রণাঙ্গনের অনাকাঙ্ক্ষিত একটি দুর্ঘটনা

সার্জেন্ট (অব.) সৈয়দ জহিরুল হক
গ্রাফিক বার্তা২৪.কম

গ্রাফিক বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ইস্টবেঙ্গল রেজিমেন্টের স্মৃতি ১জয়দেবপুরের গণ বিক্ষোভ
ইস্টবেঙ্গল রেজিমেন্টের স্মৃতি ২আশুগঞ্জের বিমান হামলা
ইস্টবেঙ্গল রেজিমেন্টের স্মৃতি ৩সিলেটের মাধবপুরের যুদ্ধ


একবার ক্যাপ্টেন নাসিম সাহেব আমাকেসহ ১০/১৫ জনের একটি ছোট দল তৈরি করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও সিলেট রোডের ওপর একটি এন্টি ট্যাঙ্ক মাইন লাগানোর জন্য পাঠিয়ে দিলেন। সেই দলে ছিলেন সুবেদার মনির আহমেদের নেতৃত্বে বিকিউএস এইচ ফরাজ, বিডিআর মোস্তফা, সিপাহী আবু জাফর, ইসহাক ও আব্দুল জলিল। আমিও সে দলে ছিলাম। রাত ১১টার পর আমরা নির্দিষ্ট জায়গায় গিয়ে পৌঁছলাম। পাকা রাস্তার পূর্ব পাশে কিছু জঙ্গল ও ঘরবাড়িতে আমরা এ্যাম্বুশে বসি। দুই জন সৈনিক এন্টি ট্যাঙ্ক মাইন নিয়ে রাস্তার ওপর উঠে পাকা রাস্তা খোদাই করে মাইন লাগিয়ে আমাদের অবস্থানে ফিরে আসে। সম্ভবত রাত একটার দিকে ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া থেকে সিলেট অভিমুখে যাবার জন্য একটি ট্রাক যখন আমাদের এ্যাম্বুশের মাঝে আসে তখন আমরা একত্রে ঐ ট্রাকের ওপর গুলিবর্ষণ শরু করলাম। ঐ সময় পকিস্তানি বাহিনীও গাড়ি থেকে নেমে রাস্তার বিপরীত পাশে অবস্থান নিয়ে আমাদের লক্ষ্য করে ফায়ার শুরু করে। উভয় পক্ষে গোলাগুলিতে পাক সেনাদের ২/৪ জন সম্ভবত নিহত হয়েছিল। আমরা ৫/৭ মিনিট ফায়ার করার পর দ্রুত উইড্রল করি। যে পথে এসেছিলাম সেই পথ ধরে ক্যাম্পে ফিরে যাই।

ভোর ৫টায় আমরা ক্যাম্পে পৌঁছালে সকলেই শীতে কাতর হয়ে পড়েছিলাম। এসেই নাসিম সাহেবকে এ্যাম্বুশের বিবরণ বর্ণনা করি। এ সময় চা-নাস্তার জন্য আমরা যার যার মতো বিশ্রাম নিই। কিন্তু সিপাহী জলিল সে চা পান করার জন্য লঙ্গরে প্রবেশ করে। সেখানে বাবুর্চিরা আমাদের জন্য চা, পুরি তৈরি করছিল। জলিল যখন একটি মগে করে চা নিতে যাচ্ছিল তখন একজন বাবুর্চি সিপাহী আব্দুল গফুর মজা করে তাকে বলে বড় কামাই করে এসেছেন, তাকে এখনই চা দিতে হবে। তখন জলিল বলে তোর ক্ষমতা থাকে তো এ বন্দুক চালিয়ে দেখা। বন্দুকও চালাতে পারবি না, তো বাবুর্চিগিরি করবি না, কী করবি? এমন সময় গফুর বলল, আপনার বন্দুকটা দেন, আমি চালিয়ে দেখিয়ে দিই। জলিল ভালো করেই জানত ওর চায়না ৭.৬২ এমএম অটো রাইফেল চালাবার মতো জ্ঞান নেই। কেননা ওরা ট্রেনিং সেন্টারে ব্রিটিশ থ্রিনটথ্রি রাইফেলের প্র্যাক্টিস করেছে মাত্র। এ বিশ্বাসের বলে জলিল নিজের রাইফেল ওকে দেয়। এক্ষেত্রে জলিলের ভুল ছিল দুটি। এক. অপরেশন থেকে আসার পর রাইফেল আনলোড করে নাই। দুই. সেপ্টিক্যাস অফ করে নাই।

