বাংলাদেশের নীলকণ্ঠ পাখিরা



আ ন ম আমিনুর রহমান পাখি ও বন্যপ্রাণী প্রজনন ও চিকিৎসা বিশেষজ্ঞ
রাজশাহী শহরের সিমলা পার্কে একটি উড়ন্ত নীলকণ্ঠ। ছবি- লেখক।

রাজশাহী শহরের সিমলা পার্কে একটি উড়ন্ত নীলকণ্ঠ। ছবি- লেখক।

  • Font increase
  • Font Decrease

তিন দিনের তিনটি গল্প তিনটি পরস্পর সম্পর্কিত পাখিদের নিয়ে-

এক. উন্মুক্ত শিক্ষা ব্যবস্থার উপর প্রবন্ধ উপস্থাপনের জন্য ভারতের কেরালা রাজ্যের কোচি সিটি (বা কোচিন) এসেছি ২০১০ সালের ২৪ নভেম্বর। সম্মেলনের স্থান হোটেল শেরাটন কোচিন। হোটেলের দুটি অংশ- একটি মূল ভবন ও অন্যটি রিসোর্ট। আমাদের থাকার ব্যবস্থা হলো এই রিসোর্ট অংশে। সম্মেলনের স্থান অর্থাৎ মূল ভবন থেকে রিসোর্টে স্পিড বোটে যেতে হয়। অবশ্য বিষয়টি আমার কাছে বেশ আনন্দেরই ছিল। কারণ, যতবার ওখানে যাওয়া-আসা করতাম ততবারই কোনো না কোনো পাখির দেখা পেতাম।

পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জের একটি গ্রামে নীলকণ্ঠ। ছবি- লেখক।

সম্মেলন শেষে ২৯ নভেম্বর সকালে দেশে ফেরার জন্য নিচে নেমে এসেছি। অন্যরা তখনও না নামায় হাতে কিছুটা সময় পেলাম। কাজেই ক্যামেরা হাতে এদিক-ওদিক করছি। একসময় হোটেলের পাশের খোলা জায়গাটায় কিছু মহিষ চড়তে দেখলাম। মহিষের সঙ্গে গো-বকগুলোর বেশ ভাব। গো-বকগুলো তাদের গায়ের পোকা খাওয়ায় ব্যস্ত। ওদের ছবি তোলার সময় হঠাৎ ক্যামেরার ফ্রেমে নীল-বাদামি রঙের একটি পাখির চেহারা দেখতে পেলাম। অত্যন্ত সুন্দর পাখি। দেহের নীলের কারুকাজটা চমৎকার। কিন্তু ওর ছবি তোলায় ব্যঘাত ঘটালো আমারা সহকর্মীরা, কারণ সবাই নেমে গেছে। কাজেই স্পিড বোটে ওঠতে হবে। কোনো রকমে ৩-৪টি ক্লিক করে দ্রুত ক্যামেরা গুছিয়ে স্পিড বোটে উঠলাম। পরবর্তীতে পাখিটির সুন্দর সুন্দর ছবি তুলেছি রাজশাহী ও পঞ্চগড় থেকে।

দুই. বিরল এক পাখির সন্ধানে দাঁড়িয়ে আছি ধলেশ্বরী নদীর পাড়ে একটি শিমুল গাছের নীচে। ঢাকা-মাওয়া সড়কের পাশে দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জের পলাশপুরের এক পরিত্যক্ত আবাসন প্রকল্পে গাছটির অবস্থান। প্রায় এক যুগ আগে পরিত্যক্ত হওয়া আবাসন প্রকল্পটির ভরাট করা বেলে মাটিতে তর তর করে বেড়ে উঠেছে নানা প্রজাতির কাষ্ঠল, ফলদ ও বুনো গাছপালা, ঝোপঝাড় এবং লতাগুল্ম। যেন চমৎকার এক গ্রামীণ বন! একপাশে বিশাল আকারের মেঘ শিরিস গাছের সারি। তার খানিকটা সামনে একটি ডক ইয়ার্ড। পরিত্যক্ত এই আবাসন প্রকল্পটি বর্তমানে বহু প্রজাতির পাখি-প্রাণীর আশ্রয়স্থলে পরিণত হয়েছে। দিনের বেলাও এখানে শিয়ালের আনাগোনা। পুরো এলাকায় ছোট-বড় ৮-১০টি শিমুল গাছ রয়েছে।

