তাইওয়ানে যৌথভাবে ষষ্ঠ স্থানে সিদ্দিকুর



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
গলফার সিদ্দিকুর রহমান, ছবি: সংগৃহীত

গলফার সিদ্দিকুর রহমান, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দিন কয়েক আগে প্যানাসনিক ওপেনে সুবিধে করে উঠতে পারেননি সিদ্দিকুর রহমান। দ্বিতীয় রাউন্ডের কাট থেকে বাদ পড়ে যান। তবে মার্কারিজ তাইওয়ান মাস্টার্সে প্রথম দিনের দুরন্ত পারফরম্যান্সটা ধরে রেখেছেন দ্বিতীয় দিনেও। তবে আজ শুক্রবার (৪ অক্টোবর) আগের দিনের চেয়ে এক শট বেশি খেলে ফেলেছেন। দুই রাউন্ড মিলিয়ে পারের চেয়ে তিন শট কম খেলে লিডারবোর্ডে চারজনের সঙ্গে যৌথভাবে ষষ্ঠ স্থানে এখন এ ব্রুনাই ওপেন জয়ী।

তাইওয়ান গলফ অ্যান্ড কান্ট্রি ক্লাবে দ্বিতীয় রাউন্ডে প্রথম, দ্বিতীয়, অষ্টম, নবম ও দশম হোলে পাঁচটি বার্ডি পান সিদ্দিকুর। মানে এ পাঁচ হোলে পারের চেয়ে এক শট কম খেলেন। কিন্তু ৩য়, ১২তম, ১৪তম ও ১৮তম হোলে চারটি বোগি মারেন। এই চার হোলে পারের চেয়ে এক শট বেশি খেলে পিছিয়ে পড়েন। ফলে পুরো রাউন্ডের ফল পারের চেয়ে এক শট কম।

প্রথম রাউন্ডে আরো ভালো করে ছিলেন সিদ্দিকুর। পারের চেয়ে দুই শট কম খেলেন ৩৪ বছর বয়সী এই গলফার। তবে যৌথভাবে ছিলেন অষ্টম স্থানে।
দুই রাউন্ড মিলিয়ে বাংলাদেশের সেরা এ গলফার খেলেন (৭০+৭১ শট) ১৪১ শট।

৯ লাখ ডলারের প্রাইজমানির এ টুর্নামেন্টে পারের চেয়ে ৭ শট কম খেলে লিডারবোর্ডের সবার ওপরে এখন ভারতের অজিতেশ সান্ধু।

ফিনালিসিমা নিয়ে চিন্তিত স্কালোনি



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইউরোর চ্যাম্পিয়ন আর কোপা আমেরিকার চ্যাম্পিয়ন, এই দুই চ্যাম্পিয়নের লড়াই, যার নাম ফিনালিসিমা। ২০২২ সালে এই লড়াইয়ে ইতালিকে হারিয়েছিল আর্জেন্টিনা। ২০২৪ সালে এসে এই লড়াইয়ের আলোচনা উঠেছে আবার। কোপা আমেরিকা জিতে আর্জেন্টিনা কোচ লিওনেল স্কালোনি জানালেন, ফিনালিসিমা মাঠে গড়ালে ভালোরকমের বিপদেই পড়তে চলেছেন তিনি।

২০২৫ সালের সম্ভাব্য ফিনালিসিমার আলোচনাটা প্রথম করেছিলেন লামিন ইয়ামাল। কয়েক দিন আগে তিনি বলেছিলেন, ‘আমি আশা করব মেসি যেন কোপা আমেরিকা জেতে। আর আমি ইউরো জিতি। তাহলে ফিনালিসিমায় আমি তার বিপক্ষে খেলতে পারব।’

এরপর গেল রাতে স্পেন কোচ লুইস দে লা ফুয়েন্তেও এই বিষয়ে কথা বলেছেন। শুভকামনা জানিয়েছিলেন আর্জেন্টিনাকে ফিনালিসিমায় আসার জন্য, শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন স্কালোনিকেও।

এরপর আর্জেন্টিনার কোপা আমেরিকা জেতার পর আবারও এই প্রসঙ্গ এল। কোচ লিওনেল স্কালোনিকে জিজ্ঞেস করা হলো ওই ম্যাচ নিয়ে। জবাবে তিনি বললেন, ‘এটা খেলা হবে তো? হলে ভালোই হবে। আমার পরিবারের একাংশ স্পেনের, ওই দেশের সঙ্গে আমার বেশ ভালো একটা সম্পর্ক আছে, ওখানে আমি থাকি, তাদের কোচকেও আমি বেশ করে চিনি। আমি তাদের জয়ের জন্যও বেশ আনন্দিত।’

বিপদের কথাটা স্কালোনি টানলেন এরপরই। তিনি বললেন, ‘ফিনালিসিমা মাঠে গড়ালে আমার একটা বিপদই হয়ে যাবে। আমার পরিবারই বিভক্ত হয়ে যাবে সেদিন। আমার পরিবারের একাংশ যে ওখানের!’

