Alexa

জীবনে বরকত লাভের উপায়সমূহ

জীবনে বরকত লাভের উপায়সমূহ

আল্লাহর ওপর ভরসায় জীবনে বরকত আসে, ছবি: সংগৃহীত

বরকত বলা হয় কোনো বস্তুতে আল্লাহ প্রদত্ত কল্যাণ স্থায়ী হওয়া। বরকত এমন একটি শব্দ যা আমরা প্রায়ই শুনি। তবে আফসোসের বিষয় হলো- আমরা আমাদের ঘর-বাড়িতে, কাজেকর্মে বরকত পাই না। কারণ, বরকত লাভের খোদায়ী উপায়গুলো আমাদের জানা নেই অথবা জানা থাকলেও আমলে নেই না।

এখানে বরকত লাভের বেশ কয়েকটি উপায় বলা হলো-

কোরআনে কারিমের তেলাওয়াত
আল্লাহতায়ালা পবিত্র কোরআনের ইরশাদ করেছেন, এটা একটি বরকতপূর্ণ কিতাব যা আমি অবতীর্ণ করেছি। যে ব্যক্তি এই কিতাব শিখবে, এই কিতাবের শিক্ষা অনুযায়ী আমল করবে সে জীবনে বরকত লাভ করতে থাকবে।

হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের হাদিসেও এ বিষয়ে বলা হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, যে ঘরে কোরআনে কারিমের তেলাওয়াত হয় সেই ঘর সম্পর্কে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, সেই ঘরে ফেরেশতারা বসবাস করে। আর শয়তান সেই ঘর থেকে পলায়ন করে। তার পরিবার-পরিজনের মাঝে প্রশস্ততা লাভ হয়। কাজকর্মে ও জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বরকত বৃদ্ধি পায়।

যথাসময়ে নামাজ আদায় করা
জীবনে বরকত লাভের একটি শক্তিশালী উপায় হলো- সময় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নামাজ পড়া। অর্থাৎ আজান হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জামাতের সাথে নামাজ আদায় করা। নারীদেরও ওয়াক্তের শুরুতে নামাজ আদায় করে নেওয়া।

এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা বলেন, হে নবী! আপনি আপনার পরিবারকে নামাজের নির্দেশ প্রদান করুন এবং নিজেও এর ওপর অবিচল থাকুন। আপনার নিকট আমি রিজিক চাই না। বরং আমিই আপনাকে রিজিক দান করি। আর উত্তম পরিণতি কেবল তাকওয়ার জন্যই।

সদকা করা
সদকা করলে রিজিকে বরকত হয়। বিশেষত গোপনে সদকা করলে অধিক ফায়দা হয়। সদকা দ্বারা আল্লাহতায়ালার ক্রোধ প্রশমিত হয়।

আত্মীয়তার সম্পর্ক রক্ষা করা
আত্মীয়তার সম্পর্ক অটুট রাখলে আল্লাহতায়ালা জীবনে ও রিজিকে বরকত দান করেন। আল্লাহর রাসূল (সা.) বলেন, ‘আত্মীয়তার সম্পর্ক রক্ষা ও উত্তম আখলাক রিজিকে বরকত আনয়ন করে এবং জীবনকে দীর্ঘ করে।’

সকাল সকাল কাজে বের হওয়া
প্রতিদিন ফজর নামাজ পড়ে সকাল সকাল কাজে বের হওয়াও বরকত লাভের অন্যতম উপায়। হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, আমার উম্মতের প্রভাতবেলায় বরকত প্রদান করা হয়েছে।

বিসমিল্লাহ বলা ও আল্লাহর জিকির করা
হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, যখন কেউ ঘরে প্রবেশকালে বিসমিল্লাহ বলে এবং পানাহারের সময় বিসমিল্লাহ বলে, তখন শয়তান পরস্পরকে বলে; এই ঘরে তোমাদের থাকার ব্যবস্থা নেই। খাবারেরও ব্যবস্থা নেই।

বেশি করে তওবা-ইসতিগফার করা
অধিক ইসতিগফার জীবনে বরকত আনে। হজরত নবী করিম (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি ইসতিগফার করতে থাকে আল্লাহ তার সংকট দূর করেন। তার দুশ্চিন্তা, পেরেশানি হটিয়ে দেন এবং এমন স্থান থেকে তাকে রিজিক দান করেন যা তার ধারণাতেও ছিল না।

তাওয়াক্কুল
আল্লাহর ওপর পূর্ণাঙ্গ ভরসা করাকে বলে তাওয়াক্কুল। এর দ্বারাও জীবনের পেরেশানি দূর হয়। জীবনে বরকত লাভ হয়। আল্লাহর রাসূল (সা.) বলেন, যদি তোমরা হক আদায় করে আল্লাহর ওপর তাওয়াক্কুল করতে পার তাহলে এমনভাবে রিজিক লাভ করবে যেমন পাখী লাভ করে থাকে। সে সকালে শূন্য উদরে বের হয়, আর সন্ধ্যায় ভরা পেটে নীড়ে ফিরে আসে।

আল্লাহতায়ালা সবাইকে সঠিক পথে বরকত লাভের তওফিক দান করুন।

আপনার মতামত লিখুন :