Alexa

খাবার খাওয়ার পর গ্রিন টি পানে কী হয়?

খাবার খাওয়ার পর গ্রিন টি পানে কী হয়?

ছবি: সংগৃহীত

সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর পানীয়ের মধ্যে গ্রিন টির নাম অবশ্যই প্রথম সারিতে থাকবে।

অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও অন্যান্য নানবিধ স্বাস্থ্য উপকারিতা সমৃদ্ধ এই পানীয়টি নিয়মিত পানের পরামর্শ দেওয়া হয় সবাইকে। পানীয় কিংবা খাদ্য উপাদান যাই হোক না কেন, সবকিছু গ্রহণের নির্দিষ্ট ও সঠিক সময় থাকে। ঠিক তেমনভাবেই গ্রিন টি পানের জন্যেও রয়েছে নির্দিষ্ট সময়।

অনেকেই হয়তো জানেন না, খাবার খাওয়ার পরপর ও খাবার খাওয়ার মাঝে গ্রিন টি পান করা উচিৎ নয়। কারণ এই অভ্যাসটি একেবারেই স্বাস্থ্যসম্মত নয়। কিন্তু কেন?

স্বাস্থ্যকর গ্রিন টিতে থাকে ফেনল নামক এক ধরনের কেমিক্যাল উপাদান। খাবার গ্রহণের কিছুক্ষণের মাঝে গ্রিন টি পানে যে সমস্যাটি দেখা দেয়- এতে উপস্থিত ফেনল গ্রহণকৃত খাদ্য উপদান থেকে শরীরকে আয়রন শোষণে বাধাদান করে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/16/1555410228786.jpg
খাবার খাওয়ার পর গ্রিন টি পান করা থেকে বিরত থাকতে হবে। 

 

আরও জেনে রাখা ভালো, খাবার খাওয়ার পর ও খাবার খাওয়ার মাঝে গ্রিন টি পান করা থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার খাওয়ার পরেও গ্রিন টি পান করা থেকে বিরত থাকতে হবে। কারণ গ্রিন টি দুধ বা দুগ্ধজাত খাবারের প্রোটিনকে শরীরে তার উপকারিতা বিস্তার করতে বাধা প্রদান করে এবং গ্রিন টি পানের ফলে মেটাবলিজম বৃদ্ধি পাওয়া ব্যহত হয়। যারা ওজন কমানোর উদ্দেশে গ্রিন টি পান করেন, তাদের এ বিষয়ের প্রতি বাড়তি খেয়াল রাখা প্রয়োজন।

যাদের শরীরে আয়রনের ঘাটতি রয়েছে, গ্রিন টি পানের সময়ের বিষয়ে তাদের বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন। নতুবা শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। মূলত এই সকল কারণ বিবেচনা করেই সকালে খালি পেটে কিংবা বিকালে হালকা ঘরানার নাশতার সঙ্গে গ্রিন টি পানের পরামর্শ দেওয়া হয়। যা একইসাথে শরীর সুস্থ রাখতে, মেটাবলিজম বৃদ্ধিতে ও ওজন কমাতে সহায়তা করবে।

আরও পড়ুন: ভিটামিন-সি কেন জরুরি?

আরও পড়ুন: কফির পরিবর্তে চা পানে যা ঘটতে পারে!

আপনার মতামত লিখুন :