বেশিরভাগ গাছই টকটকে লাল ফুলে ভরে আছে। আর তাতে নানা প্রজাতির পাখির যেন মেলা বসেছে! হলদে পাখি, কাঠ শালিক, বসন্তবৌরি, কাঠঠোকরা, হাঁড়িচাচা, দাঁড়কাক, বুলবুলি, ছাতারে, শ্বেতাক্ষী, আরও কত কি? গাছের নীচে দাঁড়িয়ে আছি অনেক্ষণ। বিভিন্ন প্রজাতির পাখির দেখা পেলেও বিরল পাখিটিকে তখনও পাইনি। একটি হাঁড়িচাচা পাখির ছবি তুলে সামনের দিকে তাকাতেই পাশের মেঘ শিরিস গাছ থেকে নীলচে একটি পাখি হঠাৎ করে উড়াল দিল। অতি দ্রুত উড়ন্ত পাখিটির দিকে ক্যামেরা তাক করালাম। মাত্র পাঁচ মিনিটে পাখিটির পোকা ধরার এক দুর্লভ মুহূর্ত ক্যামেরাবন্দী করতে পারলাম। সাতাশ ফেব্রয়ারি ২০১৩-এর ঘটনা এটি। প্রথমবার ওর ছবি তুলেছিলাম ২০১১ সালের জানুয়ারিতে গাজীপুরের সালনায় আমার কর্মস্থল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে।

তিন. তের নভেম্বর ২০১৪ সালের ঘটনা। রাঙ্গামাটির কাপ্তাই জাতীয় উদ্যানের বড় ছড়ায় হাঁটছি বিশেষ একটি পাখির খোঁজে। একই বছর আর চারবার পাখিটির খোঁজে কাপ্তাই এসেছি। কিন্তু বরাবরের মতো এবারও পাখিটিকে দেখলাম সেই পুরোনো স্টাইলে বেশ উঁচুতে বৈদ্যুতিক তারে বসা অবস্থায়। মনটাই খারাপ হয়ে গেল। যাহোক, দুপুরের খাবার সেড়ে কাপ্তাইয়ে পাশের থানা চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় অবস্থিত শেখ রাসেল অ্যাভিয়ারি ও ইকো পার্কে ঘুরতে গেলাম। পার্কে হাঁটতে হাঁটতে একসময় পাহাড়ের সবচেয়ে উঁঁচুতে উঠে গেলাম। আর হঠাৎই নীলচে রঙের পাখিটি নজরে এল।

সেই একই স্টাইলে ক্যাবল পথের তারের উপর বসে আছে। তবে এবার আমি পাহাড়ের উঁচুতে ওঠায় ওর বেশ কাছাকাছি চলে এলাম। আর যায় কোথায়? পটাপট ক্লিক করতে থাকলাম। মন ভরে গেল আনন্দে। পাখিটির প্রথম ছবি তুলেছিলাম হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে ২০১৩ সালের দোসরা জুন। কিন্তু উড়ন্ত পাখিটি এতটাই দূরে ছিল যে ছবি দেখে তাৎক্ষণিকভাবে ওর সঠিক পরিচয় বের করতে পারিনি। ময়না পাখি ভেবে ছবিটি নিয়ে আর গবেষণাও করিনি। কিন্তু কয়েক বছর পর হঠাৎ একদিন কম্পিউটারে ছবিটি ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করতেই ওর সঠিক পরিচয় পেয়ে গেলাম।

ঢাকার কেরানীগঞ্জের পলাশপুরে শিকার করা পোকা মুখে উড়ন্ত ইন্দোচীনা নীলকণ্ঠ। ছবি- লেখক। 

