ব্যাকফুটে থাকা বিসিবি এখন রক্ষণাত্মক!

  ক্রিকেটারদের ধর্মঘট

স্পোর্টস এডিটর, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
বিসিবির দুই পরিচালক জালাল ইউনুস ও আকরাম খান

বিসিবির দুই পরিচালক জালাল ইউনুস ও আকরাম খান

  • Font increase
  • Font Decrease

ক্রিকেটাররা সংবাদ সম্মেলন করছেন বড় কোন একটা ইস্যূ নিয়ে সেটা বিসিবি কর্তারাও টের পেয়েছিলেন। তারা সেটা থামাতেও শুরুতে একটা চেষ্টায় ছিলেন। কিন্তু ঐক্যবদ্ধ ক্রিকেটাররা তাদের পূর্ব সিদ্ধান্ত থেকে পিছপা হননি। মিডিয়ার সামনে দল বেঁধে হাজির হন ক্রিকেটাররা। বিসিবির কাছে নিজেদের ১১ দফা দাবি উপস্থাপন করেন।

ক্রিকেটারদের এই দাবি এবং আল্টিমেটাম নিয়ে কি ভাবছেন বিসিবি কর্তারা? উত্তর হলো- বেশ ভালই এবং সিরিয়াসলিই ভাবতে শুরু করেছেন তারা। দুুপুরে বিসিবিতে ক্রিকেটাররা জড়ো হয়ে এই সংবাদ সম্মেলন করার ঘন্টাখানেকের মধ্যেই ধানমন্ডির বেক্সিমকো কার্যালয়েও একটা ছোটখাটো বৈঠক হয়ে গেলো বিসিবি’র কয়েকজন পরিচালকের।

ধানমন্ডির বেক্সিমকোতে অফিস করেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। ক্রিকেটাররা আকস্মিকভাবে এমন সংবাদ সম্মেলন করে নিজেদের ১১ দফা দাবি উত্থাপন করবেন। এমনভাবে তেঁতে উঠবেন- সেজন্য বিসিবি ঠিক প্রস্তুত ছিল না। তবে বিসিবির বেশ কয়েকজন পরিচালক বার্তাটোয়েন্টিফোরের কাছে স্বীকার করলেন-ক্রিকেটাররা যেসব দাবির কথা বলছেন, তার প্রায় সবগুলোই যথাযথ। কোনটাই ঠিক অন্যায্য নয়। কিন্তু যে কায়দায় ক্রিকেটাররা এখন আল্টিমেটামও দিয়ে ফেলেছেন সেটাই ঠিক বিসিবি কর্তারা মানতে পারছেন না। সেটাই তাদের অবাক করেছে।

আরও পড়ুন- হঠাৎ বিদ্রোহী ক্রিকেটাররা, সব ধরনের খেলা বয়কট

বিসিবি পরিচালক ও মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস এই প্রসঙ্গে বলছিলেন-‘আমি খুব মনোযোগ দিয়ে ক্রিকেটারদের এই দাবিগুলো পড়লাম। তাদের উল্লেখিত সবগুলোই দাবির যৌক্তিকতা আছে। তবে দাবি নিয়ে হাজির হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তারা যে আল্টিমেটামও দিয়েছে সেটা তো স্রেফ হুমকি! এসব দাবি নিয়ে তারা তো আমাদের সঙ্গে আলোচনায়ও বসার আগ্রহ দেখাতে পারতো। যদি তেমনই হতো তাহলে আমি নিশ্চিত ভাবেই বলতে পারি সবাই এখন উইন উইন পজিশনে থাকতো। কিন্তু তা না করে দাবি না মানা পর্যন্ত সব কার্যক্রম বন্ধ-এমন ঘোষণা তো ব্ল্যাকমেইল করার মতো হয়ে পড়লো। এমন সব আচরণ তো ক্রিকেটকে অস্থিতিশীল করে তুলবে।’

লম্বা সময় ধরে ক্রিকেট বোর্ডে পরিচালকের দায়িত্ব পালন করা জালাল ইউনুস বলেন- ‘তারা তো আমাদের সঙ্গে আলোচনায় বসেনি। আলোচনায় বসার পর যদি সেখান থেকে কোন সমঝোতা না আসতো তখন তারা ধর্মঘটে যাওয়ার যুক্তিটা দেখাতে পারতো। তাদের দাবিগুলো দেখে আমরা অবাক হইনি। কিন্তু আল্টিমেটাম দেখে আশ্চর্য হয়েছি!’

বিসিবির আরেক পরিচালক সাবেক ক্রিকেটার আকরাম খান এই প্রসঙ্গে বলেন-‘ক্রিকেটাররা অনুরোধ করতে পারতো, কিন্তু এনিয়ে আলোচনা-সমঝোতায় না গিয়ে সরাসরি আন্দোলন কেন? যাই হোক, আমরা পুরো ব্যাপারটার দ্রুত একটা কার্যকর সমাধানের চেষ্টা চালাচ্ছি।’

আরও পড়ুন- যে ১১ দফা দাবিতে ক্রিকেটাররা ধর্মঘটে

আপনার মতামত লিখুন :

  ক্রিকেটারদের ধর্মঘট