আবার বিয়ে করেছেন এস আই টুটুল



কন্ট্রিবিউটিং এডিটর, বার্তা২৪.কম
আবার বিয়ে করেছেন এস আই টুটুল

আবার বিয়ে করেছেন এস আই টুটুল

  • Font increase
  • Font Decrease

অভিনেত্রী তানিয়া আহমেদের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন সংগীতশিল্পী এস আই টুটুল। সম্প্রতি বিয়ে করেছেন । তাঁর স্ত্রীর নাম শারমিন সিরাজ সোনিয়া।

গায়কের একটি ঘনিষ্ট সূত্রে জানা যায় বিয়ের খবরটি। তারা জানান, ২০২২ সালে তিনি দ্বিতীয় বিবাহ করেন। পাত্রী নিউইয়র্ক প্রবাসী শারমিনা সিরাজ (সোনিয়া)। সোনিয়ারও এটা দ্বিতীয় বিয়ে। নিউ ইয়র্কে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করছেন তিনি। চাকরির পাশাপাশি উপস্থাপিকা ও মিডিয়ার বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের সাথে যুক্ত আছেন।

এস আই টুটুল ২০২২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের এক্সট্রা অরডিনারি কোটায় গ্রিন কার্ড পেয়েছেন। বর্তমানে তিনি শারমিনা সিরাজ (সোনিয়া)কে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন।

টুটুলকে বিয়ে প্রসঙ্গে সোনিয়া বলেন, আমি ১২ বছর ধরে সিঙ্গেল ছিলাম। টুটুলের সঙ্গে পরিচয় মূলত আরটিভির একটি রিয়েলিটিতে কাজ করতে গিয়ে। আমি নিজেও জীবন সঙ্গী খুঁজছিলাম। তাই টুটুল যখন বললো, আমার সাথে বাকি জীবন থাকতে পারবে? তখন আমি তুমি থেকে আমরা হওয়া।

মুসলিম রীতিতে আমাদের আক্দ হয়েছে শুধু। খুব জলদিই এখানে (আমেরিকা) ও বাংলাদেশে বন্ধু বান্ধবদের নিয়ে একটি আনুষ্ঠানিকতা করবো। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’

   

‘গোলাম মামুন’-এর মতো কাজ আগে করিনি : সাবিলা নূর



মাসিদ রণ, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
সাবিলা নূর / পোশাক : ট্রেন্ড মার্ট; ছবি : শেখ সাদী

সাবিলা নূর / পোশাক : ট্রেন্ড মার্ট; ছবি : শেখ সাদী

  • Font increase
  • Font Decrease

ওটিটিতে একের পর এক সফল কাজ উপহার দিয়ে চলেছেন নির্মাতা শিহাব শাহীন। সেই নির্মাতার ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে নির্মিত ওয়েব সিরিজ ‘গোলাম মামুন’-এর প্রধান নারী চরিত্রে অভিনয় করেছেন দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী সাবিলা নূর। সিরিজটি এরইমধ্যে (গত ১৩ জুন) হইচই প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পেয়েছে। এই সিরিজ ও সমসাময়িক বিষয়ে তার সঙ্গে কথা বলেছেন মাসিদ রণ

সাবিলা নূর / পোশাক : ট্রেন্ড মার্ট; ছবি : শেখ সাদী

‘গোলাম মামুন’ চলছে হইচইতে। সিরিজটি নিয়ে কিছু বলুন...


প্রতি ঈদে চেষ্টা করি দর্শককে ভিন্ন ধাচের কাজ উপহার দেওয়ার। এবার ঈদে ‘গোলাম মামুন’ তেমনি একটি কাজ। এটি আমার অভিনয় ক্যারিয়ারে সত্যিই একটি ভিন্নরকম কাজ। আমি নাটক করার ক্ষেত্রেই আজকাল বাচ-বিচার করি। আর ওটিটিতে কাজের সময় সেটা আরও অনেক গুরুত্বের সঙ্গে করি। নাটকে যে ধরনের চরিত্র বা গল্পে কাজ করি সে ধরনের কাজ ওটিটিতেও করব এটা আমি চাই না, কারণ ওটিটিতে দর্শক টাকা খরচ করে কনটেন্ট দেখেন।