গফুর রাইফেল হাতে নিয়ে ওর সামনের দেওয়ালের দিকে লক্ষ্য করে যেই ট্রিগার চাপ দেয় ওমনি একটি বুলেট জলিলের বুক ভেদ করে চলে যায়। ওখানেই ওর মৃত্যু হয়। আমরা দৌড়ে গিয়ে দেখি, ওর কলিজা মাটির দেওয়ালের সাথে আটকে আছে। এ দৃশ্য দেখে আমরা হতভম্ব হয়ে গেলাম। ওর আর চা খাওয়া হলো না। গফুরও এ অবস্থা দেখে অজ্ঞান হয়ে পড়ল। নাসিম সাহেব দৌড়ে লঙ্গর খানায় এসে এ দৃশ্য দেখে হতবাক হয়ে যান। এমন এক মুহূর্তে আমরা একজন সৈনিক হারালাম যখন আমাদের যোদ্ধা সৈনিকের খুবই অভাব ছিল। জলিল প্রায় প্রতিটি অপারেশনে আমাদের সঙ্গেই থাকত। এ মর্মান্তিক ঘটনাটা সম্ভবত নভেম্বরের শেষের দিকে ঘটে। অন্যদিকে রান্নাবান্নার জন্য ববুর্চির অভাব থাকাতে নাসিম সাহেবও একটু চিন্তিত হয়ে পড়লেন। এমন পরিস্থিতিতে তিনি রাগে সিপাহী বাবুর্চি গফুরকে বন্দী করার নির্দেশ দিলেন। ওর যখন জ্ঞান ফিরল তখন ও অনেকটা পাগলের মতো প্রলাপ বকতে শুরু করে। আমি জানি না, দেশ স্বাধীনের পর সরকার জলিলের ব্যাপারে কী পদক্ষেপ নিয়েছে। ওর বাবা মা বা আত্মীয় স্বজনরা ওর কোনো সন্ধান পেয়েছে কিনা তাও আমার জানা নেই। ওর বাড়ি ছিল সম্ভবত রাজশাহী অথবা দিনাজপুর। ওর ঠিকানা আজ আমার কিছুই মনে নেই। সম্ভবত তখনকার ২য় বেঙ্গল রেজিমেন্টে রেকর্ডপত্রে ওর নাম, নম্বর ঠিকানা থাকতে পারে। ওকে দাফন করার পর আমরা পুনরায় নিজেদের অবস্থানে ফিরে যাই। পরবর্তীতে অনেকের অনুরোধে নাসিম সাহেব সিপাহী বাবুর্চি গফুরকে ক্ষমা করে দেন।

একসময় নাসিম সাহেব আমাকে আইনটি কোর্স করার জন্য আমাদের ব্যাটেলিয়ান হেড কোয়ার্টারের ট্রেনিং সেন্টারে পাঠালেন। সেখানে একজন আইনটি হাবিলদার ও একজন আইনটি নায়েক আমাদেরকে কোর্স করান। সেখানে আমাদের ব্যাটেলিয়ানের প্রত্যেক কোম্পানি থেকে ২/১ জন করে সৈনিক পাঠিয়েছিল। তখন একদিন আমাদের ব্যাটালিয়ানের ক্লার্ক অফিসে যাই ক্লার্কদের সাথে দেখা করার জন্য। তখন হেড ক্লার্ক সুবেদার আব্দুল লতিফ হায়াত সাহেব আমাকে দেখ বললেন, “জহির! নাসিম সাহেবকে বলে তোমাকে আমাদের অফিসে ক্লার্কের জন্য নিয়ে আসি।” জবাবে আমি বলেছিলাম, “না, স্যার। যতদিন দেশ স্বাধীন না হবে ততদিন আমি রণাঙ্গনেই থাকব।” আমরা দু সপ্তাহে কোর্স শেষ করে আমাদের কোম্পানিতে ফিরে যাই।

