বাংলাদেশে ঊর্ধমুখী, ভারতে তৃতীয় ঢেউ, ব্রাজিলে মৃত্যু বাড়ছে

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস



আবুল খায়ের মোহাম্মদ, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বিশ্বের নানা প্রান্তে বাড়ছে করোনা আতঙ্ক। সংগৃহীত

বিশ্বের নানা প্রান্তে বাড়ছে করোনা আতঙ্ক। সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বৈশ্বিক মহামারি করোনা পরিস্থিতি টিকাকরণের ফলে নতুন চেহারা নিচ্ছে। যেসব দেশ, বিশেষত ইউরোপ, আমেরিকা অধিক হারে টিকা প্রদান চলছে, সেখানে মৃত্যু ও সংক্রমণ তুলনামূলক কমলেও বাড়ছে বিশ্বের নানা প্রান্তে।

করোনা ভাইরাসে ব্রাজিলে মৃতের সংখ্যা ৫ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। এর ফলে মৃত্যুর সংখ্যার দিক দিয়ে ব্রাজিল এখন শীর্ষের দিকে অবস্থান করছে। বাংলাদেশও  করোনাভাইরাস শনাক্ত রোগী ও মৃত্যু বেড়েছে। গত ৪৮ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে বাংলাদেশে। ভারতে চলমান প্রলয়ঙ্করী করোনা পরিস্থিতির মধ্যে আশঙ্কা করা হচ্ছে 'তৃতীয় ঢেউ'-এর।

ভারত তথা দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম শ্রেষ্ঠ চিকিৎসা কেন্দ্র দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইন্সটিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্স (AIIMS) 'এইমস' থেকে স্পষ্টভাষায় জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, 'করেনার তৃতীয় ঢেউ (Third Wave) অনিবার্য।' ভারতে  খুব দ্রুতই আছড়ে পড়তে চলেছে করোনার আরও ভয়াবহ থার্ড ওয়েভ। এমন আশঙ্কার কথাই শোনালেন এইমস ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া।

বিশেষজ্ঞের চরম আশঙ্কার পূর্বাভাস এমন পরিস্থিতিতে সামনে এলো, যখন কোনওমতে দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে ভারত। এরমধ্যেই চোখ রাঙাচ্ছে করোনার তৃতীয় ঢেউ (Third Wave)। ঠিক কবে নাগাদ আছড়ে পড়তে পারে থার্ড ওয়েভ বা  কতটাই বা অনিবার্য তা, এসব প্রশ্নের ধোঁয়াশা কাটালেন AIIMS-এর ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া।

AIIMS-এর ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া (Randeep Guleria) বলেনে, 'আগামী ছয় থেকে আট সপ্তাহের মধ্যেই ভারতে করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে। কোভিড সংক্রমণের তৃতীয় ঢেউয়ের আঘাত অনিবার্য। এই পরিস্থিতিতে বিশাল জনসংখ্যার এই দেশে টিকাকরণ কর্মসূচি সম্পন্ন করাই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।' একইসঙ্গে টিকা নিয়েও ধোঁয়াশা কাটালেন তিনি। তবে তার কথায়, 'কোভিশিল্ডের প্রথম এবং দ্বিতীয় ডোজের টিকার মধ্যে সময়ের ব্যবধান বৃদ্ধির কোনও খারাপ প্রভাব ফেলবে না।'

পাশাপাশি ভারতে ‘আনলক’ পর্বে আরও সতর্কতা বজায় রাখার উপর জোর দিয়েছেন রণদীপ গুলেরিয়া। একাধিক রাজ্যে ইতিমধ্যেই লকডাউনের বিধিনিষেধ শিথিল করায় উদ্বিগ্ন তিনি। AIIMS ডিরেক্টর বলেন, 'দ্বিতীয় ঢেউয়ের ভয়াবহতা থেকে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে। তৃতীয় ঢেউ আসার আগে সংক্রমণের হটস্পটগুলো চিহ্নিত করে কোভিড পরীক্ষা এবং চিকিৎসা সংক্রান্ত পরিকাঠামো গড়ে তোলার উপর নজর দিতে হবে। চালিয়ে যেতে হবে টিকাকরণও।'

ভারতের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, দৈনিক সংক্রমণ রয়েছে ৬০ হাজারের গণ্ডিতে। আশা জাগাচ্ছে প্রতিদিন বেড়ে চলা কোভিড মুক্ত রোগীর সংখ্যায়। তবে, স্বাস্থ্যবিধি, সামাজিক দূরত্ব ও টিকাকরণে কোনও গাফিলতি হলে করোনার আসন্ন তৃতীয় ঢেউ ভয়াবহ ক্ষতি করতে পারে বলে সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞ।

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস