শিশুদের সারপ্রাইজ দিলেন সালমান, গাইলেন আতিক



বিনোদন রিপোর্ট, বার্তা ২৪.কম
শিশুদের সঙ্গে অতিথিরা

শিশুদের সঙ্গে অতিথিরা

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীতে চলমান ‘লাল সবুজের মহোৎসব’-এর উদ্বোধনী দিনে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলামের সঙ্গে ‘যদি রাত পোহালে গানে’ কণ্ঠ মিলিয়েছিলেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠান শেষেও শিল্পীদের সঙ্গে গাইতে দেখা যায় তাকে। এবার উৎসবের দ্বিতীয় দিনে শিশুদের জন্য গাইলেন এই মেয়র। স্পন্দন ব্যান্ডের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে মেয়র আতিক গাইলেন আজম খানের গান ‘এত সুন্দর দুনিয়ায়’।

সঙ্গীতপাগল এই মেয়রের কাণ্ড দেখে গ্যালারিতে হাজার হাজার শিশু উচ্ছ্বসিত হয়ে পড়ে। অন্যদিকে, উৎসবের পৃষ্ঠপোষক প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান কয়েক হাজার শিশুর মাঝে উপহার পৌঁছে দেন। আগত শিশুরা হঠাৎ ‘সারপ্রাইজ’ হিসেবে ব্যাগ ভর্তি নানা রঙের উপহার পেয়ে খুশীতে ফেটে পড়ে। পরবর্তীতে কয়েকজন শিশুর হাতে উপহার তুলে দেন সালমান এফ রহমান নিজেই।


তবে, এর আগে শিশু-কিশোরদের পরিবেশনায় নৃত্য, গানে মনোমুগ্ধকর পরিবেশনায় উদযাপিত হয় সন্ধ্যাটি। পরিবেশনার পাশাপাশি দর্শক-শোতাও ছিলো শিশুরাই। আর এভাবেই বর্ণিল রূপ পেল স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে হাতিরঝিলের অ্যামফিথিয়েটারে চলমান ‘বিজয়ের ৫০ বছর : লাল সবুজের মহোৎসব’ শীর্ষক অনুষ্ঠান।

বৃহস্পতিবার ছিল এফবিসিসিআই আয়োজিত এই অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় দিন। শিশুদের অংশগ্রহণে নানা পরিবেশনার শিশুদের পরিবেশনা শেষে সঙ্গীত পরিবেশন করে ব্যান্ডদল স্পন্দন ও ধ্রুবতারা।

এতে নগরীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সমবেত শিশুরা অংশ নেয়। বাংলার ষড়ঋতুসহ দেশাত্মবোধক সঙ্গীত পরিবেশন গেন্ডারিয়া কিশালয় কচিকাঁচার মেলার শত শিশু শিল্পী।


প্রায় এক ঘন্টার নাচ-গানের পরিবেশনায় মাতিয়ে রাখে তারা। শুরুতেই সম্মেলক কণ্ঠে তারা গেয়ে শোনায়- জয় বাংলা বাংলার জয়/হবে হবে নিশ্চয়/কোটি প্রাণ একসাথে জেগেছে অন্ধরাতে/জেগে ওঠার এই তো সময় ...।

এই সুরের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নাচ করে আরেক দল। নেপথ্যে উচ্চারিত হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক সাতই মার্চের ভাষণসহ স্বাধীনতা সংগ্রামের নানা অধ্যায়। পরের পরিবেশনার শিরোনাম ছিল ‘গ্রীস্ম বর্ষা শরৎ হেমন্ত শীত বসন্ত’।

এই গানের সুরে নৃত্যশিল্পীরা ফুল, পাখির সঙ্গে ছাতা মেলে নাচ করে। এভাবেই পুরো আয়োজনটি এগিয়ে চলে নৃত্য-গীতের সম্মিলনে। ষড়ঋতুনির্ভর পরিবেশনার মাঝে বয়ে যায় মেঘ, বৃষ্টি, ঝড়। মনোমুগ্ধকর নাচের সঙ্গে ব্যাকড্রপ স্ক্রিনের আকাশে ভেসে বেড়ায় শরতের নীলাকাশ। দুলতে থাকে শ্বেতশুভ্র কাশফুল।