নাসিম সাহেব মাঝে মঝে আমাদের ডিফেন্সে ওপি পোস্টের জন্য আমাকে পাঠাতেন। এবং বিভিন্ন ছোট খাট অপারেশনে ও পেট্রোলিংয়ে আমাকে তিনি সঙ্গে নিয়ে যেতেন। একদিন সন্ধ্যার সময় আমাদের পুরো কোম্পানিকে রিয়ার হেড কোয়ার্টারে নিয়ে আসলেন। আমাদের প্রত্যেকের নিকট একটি করে বেলচা এবং সামান্য কিছু গুলি নিয়ে নিজ নিজ ব্যক্তিগত হাতিয়ার নিয়ে যেতে বললেন। রাতের মধ্যে ইনফ্লেটেশন করে আমাদের ডিফেন্স থেকে আরো তিন/চার মাইল ভিতরে ঢুকে অবস্থান নিতে বলেন। এবং বললেন, “চলার পথে কেউ কোনো শব্দ করবে না। আমার হুকুম ছাড়া কেউ একরাউন্ড গুলিও করবে না। এবং যার যেখানে অবস্থান হবে সেখানে প্রত্যেকেই দ্রুত একটি করে ফক্সহোল খোদাই করে ডিফেন্স নিয়ে নিবে। ভোর ৫টা থেকে আমাদের আর্টিলারি গানে ফায়ার দিতে থাকবে। একঘণ্টা এ ঘোলাবর্ষণ চলবে। এবং আমি যখন উইড্রল সিগন্যাল দিব তখন তোমরা সকলেই চলে আসবে।” আমরা রাত ২/৩টার ভিতর ফক্সহোল খোদাই করে ডিফেন্স নিয়ে বসি। যথা সমেয় আর্টলারি গোলার ফায়ার শুরু হয়। এবং একঘণ্টার পর তা বন্ধ করে দেয়। দেখি আমাদের ডিফেন্স থেকে মাইল খানেক দূর দিয়ে ভারতীয় একটি ব্যাটালিয়ানের সৈনিক দল পাকিস্তান ডিফেন্স এলাকায় তদন্ত করে যায়। সকাল ৭টার দিকে নাসিম সাহেব উইড্রল সিগন্যাল দিয়ে দিলে আমরা চলে আসি। এত বড় অপারেশনের মাঝে আমাদের এক রাউন্ড গুলিও খরচ করতে হয়নি।

গোটা নয় মাস যুদ্ধকালে প্রতিটি মুহূর্ত শত্রুর মুখোমুখি ছিলাম। যে কোনো মুহূর্তে আমরা একটি বুলেট অথবা একটি আর্টিলারি গোলার খোরাক ছিলাম। সর্বক্ষণ মহান আল্লাহকে ডাকতাম। এবং দোয়া করতাম, “তুমি একমাত্র স্বাক্ষী। আমরা কোনো অন্যায় করিনি। ওরা আমাদের হত্যা করছে। আমাদের মা বোনদের ইজ্জত নষ্ট করছে। আমি কখনো পরের সম্পদের ওপর লোভ করিনি। কোনো নারীর প্রতি কু-দৃষ্টিপাত করিনি। বাড়িতে আমি আমার বৃদ্ধা নানী, মামী, রুগ্ন মা, বাবা এবং ছোট দুবোন, ছোট এক ভাই রেখে এসেছি। আসার সময় কারো সাথে দেখাও করে আসতে পারিনি। একমাত্র তোমার কাছে এসব কিছু সঁপে রেখে এসেছি। হে আল্লাহ! তুমি এদের হেফাজত কর। আমার দেশকে স্বাধীন করো।” এ যুদ্ধে মৃত্যু আমার নিত্যসঙ্গী। যে কোনো মুহূর্তে আমার মৃত্যু হতে পারে। তখন এদশের বুকে আমার কোন নাম চিহ্নও থাকবে না। কেউ কোনো দিন আমার খোঁজও নেবে না। আমার বাবা-মা, নানী, ভাই বোনরা জানতেও পারবে না, আমি কোথায় আছি।

