৩৬ বছরের আক্ষেপ পূরণ, আর্জেন্টিনা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’


স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
৩৬ বছরের আক্ষেপ পূরণ, আর্জেন্টিনা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন

৩৬ বছরের আক্ষেপ পূরণ, আর্জেন্টিনা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন

  • Font increase
  • Font Decrease

১৯৮৬ সাল, এরপর কেটে গেছে ৩৬টি বছর। অবশেষে আবারও আকাশি-সাদাদের উৎসবে মাতলো গোটা বিশ্ব। টানটান উত্তেজনা শেষে কাতার বিশ্বকাপের শিরোপা ঘরে তুললো আর্জেন্টিনা। নির্ধারিত সময়ে ২-২ সমতা। অতিরিক্ত সময়ে ৩-৩। এরপর ফলাফল গড়াল টাইব্রেকারে। সেখানে ৪-২ গোলে জিতে চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা। বাজপাখি মার্টিনেজ ঠেকিয়ে দেন একটি শট।

মেসি ও ডি মারিয়ার গোলে ম্যাচের ৮০ মিনিট পর্যন্ত ২-০ গোলে এগিয়ে আর্জেন্টিনা। মনে হচ্ছে ৩৬ বছরের অপেক্ষার অবসান হতে চলছে। আর মাত্র ১০ মিনিট পার করে দিতে পারলেই চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা। কিন্তু ফ্রান্সের একজন এমবাপ্পে ছিলেন।

দুই মিনিটের ঝড়। দুটি গোল করলেন এমবাপ্পে। ৭৮ মিনিটে ফ্রান্সের আক্রমণের সময় বক্সের মধ্যে হাঁটু দিয়ে কোলো মুয়ানিকে মারেন ওটামেন্ডি। পেনাল্টি থেকে গোল করেন এমবাপ্পে। পরের মুহূর্তেই আবার আক্রমণ করে ফ্রান্স। ডান দিক থেকে এমবাপ্পেকে লম্বা বল বাড়িয়েছিলেন কোমান। দ্রুত পাস খেলে মাটিতে পড়ে যেতে যেতে অনবদ্য শটে গোল করলেন এমবাপ্পে। ২-২ গোলে সমতা।

ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। অতিরিক্ত সময়ের দ্বিতীয়ার্ধে সেই মেসি ম্যাজিক। দুর্দান্ত এক গোলে ৩-২ গোলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। ম্যাচের ১১৮ মিনিট। এমবাপ্পের শট আটকাতে গিয়ে বক্সের মধ্যেই বল হাতে লাগালেন মন্তিয়েল। পেনাল্টি পায় ফ্রান্স। ৩-৩ গোলে সমতা। হ্যাট্রিক এমবাপ্পের। বিশ্বকাপ ফাইনালে প্রথম। অতিরিক্ত সময় শেষেও স্কোরলাইন ৩-৩।


ম্যাচ গড়ায় টাইব্রেকারে। সেখানে ৪-২ গোলে জিতে চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা। বাজপাখি মার্টিনেজ ঠেকিয়ে দেন একটি শট।

প্রথমার্ধে ম্যাচে তো প্রায় খুঁজেই পাওয়া যায়নি ফ্রান্সকে। বিরতির আগেই তুলে নেওয়া হয় জিরুদ ও ডেম্বেলেকে। প্রশ্ন উঠে, অসুস্থ অবস্থায় তাদের জোর করে নামিয়ে দেননি তো দিদিয়ের দেশম? নিস্প্রভ ছিলেন এমবাপ্পে গ্রিজম্যানরা।

ম্যাচের শুরু থেকে আক্রমণে জোর দেয় আর্জেন্টিনা। প্রথম দিকে রক্ষণ সামলাতেই বেশি ব্যস্ত থাকে ফ্রান্স। ৫ মিনিটে ম্যাচের প্রথম শট ম্যাক-অ্যালিস্টারের। শট যায় সরাসরি ফরাসি গোলকিপারের হাতে।

১০ মিনিটে একটা সুযোগ পায় আর্জেন্টিনা। দূর থেকে শট নিয়েছিলেন ডি পল। প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়ের পায়ে লেগে কর্নার।

আক্রমণাত্মক খেলে যাচ্ছিল আর্জেন্টিনা। খেলার ১৫ মিনিট পর্যন্ত এমবাপ্পের একটি আক্রমণ বাদে আর কোনও মুভমেন্ট দেখা যায়নি তাদের।