তিন দিনের তিন গল্পের নীল রঙের এই পাখিগুলো কোরাসিফরমেস (Coraciiformes) বা নীলকণ্ঠ বর্গের অর্ন্তগত কোরাসিডি (Coracidae) বা নীলকণ্ঠ গোত্রের পাখি। এদের আকার মাঝারি ও পালকের বর্ণ উজ্জ্বল। এদের পায়ের তিনটি আঙুল সামনের দিকে ও একটি পিছন দিকে অবস্থিত। শারীরস্থানিকভাবে এদের পায়ের ৩ ও ৪ নম্বর আঙুল দুটি গোড়ার দিকে সংযুক্ত থাকে। নীলকণ্ঠের সঙ্গে এই বর্গে আরও রয়েছে সুঁইচোরা ও মাছরাঙা। তবে ওরা অন্য গোত্রের পাখি। সারাবিশ্বে নীলকন্ঠ বর্গে মোট ১৯৬টি প্রজাতির পাখি থাকলেও বাংলাদেশে রয়েছে মাত্র ১৯টি। এই বর্গের মোট গোত্রসংখ্যা ছয়টি। অন্যদিকে, বিশ্বব্যাপী কোরাসিডি বা নীলকন্ঠ গোত্রে সর্বমোট ১৩টি প্রজাতি থাকলেও এদেশে মাত্র তিন প্রজাতির বাস। নীলকণ্ঠ গোত্রের বর্ণিল পাখিগুলোকে দেখলে চোখ জুড়িয়ে যায়। বাংলাদেশে প্রাপ্ত তিন প্রজাতির নীলকণ্ঠের মধ্যে সবগুলোই আবাসিক। তবে নীলকণ্ঠ ও পাহাড়ি নীলকণ্ঠ সচরাচর দৃশ্যমান হলেও সদ্য ভাগ হওয়া ইন্দোচীনা নীলকণ্ঠ তথ্য অপ্রতুল শ্রেণীতে রয়েছে। এখানে এই তিন প্রজাতির নীলকণ্ঠ সম্পর্কে সংক্ষেপে বর্ণনা করা হয়েছে।

০১. নীলকণ্ঠ (Indian Roller): এই পাখিটি আজকের প্রথম গল্পের পাখি যাকে সর্বপ্রথম কেরালার কোচি সিটিতে ও পরিবতীর্তে এদেশের রাজশাহী ও পঞ্চগড়ে দেখেছিলাম। এটি বাংলাদেশের সচরাচর দৃশ্যমান আবাসিক পাখি। সাত-কাইয়া, তাওয়া, কেউয়া, থোরমোচা, নীলাচল নামেও পরিচিত। ইংরেজি নাম Indian Roller, Indian Blue Roller, Northern Roller ev Southern Roller বা Coracias benghalensis। বৈজ্ঞানিক নাম Coracias benghalensis (কোরাসিয়াস বেঙ্গালেনসিস)। এতদিন দেশের পশ্চিমাঞ্চলের বসবাসকারী Coracias benghalensis benghalensis এবং পূর্বাঞ্চলে বসবাসকারী Coracias benghalensis affinis নীলকণ্ঠের দুটি উপপ্রজাতি হিসেবে পরিচিত থাকলেও বর্তমানে বিজ্ঞানীরা ওদেরকে আলাদা দুটি প্রজাতি- নীলকণ্ঠ (Coracias benghalensis) ও ইন্দোচীনা নীলকণ্ঠ (Coracias affinis) হিসেবে গণ্য করছেন। যাহোক, দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং মধ্যপ্রাচ্যে নীলকণ্ঠের বৈশ্বিক বিস্তৃতি রয়েছে।

প্রাপ্তবয়স্ক নীলকণ্ঠের দেহের দৈর্ঘ্য ২৬-৩৪ সেন্টিমিটার (সেমি), প্রসারিত ডানা ৬৫-৭৪ সেমি ও ওজন ৯০-১৬৫ গ্রাম। পালকে তিন রকমের নীল রং দেখা যায়, হালকা নীল, আকাশি নীল ও গাঢ় নীল। মাথা, ডানা, পেট ও লেজে এই তিন নীলের চমৎকার সমন্বয় রয়েছে। ওড়া অবস্থায় ডানায় বিভিন্ন মাত্রার নীল চোখে পড়ে। ঘাড়-গলা, কপাল ও বুকের পালক লালচে-বাদামি। গলা, কান-ঢাকনি ও বুকে হালকা সাদাটে লম্বালম্বি দাগ দেখা যায়। চোখ বাদামি। শক্তপোক্ত কালো চঞ্চু। পা, পায়ের পাতা ও আঙুল হলদে। স্ত্রী-পুরুষের চেহারা একই রকম। অপ্রাপ্তবয়স্ক পাখির পালক ফ্যাকাশে ও বুক-গলায় বেশি দাগ থাকে। দেহের হালকা রং ও গলার লালচে-বাদামি দাগের মাধ্যমে ইন্দোচীনা নীলকণ্ঠ থেকে এদের পৃথক করা যায়।

দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সকল উপযুক্ত পরিবেশ, যেমন- গ্রামাঞ্চল, তৃণভূমি, ঝোপঝাড়, উন্মুক্ত এলাকা ইত্যাদিতে নীলকন্ঠের দেখা মিলে। সচরাচর একাকী বিচরণ করে। ওরা মূলত কীটপতঙ্গভুক পাখি। গাছের শাখায় বা বৈদ্যুতিক তারে বসে থাকে ও হঠাৎ উড়ে এসে পোকামকড় ধরে আবার ডালে বা তারে ফিরে যায়। সচরাচর নীরব থাকে, কদাচ ‘চাক-চাক---’ শব্দে ডাকে।

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় শেখ রাসেল অ্যাভিয়ারির ক্যাবল পথে বসা পাহাড়ি নীলকণ্ঠ। ছবি- লেখক। 

মার্চ থেকে জুন প্রজননকাল। এ সময় ওরা অত্যন্ত কোলাহলপ্রিয় হয়ে যায়। মরা তাল, খেজুর, নারিকেল বা অন্য কোনো উপযুক্ত জীবিত গাছের প্রাকৃতিক কোটর বা খোঁড়লে বাসা বাঁধে। স্ত্রী ৩-৪টি সাদা রঙের ডিম পাড়ে। স্ত্রী-পুরুষ মিলেমিশে ডিমে তা দেয় ও ছানাদের যত্ন করে। ডিম ফোটে ১৭-১৯ দিনে। ছানারা ৩০-৩৫ দিন বয়সে উড়তে শিখে। আয়ুষ্কাল ৫-৬ বছর।

০২. ইন্দোচীনা নীলকণ্ঠ (Indochinese Roller): এটি ফিচারের দ্বিতীয় গল্পের পাখি। নীলকণ্ঠের মতো এটিও এদেশের আবাসিক পাখি। ইংরেজি নাম Inochinese বা Burmese Roller। বৈজ্ঞানিক নাম Coracias affinis (কোরাসিয়াস অ্যাফিনিস)। ওরা মূলত বাংলাদেশের পূর্বাঞ্চল ও কেন্দ্রীয় অঞ্চলে বাস করে। সম্প্রতি নীলকণ্ঠ থেকে পৃথক হয়ে নতুন প্রজাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। দেহের পালকের বর্ণ ও ভৌগোলিক বিস্তৃতি ছাড়া প্রজাতি দুটির মধ্যে তেমন একটা পার্থক্য নেই। অনেকের মতে দেশের দক্ষিণপূর্বঞ্চিলীয় এলাকা বাদে বাকি অংশের ইন্দোচীনা পাখিগুলো বিশুদ্ধ নয়, বরং ইন্দোচীনা ও ভারতীয় প্রজাতির নীলকণ্ঠের সংকর। যাহোক, বর্তমানে ওদের সম্পর্কে তথ্যের কিছুটা অপ্রতুলতা রয়েছে। বাংলাদেশ ছাড়াও ওরা দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশে বিশেষ করে মিয়ানমার, লাওস, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ায় বিস্তৃত। 

ইন্দোচীনা নীলকণ্ঠ আকার ও ওজনে নীলকণ্ঠের মতোই। একনজরে দেখতে একই রকম মনে হলেও ভালোভাবে লক্ষ্য করলে দেহের রঙের পার্থক্যটা চোখে পড়ে। ওদের দেহের পালক নীলকণ্ঠ থেকে বেশি গাঢ়। কপাল ও চঞ্চুর উপরটা নীল। চোখের উপরে একটি গাঢ় নীল রেখা আছে। লেজের গোড়ায় ফিরোজা রঙের ফিতে ছাড়াও লেজের বাইরের পালকের রংও ফিরোজা। তাছাড়া গলার লালচে-বাদামি রঙের উপর রয়েছে নীলচে আভা।

দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল, দক্ষিণ-পূর্র্বাঞ্চল ও কেন্দ্রীয় অঞ্চল অর্থাৎ সিলেট, চট্টগ্রাম ও ঢাকা বিভাগের বন, বনের প্রান্ত, গ্রামাঞ্চল, তৃণভূমিসহ উপযুক্ত পরিবেশে ওরা বাস করে। সচরাচর একাকী বা জোড়ায় বিচরণ করে। নীলকন্ঠের মতো ওরাও কীটপতঙ্গভুক। গাছের ডালে বা বৈদ্যুতিক তারে বসে থাকে ও হঠাৎ উড়ে এসে পোকামাকড় ধরে আবার ডালে বা তারে ফিরে যায়। সচরাচর নীরব থাকে, কদাচ ‘চাক-চাক---’ শব্দে ডাকে। ইন্দোচীনা নীলকণ্ঠের প্রজনন এবং ডিম-ছানা তোলার প্রক্রিয়া নীলন্ঠের অনুরূপ। আয়ুষ্কাল ৫-৬ বছর।

০৩. পাহাড়ি নীলকণ্ঠ (Oriental Dollarbird): এটি আজকের তৃতীয় গল্পের পাখি। নীলকণ্ঠের মতো পাহাড়ি নীলকন্ঠও এদেশের সচরাচর দৃশ্যমান আবাসিক পাখি। অবশ্য অনেকেই ওদেরকে ডলারবার্ড নামেও ডাকে। ইংরেজি নাম Oriental Dollarbird, Dollarbird বা Broad-billed Roller। বৈজ্ঞানিক নাম Eurystomus orientalis (ইউরিস্টোমাস ওরিয়েন্টালিস)। ডলারবার্ড নামটি শুনে অনেকের মনেই এ রকম নামকরণের কারণ জানতে ইচ্ছে করতে পারে। আসলে পাখিটির ডানার নিচে গোলাকার রূপালি ছোপ রয়েছে যা অনেকটা আমেরিকান সিলভার ডলার কয়েনের মতো। আর সে থেকেই এ নামের উৎপত্তি। বাংলাদেশ ছাড়াও দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশ এবং অস্ট্রেলিয়ার পূর্বাঞ্চলে এদের বিস্তৃত রয়েছে।

পাহাড়ি নীলকণ্ঠ মাঝারি আকারের পাখি। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির দেহের দৈর্ঘ্য ২৬-৩২ সেমি ও ওজন ১১৭-১৮৬ গ্রাম। দেহের উপরটা কালচে নীল। গলায় নীলচে আভা। বুক-পেট ও ডানা সবুজাভ-নীল। ওড়ার সময় ডানার নিচে রূপালি ডিম্বাকৃতি ছোপ দেখা যায়। চোখ হলদে-বাদামি। চওড়া চঞ্চু, পা, পায়ের পাতা ও আঙুল গোলাপি-লাল। স্ত্রী-পুরুষের চেহারা একই রকম। অপ্রাপ্তবয়স্ক পাখির চঞ্চু অনুজ্জ্বল।

ইন্দোচীনা নীলকণ্ঠের ছবি তুলতে কেরানীগঞ্জের পলাশপুরে ধলেশ্বরীর পাড়ে লেখক। 

পাহাড়ি নীলকণ্ঠ চিরসবুজ বন ও বনের প্রান্তে বাস করে। সাধারণত একাকী বা জোড়ায় দেখা যায়। গাছের পাতাবিহীন মগডালে বা বৈদ্যুতিক তারে বসে থাকে ও হঠাৎ উড়ে এসে পোকামকড় ধরে আবার ডালে বা তারে ফিরে যায়। ওরা সাধারণত ‘ক্যাক-ক্যাক-ক্যাক---’ বা ‘চ্যাক-চ্যাক-চ্যাক---’ শব্দে ডাকে। মার্চ থেকে জুন প্রজননকাল। এ সময় ওরা গাছের প্রাকৃতিক কোটরে বাসা বানায় ও তাতে ৩-৪টি সাদা রঙের ডিম পাড়ে। ডিম ফোটে ১৭-২০ দিনে। ছানারা প্রায় একমাস বয়সে উড়তে শিখে। আয়ুষ্কাল ৫-৬ বছর।

সুস্থ পরিবেশ-স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে পরিবেশ সংরক্ষণ জরুরি: পরিবেশমন্ত্রী