সেদিক থেকে বলতে গেলে, নাটকে আমি এখন পর্যন্ত কোন পুলিশ অফিসারের চরিত্রে কাজ করিনি। ‘গোলাম মামুন’ সিরিজেই প্রথমবার পুলিশের চরিত্রে কাজ করেছি। তাই এই কাজটির প্রতি আমার আলাদা এক ধরনের টান কাজ করেছে। তাছাড়া শিহাব শাহীনের মতো নির্মাতার সঙ্গে তো বরাবরই কাজ করতে চাই। কারণ তার নির্মাণে আমি একাধিক সফল নাটকে অভিনয় করেছি। অপূর্ব ভাইয়ার সঙ্গেও তো অনেক কাজের অভিজ্ঞতা আছে। ওটিটিতে এটাই তাদের সঙ্গে প্রথম কাজ। এক ধরনের চ্যালেঞ্জ ছিল কাজটির মধ্যে। এক ধরনের চমকও রয়েছে। সিরিজটি তো এখন দর্শকের জন্য উন্মুক্ত হয়েই গেছে। সবাইকে দেখার আমন্ত্রন জানাচ্ছি।

সাবিলা নূর / পোশাক : ট্রেন্ড মার্ট; ছবি : শেখ সাদী

‘গোলাম মামুন’-এর সাড়া কেমন পাচ্ছেন?


মুক্তির পর অন্তর্জালে দারুণ প্রশংসা কুড়াচ্ছে সিরিজটি, খুব ভালো সাড়া পাচ্ছি। গল্প, নির্মাণ এবং অভিনয়ের প্রশংসায় ভাসাচ্ছেন দর্শক। আমাকে ভিন্নভাবে উপস্থাপন করানোর জন্য অনেকেই অভনয়ের প্রশংসা করছেন।

সাবিলা নূর / পোশাক : ট্রেন্ড মার্ট; ছবি : শেখ সাদী

গণমাধ্যমে এসেছে, এই সিরিজে অপূর্বর নায়িকা শার্লিন ফারজানা। তাহলে আপনি কি করছে এখানে?


আসলে যদি কেউ এ কথা বলে থাকেন তাহলে সেটি ভুল তথ্য! কারণ এখানে গোলাম মামুনের কোন নায়িকা নেই। আসলে সিরিজের গল্পটাই এমন যে নায়ক-নায়িকা থাকার দরকার নেই, সবাই যার যার চরিত্র প্লে করেছেন।

সাবিলা নূর / পোশাক : ট্রেন্ড মার্ট; ছবি : শেখ সাদী

অনেকেই ওটিটিতে কাজ করছেন বলে টিভি নাটক থেকে একদম দূরে সরে যাচ্ছেন। আপনাকেও কি এবারের ঈদে কোন নাটকে দেখা যাবে না?


একদমই আমার ক্ষেত্রে তেমনটি ঘটেনি। আমি নাটকের মেয়ে, নাটক থেকেই দর্শক আমাকে আপন করে নিয়েছেন। ফলে নাটক আমি ছাড়ার প্রশ্নই নেই। আমার কথা হলো, যে মাধ্যমে ভালো গল্প ও চরিত্র পাবো, সেই মাধ্যমেই কাজ করবো। এবার ঈদেও তাই করেছি। গোলাম মামুন-এর শুটিং আগেভাগে শেষ হওয়ায় আমি ঈদের বেশকিছু নাটক করার সুযোগ পেয়েছি। তারমধ্যে একটি নাটকের কথা এরইমধ্যে অনেকে জেনে ফেলেছেন। নাটকটির নাম ‘প্রিন্সেস ডায়না’। পরিচালনা করেছেন নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল। পার্থ শেখ নামে একজন নতুন অভিনেতার বিপরীতে কাজ করেছি এই নাটকে। এছাড়া পার্থর সঙ্গে ইমরাউল রাফাতের আরেকটি নাটকে অভিনয় করেছি। ‘সুতো’ নামের সেই নাটকে ইরেশ যাকেরও অভিনয় করেছেন।

জুনায়েদ বোগদাদির সঙ্গে এস আই মজুমদারের একটি নাটক করেছি, নাম ‘দ্বিতীয় আলো’। আবু হুরায়রা তানভীরের সঙ্গে করেছি ‘অর্ধাঙ্গীনি’ নামের একটি নাটক। গুণী অভিনেতা শ্যামল মাওলার সঙ্গে এর আগে আশফাক নিপুণের ‘কষ্টনীড়’ ওয়েব সিরিজে ভাই বোনের চরিত্রে কাজ করেছিলাম। তবে এবারই প্রথম নায়ক-নায়িকা হিসেবে অভিনয় করেছি একটি নাটকে। পরিচালনা করেছেন রাজীব পিয়ালের এই নাটকটির নাম ‘মাকড়শা’।

সাবিলা নূর / পোশাক : ট্রেন্ড মার্ট; ছবি : শেখ সাদী

‘প্রিন্সেস ডায়না’ নাটকের অভিজ্ঞতা কেমন?


