সম্পর্কের যত্নে



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা ২৪.কম
একটি সম্পর্ক দুজনে মিলে ত্রুটিহীন বানাতে হয়। ছবি: সংগৃহীত

একটি সম্পর্ক দুজনে মিলে ত্রুটিহীন বানাতে হয়। ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সম্পর্কে থাকে ছোট ছোট চাপা অভিমান। আর এই অভিমান, অভিযোগ থেকেই জন্ম হয় অনেক ভুল-বোঝাবুঝির। আবার তা ঠিকও করে নিতে হয়। তা না হলে চলবে কী ভাবে? সামান্য মতের অমিলও যেন খুব বড় হয়ে না দাঁড়ায় দুজনের মাঝে। নানা রকম অনুভূতি নিয়েই তো সম্পর্ক মজবুত থাকে।

ছোটখাটো কিছু পদক্ষেপ অনেক ভুল-বোঝাবুঝির অবসান করতে পারে। শুধু দরকার একটু চেষ্টা। জেনে নেওয়া যাক তেমনই কিছু চেষ্টা।

পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধা ও বিশ্বাস

শ্রদ্ধা ও বিশ্বাসের বিষয়টি সবারই জানা, কিন্তু অনেকেই সেটা মানেন না। সম্পর্কে ভিত্তি অনেকটাই নির্ভর করে এ দুটি বিষয়ের ওপর। বাইরের মানুষের সামনে বদনাম করা শ্রদ্ধা ও বিশ্বাস না থাকার কারণেই হয়। তবে এই দুটি বিষয়ই অর্জন করে নিতে হয়। জোর করে চাপিয়ে দেওয়া যায় না।

জোর করে ঝগড়া না করা

ঝগড়ার পরে ভালোবাসাও নাকি বেড়ে যায়। পুরোনো কোনো বিষয় যদি আগেই মিটমাট হয়ে যায়, তবে সেটা বর্তমান সময়ে না মনে করিয়ে দেওয়াই ভালো।

দুঃখ প্রকাশ

আপনি যা ভাবেন, যা করেন—সেটাই ঠিক। এমনটাই যদি হয় আপনার মনোভাব, তাহলে আপনার সঙ্গী ক্রমাগতভাবে কষ্ট পাবেন। ইগোর কারণে অনেক সময় নিজের ভুল স্বীকার করা হয় না। এই সম্পর্কটা এমন যে এখানে ছোট হওয়ার কিছু নেই। নিজের ভুল না থাকলেও যার দোষেই ঝগড়া হোক, তা কষ্টের।

 

রাগ, মন খারাপ সবই সম্পর্কের অনুষঙ্গ। ছবি: সংগৃহীত

আলোচনা

নিজের ভুল হোক বা সঙ্গীর, তা পেরিয়ে ভাল থাকার চেষ্টা করা যায় আলোচনার মাধ্যমেই। একে অপরকে বোঝাতে হবে নিজেদের পছন্দ-অপছন্দের বিষয়গুলো।

সময় দিন

রাগ, মন খারাপ সবই সম্পর্কের অনুষঙ্গ। এটা না হওয়ায় বরং বেমানান। তবে সময়ের সঙ্গে তা চলেও যেতে পারে। তার জন্য সময় দিতে হবে। ঝগড়া কিংবা ভুল বোঝাবুঝি হওয়া মানেই সম্পর্ক আর আগের মতো নেই, এমনটা না ভাবাই ভালো।

ভালো দিক দেখুন

একটি সম্পর্ক দুজনে মিলে ত্রুটিহীন বানাতে হয়। পরস্পরের খারাপ দিকগুলো দেখা বন্ধ করুন। পৃথিবীতে কেউই ‘পারফেক্ট’ নন। বরং ভালো দিকগুলোর প্রশংসা করুন। সঙ্গীকে বদলে যাওয়ার জন্য চাপ না দিয়ে বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করুন। কারণ জোর করে নয় ভালোবাসায় বদলানো যায়।

   

পারিবারিক যত্নে কমবে ‘হ্যালুসিনেশন’