স্টাফ করেস্পন্ডেন্ট, বার্তা২৪. কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪, বিশ্ব পরিবেশ দিবস ও পরিবেশ মেলা-২০২৪’-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে পরিবেশমন্ত্রী

ছবি: বার্তা২৪, বিশ্ব পরিবেশ দিবস ও পরিবেশ মেলা-২০২৪’-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে পরিবেশমন্ত্রী

  • Font increase
  • Font Decrease

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক মন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী বলেছেন, সুস্থ পরিবেশ ও স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে পরিবেশ সংরক্ষণ জরুরি। শুধু দেশের জিডিপির হার বৃদ্ধি করে উন্নয়ন করলে পরিবেশের দিকে নজর না দিলে কিছুই স্থায়ী হবে না।

বুধবার (৩ জুলাই) পরিবেশ অধিদফতরে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে ‘বিশ্ব পরিবেশ দিবস ও পরিবেশ মেলা-২০২৪’ সমাপনী ও পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন পরিবেশমন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, যুবকদের পরিবেশ রক্ষা ও উন্নয়ন কাজে সংশ্লিষ্ট হতে হবে। জাতির জনকের পরিবেশ নিয়ে দূরদর্শী চিন্তা ছিল। স্বাধীনতা যুদ্ধের পরপরই বৃক্ষরোপন কর্মসূচি করেন তিনি।

এছাড়া পরিবেশ রক্ষায় জাতীয় সংসদে প্লাস্টিক ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হবে বলেও জানান তিনি।

পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. আব্দুল হামিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. ফারহিনা আহমেদ।

ফারহিনা আহমেদ বলেন, পরিবেশ রক্ষায় নাগরিকদের নিজের জায়গা থেকে সচেতন হতে হবে। এককভাবে সরকারের পক্ষে পরিবেশের সমস্যা সমাধান করা কঠিন। নাগরিকেরা দায়িত্ববান হলে সবাই মিলে সুন্দর ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলা সম্ভব।

ফারহিনা আহমেদ আরো বলেন, ২০২৩ সালে আমরা প্লাস্টিকের দূষণ রোধে এবং সচেতনতায় কাজ করেছি। এ বছর মরুময়তা রোধ, জমির উর্বরতা নষ্ট রোধ, ভূমি পুনরুদ্ধার ও ভূমি রক্ষায় কাজ করছি।

বক্তব্য শেষে প্রধান অতিথি প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ও অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে পুরষ্কার বিতরণ করেন।

;

মানসম্মত শিক্ষার পাশাপাশি পরিবেশ উন্নয়নে সবুজায়ন প্রকল্প



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী

ছবি: সংগৃহীত, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী

  • Font increase
  • Font Decrease

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী বলেছেন, দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে মানসম্মত শিক্ষার পাশাপাশি পরিবেশের সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে সবুজায়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

সরকার শিক্ষা, স্বাস্থ্যখাত এবং পরিবেশের উন্নয়নে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে। ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ বিনির্মাণের অংশ হিসেবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো যাতে ‘স্মার্ট নাগরিক’ গড়তে পারে, সে লক্ষ্যে কাজ করা হচ্ছে।

শনিবার (২৯ জুন) রাজধানীর খিলগাঁও মডেল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ মিলনায়তনে আয়োজিত বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, আন্তঃবিভাগীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ও নবীন বরণ অনুষ্ঠান-২০২৪-এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের মানসিক ও শারীরিক উন্নয়নের জন্য ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করতে হবে। এ ধরনের প্রতিযোগিতার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা নেতৃত্বের গুণাবলি বিকশিত করে সব ক্ষেত্রে জয়ী হতে নিজেকে প্রস্তুত করবে।

এ সময় তিনি সব ধরনের অনিয়ম থেকে দূরে থেকে যথাযথভাবে পাঠদানের জন্য শিক্ষকদের আহ্বান জানান তিনি

পরিবেশমন্ত্রী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটিতে নতুন বিভাগ খোলা, নতুন ভবন নির্মাণ, দরিদ্র শিক্ষার্থীদের সুবিধা প্রদানসহ শিক্ষার উন্নয়নে প্রয়োজনীয় সব ধরনের উদ্যোগ গ্রহণেরও আশ্বাস দেন।