এভাবেই নানা অনুষঙ্গের আশ্রয়ে প্রতিটি ঋতুই উঠে অনিন্দ্য সুন্দর উপস্থাপনায়। তাদের সেই পরিবেশনায় মুগ্ধতার প্রতিচ্ছবি হিসেবে দর্শকসারি থেকে বারংবার ঝরে পড়ে করতালি। গ্যালারিজুড়ে ছড়িয়ে ছিল জাগো ফাউন্ডেশনের এক হাজার শিশু-কিশোর শ্রোতা-দর্শক।

এদিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন প্র্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন এফবিসিসিআই সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন।

সম্মানিত অতিথির বক্তব্য দেন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি মাহবুবুর রহমান।


দর্শকসারিতে উপস্থিত শিশুদের উদ্দেশ্যে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেন, তোমরা আনন্দ নিয়ে পড়াশোনা করবে। পড়াশোনার পাশাপাশি গান শিখবে, কবিতা আবৃত্তি করবে, বিতর্ক করবে। তোমদেরকে আনন্দ নিয়ে পড়াশোনার করার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার এই বক্তব্যে শিশু-কিশোররা করতালি দিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে।

সালমান এফ রহমান বলেন, বিজয়ের ৫০ বছর আমাদের কাছে বিশেষ গুরুত্ববহ। কারণ, এই দেশ স্বাধীন না হলে আজ আমরা কেউ প্রতিষ্ঠিত হতে পারতাম না। ব্যবসায়ী কিংবা অন্য কোনো পরিচয়ও আমাদের হতো না। তাই আমাদের জাতীয় জীবনে এইসময়টি আর আসবে না। সে কারণেই আমরা সিদ্ধান্ত নেই বিজয়ের মাসের শুরু থেকে ১৬ তারিখ পর্যন্ত আমাদের এই বিজয় উদযাপন করবো।

এদিনের পরিবেশনা পর্বে উপস্থাপিত আরো কয়েকটি গানের শিরোনাম ছিল- ‘পৌষ তোদের ডাক দিয়েছে/আয় রে আয় আয়’, ‘বাজেরে বাজে ঢাক/এলো বৈশাখ’, ‘শিউলিতলায় ভোরবেলায় পুষ্প কুড়ায় পল্লী বালা’, ‘আমার মাইজা ভাই সাইজা ভাই কই গেলারে’


আগামী ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস পর্যন্ত চলবে এই আয়োজন।

সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা থেকে শুরু হবে অনুষ্ঠান। আজ শুক্রবার তৃতীয় দিনের আয়োজনে পরিবেশিত হবে নারীদের বিশেষ অনুষ্ঠান।

বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানালেন লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
হলিউড তারকা লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও

হলিউড তারকা লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরের ৭০ মিটার গভীর সমুদ্রের ১ হাজার ৭৪৩ বর্গ কিলোমিটার এলাকাকে মেরিন প্রটেক্টেড এরিয়া হিসেবে ঘোষণা করেছে সরকার। এই উদ্যোগ নেয়ায় সাধুবাদ জানিয়ে বার্তা দিয়েছেন হলিউড তারকা লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) নিজের ভেরিফায়েড টুইটার অ্যাকাউন্টে ডিক্যাপ্রিও সেন্টমার্টিনের একটি দৃষ্টিনন্দন ছবি শেয়ার করেছেন। ওয়াইল্ডলাইফ কনজারভেশন সোসাইটির মাধ্যমে এটি পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। 

টুইটারে ডিক্যাপ্রিও লেখেন, সেন্টমার্টিন দ্বীপের চারপাশে নতুন প্রতিষ্ঠিত সামুদ্রিক সুরক্ষিত অঞ্চলের জন্য বাংলাদেশ সরকার, স্থানীয় জনগোষ্ঠী এবং এনজিওগুলোকে অভিনন্দন। এতে জীববৈচিত্র্যের একটি অসাধারণ পরিমণ্ডলকে রক্ষা করবে এবং বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল প্রাচীরের জন্য প্রাকৃতিক আবাসস্থল জোগান দেবে।

৪৭ বছর বয়সী এই আমেরিকান তারকা অনেক বছর ধরেই জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে সোচ্চার। সেই লক্ষ্যে সামাজিকমাধ্যমে জলবায়ু-সম্পর্কিত খবর তুলে ধরেন ডিক্যাপ্রিও।