এ নাটকে আমি যাত্রাপালার প্রিন্সেসের চরিত্রে কাজ করেছি। ছোটবেলা থেকেই নাচ করে আসছি। অভিনয়ের পাশাপাশি এখনো মঞ্চে নাচটা নিয়মিত করি। তবে যাত্রাপালার এই নাচ আমার জন্য নতুন অভিজ্ঞতা। এটি একটু ভিন্ন আঙ্গিকের নাচ। তারপরও নাচ জানা হিসেবে নতুন নাচের এই মুদ্রা আমাকে বাড়তি সুবিধা দিয়েছে। চরিত্রটির মধ্যে একটা চ্যালেঞ্জ আছে। বাস্তবে আমাদের সমাজে যাত্রাপালার নৃত্যশিল্পী বা নর্তকীর প্রতি গ্রাম্য প্রভাবশালীদের লোলুপ দৃষ্টি থাকে। তারা এই সব নারীকে ভোগবিলাসে ব্যবহার করতে চান। নাটকেও প্রিন্সেস ডায়ানার প্রতি সেই দৃষ্টিভঙ্গি প্রভাবশালীদের আছে। কাজটি করতে এসে নতুন কিছু শিখতে পরেছি। এ ধরনের নতুন গল্পে, নতুন চরিত্রে কাজটি করতে ভালোই লাগছে। নাটকটি চ্যানেল আইয়ের ঈদ অনুষ্ঠানমালায় প্রচারের কথা রয়েছে।

সাবিলা নূর / পোশাক : ট্রেন্ড মার্ট; ছবি : শেখ সাদী

নায়ক ছাড়া একটি নাটক করেছেন শুনলাম। সেটি নিয়ে একটু বিস্তারিত শুনতে চাই...


মুরসালিন শুভর পরিচালনায় ওই নাটকটির নাম ‘রাত বাকী’। শুটিং করেছি ময়মনসিংহের কবি নজরুল বিশ^বিদ্যালয়ে। শুধু তাই নয়, আমাদের কাস্ট এন্ড ক্রু সবই ছিল ওই বিশ^বিদ্যালয়ের নাট্যকলার শিক্ষার্থীরা। তারা তো সবাই একাডেমিকভাবে কাজটি শিখেছে। ফলে তাদের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতাই আলাদা। আমার তো ভীষণ ভালোলেগেছে এমন তরুণ সব মেধাবীদের সঙ্গে কাজ করতে পেরে। ভবিষ্যতে তাদের সঙ্গে আরও কাজ করতে চাই। ৪০ মিনিটের এই নাটকটি আবর্তিত হয়েছে আমার চরিত্রকে কেন্দ্র করে। সেখানে কোন পুরুষ প্রোটাগনিস্ট নেই। আশা করছি কাজটি যারা দেখবেন, তাদের ভাবনায় নতুন মাত্রা যোগ হবে।

;

দেখুন ৮ তারকার বাবার পুরস্কারপ্রাপ্তির মুহূর্তগুলো



মাসিদ রণ, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
গর্বিত বাবা পুরস্কারস্থলে বাবাকে নিয়ে সিয়াম আহমেদ ও দিব্য-সোম্য / ছবি : শেখ সাদী

গর্বিত বাবা পুরস্কারস্থলে বাবাকে নিয়ে সিয়াম আহমেদ ও দিব্য-সোম্য / ছবি : শেখ সাদী

  • Font increase
  • Font Decrease

সন্তানের জীবনে বাবা মায়ের ভূমিকা কতোখানি সে কথা নতুন করে বলার প্রয়োজন পড়ে না।

বাবাকে সম্মানিত করতে পেরে আনন্দে আত্মহারা চিত্রনায়িকা তমা মির্জা / ছবি : শেখ সাদী

তবে বাবারা খানিকটা মুখচোরা স্বভাবের হন।

সাবিলা নূরের বাবা আছেন বড় বোনের কাছে আমেরিকায়। তাই সাবিলা একাই অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করেন। পরে বাবাকে চমকে দেবেন!