১৭ মিনিট সুযোগ নষ্ট করে আর্জেন্টিনা। দুরন্ত সুযোগ পেয়েছিলেন ডি মারিয়া। কিন্তু তার ডান পায়ের শট বারের অনেক ওপর দিয়ে বেরিয়ে যায়।

২০ মিনিটে ডে বক্সের সামান্য বাইরে ফ্রিকিক পায় ফ্রান্স। গ্রিজম্যানের ফ্রিকিকে জিরুদের হেড বাইরে যায়।

ম্যাচের ২২ মিনিটে বক্সের মধ্যে ফেলে দেওয়া হয় ডি মারিয়াকে। পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। পেনাল্টি থেকে আর্জেন্টিনাকে এগিয়ে দেন মেসি। হুগো লরিস ঝাঁপালেন ডান দিকে। মেসি পেনাল্টি মারলেন তার বাঁ দিকে। এবারের বিশ্বকাপে ষষ্ঠ গোল লিও মেসির।

গোল করে আক্রমণের ঝাঁজ আরও বাড়িয়ে দেয় আর্জেন্টিনা। একের পর এক আক্রমণ করে তারা। ফ্রান্স সেভাবে পায়ে বল রাখতেই পারেনি।

খেলার ৩৬ মিনিটে মাঝ মাঠ থেকে দুর্দান্ত আক্রমণে চোখ জুড়ানো গোল ডি মারিয়ার। মাঝমাঠে বল পেয়েছিলেন মেসি। তিনি ডিফেন্সচেরা পাস দেন ম্যাক অ্যালিস্টারকে। তার থেকে পাস পেয়ে চলতি বলে শট নিয়ে গোল করেন ডি মারিয়া। ২-০ গোলে এগিয়ে বিরতিতে যায় আর্জেন্টিনা।

বিরতির পরও তেমন আক্রমণ চালাতে পারেনি ফ্রান্স, উল্টো বেশ কয়েকবার গোল পেতে বসেছিল আর্জেন্টিনা। যেন একপেশে ফাইনাল। গোল শোধের তাড়া নেই ফরাসিদের। ৬৪ মিনিটে উঠিয়ে নেওয়া হয় ডি মারিয়াকে। বদলে নামলেন আকুনা।

মারিয়াকে তুলে নেওয়ার পরই বদলে যায় খেলা। আক্রমণ বাড়ায় ফ্রান্স। ম্যাচের ৭৮ মিনিটে বক্সের ভেতর কোলো মুয়ানিকে ফাউল করেন ওটামেন্ডি। পেনাল্টি পায় ফ্রান্স। শট নেন এমবাপ্পে। সঠিক দিকে ঝাঁপ দিয়েছিলেন মার্টিনেজও। তবে গতির কাছে পরাস্ত হন। চলতি বিশ্বকাপে এটি এমবাপ্পের ষষ্ঠ গোল। ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দেয় ফরাসিরা।

একটি গোল শোধ করে প্রাণ ফিরে পায় ফ্রান্স। পরের মিনিটে আবার গোল এমবাপ্পের। ২-২ গোলে সমতা। ডান দিক থেকে এমবাপ্পেকে লম্বা বল বাড়িয়েছিলেন কোমান। দ্রুত পাস খেলে মাটিতে পড়ে যেতে যেতে অনবদ্য শটে গোল করলেন এমবাপ্পে। বিশ্বকাপে সপ্তম গোল তার।

ম্যাচের একেবারে শেষ দিকে বাঁ দিক থেকে বল নিয়ে ফ্রান্সের গোলমুখে ঢুকছিলেন মেসি। বক্সের বাইরে থেকেই বাঁ পায়ে দুরন্ত শট নিয়েছিলেন। এক হাতে অনবদ্য ভঙ্গিতে সেটি বাঁচিয়ে দেন হুগো লরিস।

ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। অতিরিক্ত সময়ের প্রথমার্ধের খেলায় বদলি হয়ে নামা লাউতারোর শট বাঁচান ফরাসি ডিফেন্ডার। পরক্ষণেই ম্যাক অ্যালিস্টারের শট হেড করে উড়িয়ে দিলেন ভারানে।

ম্যাচের ১১৮ মিনিট। এমবাপ্পের শট আটকাতে গিয়ে বক্সের মধ্যেই বল হাতে লাগালেন মন্তিয়েল। পেনাল্টি পায় ফ্রান্স। ৩-৩ গোলে সমতা। হ্যাট্রিক এমবাপ্পের। বিশ্বকাপ ফাইনালে প্রথম। অতিরিক্ত সময় শেষেও স্কোরলাইন ৩-৩।