যে সমস্ত রাজাকার, আলবদররা যুদ্ধকালীন আমাদেরকে হত্যা করতে চেয়েছিল বিএনপির শাসনামলে তারাই হয়েছিল দেশের হর্তাকর্তা। যে পতাকা আমার বুকে বেঁধে রেখে নয় নয়টি মাস যুদ্ধ করেছিলাম সেই পতাকা তখন তাদের গাড়িতে উড়ত। এসব দেখে আমার খুব কষ্ট লাগত। বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা দেশ সেবার পবিত্র দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে রাজাকারদের বিচারের সম্মুখীন করলেন। মুক্তিযোদ্ধাদের জাতির সামনে সম্মানিত করলেন। এর আগে এদেশে মুক্তিযুদ্ধের পরিচয় দিতেও লজ্জা বোধ করতাম।

স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় আমরা সীমাহীন কষ্ট করেছি। কোনো রাতে ঠিকভাবে ঘুমাতে পারিনি। গ্রীষ্ম, বর্ষা, শীতে প্রচণ্ড কষ্ট করেছি। বর্ষার সময় একদিকে প্রবল বর্ষণ আর বজ্রপাতের গগণবিদারী শব্দ অপর দিকে শত্রুর আর্টিলারি গোলার গর্জন আর সামনে থেকে ধেয়ে আসা গুলি ছিল আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী। এছাড়াও সিলেটের জোঁক আমাদের দেহ থেকে কত রক্ত খেয়েছে তার কোনো হিসাব নেই। জনমানবহীন এলাকা ছিল তখন। অনাহারে ও অর্ধাহারে অনেক সময় দিন কাটত আমাদের। শীতের সময় আমাদের কোনো গরম কাপড় ছিল না। মাঝে মাঝে কবরের গর্তের মধ্যেও আমরা ডিফেন্স নিতাম। সর্বদা এলএমজিটাকে আকড়ে ধরে থাকতাম। বারুদের গন্ধে তখন খুব খারাপ লাগত। দেশ স্বাধীনতার দিনটি তখনও অনশ্চিত ছিল। তবে এটা বিশ্বাস ছিল যে, একদিন না একদিন আমাদের দেশ স্বাধীন হবে। কেননা পশ্চিম পাকিস্তানের সাথে তৎকালীনপূর্ব পাকিস্তানের সর্বদিক থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এমন এক সময় আসবে তাদের খাদ্য বস্ত্র, গুলি শেষ হয়ে যাবে। তখন তাদের বাঁচার কোনো রাস্তা থাকবে না। আমরা যুদ্ধকালীন সময় বারবার পেছাতে পেছাতে যখন একেবারে সীমান্তের কাছাকাছি পৌঁছাই তখন নাসিম সাহেব আমাদেরকে বললেন, “ভারতের মাটিতে তোমাদের কোনো স্থান নেই। মরতে হয় দেশের মাটিতেই মরবে।” অবশ্য আমরা পিছু হটছিলাম দুটি কারণে। প্রথমত আমাদের সৈন্য সংখ্যা ছিল খুবই কম। তাই চাচ্ছিলাম ভারতের বিভিন্ন জায়গায় ট্রেনিং সেন্টার খুলে নতুন যুবকদের ভর্তি করে ট্রেনিং দিয়ে উপযুক্ত করে দেশের ভেতরে গেরিলা তৎপরতা চালাতে। যাতে পাক বাহিনীকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত করা যায় ও দুর্বল করা যায়। আবার ওদের থেকে বাছাই করে কিছু লোকদেরকে আমাদের রেজিমেন্টে পেস্টিং করে ডিফেন্সকে আরো শক্তিশালী করা। দ্বিতীয়ত আমরা মুখোমুখি যুদ্ধ করে কাল ক্ষেপণ করায় খণ্ড খণ্ড যুদ্ধে প্রতিদিনই ওদের কম বেশি সৈন্য মারা যাচ্ছে।

