বরিশালের প্রথম না কুমিল্লার পাঁচ?



স্পোর্টস ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

‘আগেও দু’বার ফাইনাল খেলেছি কিন্তু কখনো বিপিএলে ট্রফি জিততে পারিনি। যদি চ্যাম্পিয়ন হতে পারি, এবারই প্রথম চ্যাম্পিয়ন হব’-বিপিএলের দশম আসরের ফাইনালের আগে ট্রফি উন্মোচন পর্ব শেষে আক্ষেপ নিয়ে কথাগুলো বলছিলেন ফরচুন বরিশালের তারকা অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ। কণ্ঠে আক্ষেপের সুরের সঙ্গে স্পষ্ট শিরোপা জয়ের ক্ষুধাটাও। সেই ক্ষুধা নিবারণের ম্যাচ কাল। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ আসরের সবচেয়ে সফলতম দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। যারা লিগে পঞ্চম ও একইসঙ্গে হ্যাটট্রিক শিরোপা জয়ের পথে রয়েছে।

সেই হিসেবে কুমিল্লার ধারে কাছেও নেই বরিশাল। আসরে এখন পর্যন্ত দু’বার ফাইনাল খেললেও শিরোপা ছুঁয়ে দেখা হয়নি ফ্র্যাঞ্চাইজিটির। শেষবার তো ২০২২ বিপিএলে এই কুমিল্লার বিপক্ষে হেরেই শিরোপা খুয়াতে হয়েছে বরিশালকে। সেটাও হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়ে। হারতে হয়েছে মাত্র ১ রানের ব্যবধানে। বিপিএলের ইতিহাসে এমনভাবে হারের নজির নেই কোনো দলের।

তাই কুমিল্লার সঙ্গে বরিশালের হিসেবটা বেশ পুরনো। যা মেটাতে হলে ফাইনালে শিরোপা জিতেই মেটাতে হবে তাদের। সেই সামর্থ্য রয়েছেও দলটির ক্রিকেটারদেরও। বাংলাদেশ জাতীয় দলের একঝাঁক অভিজ্ঞ ও বিদেশী পরীক্ষিত ক্রিকেটার নিয়ে গড়া এই দলটা হারিয়ে দিতে পারে যে কোনো দলকেই। একটি এলিমিনেটর ও কোয়ালিফায়ার জিতে ফাইনালে পা রেখে যার প্রমাণ এরইমধ্যেই দিয়ে রেখেছে তামিম ইকবালের দল। তাছাড়া সবশেষ লিগ পর্বে কুমিল্লার বিপক্ষে পাওয়া জয়ও ফাইনালে বাড়তি আত্মবিশ্বাসী দেবে দলটিকে।

তবে ওসবে কুমিল্লার ভাবনা কমই। কেননা, হার দিয়ে আসর শুরু ও সবশেষ ট্রফি জয়। যেন নিয়মেই পরিণত করে ফেলেছে কুমিল্লা। এবারও দলটি আসর শুরু করেছিল টুর্নামেন্টের সবচেয়ে দুর্বল দল ঢাকার বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচ হেরে। সেই তারাই সবার আগে ফাইনালে। তাই শিরোপার বাতাসটা বেশ ভালোভাবেই লাগতে শুরু করেছে দলটির। তাছাড়া আগের চার আসরের ফাইনালে উঠে কখনোই খালি হাতে ফিরতে হয়নি কুমিল্লাকে। যা এ ম্যাচেও বাড়তি প্রেরণা হিসেবে কাজ করবে লিটন দাসের দলের।

দলটিকে এগিয়ে রাখবে তাদের ফর্ম। লিটন ও তাওহীদ হৃদয় চলতি টুর্নামেন্টে দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছেন। হৃদয় চলতি টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকায় দুই নম্বরে। দেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বোচ্চ ছক্কার রেকর্ডটাও এরইমধ্যে নিজেদের করে নিয়েছেন তিনি। সঙ্গে প্রয়োজনের সময় জ্বলে উঠতে পারার সামর্থ্য আছে জাকের আলীর। দলটির বিদেশি ক্রিকেটাররাও রয়েছেন দারুণ ছন্দে। আন্দ্রে রাসেল, মঈন আলী কিংবা সুনীল নারিনরা নিজেদের দিনে একাই ম্যাচ ঘুরিয়ে দেওয়ার সামর্থ্য রাখেন। যা এই ম্যাচে নামার আগেও সাহস যোগাবে কুমিল্লাকে।