রুদ্ধশ্বাস সময়ে শেষে ম্যাচ গড়ায় টাইব্রেকার। প্রথমেই লক্ষ্যভেদ করে এমবাপ্পে ও মেসি। কোমানের শট আটকে দেন বাজপাখি মার্টিনেজ।শট মিস করেন চুয়ামেনিও। দিবালা, পারদেস, মন্তিয়েল গোল করলে ৪-২ গোলে ম্যাচ জিতে নেয় আর্জেন্টিনা। অবসান ৩৬ বছরের অপেক্ষার।

   

সিলেটের জয়ে শেষ বিপিএলের লিগ পর্ব



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

খুলনা টাইগার্স বনাম সিলেট স্ট্রাইকার্স ম্যাচটি এককথায় ছিল ‘ডেড রাবার’। যার অর্থ টুর্নামেন্টের সমীকরণ বিবেচনায় গুরুত্বহীন ম্যাচ। কারণ দুই দলের টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিশ্চিত হয়েছিল আগেই। সিলেট তো আগেই বিদায় নিয়েছিল, দিনের প্রথম ম্যাচে বরিশাল জেতায় খুলনারও বিপিএলের পাট চুকিয়ে যায়। এমন ম্যাচে সান্ত্বনার জয় পেয়েছে সিলেট। খুলনাকে তারা হারিয়েছে ৬ উইকেটে।

মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে টসভাগ্য সঙ্গ দেয় সিলেটের। টস জিতে আগে খুলনাকে ব্যাটিংয়ে পাঠান সিলেট অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুন। কিন্তু শুরুতেই শফিকুল ইসলামের বলে এনামুল হক বিজয় (১০) বোল্ড হয়ে গেলে বিপদ দেখে খুলনা।

তিনে নামা হাবিবুর রহমান সোহান এবং চার নম্বর ব্যাটার মাহমুদুল হাসান জয় দলের স্বস্তির কারণ হতে পারেননি। বিজয়ের সঙ্গে ইনিংস শুরু করতে নামা আফিফ হোসেনই হয়ে ওঠেন দলের বড় ভরসা। অন্য প্রান্তের ব্যাটাররা সমর্থন দিতে না পারলেও একাই দলের রানের চাকা সচল রাখেন। খণ্ডকালীন বোলার নাজমুল হোসেন শান্তকে ছক্কা হাঁকিয়ে ৩১ বলে ফিফটি করেন এই ব্যাটার।

তবে ফিফটির পর আর ইনিংসটিকে এগিয়ে নিতে পারেননি আফিফ। সামিট প্যাটেলের বলে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে মিডউইকেটে ইয়াসির আলির হাতে ধরা পড়েন তিনি। আউট হয়ে ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৩৫ বলে ৩ চার এবং ৪ ছক্কা সহযোগে ৫২ রান।

৯৮ রানে প্রথম পাঁচ ব্যাটারকে হারানো খুলনা একশ ছাড়ায় ওয়েইন পারনেলের ১৪ বলে ২১ রানের ক্যামিওর কল্যাণে।

সিলেটের রান তাড়ার শুরুটাই হয় বড়সড় হোঁচট দিয়ে। প্রথম দুই ওভারে সাজঘরের পথ ধরে দলটির দুই ওপেনার জাকির হাসান (০) এবং কেনার লুইস (৫)। তবে তৃতীয় উইকেটে নাজমুল হোসেন শান্ত এবং ইয়াসির আলি চৌধুরী রাব্বির জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় সিলেট। তাদের ৭০ রানের জুটি ভাঙেন আরিফ আহমেদ। তার বলে ব্যাকফুট পাঞ্চ করতে গিয়ে বোল্ড হয়ে ফেরেন শান্ত (৩৯)।

জেসন হোল্ডারের বলে নাহিদুল ইসলামের ক্যাচ হয়ে ৪৬ রানে থামেন রাব্বি। তবে দুই সেট ব্যাটারে খুব একটা বিপদে পড়তে হয়নি সিলেটকে। অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুন (১৯*) এবং অলরাউন্ডার বেনি হাওয়েল (১২*) মিলে ২ ওভার হাতে রেখেই তাদের লক্ষ্যে পৌঁছে দেন।

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’

;

আফিফের ফিফটির পরও খুলনার কষ্টেসৃষ্টে ১২৮



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দিনের প্রথম ম্যাচে কুমিল্লাকে বরিশাল হারিয়ে দিতেই খুলনা-সিলেট ম্যাচটি ‘ডেড রাবার’-এ পরিণত হয়। বরিশালের জয়ের সঙ্গে সঙ্গে টুর্নামেন্টে বিদায়ঘণ্টা বাজে খুলনার। সিলেটের বিদায় তো আরও আগেই নিশ্চিত হয়ে গেছে। প্লে-অফের দৌড় থেকে ছিটকে যাওয়া দুই দলের ম্যাচে আগে ব্যাট করে ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১২৮ রান করেছে খুলনা টাইগার্স।

মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে টসভাগ্য সঙ্গ দেয় সিলেটের। টস জিতে আগে খুলনাকে ব্যাটিংয়ে পাঠান সিলেট অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুন। কিন্তু শুরুতেই শফিকুল ইসলামের বলে এনামুল হক বিজয় (১০) বোল্ড হয়ে গেলে বিপদ দেখে খুলনা।

তিনে নামা হাবিবুর রহমান সোহান এবং চার নম্বর ব্যাটার মাহমুদুল হাসান জয় দলের স্বস্তির কারণ হতে পারেননি। বিজয়ের সঙ্গে ইনিংস শুরু করতে নামা আফিফ হোসেনই হয়ে ওঠেন দলের বড় ভরসা। অন্য প্রান্তের ব্যাটাররা সমর্থন দিতে না পারলেও একাই দলের রানের চাকা সচল রাখেন। খণ্ডকালীন বোলার নাজমুল হোসেন শান্তকে ছক্কা হাঁকিয়ে ৩১ বলে ফিফটি করেন এই ব্যাটার।

তবে ফিফটির পর আর ইনিংসটিকে এগিয়ে নিতে পারেননি আফিফ। সামিট প্যাটেলের বলে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে মিডউইকেটে ইয়াসির আলির হাতে ধরা পড়েন তিনি। আউট হয়ে ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৩৫ বলে ৩ চার এবং ৪ ছক্কা সহযোগে ৫২ রান।

৯৮ রানে প্রথম পাঁচ ব্যাটারকে হারানো খুলনা একশ ছাড়ায় ওয়েইন পারনেলের ১৪ বলে ২১ রানের ক্যামিওর কল্যাণে।

সিলেটের পক্ষে ৪ ওভার বোলিং করে ১৫ রান খরচ করে ৩ উইকেট নেন ইংলিশ বেনি হাওয়েল। দুটি উইকেট যায় দুই পেসার শফিকুল ইসলাম এবং তানজিম হাসান সাকিবের ঝুলিতে।

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’

;

রুটের সেঞ্চুরিতে রাঁচি টেস্টের প্রথম দিন ইংল্যান্ডের 



স্পোর্টস ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দিনটা যেন হয়েও হলো না ভারতের। অভিষেকে আকাশ দীপের চমক দেখানো পেসে ১১২ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে বসে ইংলিশরা। এতে দ্বিতীয় দিন শেষের আগেই প্রথম ইনিংস শেষের আশঙ্কা জাগে সফরকারী দলে। তবে জো রুটের সেঞ্চুরিতে দিনটা ঘুরে গেল ইংল্যান্ডের দিকে। সিরিজের প্রথম তিন টেস্টের ৬ ইনিংস মিলিয়ে ৭৭ রানের পর রাঁচি টেস্টে সেঞ্চুরির। লাল বলের ক্রিকেটে এই তারকা ব্যাতারের ৩১তম সেঞ্চুরির দিনে তিনশ পেরিয়েছে ইংল্যান্ডের সংগ্রহ। 

রাঁচিতে প্রথম দিনে ইংল্যান্ড ব্যাট করেছে পুরো ৯০ ওভার। সেখানে ৭ উইকেটে ৩০২ রান তুলেছে বেন স্টোকসের দল। ১০৬ রানে অপরাজিত আছেন রুট। 

টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নামা ইংলিশ ব্যাটারদের শুরতে পেস ভেল্কীতে ভোগান ২৮ বছর বয়সী অভিষিক্ত আকাশ। ৫৭ রানেই সাজঘরে পাঠান শুরুর তিন ব্যাটার বেন ডাকেট, ওলি পোপ ও জ্যাক ক্রলিকে। সেখান থেকে চাপ কিছুটা সামলে নিলে ১০৯ থেকে ১১২ এই তিন রানের ব্যবধানে জনি বেয়ারস্টো ও বেন স্টোকসকের ফেরান জাদেজা ও অশ্বিন। 