লাইফস্টাইল ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আড়াল থেকে কেউ যেন অনবরত ভয় দেখাচ্ছে। চোখের সামনে যেন বিচিত্র সব দৃশ্য ভাসছে। কাছের মানুষগুলোকেও আর বিশ্বাস হয় না। কল্পনায় ভেসে আসে উত্যক্ত করা কোনো কণ্ঠস্বর। অবচেতন মনেও দেখা যায় কেউ আড়ালে আবডালে ষড়যন্ত্র করছে। মনের এই জটিল অবস্থার নাম স্কিৎজোফ্রেনিয়া বা হ্যালুসিনেশন। এটি এমন এক অসুখ যার প্রকৃত কারণ আজও ঠিকমতো বুঝে উঠতে পারেননি মনোবিদেরা।

‘হ্যালুসিনেশন’ মনের এমন এক অবস্থা যেখানে রোগী সবসময়েই নিজের মনগড়া এক কাল্পনিক জগতে বাস করে। মস্তিষ্কে রাসায়নিক ভারসাম্যের তারতম্যের কারণেই এমন অসুখ হতে পারে। ভ্রান্ত ধারণা ও দৃষ্টিবিভ্রম স্কিৎজোফ্রেনিয়ার দুই লক্ষণ।

মনের যেসব জটিল ও বিচিত্র অসুখবিসুখ নিয়ে গবেষণা চলছে স্কিৎজোফ্রেনিয়া তার মধ্যে একটি। এই অসুখ নিয়ে যেমন স্বচ্ছ ধারণা নেই, তেমনই আর পাঁচজন মনোরোগীর সঙ্গে স্কিৎজোফ্রেনিয়ার রোগীকে আলাদা করাও অনেকক্ষেত্রেই কঠিন হয়ে যায়। ‘ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ হেলথ’-এর রিপোর্ট বলছে, প্রতি হাজার জন ভারতীয়ের মধ্যে তিন জন স্কিৎজোফ্রেনিয়ার শিকার।

ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের অধ্যাপক মনোবিদ শর্মিলা সরকার বলছেন, স্কিৎজোফ্রেনিয়াকে চিকিৎসার পরিভাষায় বলা হয় ‘মেজর মেন্টাল ডিসঅর্ডার’। মনের এমন এক অবস্থা যেখানে, রোগী সবসময়েই নিজের মনগড়া এক কাল্পনিক জগতে বাস করে। মস্তিষ্কে রাসায়নিক ভারসাম্যের তারতম্যের কারণেই এমন অসুখ হতে পারে।

স্কিৎজোফ্রেনিয়ার রোগী কেমন আচরণ করে?

স্কিৎজোফ্রেনিয়ার রোগীরা অশান্ত ও উত্তেজিত মেজাজে থাকে। অথবা এমনভাবে নিজেকে গুটিয়ে নেয় যে তার মনোজগতে কী চলছে, তা বোঝা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। রোগী কখন কী করবে, কেমন আচরণ করবে তার আঁচটুকুও পাওয়া যায় না। 

মনোবিদ শর্মিলা বলছেন, ‘ক্লিনিকে এমন অনেক রোগী আসেন, যারা বলেন যে তার মা-ই নাকি তার ক্ষতি করার চেষ্টা করছেন। অথবা নিজের মনেই বিড়বিড় করতে থাকেন সবসময়। এমন রোগীও আছেন যারা সবসময়েই অজানা, অচেনা কারও কণ্ঠস্বর শুনতে পান। চোখের সামনে ভুল জিনিস দেখেন, অযথা আতঙ্কে ভোগেন।’

এই প্রসঙ্গে ক্লিনিকাল সাইকোলজিস্ট চিকিৎসক অনিন্দিতা মুখোপাধ্যায় বলছেন, ভ্রান্ত ধারণা ও দৃষ্টিবিভ্রম এই রোগের অন্যতম লক্ষণ। একটি বধ্যমূল ধারণা রোগীর মাথায় গেঁথে যায়। তখন সে চোখের সামনেও ভুল দেখে এবং কানেও ভুল শুনতে শুরু করে। এই ভ্রান্ত ধারণাকে চিকিৎসার ভাষায় বলে ‘ডিলিউশন’ ও দৃষ্টিবিভ্রমকে বলে ‘হ্যালুসিনেশন’। 