লিওনার্দো ডিকাপ্রিওকে সর্বশেষ দেখা গেছে নেটফ্লিক্সের ‘ডোন্ট লুক আপ’ ছবিতে। মুক্তির অপেক্ষায় আছে মার্টিন স্করসিস পরিচালিত ‘কিলার্স অব দ্য ফ্লাওয়ার মুন’ ছবিটি।

;

শাহরুখের সন্তানদের জন্য এডিট করা হয়েছিল ‘কাল হো না হো’



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সাইফ আলি খান, প্রীতি জিনতা ও শাহরুখ খান

সাইফ আলি খান, প্রীতি জিনতা ও শাহরুখ খান

  • Font increase
  • Font Decrease

শাহরুখ খানের তার ক্যারিয়ারের শুরু থেকে এখনও পর্যন্ত যতো জনপ্রিয় ছবি দর্শকদের উপহার দিয়েছেন তার মধ্যে ‘কাল হো না হো’ অন্যতম। ২০০৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এই ছবিটি জনপ্রিয়তার পাশাপাশি সিনেমা প্রেমিরা এর প্রশংসায় পঞ্চমুখও হয়েছে। সেই সঙ্গে পেয়েছে বেশ কয়েকটি পুরস্কারও।

‌‌‘কাল হো না হো’র শেষ দৃশ্যে শাহরুখের মৃত্যু কাঁদিয়েছিল চলচ্চিত্র প্রেমীদের। কিন্তু জানেন কি বলিউড বাদশার সন্তানদের জন্য বিশেষভাবে এডিট করা হয়েছিলো এই ছবিটি।

মুক্তির এক যুগ পর সে কথা নিজে মুখেই স্বীকার করেছিলেন শাহরুখ খান। বলিউড কিং জানিয়েছিলেন ‘কাল হো না হো’তে তার মৃত্যুর দৃশ্যটি তার সন্তানদের কখনও দেখানো হয়নি।

ছবিটির নির্মাতা করণ জোহর নিজে শাহরুখ খানের সন্তানদের জন্য সেই দৃশ্যটি এডিট করেছিলেন বলেও জানান শাহরুেখ।

শাহরুখ খান ছাড়াও ‘কাল হো না হো’তে অভিনয় করেছিলেন সাইফ আলি খান ও প্রীতি জিনতা। এছাড়াও ছিলেন জয়া বচ্চন ও প্রয়াত অভিনেত্রী রীমা লাগু।

;

নিক-প্রিয়াঙ্কার ঘরে এলো রাজকন্যা



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও নিক জোনাস

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও নিক জোনাস

  • Font increase
  • Font Decrease

বছর খানেক প্রেমের পর ২০১৮ সালে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হন নিক জোনাস ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। বিয়ের পর থেকে এই তারকা দম্পতি সবচেয়ে বেশি যে প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছেন তা হলো- তাদের ঘরে কবে নতুন অতিথির আগমন ঘটতে যাচ্ছে? অবশেষে নিক-প্রিয়াঙ্কার ভক্তদের অপেক্ষার অবসান ঘটলো।


শনিবার (২২ জানুয়ারি) মধ্যরাতে মা হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে সাবেক এই বিশ্বসুন্দরী জানিয়েছেন, সারোগেসির মাধ্যমে সন্তান এসেছে তাদের কোলে। সবার আশীর্বাদ প্রার্থনা করেছেন তারা। একইসঙ্গে সকলকে অনুরোধ করে তিনি জানান, আপাতত তাদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বাড়তি কৌতূহল দেখানো যেন বন্ধ করেন সবাই। 


পশ্চিমা সংবাদমাধ্যম টিএমজেড’র প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানা গেছে, সারোগেসি পদ্ধতির মাধ্যমে কন্যা সন্তানের বাবা-মা হয়েছেন নিক জোনাস ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। শনিবার (২২ জানুয়ারি) রাতে সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া হাসপাতালে এই তারকা দম্পতির রাজকন্যার জন্ম হয়। যদিও বা নবজাতকের নাম এখনও পর্যন্ত প্রকাশ করা হয়নি।

ক’দিন আগে ভ্যানিটি ফেয়ার ম্যাগাজিনে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ফ্যামিলি প্ল্যানিং নিয়ে খোলাখুলি আলোচনা করেছিলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। বলিউডের এই সুন্দরী সেখানে বলেছিলেন, সন্তান তাদের ভবিষ্যতের একটি অংশ। ঈশ্বরের আশীর্বাদ যখন হওয়ার হবে তখন হয়ে যাবে।