তবে এই ফিনালিসিমা আবারও মাঠে গড়াক, তা চান স্কালোনি। তার ভাষ্য, ‘এটা ভালো কিছুই হবে। দুই দল যারা এই মুহূর্তে বেশ ভালো সময় কাটাচ্ছে, তাদের মুখোমুখি হওয়াটা দারুণ হবে। দুই দল একে অন্যের চেয়ে কত আলাদা, তা দেখা যাবে।’

;

আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় বললেন টমাস মুলার



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২-১ গোলের জয় তুলে নিয়ে গতরাতে এবারের ইউরোর শিরোপা তুলে ধরেছে স্পেন। স্বাগতিক হিসেবে জার্মানি ছিল এবারের অন্যতম ফেভারিট। দলীয় শক্তি সামর্থ্য বিবেচনায়ও তারা এগিয়েই ছিল বেশ। তবে কোয়ার্টার ফাইনালে স্পেনের বিপক্ষে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে গিয়েছিল জার্মানরা। তখনই ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছিলেন তিনি। আজ ইউরোর পর্দা আনুষ্ঠানিকভাবে নামার পরপরই জাতীয় দল থেকে নিজের অবসরের ঘোষণা দিয়েই ফেললেন টমাস মুলার।

কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচটি আরেক জার্মান তারকা মিডফিল্ডার টনি ক্রুসের জাতীয় দলের জার্সিতে শেষ ম্যাচ ছিল। তার বিদায়বেলায় মুলার সেদিন জার্মান স্কাই স্পোর্টসকে বলেছিলেন, ‘খুব সম্ভবত এটি আমার শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ।’

আজ তার ইঙ্গিতটি সত্যি হলো। একটি ভিডিও বার্তায় নিজের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের ইতি টানার ঘোষণা দিয়ে মুলার বলেছেন, ‘১৪ বছর আগে জার্মানির হয়ে প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচটি খেলার সময় এসব কোনো কিছুর স্বপ্ন দেখিনি। দেশের হয়ে খেলতে সবসময়ই গর্ব বোধ করেছি। আমরা একসঙ্গে উপভোগ করেছি, দুঃখও ভাগ করেছি। জাতীয় দলের হয়ে ১৩১ ম্যাচে ৪৫ গোল করার পর আমি বিদায় জানাচ্ছি।’

২০১০ সালে জার্মানির হয়ে জাতীয় দলে অভিষেক হয়েছিল সময়ের অন্যতম সেরা এই মিডফিল্ডারের। জার্মানির হয়ে ইতিহাসের তৃতীয় সর্বোচ্চ (১৩১) ম্যাচ খেলেছেন। যেখানে তার গোল সংখ্যা ৪৫টি।

সদ্য সমাপ্ত ইউরো আসরে যদিও সেভাবে একাদশে খেলার সুযোগ হয়নি মুলার। বেঞ্চ থেকে বদলি হিসেবে নেমে খেলেছেন মাত্র দুটি ম্যাচ। আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় জানালেও ক্লাব ফুটবলে অন্তত ২০২৫ সাল পর্যন্ত জার্মান জায়ান্ট বায়ার্ন মিউনিখে দেখা যাবে তাকে।

;

১৫ বছরের চুক্তি করতেও রাজি স্কালোনি



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আর্জেন্টিনার কোচ হিসেবে লিওনেল স্কালোনি এসেছিলেন ২০১৮ সালে। এরপর থেকে তিনি দলটাকে জিতিয়েছেন একে একে ৪টা শিরোপা। এরপর তিনি জানালেন, বোর্ডের পক্ষ থেকে যদি ১৫ বছরের চুক্তিও হয়, তাও মেনে নিতে রাজি আছেন তিনি।

কোচ লিওনেল স্কালোনির অধীনে ২০১৯ কোপা আমেরিকায় প্রথম টুর্নামেন্টটা খেলেছিল আর্জেন্টিনা। সেবার সেমিফাইনালে খেলেছিলেন লিওনেল মেসিরা। এরপরের আসর থেকেই শুরু আর্জেন্টিনার জয়যাত্রার। ২০২১ কোপা আমেরিকা জিতে ২৮ বছরের খরা কাটিয়েছে এরপর।

২০২২ সালে ফিনালিসিমায় হারিয়েছে ইউরো চ্যাম্পিয়ন ইতালিকে। এরপর সে বছর ডিসেম্বরে ঘরে তুলেছে বিশ্বকাপের সোনার হরিণও। এরপর এবার কোপা আমেরিকার শিরোপা আবার জিতেছে স্কালোনির দল। শেষ অনেক বছরে আর্জেন্টিনার কোচিং করিয়ে এমন সফল হতে পারেননি অনেকেই। সেটা স্কালোনি হয়ে গেছেন দায়িত্ব পাওয়ার ছয় বছরের ভেতর।