হ্যালুসিনেশন হল কাল্পনিক কিছু দেখা বা শোনা। অডিটরি হ্যালুসিনেশন হলে, রোগীর মনে হবে বাইরে থেকে কোনও শব্দ বা কণ্ঠস্বর ভেসে আসছে, যেগুলির কোনও বাহ্যিক উৎস নেই। এরও নানা রকম প্রকাশ হতে পারে। মনে হতে পারে, এক বা একাধিক মানুষ তাকে নিয়ে সারাক্ষণ কথা বলছে বা সমালোচনা করে চলেছে। অথবা সারাক্ষণ কেউ তার সঙ্গে কথা বলে চলেছে। এই রোগীর কথাবার্তাও অসংলগ্ন হয়।

কেন হয় এই রোগ?

মনোবিদেদের মতে, কোনও ওষুধ বা নেশার কারণে এই রোগ হয় না। তবে মানসিক চাপ বাড়লে, তার থেকে স্কিৎজোফ্রেনিয়ার লক্ষণ প্রকাশ পেতে পারে। এই রোগের কারণ জিনগত। পরিবারে কারও থাকলে তার থেকে রোগের উপসর্গ দেখা দিতে পারে। তাছাড়া আক্রান্তের বেড়ে ওঠা, শৈশব বা জীবনের কোনও এক পর্যায়ে ঘটে যাওয়া কোনও বিশেষ ঘটনাও এর জন্য দায়ী হতে পারে।

স্কিৎজোফ্রেনিয়ার প্রতিকার কি সম্ভব?

মনোবিদ শর্মিলার কথায়, স্কিৎজোফ্রেনিয়া পুরোপুরি সারানো সম্ভব হয় না অনেকক্ষেত্রে। তবে সঠিক সময় চিকিৎসা শুরু হলে এবং রোগী ঠিকমতো ওষুধপত্র খেলে এই রোগকে নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়। এর জন্য রোগীর পরিবার ও আশপাশের লোকজনদের সচেতন থাকা জরুরি। রোগী বিকৃত আচরণ শুরু করলে তাকে উপযুক্ত চিকিৎসা, মনোবিদদের পরামর্শ মেনে চলতে হবে। 

তবে আধুনিক যুগের ব্যস্ততা, বদলে যাওয়া সম্পর্কের সমীকরণ, অনিচ্ছার জীবনযাপন বিভিন্ন মানসিক রোগ ডেকে আনে। পরিবার পরিজনের অবহেলা, কটুক্তি এই রোগকে তার চরম সীমায় নিয়ে যায়। তাই মনোবিদ অনিন্দিতা ও শর্মিলা জানাচ্ছেন, কোনও সময়েই রোগীর সঙ্গে খারাপ আচরণ করা চলবে না। ঠান্ডা মাথায় তাকে বোঝাতে হবে। সমাজের সঙ্গে মেলামেশা করতে দিতে হবে। বাড়িতে লোকজন এলে তাকে লুকিয়ে রাখবেন না, সকলের সামনে নিয়ে আসুন, কথাবার্তা বলতে দিন। এতে তার আত্মবিশ্বাস বাড়বে, মনের ভয় দূর হবে। গ্রামের দিকে এমন রোগীকে ‘ভূতে পেয়েছে’ মনে করে ওঝা, তান্ত্রিকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। এতে তার অবস্থা আরও ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠে। তাই শুধু ওষুধ নয়, শিক্ষা ও সচেতনতাও এই রোগ প্রতিরোধের অন্যতম উপায়।