কিন্তু এই তারকা দম্পতি যে এভাবে সুখবরটি দেবেন তা হয়ত কেউ ধারণা করেননি।

;

প্রতিবেশীর প্রতি পোষা কুকুর হত্যার অভিযোগ আনলেন সোনিয়া রিফাত



বিনোদন রিপোর্ট, বার্তা ২৪.কম
সোনিয়া রিফাত ও নিহত কুকুর

সোনিয়া রিফাত ও নিহত কুকুর

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রাণবিক মানুষ হিসেবেই স্যোসাল মিডিয়ায় পরিচিত মডেল ও উপস্থাপিকা সোনিয়া রিফাত। তার পোষা কুকুরকে গাড়ি চাপা দিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ আনলেন।

তার দাবি, ঘাতক গাড়ির চালক একই বিল্ডিংয়ের একটি ফ্লাটের বাসিন্দার ড্রাইভার। গাড়িটির মালিক গৌতম, একটি ফাইন্যান্স কোম্পানিতে কর্মরত। জানা যায়, কুকুরটি ‘গার্ড ডগ’ হিসেবে থাকতো বিল্ডিংয়ের সামনে। খুব আদর যত্নে পুষতেন সোনিয়া রিফাত।

বিগত কয়েক মাস ধরে বিল্ডিংয়ের কয়েকজন বাসিন্দা কুকুরটারে বিনা কারণে অপসারনের জন্য চাপ দিয়ে যাচ্ছিলেন। তারপর হঠাৎ ১৬ জানুয়ারি রাত ৯টার দিকে বিল্ডিংয়ের গ্যারেজের সামনে ঘুমিয়ে থাকা কুকুরটার উপর দিয়ে গাড়ি চালিয়ে গ্যারেজে ঢুকে যায় গাড়িটি। দু’দিন চিকিৎসা চলার পর ১৯ জানুয়ারি সকালে মারা যায় কুকুরটি। কুকুরটির নাম ছিলো কুকি।

ঘাতক ড্রাইভারের সাথে যোগাযোগ করে কেন এরকমটা করেছেন জানার চেষ্টা করলে গাড়ির মালিক গৌতম তার ড্রাইভারের সাথে কোন রকম কথা বলতেও দেননি সোনিয়া রিফাতকে। এতে তার সন্দেহ হয় যে, গৌতম ইচ্ছাকৃতভাবে ড্রাইভারকে দিয়ে ব্যাপারটা ঘটিয়েছেন যেহেতু আগেও কুকুর নিয়ে তাদের আপত্তি ছিলো।

এদিকে, বিষয়টি নিয়ে মামলা করতে থানায় গেলে তিনটি থানা ঘুরেও মামলা করতে পারেন নি বলে জানিয়েছেন সোনিয়া। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার প্রথমে কাফরুল থানায় মামলা করতে যান তিনি। তারা দাবি করেন ঘটনাস্থল শেওড়াপাড়া তাদের এরিয়ায় না। তারা মিরপুর-২ থানায় যোগাযোগ করতে বলে। তিনি সেখানে গেলে তারা কুকুরের হত্যার মামলা করতে চাওয়ায় ভৎর্সনা পাওয়ারও অভিযোগ করেন তিনি। থানার পক্ষ থেকে বলা হয়-‘এই এলাকা আমাদের অধীনে না আপনি শেরে বাংলা থানায় যোগাযোগ করেন’। শেরে বাংলা থানায় গেলে সেখানে তারা তদন্ত করবে বলে আশ্বাস দেয়। বিষয়টা আন্তরিকতার সাথে নেয়। কিন্তু বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সেই থানা থেকেও তদন্তে এসে, পুলিশ জানায় এই এলাকা শেরে বাংলা থানার অধীনেও না।

সোনিয়া রিফাতের প্রশ্ন. তাহলে তিনি এবং তার হতভাগা কুকুরটি আসলে কোন থানার বাসিন্দা? সোনিয়া রিফাত বলেন, “আমি আদালতের মাধ্যমে মামলা লড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি। প্রাণী অধিকার আইনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হলে প্রানীদের প্রতি সহিংসতা চালাতে অনেকেই ভয় পাবে বলে মনে করি।”

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন মন্তব্য ও আলোচনা করছেন নেটিজেনরা।

;