প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. ইমাম জাফরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে গভর্নিং বডির সভাপতি মো. আবদুর রউফ, স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, শিক্ষকমণ্ডলি, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

পরিবেশমন্ত্রী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটিতে গাছের চারা রোপন করেন এবং বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ ও নবীন শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেন।

;

গাছেদের পরিচর্যায় অ্যাম্বুলেন্স সেবা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গাছ, আরো গাছ। এখন যেভাবে উষ্ণ হচ্ছে পৃথিবী, তাতে প্রকৃতিতে ধস নামার জন্য হাতে আর খুব বেশি সময়ও নেই বলে জানিয়েছেন পরিবেশবিদেরা। এই সময়ে শুধু নতুন গাছ লাগানোই নয়, পুরনো গাছেদের যত্ন এবং পরিচর্যাও সমান প্রয়োজন। পরিবেশ রক্ষার জন্য একটি ছোট্ট পদক্ষেপকেও স্বাগত জানাচ্ছে বিশ্ব। ঠিক এমনই এক সময়ে সম্প্রতি পার হয়ে যাওয়া ‘বিশ্ব জীববৈচিত্র্য দিবস’ উপলক্ষে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে চালু হয়েছে গাছেদের অ্যাম্বুলেন্স সেবা!

জানা যায়, নানা সময়ে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে উপড়ে যায় বহু গাছ। কখনো আবার নির্মাণের কাজে বাধা তৈরির ‘অপরাধে’ নির্বিচারে কেটে ফেলা হয় তাদের। এই অ্যাম্বুলেন্স সেবায় তাদেরই তুলে নিয়ে গিয়ে নতুন করে মাটিতে লাগিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

ধারণাটি প্রথম মাথায় এসেছিল পরিবেশ নিয়ে আন্দোলনকারী ডা. কে আবদুল ঘানির মাথায়। ভারতের সবুজ মানুষ, ‘গ্রিন ম্যান অব ইন্ডিয়া’ বলে পরিচিত ডা. আবদুল ঘানি ইতোমধ্যে ৫০ লাখ গাছ লাগিয়েছেন।

একটি বেসরকারি সংস্থার কাছে তিনি এ প্রস্তাব রাখলে, সংস্থাটি তার চিন্তাভাবনা নিয়ে কাজ শুরু করতে রাজি হয়।

কীভাবে কাজ করে গাছেদের অ্যাম্বুলেন্স
জানা গেছে, উপড়ে যাওয়া গাছকে নিয়ে গিয়ে অন্য জায়গায় লাগানোর পাশাপাশি এই অ্যাম্বুলেন্স বিভিন্ন জায়গায় বয়ে নিয়ে যায় নানান গাছের বীজও। শহরের মানুষদের মধ্যে গাছ লাগানো-সংক্রান্ত সমস্ত রকম সচেতনতা ও সাহায্য করেন তারা। কোনো গাছ মারা গেলে, তার অংশগুলো ঠিক জায়গায় পৌঁছেও দেন তারা।

এই অ্যাম্বুলেন্সেই থাকেন দক্ষ মালী ও গাছকর্মীরা। তাদের সঙ্গে থাকে বাগান করার নানান জিনিসপত্র- সার, পানি, ঝারি, খুরপি ইত্যাদি।

এই প্রকল্পে বিশেষভাবে সহায়তাকারী বেসরকারি সংস্থা ‘সাসা'-এর কর্মকর্তা সুরেশ কুমার যাদব বলেন, একইসঙ্গে যেমন পরিবেশ দূষণ বাড়ছে, সেইসঙ্গে গাছের সংখ্যাও কমছে। এই অবস্থায় বড় বড় প্রাপ্তবয়স্ক গাছগুলির মৃত্যু বোধহয় আমাদের পক্ষে মেনে নেওয়া কষ্টকর! সে জন্যই কোনো গাছ যাতে প্রাকৃতিক বা বিশেষ কারণে মরে না যায়, সে কারণে সেগুলিকে রক্ষা করার এই উদ্যোগ এই সময়ে অত্যন্ত জরুরি বলে মনে হয়েছে আমাদের। এ জন্য যেসব যন্ত্রপাতি বা ওষুধপত্র দরকার, তা সবই আমরা রেখেছি অ্যাম্বুলেন্সে। কোথাও থেকে গাছ তুলে এনে অন্য জায়গায় লাগানোর জন্যও অত্যাধুনিক পদ্ধতি প্রয়োগ করা হচ্ছে।