দায়িত্বের বোঝা সামলাতে সামলাতে তারা হাসতেই ভুলে যান।

সাফা কবির / ছবি : শেখ সাদী / ছবি : শেখ সাদী

সন্তানের সঙ্গে কারও কারও তৈরী হয় অদৃশ্য দেয়াল!

অসুস্থ বাবাকে নিয়ে মঞ্চে ওঠেন অভিনেত্রী রুনা খান / ছবি : শেখ সাদী

তারপরও সন্তানের জীবনে বটগাছের ছায়া হয়ে তারাই ঠাই দাঁড়িয়ে থাকেন।

পুরস্কার গ্রহণ করছেন এষা ইউসুফ ও নাসিরউদ্দিন ইউসুফ / ছবি : শেখ সাদী

নিজের সন্তান যখন সমাজে সুপ্রতিষ্ঠিত হয় তখন বাবাদের মতো বুকটা গর্বে ভরে ওঠে।

সিয়াম আহমেদ ও তার বাবা নাসির উদ্দিন আহমেদ এসেছিলেন ম্যাচিং পোশাক পরে / ছবি : শেখ সাদী

তেমনি বাবাদের বিগত দুই বছর ধরে ‘গর্বিত বাবা সম্মাননা’ দিয়ে আসছে গর্বিত বাবা ফাউন্ডেশন।

পরিবারের চারজনই তারকা- শাহনাজ খুশি, বৃন্দাবন দাস, দিব্য ও সোম্য / ছবি : শেখ সাদী

এবার অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো এই আয়োজনের তৃতীয় আসর।

বাবার পুরস্কার হাতে রুনা খান / ছবি : শেখ সাদী

বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফল সন্তানদের বাবারা পাবেন এই সম্মাননা। তারমধ্যে রয়েছেন শোবিজ অঙ্গনের ৮ জন তারকার বাবা।

সাবিলা নূর/ ছবি : শেখ সাদী

 এই তারকারা হলেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেতা সিয়াম আহমেদ ও অভিনেত্রী রুনা খান এবং তমা মির্জা, ছোটপর্দার অন্যতম জনপ্রিয় দুই অভিনেত্রী সাবিলা নূর ও সাফা কবির, ওটিটি-চলচ্চিত্রের প্রতিশ্রুতিশীল দুই তারকা সৌম্য জ্যোতি ও দিব্য জ্যোতি এবং মঞ্চ নাটকের অন্যতম অভিনেত্রী ও নির্দেশক এষা ইউসুফ।

সাফার বাবা থাকেন বিদেশে। তাই একাই পুরস্কার গ্রহণ করেন সাফা কবির / ছবি : শেখ সাদী

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে গর্বিত বাবাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন সরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।

বাবা-মা ও ভাইকে নিয়ে তমা মির্জা / ছবি : শেখ সাদী

এছাড়া উপস্থিত ছিলেন এই আয়োজনের সভাপতি দীলিপ কুমার আগারওয়াল এবং সাধারন সম্পাদক মেহেদী হাসান।

তমা মির্জা ও সাবিলা নূরের খুনসুটি / ছবি : শেখ সাদী

;

ক্যানসার সার্ভাইবার সুজেয় শ্যাম হাসপাতালে ভর্তি



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সুজেয় শ্যাম /  ছবি : বার্তা২৪.কম

সুজেয় শ্যাম / ছবি : বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সুরকার ও সংগীত পরিচালক সুজেয় শ্যাম এখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি। শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে ১১ জুন তিনি এই হাসপাতালে ভর্তি হন। শুরু থেকেই তাকে হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মেয়ের স্বামী দীপংকর দে। তিনি গণমাধ্যমকে জানান, তার শ্বশুরের চিকিৎসার জন্য একাধিক বোর্ড মিটিং হয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার চিকিৎসার ব্যাপারে যথেষ্ট আন্তরিক। এনজিওগ্রাম করার কথা বলেছেন; দেখা যাক। তবে তিনি যে অবস্থা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন, তার চেয়ে এখন কিছুটা ভালোর দিকে। তার বয়স ৭৯ হয়েছে। সবাই তার সুস্থতার জন্য দোয়া করবেন।’