একপ্রান্তে উইকেটের মিছিল চললেও রুট হন থিতু। উইকেটরক্ষক বেন ফোকসকে নিয়ে দেখান চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহের আশা। তবে দিনশেষে হয়ে আসে ভালোর কাতারেই। ফিফটির আগে ৪৭ রান ফোকস ফিরলেও রানে ফেরার দিনে ২১৯ বলে সেঞ্চুরি তোলেন রুট। ফোকসের সঙ্গে তার ১১৩ রানের জুটিি মূলত ম্যাচে ইংলিশদের ফিরিয়ে আনে। এদিকে মার্ক উডের বদলে সিরিজে প্রথমবারের মতো একাদশে জায়গা পাওয়া ওলি রবিনসন বোলিংয়ের আগে ব্যাটিংয়ের দেখিয়ে দিলেন নিজের সক্ষমতা। রুটকে যোগ্য সঙ্গ দিয়ে ৩১ রানে অপরাজিত থেকে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করবেন এই ডানহাতি ব্যাটার। 

ম্যাচের আগে স্টোকসের মাঠ পরখের মন্তব্যের পর পিচ স্পিন সহায়ক মনে হলেও রাঁচিতে প্রথম দিনে সফল পেসাররাই। আকাশের ৩ দিন উইকেট ছাড়া এদিন মোহাম্মদ সিরাজ নিয়েছনে ২টি উইকেট

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’

;

তামিমের ‘ক্যাপ্টেনস নকে’ প্লে-অফে বরিশাল



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অধিনায়ক হিসেবে দলের রান তাড়ায় নেতৃত্ব দিলেন তামিম ইকবাল। ফরচুন বরিশালের সামনে আহামরি কোনো লক্ষ্য দাঁড় করাতে পারেনি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। তামিমের ফিফটিতে কুমিল্লার দেয়া ১৪১ রানের লক্ষ্য ৬ উইকেট হাতে রেখেই পেরিয়ে গেছে বরিশাল। এই জয়ে নিজেদের প্লে-অফে খেলা নিশ্চিত করেছে তারা, আর শেষ ম্যাচে মাঠে নামার আগেই প্লে-অফে খেলার সম্ভাবনা শেষ হয়ে গেছে খুলনা টাইগার্সের।

মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে টসে জিতে আগে কুমিল্লাকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় বরিশাল। শুরু থেকেই ধীরগতিতে ইনিংস গড়ে তোলার চেষ্টা করেন কুমিল্লার ব্যাটাররা। তবে সে ফর্মুলা কাজে দেয়নি মোটেও। উইকেটে কিছুটা থিতু হয়েও উইকেট ছুঁড়ে দিয়ে এসেছেন তারা।

দলটির প্রথম পাঁচ ব্যাটারের মধ্যে মাত্র দুইজন ১০০-র বেশি স্ট্রাইক রেটে ব্যাট করেছেন। তাদের মধ্যে সর্বোচ্চ ১০৯ স্ট্রাইক রেটে ব্যাট করে ২২ বলে ২৪ রান করেন ইংলিশ ব্যাটার মঈন আলি। দলীয় সর্বোচ্চ ২৫ রান আসে তাওহিদ হৃদয়ের ব্যাটে।

শেষদিকে জাকের আলি অনিকের দুই চার এবং চার ছক্কায় ৩৮* রানের ক্যামিওতে ১৪০ পর্যন্ত পৌঁছায় কুমিল্লার রান।

১৪১ রান তাড়া করতে নেমে শুরু থেকেই আত্মবিশ্বাসী ব্যাটিং করেন তামিম ইকবাল। ওপেনিং সঙ্গী আহমেদ শেহজাদ (১) এবং তিনে নানা কাইল মায়ার্স (২৫) খুব একটা সমর্থন জোগাতে না পারলেও আপন ছন্দে এগোতে থাকেন বরিশাল অধিনায়ক। ৪০ বলে ম্যাথু ফোর্ডকে ছক্কা হাঁকিয়ে ফিফটি স্পর্শ করেন দেশসেরা এই ওপেনার।

তামিমের ঝোড়ো ফিফটির পরও অন্য ব্যাটাররা ধীরগতিতে খেলায় শেষদিকে চাপে পড়ে বরিশাল। শেষ ৩ ওভারে যখন ২৮ রান প্রয়োজন তখন আন্দ্রে রাসেলকে ছক্কা হাঁকানোর পরের বলেই বাউন্ডারিতে ক্যাচ হন তামিম। ৪৮ বলে ৬ চার এবং ৩ ছয়ে ৬৬ রানের ইনিংস খেলে ফেরেন বরিশাল অধিনায়ক।

তামিম ফিরলেও মাহমুদউল্লাহ এবং সৌম্য সরকারের নিয়ন্ত্রিত আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে ২ বল হাতে রেখেই চতুর্থ এবং শেষ দল হিসেবে প্লে-অফের টিকিট পায় বরিশাল।

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’

;