ভারতের এই 'সবুজ মানুষ' ডা. আবদুল ঘানি ইতোমধ্যে ৫০ লাখ গাছ লাগিয়ে ফেলেছেন, ছবি- সংগৃহীত

অ্যাম্বুলেন্স প্রকল্পের উদ্যোক্তা ডা. আবদুল ঘানি বলেন, কত গাছ ঝড়ে উপড়ে যায়। পড়ে পড়ে মারা যায়। সেগুলো নতুন করে আর লাগানোর ব্যবস্থা করাই হয় না। এই অ্যাম্বুলেন্স আর তা হতে দেবে না। হেল্পলাইনে ফোন করা মাত্রই আমরা অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে পৌঁছে যাবো এবং বিনামূল্যে গাছটিকে সরিয়ে আনবো।

আবদুল ঘানি আরো বলেন, শুধু প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে উপড়ে যাওয়াই নয়, অনেক সময়েই দেখা যায়, গাছের কারণে সমস্যায় পড়ছেন পথচারী বা শহরবাসী। সেগুলি কেটে ফেলতে বাধ্য হচ্ছেন তারা। আমাদের জানালে আর এভাবে মারতে হবে না গাছগুলিকে। যত্ন করে তাদের সরিয়ে অন্যখানে লাগিয়ে দেবো আমরা।

;

জলবায়ু মোকাবিলা-পানি ব্যবস্থাপনায় পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি: পরিবেশমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী বলেছেন, জলবায়ু মোকাবিলা ও পানি ব্যবস্থাপনা বিষয়ে প্রতিশ্রুতির চেয়ে বাস্তব প্রদক্ষেপ গ্রহণ করা জরুরি।

তিনি বলেন, পানি ব্যবস্থাপনা, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলা ও ক্রায়োস্ফিয়ার সংরক্ষণ বিষয়ে কথার ফুলঝুরি ও প্রতিশ্রুতি প্রদানের চেয়ে বাস্তব পদক্ষেপের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করতে হবে।

মন্ত্রী এ চ্যালেঞ্জগুলির গুরুত্ব তুলে ধরে প্রয়োজনীয় পরিবর্তন আনতে সক্ষম বৈশ্বিক সংহতি ও রাজনৈতিক নেতৃত্বের দৃঢ় অবস্থানের আহ্বান জানান।

তাজিকিস্তানের দুশানবেতে ‘টেকসই উন্নয়নের জন্য পানি’ বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলনের সাধারণ অধিবেশনে মঙ্গলবার (১১ জুন) কান্ট্রি স্টেটমেন্ট বিষয়ে বক্তব্য রাখার সময় পরিবেশমন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী এসব কথা বলেন।

এ অধিবেশনে বৈশ্বিক নেতা ও স্টেকহোল্ডাররা পানি, জলবায়ু এবং ক্রায়োস্ফিয়ার সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, আমাদের কথা এবং প্রতিশ্রুতির চেয়ে পানি, জলবায়ু এবং ক্রায়োস্ফিয়ার বিষয়ে বাস্তব পদক্ষেপ এবং কর্মকাণ্ড বৃদ্ধি করতে হবে। আমাদের সম্মিলিত লক্ষ্য অর্জন এবং একটি স্থায়ী ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে বৈশ্বিক সংহতি, রাজনৈতিক প্রতিজ্ঞা এবং নেতৃত্ব অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এ সময় মন্ত্রী আরো বলেন, আন্তর্জাতিক দশক ‘টেকসই উন্নয়নের জন্য পানি’ উদ্যোগের ৩য় হাই লেভেল আন্তর্জাতিক সম্মেলন দেশগুলির মধ্যে সহযোগিতা এবং টেকসই পানি ব্যবস্থাপনা ও জলবায়ু একটি সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রচেষ্টার সমন্বয় ঘটাতে গুরুত্বপূর্ণ প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করে।

তার বক্তব্যে পরিবেশমন্ত্রী বাংলাদেশে এ বৈশ্বিক উদ্যোগগুলির প্রতি অঙ্গীকার এবং পরিবেশগত চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সম্মিলিত উদ্যোগের গুরুত্বও তুলে ধরেন।

;