তবে তিনি দায়িত্বে থাকতে চাননি। গেল বছর ব্রাজিলকে তাদেরই মাঠে হারানোর পর স্কালোনি জানিয়েছিলেন সরে যাওয়ার অভিপ্রায়। তখন কী চলছিল স্কালোনির মনে? আর্জেন্টিনা কোচ আজ জানালেন, ‘গেল বছরটা আমার বেশ বাজে কেটেছে। আমি খুব ভালো অবস্থায় ছিলাম না। কারণ কিছু বিষয়ে একটা জায়গায় আটকে ছিলাম কয়েক মাসের মতো। সেদিন আমার সমস্যাটা ছিল, এটা আমার বলতেই হবে।’

সে সমস্যা কি এখনও আছে? স্কালোনির জবাব, ‘আজ আমি ভালো আছি। সে সমস্যাটা থেকে সেরে উঠেছি। আমরা আশা করছি এই পথে আরও অনেক দূর চলব আমরা।‘

ঠিক কত দূর চলতে চান আর্জেন্টিনার সঙ্গী হয়ে? স্কালোনি জানালেন, ‘জাতীয় দলের কোচের কাজটা অনেক প্রাণশক্তি দাবি করে। আমি মনে করি এখানে সৎ থাকাটা জরুরি। এখন আমার দুই বছরের চুক্তি বাকি আছে। আমাকে এখন যদি সভাপতি এসে বলেন যে ১৫ বছরের চুক্তিতে সই করো, আমি তাও নির্দ্বিধায় করে ফেলব।’

শেষ কথাটা অতি অবশ্যই রসিকতা। কিন্তু সেটা বাস্তব হয়ে গেলেও বোধ করি আর্জেন্টাইনরা মোটেও অসন্তুষ্ট হবেন না!

;

কোপা জিতে কত টাকা পেল আর্জেন্টিনা?



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ফিফা, উয়েফা বা কনমেবল, বড় কোনো টুর্নামেন্টের শিরোপা জয় মানেই বড় অঙ্কের অর্থ পুরষ্কার। ক্রিকেটের টুর্নামেন্টগুলোর থেকে ফুটবলে সেই পুরস্কারের অঙ্কটা সবসময়ই থাকে কয়েক গুণ বেশি। গত মাসে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতে ভারত আইসিসির থেকে পুরষ্কার হিসেবে পেয়েছিল ২৪ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার, বাংলাদেশি মুদ্রায় যেটি প্রায় ২৯ কোটি টাকা। তবে আজ (সোমবার) কলম্বিয়াকে ১-০ ব্যবধানে হারিয়ে কোপা জিতে আর্জেন্টিনা যে অর্থ পুরষ্কার পেল তার অঙ্কটা প্রায় সাড়ে ছয় গুণ বেশি।

চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা কনমেবল থেকে পাচ্ছে ১ কোটি ৬০ লাখ ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ১৮৮ কোটি টাকা। এদিকে রানার্স-আপ কলম্বিয়া পাচ্ছে ৭০ লাখ ডলার (৮২ কোটি টাকারও বেশি)।

এদিকে কোপার এবারের আসরে অংশগ্রহণকারী প্রত্যেক দলের জন্য ২০ লাখ ডলার বরাদ্দ আছে বলে নিশ্চিত করেছে কনমেবল। পুরো আসরের প্রাইজমানির সংখ্যাটা ৭ কোটি ২০ লাখ ডলার।

অবশ্য ইউরোর প্রাইজমানির তুলনায় কোপার প্রাইজমানি বেশ কম। ইউরোতে রানার্স-আপ ইংল্যান্ড পাচ্ছে ২ কোটি সাড়ে ৪২ লাখ ডলার। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২৮৫ কোটি টাকা। অর্থাৎ, কোপার চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স-আপ দল মিলে যা পেয়েছে ইংলিশরা তার চেয়ে বেশি পেয়েছে ১২ লাখ ডলার। এদিকে ইউরোতে জিতে স্পেন পেল ২ কোটি ৮২ লাখ ৫০ হাজার ডলার, বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩৩২ কোটি টাকা।

এদিকে কোপা জিতে ইউরো চ্যাম্পিয়ন স্পেনের অনন্য এক রেকর্ডে ভাগ বসাল আর্জেন্টিনা। কোপার এবারের আসর দিয়ে টানা তিনটি বড় শিরোপা জিতল আলবিসেলেস্তেরা। যা দক্ষিণ আমেরিকার কোনো দেশ হিসেবে প্রথম। এবং বৈশ্বিকভাবে যেই রেকর্ড কেবল স্পেনের। ২০০৮ ইউরো, ২০১০ বিশ্বকাপের পর ২০১২ ইউরোটাও জিতেছিল স্প্যানিশরা।

;