জানা গেছে, হঠাৎ হঠাৎ তার শ্বাসকষ্টের সমস্যা হয়। হাসপাতালে ভর্তির পরও একবার হয়েছে। তবে এখন কিছুটা ভালো তিনি। ডাক্তাররা বারবার বিভিন্ন পরীক্ষা–নিরীক্ষা করছেন। আজ সকালেও একটা বোর্ড মিটিং হয়েছে। তারা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছেন। তিনি আবার ক্যানসার সার্ভাইবার! কিডনির সমস্যাও আছে। তাই ট্রিটমেন্ট করার ক্ষেত্রে অনেক কিছু ভাবতে হচ্ছে ডাক্তারদের। তবে তারা আপ্রাণ চেষ্টা করছেন। 

সুজেয় শ্যাম

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী হিসেবে দেশ স্বাধীনের ৪৫ বছর পর মুক্তিযোদ্ধার সনদ পান সুজেয় শ্যাম। তার আগপর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে কোনো ভাতা পেতেন না বরেণ্য এই সুরকার ও সংগীত পরিচালক। দুই বছর ধরে তা পাচ্ছেন। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শেষ গান এবং পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের পর প্রথম গানের সুর করেন সুজেয় শ্যাম।

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের গীতিকার শহীদুল আমিনের লেখা ‘বিজয় নিশান উড়ছে ওই’ গানের সুর ও সংগীত পরিচালনা করেন তিনি। গানটির প্রধান কণ্ঠশিল্পী ছিলেন অজিত রায়। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রচারিত সুজেয় শ্যামের অন্য গানগুলোর মধ্যে আছে ‘রক্ত দিয়ে নাম লিখেছি’, ‘রক্ত চাই রক্ত চাই’, ‘আহা ধন্য আমার জন্মভূমি’, ‘আয়রে চাষি মজুর কুলি’, ‘মুক্তির একই পথ সংগ্রাম’ ও ‘শোন রে তোরা শোন’।

;

ভক্তদের চাহিদায় ‘টোনা টুনি’ নিয়ে হাজির হচ্ছি : মিলা



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
টুনাটুনি মিউজিক ভিডিওতে এই লুকে দেখা যাবে মিলাকে

টুনাটুনি মিউজিক ভিডিওতে এই লুকে দেখা যাবে মিলাকে

  • Font increase
  • Font Decrease

জনপ্রিয় পপ তারকা মিলা ইসলাম বহুবার নিজেকে প্রমাণ করেছেন। অ্যালবাম যুগে তিনি ছিলেন অন্যতম চাহিদাসম্পন্ন শিল্পী। মিলা ফিউশন ও লোকধারার গানও গেয়ে থাকেন। মিলা মানেই স্টেজ শো’র প্রধান আকর্ষণ। তাকে সর্বশেষ তিন বছর আগে জি-সিরিজের ‘আইসালা’ শিরোনামের একটি মিউজিক ভিডিও নিয়ে হাজির হতে দেখা যায়। এরপর বেছে বেছে কাজ করেন। বর্তমানে মিলা ব্যস্ত আছেন স্টেজ শো নিয়ে।

মিলা ভক্তদের জন্য সুখবর, ঈদ উপলক্ষে নতুন গান নিয়ে হাজির হচ্ছেন তিনি। গানের শিরোনাম ‘টোনা টুনি’। গানের কথা, সুর ও সঙ্গীতায়োজন করেছেন গায়িকা নিজেই। এতে মিলার সঙ্গে ভিডিওতে মডেল হয়েছেন মারুফ চৌধুরী অমি। গানের ভিডিও নির্মাণ করেছেন ইলজার ইসলাম। দেশের শীর্ষ অডিও-ভিডিও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জি-সিরিজের ঈদ আয়োজনে শনিবার (১৫ জুন) সন্ধ্যা ৭টায় গান-ভিডিও মুক্তি পাচ্ছে।

টুনাটুনি মিউজিক ভিডিওতে এই লুকে দেখা যাবে মিলাকে

নতুন গানটি নিয়ে আশাবাদী মিলা। তিনি বলেন, ‘প্রথমবার আইটেম গানে হাজির হয়েছিলাম বহুল প্রশংসিত ‘রূপবান’ গানে। এরপর আর কখনোই এভাবে দেখা যায়নি আমায়। এরপর অসংখ্য বার আমার ভক্তরা আইটেম গানে দেখার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু কেউ আমার মনের মতো করে গানের কথা দিতে পারছিল না। শেষ পর্যন্ত নিজেই গানের কথাগুলো লিখেছি। সেই সঙ্গে নিজের মতো করে সুর ও সঙ্গীতায়োজন করেছি।’