স্কিৎজোফ্রেনিয়ার রোগী অনেকক্ষেত্রেই প্রতিহিংসায় ভোগে। অন্যকে আঘাত করা বা খুন করার ইচ্ছা জন্মায়। একে বলা হয় ‘প্যারানয়েড স্কিৎজোফ্রেনিয়া’। এমন রোগী নিজেরও ক্ষতি করতে পারে। তাই এমন পরিস্থিতি তৈরি হলে, রোগীকে যত দ্রুত সম্ভব মনোবিদের কাছে নিয়ে যেতে হবে। সঠিক ওষুধ ও সাইকোথেরাপিতে রোগীর মানসিক স্থিতিকে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

;

তরমুজ এবং খরমুজ খেয়ে হচ্ছে ফুড পয়জনিং



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
তরমুজ এবং খরমুজ / ছবি: সংগৃহীত

তরমুজ এবং খরমুজ / ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

তপ্ত গরমে প্রশান্তি দিতে পারে রসালো তরমুজ। গরমের সময়ে জন্মানো এই ফল যেমন সুস্বাদু তেমনই পানিসমৃদ্ধ। তবে এই ফল আসলে কতটা নিরাপদ, তা নিয়ে শঙ্কা তৈরি হচ্ছে।  

ইদানিং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ কয়েকটি ভিডিও ছড়াচ্ছে, যেখানে বলা হচ্ছে তরমুজ এবং খরমুজ জাতীয় ফল খেয়ে বিষক্রিয়া হচ্ছে। অনেকেরই নাকি এই ধরনের ফল খাওয়ার পর ফুড পয়জনিংয়ের সমস্যা দেখা দিচ্ছে।

এই ব্যাপারে কথা বলেছেন ভারতীয় চিকিৎসক কোমল কুলকার্নি। তিনি বলেছেন, অবশ্যই সব জায়গার ফলে এরকম বিষক্রিয়া হওয়ার লক্ষণ নেই। তবে কিছু স্থানে আসলেও সমস্যাযুক্ত ফল মিলছে। এই ফলগুলোতে বিষক্রিয়ার পিছনে মূলত দুটি কারণ রয়েছে।

প্রথমটি হলো ফলে ব্যবহৃত কৃত্রিম রঙ এবং স্বাদ বাড়াতে রঞ্জক পদার্থ।  তার সাথে মিষ্টি স্বাদ বাড়াতে চিনির শরবত ব্যবহার করা। অন্যদিকে দ্বিতীয়টি কারণ হল, মাটির ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া দ্বারা দূষিত স্থানে ফলের জন্মানো।

আরেকটি ইনস্টাগ্রাম রিলে, ভারতীয় এক স্বাস্থ্য প্রশিক্ষক মিরুনা বাশকার তার নিজস্ব অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করেন। তিনি জানান, একটি তরমুজ খাওয়ার পর তার ফুড পয়জনিং হয়। এর পেছনে যে কারণ থাকতে পারে বলে তিনি ধারণা করেন- তরমুজ বিক্রেতারা লাভ করার লোভ থেকে ফলে ইরিথ্রোসিনের মতো বিষাক্ত ফুড কালার ব্যবহার করে। সাধারণত উপকারী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট লাইকোপিন থেকে তরমুজ তাদের প্রাকৃতিক লাল রঙ পায়। তবে আকর্ষণীয় করার জন্য লাল-গোলাপী রঙ তরমুজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ফলগুলোতে তাজা এবং রসালো দেখিয়ে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করার চেষ্টা করা হয়। এসব রঙে সীসা বা মিথানলের মতো ক্ষতিকারক রাসায়নিক উপাদান থাকতে পারে। এর ফলে জ্বর, ডায়রিয়া, বমি এবং ক্র্যাম্প বা ব্যথার মতো উপসর্গ দেখা দেয়। এছাড়াও ফুড পয়জনিং, হজমের সমস্যা এবং এমনকিক্যান্সারও হতে পারে। 