সব মিলিয়ে তাই বলতে গেলে আসরের অন্যতম সেরা দুই দলই উঠেছে এবারের ফাইনালে। তাই রোমাঞ্চটাও ছাড়াচ্ছে বেশ। শুক্রবার ছুটির দিনে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার ফাইনালটাও তাই হয়ে উঠেছে দর্শক আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে। যেখানে দু’দলই মুখিয়ে শিরোপার জন্য। আর এই শিরোপা প্রশ্নের উত্তর মিলবে কাল। যেখানে হয় বরিশাল প্রথম না নয় কুমিল্লা হ্যাটট্রিক ও পঞ্চম শিরোপার আনন্দে মাতবে।

   

একের সঙ্গে দুইয়ের লড়াই



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আইপিএলের চলতি আসরে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে সফল যে দুই দল, তারাই একে অপরের মুখোমুখি হচ্ছে আজ। ইডেন গার্ডেন্সে রাত ৮টায় কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে মাঠে নামছে রাজস্থান রয়্যালস। যেহেতু এটি পয়েন্ট তালিকার শীর্ষের দুই দলের লড়াই, তাই এই ম্যাচ নিয়ে দর্শকদের উন্মাদনা যেন নতুন মাত্রা পেয়েছে।

আইপিএলের এবারের আসরে শুরু থেকেই দারুণ ফর্মে আছে দুইবারের চ্যাম্পিয়ন দল কলকাতা। তারাই এবার প্রথম দল হিসেবে ঘরের বাইরের মাঠে যেয়েও জয় তুলে নিয়েছিল। টানা তিন ম্যাচ জেতার পর চতুর্থ ম্যাচে যদিও হারের স্বাদ হজম করতে হয়েছিল কেকেআরকে। তবে সেই ধাক্কাও সামলে উঠে সবশেষ নিজেদের পঞ্চম ম্যাচে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুকে দাপটের সঙ্গে হারিয়ে দিয়েছে শ্রেয়াস আইয়ারের দল।

অপরদিকে টেবিল টপার রাজস্থান রয়্যালসও আছে দুর্দান্ত ছন্দে। টানা চার ম্যাচে জয় তুলে নিয়ে গুজারাটের কাছে প্রথম হারের দেখা পায় রাজস্থান, তাও সেটি ছিল খুব অল্প ব্যবধানের হার। সবশেষ পাঞ্জাব সুপার কিংসকে হারিয়ে নিজেদের শীর্ষস্থান পুনরুদ্ধার করে তারা।

ইডেন গার্ডেন্সে কলকাতা নাইট রাইডার্স বরাবরই দাপুটে। তাদের মাঠে যেয়ে জয় তুলে আনাটা বেশ কঠিন তার প্রমাণ সবসময়ই দেখা গেছে। তাই এই ম্যাচে নিজেদের পূর্ণ শক্তির দল নিয়েই মাঠে নামবে রাজস্থান। অন্যদিকে রাজস্থানকেও সহজভাবে নিচ্ছে না স্বাগতিকরা। কারণ চলতি আসরে রাজস্থানের প্রত্যেকজন খেলোয়াড়ই আছেন নিজেদের সেরা ফর্মে। ব্যাট-বল উভয় ক্ষেত্রেই তারা এবার বিধ্বংসী।

কলকাতার দলে চোটের কারণে খুব সম্ভবত এই ম্যাচেও দেখা যাবেনা নিতিশ রানাকে। তার পরিবর্তে খেলতে পারেন অংক্রিশ রাঘুবংশী। এছাড়া বল হাতে মিচেল স্টার্ক আজ নিজের ঝলক দেখাবেন এমনটাই আশা করছে সমর্থকরা। ওপেনিং জুটিতে সুনীল নারাইন আজও ব্যাটিং তান্ডব চালাবেন এই প্রত্যাশায় আছে দল। অর্থাৎ অপরিবর্তিত একাদশ নিয়েই ঘরের মাঠে নামবে কলকাতা।

অপরপক্ষে রাজস্থানের দলে আবারও ফেরত আসার সম্ভাবনা আছে জশ বাটলার এবং রবীচন্দ্রন অশ্বিনের। সবশেষ পাঞ্জাবের বিপক্ষে এই দুইজনের কেউই দলে ছিলেন না, তবে আজ কলকাতার বিপক্ষে হাই ভোল্টেজ এই ম্যাচে তাদের দেখা যাবে।

