড়বে আর্জেন্টিনা। সেক্ষেত্রে শেষ ষোলোতে উঠে যাবে পোল্যান্ড ও মেক্সিকো।

আবার আর্জেন্টিনা যদি হারে, সেক্ষত্রে মেক্সিকোর বিপক্ষে ড্র করলেও নকআউট পর্বে উঠে যাবে সৌদি আরব। সব মিলিয়ে শেষ ষোলোতে ওঠার একটাই পথ আর্জেন্টিনার জয়।

;

বিশ্বকাপে এত বাজে আগে খেলেনি কোন স্বাগতিক

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

‘এ’ গ্রুপের শেষ রাউন্ডের ম্যাচে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ২-০ গোলে পরাজয়ের মাধ্যমে স্বাগতিক কাতার শেষ করেছে তাদের বিশ্বকাপ যাত্রা।

বিশ্বকাপে ২০০ মিলিয়ন ডলার খরচ করা উপসাগরীয় দেশটির অর্জনের খাতায় কেবলই শূন্য। ফুটবল বিশ্বকাপের ৯২ বছরের ইতিহাসে এরআগে এমন বাজে খেলেনি কোন স্বাগতিক।

গ্রুপ পর্যায়ের তিন ম্যাচে অংশ নিয়ে ৭টি গোল হজমের বিপরীতে করতে পেরেছে মাত্র ১টি গোল। তিন ম্যাচের প্রতিটিই হেরেছে তারা। গড়তে পারেনি ন্যূনতম প্রতিদ্বন্দ্বিতাও।

নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে শেষ ম্যাচে কাতার গোলের জন্যে শট নিয়েছিল ৫টি, তার ৩টি ছিল লক্ষ্যে। সেনেগালের বিপক্ষে গোলের জন্যে শট নিয়েছিল ১০টি, তার ৩টি ছিল লক্ষ্যে। ইকুয়েডরের বিপক্ষে গোলের জন্যে শট নিয়েছিল ৫টি, যার একটিও ছিল না লক্ষ্যে।

বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে ইকুয়েডরের বিপক্ষে ২-০ গোলে পরাজিত হওয়ার পর দ্বিতীয় ম্যাচে সেনেগালের কাছে হার মানে তারা ৩-১ গোলে। প্রথম দুই ম্যাচ শেষেই নিশ্চিত হয়ে যায় বিশ্বকাপের প্রথম পর্ব থেকে বাদ পড়া। নেদারল্যান্ডের বিপক্ষে গ্রুপ পর্যায়ের ম্যাচে পরাজয়ের মাধ্যমে ইতিহাসে প্রথম দল হিসেবে তারা কোন পয়েন্ট অর্জন না করেই বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিল।

২০১০ বিশ্বকাপের স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার পর কাতার হচ্ছে দ্বিতীয় আয়োজক দেশ যারা গ্রুপ পর্যায় থেকে বাদ পড়ল। দক্ষিণ আফ্রিকা নিজেদের মাটিতে অনুষ্ঠিত সেই বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচে মেক্সিকোর বিপক্ষে ১-১ গোলে ড্র করেছিল। দ্বিতীয় ম্যাচে তারা উরুগুয়ের বিপক্ষে ৩-০ গোলে হারলেও শেষ ম্যাচে ফ্রান্সকে হারিয়ে দিয়েছিল ২-১ গোলে। ওই বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকা তিন ম্যাচ থেকে চার পয়েন্ট সংগ্রহ করে, কিন্তু গোল পার্থক্যে যেতে পারেনি শেষ ষোলোতে।

এ পর্যন্ত আটটি দল বিশ্বকাপ জিতেছে। ব্রাজিল ও স্পেন ছাড়া ছয়টি আয়োজক দেশ নিজেদের দেশে আয়োজিত বিশ্বকাপে অন্তত একবার করে জিতেছে। এরবাইরে বাকি আয়োজকেরাও করেছিল ভালো ফলাফল।

২০১৮ বিশ্বকাপের আয়োজক রাশিয়া কোয়ার্টার ফাইনাল; ২০১৪ সালের আয়োজক ব্রাজিল চতুর্থ; ২০১০ বিশ্বকাপের আয়োজক দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম পর্ব; ২০০৬ বিশ্বকাপের আয়োজক জার্মানি তৃতীয়; ২০০২ বিশ্বকাপের সহ-আয়োজক দক্ষিণ কোরিয়া চতুর্থ এবং জাপান নকআউট পর্ব; ১৯৯৮ সালের আয়োজক ফ্রান্স চ্যাম্পিয়ন; ১৯৯৪ সালের আয়োজক যুক্তরাষ্ট্র নকআউট পর্ব; ১৯৯০ সালের আয়োজক ইতালি তৃতীয়; ১৯৮৬ সালের আয়োজক মেক্সিকো কোয়ার্টার ফাইনাল; ১৯৮২ সালের আয়োজক স্পেন নকআউট পর্ব; ১৯৭৮ সালের আয়োজক আর্জেন্টিনা চ্যাম্পিয়ন; ১৯৭৪ সালের আয়োজক পশ্চিম জার্মানি চ্যাম্পিয়ন; ১৯৭০ সালের আয়োজক মেক্সিকো কোয়ার্টার ফাইনাল; ১৯৬৬ সালের আয়োজক ইংল্যান্ড চ্যাম্পিয়ন; ১৯৬২ সালের আয়োজক চিলি তৃতীয়; ১৯৫৮ সালের আয়োজক সুইডেন রানার্সআপ; ১৯৫৪ সালের আয়োজক সুইজারল্যান্ড কোয়ার্টার ফাইনাল; ১৯৫০ সালের আয়োজক ব্রাজিল রানার্সআপ; ১৯৩৮ সালের আয়োজক ফ্রান্স কোয়ার্টার ফাইনাল; ১৯৩৪ সালের আয়োজক ইতালি চ্যাম্পিয়ন, এবং ১৯৩০ সালের আয়োজক উরুগুয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়।

;