এছাড়া যদি মাটিতে ব্যাকটেরিয়ার কারণে তরমুজে সমস্যা আসে সেটা আরও গুরুতর আকার ধারণ করতে পারে। গর্ভবর্তী মা, ছোট শিশুদের উপর সেই ধরনের ফল অনেক বেশি ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। অন্যান্য সাধারণ সমস্যা ছাড়াও গর্ভপাতের মতো ঘটনাও ঘটতে পারে এইরকম ফল খেলে। এইজন্য ফল বাইরে থেকে এনেই সরাসরি খাওয়া যাবে না। নিজের এবং পরিবারের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে ফলগুলোকে দূষণমুক্ত করার চেষ্টা করতে হবে।  

সুরক্ষার জন্য ভিনেগার দ্রবণ ব্যবহার করতে পারেন। বাটিতে নির্দিষ্ট পরিমাণ  ভিনেগার নিয়ে তার ৩ গুণ পানি ব্যবহার করে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। এই পানি ব্যবহার করে ফল ধুয়ে নিন। যদিও ফলের ভেতরের অংশের সব জীবাণু এর মাধ্যমে ধ্বংম করা সম্ভব নয়।

এছাড়া ফল কাটার আগে এবং পরে পাত্র, কাটিং বোর্ড, ছুড়ি জীবাণু মুক্ত করতে স্যানিটাইজ করে নিন। ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি ধীর করার জন্য কাটা তরমুজ ফ্রিজে রাখতে পারেন। বাসি এবং ক্ষতি সম্পন্ন তরমুজ খাওয়া এড়িয়ে চলুন।

তথ্যসূত্র: দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

;

গরমে শরীরে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা কমাতে কি করবেন!



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বর্তমান সময়ে অনেক মানুষই ইউরিক অ্যাসিডের সমস্যায় ভুগছেন। গরমকালে শরীরে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা বাড়তে থাকে। আর গরমে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা কমাতে আপনাকে প্রতিদিন এই সবজিগুলো খেতেই হবে। দেখুন তালিকায় কোন কোন সবজি রয়েছে। গ্রীষ্মের মৌসুমে রোজই টমেটো খেতে পারেন আপনিও। কারণ, এতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি থাকে। এই সবজিটি নিয়মিত খেলে শরীরে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা কমবে। এতে শরীর সুস্থ থাকবে। ত্বকও ভালো থাকে। টমেটো আপনি সালাদ, চাটনি বা স্যুপ করে খেতে পারেন।

কলা
কলা যদি আপনি ইউরিক অ্যাসিড রোগে আক্রান্ত থাকেন তাহলে নিত্যদিন কলা খেতে পারেন। এতে ইউরিক অ্যাসিড কমে এবং গাঁটের ব্যথা থাকলে তাও দ্রুত কমবে।

কুমড়া
কুমড়া গরমকালে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা কমাতে, শরীর সুস্থ রাখতে নিত্যদিন খান কুমড়া। এতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। এতে থাকে ভিটামিন সি। যা ত্বক ও চুলের জন্য খুব ভালো। এতে কম পরিমাণ পিউরিন থাকে। পিউরিন জাতীয় খাবার খেলে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা কমতে থাকে শরীরে।

মাশরুম
গরমকালে মাশরুম খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য খুব ভালো। এতে বিটা গ্লুকোন থাকে। যা জয়েন্টের ফোলাভাবে কমাতে সাহায্য করে। সেই সঙ্গে কমবে শরীরে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা।

শশা
গরমকালে শরীর একেবারে ফিট রাখতে আপনি রোজ খান শশা। যা স্বাস্থ্যের জন্য খুব ভালো। শশাতে প্রচুর পরিমাণে জল থাকে। শশা খেলে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা কমবে। তাছাড়াও থাকে ফাইবার। যা আপনার কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করবে।

চেরি
চেরি গরমকালে ইউরিক অ্যাসিডের রোগীরা নিত্যদিন খান চেরি ফল। চেরিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি ৬, ভিটামিন কে, ভিটামিন সি থাকে। তাছাড়াও থাকে খনিজ। যা আপনার শরীর সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে।

পটল
গরমকালে নিত্যদিন খান পটল। পটল খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য খুব ভালো। এতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে। যা ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। এমনকি বাতের ব্যথা কমাতেও কার্যকরী পটল।