সর্বশেষ অস্থায়ী ডিফেন্স নিই। সম্ভবত ডিসেম্বরের প্রথম দিকে। এবং ঐ ডিফেন্স ছিল আমাদের সীমান্ত এলাকা থেকে মাইল খানেক ভেতরে। সেখানে ৪/৫ দিন অবস্থান করার পর (ক্যাপ্টেন) জেনারেল নাসিম সাহেব এক রাতে রিয়ার হেডকোয়ার্টার থেকে নায়েব সুবেদার জনাব আলী সাহেবকে পাঠালেন আমাদের উইড্রল করে রিয়ার হেডকোয়ার্টারে নিয়ে আসতে। তিনি কিছু লোকের কাছে সংবাদের পাঠিয়ে তাদের উইড্রল করে নিয়ে আসেন। কিন্তু উত্তর দিক থেকে সর্বশেষ অবস্থান ছিল আমার। এবং আমার বামে বিডআর ল্যান্স নায়েক মোস্তফা। আমাদের উভয়ের কাছেই এলএমজি হাতিয়ার ছিল। এছাড়া আরো দুজন রাইফেলধারী সৈনিক ছিল। আমাদেরকে উইড্রল করার কোনো সংবাদ না পৌঁছানোতে আমরা আমাদের ডিফেন্সে রয়েছি। জেনারেল নাসিম সাহেব যখন দেখলেন আমরা চারজন ছাড়া বাকি লোক এসগেছে তখন তিনি জনাব আলীকে জিজ্ঞাসা করলেন, “লেন্স নায়েক মোস্তফা ও জহির কোথায়?” উত্তরে জনাব আলী সাহেব বললেন, “তাদের অবস্থানে যেতে পারিনি।” এ কথা শুনে নাসিম সাহেব খুব রাগান্বিত হয়ে বললেন, আপনি এখনই গিয়ে ওদেরকে নিয়ে আসুন। এদিকে ভোর হবার আগে ল্যান্স নায়েক মোস্তফা অপর দুজন সৈনিক নিয়ে আমার ডিফেন্সে আসে। এবং বলল, জহির ভাই আমাদের সব লোক চলে গিয়েছে।

এ মুহূর্তে আমরা কী করব? তখন আমি বললাম, ফজর না হওয়া পর্যন্ত চলুন কাছাকাছি কোনো গোপন স্থানে আশ্রয় নেই। এদিকে আমরা খুবই চিন্তিত ছিলাম, না জানি কী ঘটছে? তখন নিকটেই চতুর্দিকে গাছপালা দিয়ে ঘেরা একটি পুকুর পেয়ে তার পাড়ে আশ্রয় নেই। যখন ভোর হলো তখন দেখি আমাদের থেকে প্রায় হাজার গজ সামনে দিয়ে পাক বাহিনীর একটি বিরাট দল এবং কিছু সিভিলিয়ান এ্যাসাল্ট লাইনে উত্তর থেকে দক্ষিণ দিকে যাচেছ। এ দেখে আমি ল্যান্স নায়েক মোস্তফাকে বললাম, “চলো, এই এ্যাসাল্ট লাইনের ওপর ফায়ার দিই।” ফায়ার করার জন্য আমি লাইন পজিশনে চলে যাই। কিন্তু ল্যান্স নায়েক মোস্তফা আমাকে বাধা দিল। বলল, আপনার কি মাথা খারাপ হয়েছে। এ মুহূর্তে ফায়ার দিলে ওরা আমাদেরকে ঘেরাও করে ফেলবে এবং হাতে নাতে ধরে ফেলবে। তাই আর ফায়ার দেওয়া হল না। কিছুক্ষণ পর দেখি পাক বাহিনীর এ্যাসাল্ট লইন শেষ হয়ে গেল। আমরা তখন ঐ জায়গা থেকে বেরিয়ে আগরতলা অভিমুখে রওনা হই। জনাব আলী সাহেবকে দেখি, একটি বাড়ির আড়ালে বসে আছে। আমাদের দেখে সে অনেকটা নিশ্চিন্ত হলো। [চলবে]

আপনার মতামত লিখুন :