মিলা বলেন, ‘ভক্তদের চাহিদায় ‘টোনা টুনি’ গানটি নিয়ে হাজির হচ্ছি। তবে এমন আইটেম গানে আর কখনো হাজির হবো না। নতুন গানটি হতে যাচ্ছে আমার দ্বিতীয় এবং শেষ আইটেম গার্ল হিসেবে পারফর্ম। ২ বছর আগে গানটি তৈরি করেছি। বেশ সময় নিয়ে কাজটি করেছি যাতে দীর্ঘ সময় পর শ্রোতা-দর্শকরা নিরাশ না হয়। এমন একটি চমক নিয়েই ফিরতে চেয়েছিলাম। অপেক্ষার অবসান। এখন সবার প্রতিক্রিয়া জানার অপেক্ষায়।’

টুনাটুনি মিউজিক ভিডিওতে এই লুকে দেখা যাবে মিলাকে

যোগ করে এই গায়িকা আরও বলেন, ‘মাঝে নতুন গানের অনেক প্রস্তাব পেয়েছিলাম কিন্তু, করিনি এই গানটির জন্য। দীর্ঘ সময় এই গানটির অপেক্ষায় ছিলাম। এ গানের জন্য অন্যরকম একটা মায়া তৈরি হয়েছে। গানের ভিডিও তৈরি হওয়ার পর প্রত্যাশা আরও বেড়ে গেছে। এখন শ্রোতাদের প্রতিক্রিয়া জানার অপেক্ষায়। টিজার প্রকাশের পর ভক্তরা লুফে নিয়েছেন। ভক্তরা নতুন গানের খবরে বেশ আনন্দিত।’

মিলা বলেন, ‘গানটি মুক্তি পাওয়ার পর টিকটকে সবচেয়ে বেশি যাদের ভিডিও ভিউ হবে এবং পারফর্ম ভালো করবে এমন ১০ জনের সঙ্গে আমি পারফর্ম করব। ‘টোনা টুনি’ গানের কথাগুলো একেবারে আলাদা। আমি ড্যান্সার না তারপরও এই গানের জন্য নাচ করতে হয়েছে। নিজের সেরাটা দিয়ে ভালো করার চেষ্টা করেছি। এতটুকু বলতে পারি বিভিন্ন উৎসব মাতানোর মতো একটি গান হয়েছে। গানটি দিয়ে মঞ্চ মাতানোর অপেক্ষায় আছি।’

জি-সিরিজ থেকে গানটি প্রকাশ করার কারণ উল্লেখ করে মিলা বলেন, ‘প্রতিষ্ঠানটির মালিক আমাকে মেয়ের মতো আদর করে। আমার সুখে ও দুঃখে সবসময় পাশে ছিল। আমিও শুরু থেকে এখন পর্যন্ত গানের কথা চিন্তা করলে জি সিরিজের কথা আগে মাথায় আসে। প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে দারুণ সম্পর্ক। বলা যায় নিজের ঘর। সে কারণে এখান থেকে গানটি প্রকাশ করছি।’

টুনাটুনি মিউজিক ভিডিওতে এই লুকে দেখা যাবে মিলাকে

চমক নিয়েই ফিরছেন মিলা। জানিয়েছেন এখন থেকে গানে নিয়মিত পাওয়া যাবে তাকে। পাশাপাশি আরও বেশি সরব থাকবেন মঞ্চে। যদিও চলতি বছর বিভিন্ন টিভি ও সামাজিক অনুষ্ঠানে মিলার উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। আগের থেকে মিলার স্টেজে ব্যস্ততা বেড়েছে।

মিলা বলেন, ‘বিভিন্ন কারণে মাঝে কিছু সময় নষ্ট হয়েছে। আর সেটা হতে দিতে চাই না। কারণ আমি জানি আমার শ্রোতা-দর্শক আমাকে কতটুকু চায়। স্টেজ শোর ধারবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। তাছাড়া নতুন গানের কাজও করা আছে। নতুন বছর কয়েকটি গান নিজের মনের মতো করে প্রকাশ করতে চাই।’

;