কিউই ফল
যারা ইউরিক অ্যাসিডের সমস্যায় ভুগছেন তারা নিত্যদিন খেতে পারেন কিউই ফল। এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, ভিটামিন ই, পটাশিয়াম ও ফ্লোলেট থাকে। যা শরীরে জমে থাকা টক্সিন বের করে দেয়।

তথ্যসূত্র- ওয়ান ইন্ডিয়া

;

যে খাদ্যাভ্যাসগুলো দূর করবে মানসিক চাপ



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সুষম খাদ্য বনাম জাংক ফুড / ছবি: সংগৃহীত

সুষম খাদ্য বনাম জাংক ফুড / ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জনজীবনে নিত্য যেন এক অফুরন্ত ব্যস্ততা। দু’দন্ড যেন বিশ্রাম নেওয়ার সময় অবধি নেই। প্রতিদিনের একঘেয়ে ব্যস্ত রুটিন আর অনবরত কাজের কারণে মানসিক চাপ হওয়া, উদ্বিগ্নতা কিংবা স্নায়ুবিক অশান্তি অনুভব করা অসম্ভব কিছু নয়।

তবে এরকম অস্বাভাবিক অবস্থার সৃষ্টি হলে পরিস্থিতি গুরুতর হওয়ার আগে নিজেকেই সামলে ওঠার চেষ্টা করতে হবে। কাজের চাপের বাইরেও জীবন যাত্রার অনেক ব্যাপারও উদ্বেগ, মানসিক চাপ এবং ডিপ্রেশন বাড়াতে পারে। এসব কারণে আমাদের শারীরিক, মানসিক এবং মানসিক স্বাস্থ্যে বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে। সঠিক খাদ্যাভ্যাস এবং জীবনধারা পরিবর্তনের মাধ্যমে স্নায়ুতন্ত্র পরিবর্তন করা সম্ভব।

ভারতীয় পুষ্টিবিদ মেরিনা রাইট বলেন, স্নায়ুতন্ত্র এবং মানসিক চাপের উপর খাদ্য এবং পুষ্টির প্রভাবকে অবহেলা করে দেখা উচিত নয়। তিনি এইক্ষেত্রে আরও কিছু বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করার কথা বলেন, যা এসব মানসিক সমস্যা দূর করতে সাহায্য করবে-

১. খাদ্যে আমিষ, আঁশসমৃদ্ধ, শর্করা এবং চর্বি উপাদানের ভারসাম্য থাকা উচিত। এতে শরীরে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। শর্করার মাত্রার তারতম্য হলে তার প্রভাব মেজাজে পড়ে।

২. প্রোবায়োটিক এবং প্রিবায়োটিক খাবার অন্ত্রের স্বাস্থ্যে ভূমিকা রাখে। এসব উপাদান খাদ্যতন্ত্রে মাইক্রোবায়োম গড়ে তুলতে সাহায্য করে। এটিও স্নায়ুতন্ত্রকে নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।

মানসিক চাপে খাদ্যাভ্যাসের প্রভাব / ছবি: সংগৃহীত

৩. কোলিন, ভিটামিন বি১২, ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, প্রোবায়োটিক এবং পলিফেনলের মতো পুষ্টি উপাদান শরীরের ভ্যাগাস নার্ভকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

৪. অন্ত্রে কোনো কারণে ব্যথা বা অস্বস্তি হলে তা সরাসরি স্নায়ুতন্ত্রকে অস্বাভাবিক করতে পারে। খাদ্যগ্রহণ অভ্যাস তাই সুস্থতা নির্ধারণে এত বেশি প্রভাবশালী। পরিবর্তিত এবং সুষম খাদ্য গ্রহণ অন্ত্রের প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে।

৫. খাবার চাবানো এবং গলাধঃকরণের উপরও পরিপাক অনেকটা নির্ভর করে। তাই প্রতিটি কামড়ের স্বাদ গ্রহণ রে, ধীরে ধীরে খাবার গিলে ফেলা উচিত। এই কাজগুলো মননশীল খাদ্যাভাসে অবদান রাখে।

তথ্যসূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

;