বর্তমান পয়েন্ট টেবিল অনুযায়ী ৬ ম্যাচে ১০ পয়েন্টের সঙ্গে শীর্ষে আছে রাজস্থান। এক ম্যাচ কম খেলে ৮ পয়েন্টের সঙ্গে দুইয়ে আছে কলকাতা। তবে নেট রানরেটের হিসেবে ঢের এগিয়েই আছে নাইট রাইডার্স। আজ যে দল জয় তুলে নিবে তারাই পয়েন্ট তালিকার শীর্ষস্থান দখল করবে। তাই জয়ের উদ্দেশ্যেই মাঠে নামছে দুই দল। আশা করা যায় দারুণ এক ম্যাচ উপভোগ করতে যাচ্ছে সমর্থকরা।

;

সাবেক অজি ক্রিকেটার স্ল্যাটার রিমান্ডে



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বেশ কয়েকটি অভিযোগে অস্ট্রেলিয়ার সাবেক তারকা ক্রিকেটার মাইকেল স্ল্যাটারকে রিমান্ডে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়ান পুলিশ। তার বিরুদ্ধে প্রায় ডজনখানেক অভিযোগের কথা জানিয়েছে দেশটির আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা।

স্ল্যাটারের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের মধ্যে রয়েছে অনৈতিকভাবে গোপনে নজরদারি, হয়রানি, রাতের আঁধারে অন্যের ঘরে বেআইনিভাবে অনুপ্রবেশ, শারীরিকভাবে আক্রমণ, ঘরোয়া সহিংসতা, জামিনের শর্ত ভঙ্গ ইত্যাদি। সবশেষ তার বিরুদ্ধে ঘরোয়া সহিংসতার অভিযোগও ওঠে, এরপরই তাকে আটক করে দেশটির পুলিশ।

অস্ট্রেলিয়ান পুলিশের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল অনলাইন জানিয়েছে, গতকাল (সোমবার) অস্ট্রেলিয়ার মারুচাইদোরে ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্ল্যাটারের বিরুদ্ধে মামলা উপস্থাপন করা হয়। ২০২৩ সালের ৫ ডিসেম্বর থেকে এ বছরের ১২ এপ্রিলের মধ্যে বিভিন্ন অপরাধের জন্য স্ল্যাটারের বিরুদ্ধে মোট ১৯টি অভিযোগ গঠিত হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়া জাতীয় দলের হয়ে বর্ণাঢ্য এক ক্যারিয়ার ছিল স্ল্যাটারের। অজিদের হয়ে ৭৪টি টেস্ট ও ৪২টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন তিনি। টেস্ট ফরম্যাটে তার আছে ১৪টি সেঞ্চুরি। ২০০৪ সালে মাঠের খেলা থেকে অবসর নেন, এরপর টিভি ধারাভাষ্যকার হিসেবে বেশ সুনামও কুড়িয়েছিলেন সাবেক এই ক্রিকেটার। তবে ব্যক্তিজীবন নিয়ে এখন বেশ বিপদেই আছেন এই সাবেক ক্রিকেটার।

;

উইজডেনের স্বীকৃতি পেলেন কামিন্স



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্যাট কামিন্স, অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটের এক ধ্রুবতারা। তার নেতৃত্বে গত বছর ওয়ানডে বিশ্বকাপ ও টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল খেলে অস্ট্রেলিয়া। দুই ফাইনালেই ভারতকে ধরাশায়ী করে শিরোপা ঘরে তোলে অজিরা। অধিনায়ক হিসেবে এই অনন্য অর্জনের জন্য উইজডেন ক্রিকেটার্স অ্যালমানাক তাকে ‘লিডিং ক্রিকেটার ইন দ্য ওয়ার্ল্ড’ হিসেবে নির্বাচিত করেছে।

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে ভারতকে হারানোর পর তাদের মাটিতে বিশ্বকাপেও বিজয় নিশান ওড়ায় অস্ট্রেলিয়া। কামিন্সের যোগ্য নেতৃত্বের সঙ্গে ব্যাটে-বলে তার দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে মনে রাখার মতো একটা বছর কেটেছে দেশটির ক্রিকেটের। তার আগে ২০১২ সালে মাইকেল ক্লার্ক সর্বশেষ উইজডেনের কাছ থেকে এই সম্মান পেয়েছিলেন।

একইসঙ্গে ২০২৩ সালের বর্ষসেরা পাঁচ ক্রিকেটারের নামও ঘোষণা করেছে উইজডেন। সাধারণত ইংলিশ ক্রিকেট মৌসুমের পারফরম্যান্সকে বিবেচনায় নিয়ে এই সম্মাননা দেয়া হয়। 

বর্ষসেরা ক্রিকেটারের তালিকায় জায়গা পেয়েছেন তিন অস্ট্রেলিয়ান ও দুই ইংলিশ ক্রিকেটার। তিন অস্ট্রেলিয়ান হচ্ছেন- উসমান খাজা, মিচেল স্টার্ক ও অ্যাশলে গার্ডেনার। আর ইংলিশ দুই ক্রিকেটার হলেন- ইংল্যান্ডের হ্যারি ব্রুক ও মার্ক উড।

;

আইপিএল থেকে বিরতি নিলেন ম্যাক্সওয়েল



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আইপিএলের চলতি আসরে তাকে নিয়ে চলছে কঠোর সমালোচনা। কারণ একের পর এক ম্যাচে বাজে পারফরম্যান্স দেখিয়েই যাচ্ছেন তিনি। গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, যার ব্যাটিং তান্ডব দেখার জন্য মুখিয়ে থাকে ক্রিকেটের দর্শকরা, সেই ম্যাক্সওয়েলই এবারের আইপিএলে ব্যাট হাতে নিষ্প্রভ।

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর হয়ে ৬ ম্যাচে মাঠে নেমে ম্যাক্সওয়েলের ব্যাট থেকে এসেছে মাত্র ৩২ রান। তিন ম্যাচেই ডাক মেরে সাজঘরে ফিরেছেন। ম্যাক্সওয়েলের কাছে এমন পারফরম্যান্স আশা করেননি কেউই। তাই তাকে নিয়ে যথেষ্ট হতাশ হয়েছেন বেঙ্গালুরুর সমর্থকরা।

কাঁটা ঘায়ে নুনের ছিটা হিসেবে যোগ হয়েছে তার চোট। গত বৃহস্পতিবার মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে ফিল্ডিংয়ের সময় হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলিতে চোট পেয়েছেন ম্যাক্সওয়েল। গতরাতে হায়দরাবাদের বিপক্ষে এ কারণেই দলে ছিলেন না তিনি।

এবার নিজেই চলতি আইপিএল থেকে বিরতিতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন ম্যাক্সওয়েল। তবে তিনি এও দাবি করে বলেছেন যে, চোট নয় বরং ফর্মে নেই বলেই বিরতি চাচ্ছেন তিনি। নিজেকে মানসিক ও শারীরিকভাবে 'ফিট' করে তুলতেই এই পদক্ষেপ নিলেন এমনটাও বলেছেন ম্যাক্সওয়েল। তার অনুরোধেই তাকে গতরাতে হায়দরাবাদের বিপক্ষে মাঠে নামানো হয়নি।

নিজের ফর্ম ও ছন্দ হারানো প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে কখনো কখনো এমনটা হতে পারে। এটা পরিবর্তনশীল একটা খেলা। প্রথম ম্যাচের কথাই যদি বলি, রান করার সুযোগ আছে দেখে আমি একটু আগেই শট খেলে ফেলেছিলাম। পরিস্থিতি আমার পক্ষে থাকলে বল কিপারের গ্লাভসের অনেক দূর দিয়ে যেত। প্রথম বলেই আমি বাউন্ডারি পেয়ে যেতাম। টুর্নামেন্টের শুরুটাও ভালো হতো। কিন্তু সেটা হয়নি।’

তবে দলের প্রয়োজনে যেকোনো সময় মাঠে ফিরতে প্রস্তুত আছেন তিনি। ম্যাক্সওয়েল বলেন, ‘এই টুর্নামেন্টে যদি আমাকে আবার দরকার পড়ে, তাহলে আশা করি আরও শক্ত মানসিকতা ও শারীরিক অবস্থা নিয়ে ফিরতে পারব। আমি এখনো মাঠে প্রভাব বিস্তার করতে পারি।’

ইডেন গার্ডেন্সে আগামী রবিবার কলকাতার বিপক্ষে ম্যাচ আছে বেঙ্গালুরুর। সে ম্যাচে ম্যাক্সওয়েল আবার মাঠে নামার সম্ভাবনা দেখিয়েছেন। তবে মাঠে নামলেও ব্যাট হাতে ভালো কিছু করে দেখাবেন অজি এই হার্ড-হিটার, এমনটাই আশা করেন তার সমর্থকরা।

;