বছরজুড়েই তোপের মুখে ছিল জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ

  সালতামামি



সেরাজুল ইসলাম সিরাজ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বিদ্যুৎ এবং জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ একই মন্ত্রণালয়ের পৃথক দু’টি বিভাগ। বিদায়ী বছরে বিদ্যুৎ বিভাগ ইতিহাসের খাতায় নাম লেখালেও জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ হঠাৎ বছরজুড়েই ছিল জনগণের তোপের মুখে।

তেল-গ্যাস অনুসন্ধান কার্যক্রমে ঢিমেতাল নিয়ে ছিল বিশেষজ্ঞদের চরম আপত্তি। সেই সঙ্গে বিদেশি কোম্পানিকে চড়াদামে কাজ দেওয়া, বছরজুড়েই নানা দুর্ঘটনা, সর্বশেষ তেলের দাম বাড়ানো নিয়ে গণপরিবহনের বিশৃঙ্খলার সব ক্ষোভ গিয়ে পড়ে এই বিভাগের কাঁধে।

নভেম্বর মাসের ৩ তারিখে (মধ্যরাত থেকে) হঠাৎ করেই ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বাড়ানো হয়। দাম বাড়ানোর সময় ইতিহাসের সকল রেকর্ড গুঁড়িয়ে দেয় বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন । লিটার প্রতি ৬৫ টাকা বাড়িয়ে ৮০ টাকা করা হয়। ওই ঘোষণার পরে গণপরিবহনে অরাজকতা নেমে আসে। বাস মালিকরাও ইচ্ছামতো ভাড়া আদায় করতে থাকে। যাত্রীদের সঙ্গে টুকাটুকি শুরু হলে অঘোষিত ধর্মঘটে চলে যায় বাস মালিকরা। শেষতক গাড়ি মালিকদের চাপেই ২৭ শতাংশ গাড়ি ভাড়া বাড়িয়ে দেয় সরকার। ভাড়া বাড়ানোর পরে সিএনজিচালিত বাসেও বর্ধিত ভাড়া নিতে থাকলে আরেক লঙ্কাকাণ্ড শুরু হয়। সমাধান হিসেবে ডিজেল চালিত বাসে স্টিকার সাটানো হয়।

এই ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে প্রথম দিকে বিচ্ছিন্নভাবে আন্দোলন চলে আসলেও ১৯ নভেম্বর রাস্তায় নেমে আসেন শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয় রাজধানী শহর ঢাকা। লাগাতার আন্দোলনের মুখে প্রথমে বিআরটিসির বাসে পরে ৩০ নভেম্বর শর্তসাপেক্ষে ঢাকায় হাফভাড়া করার ঘোষণা দেন বাস মালিকদের সংগঠন।

করোনার সংকট কাটিয়ে না উঠতেই ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বাড়ানোয় তখন অনেকেই সমালোচনা মুখর হয়েছিলেন। যদিও জ্বালানি বিভাগের পক্ষ থেকে বারবার বলা হয় আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়ে যাওয়ার দাম বাড়ানোর কথা। বিশ্ববাজারে দাম কমে গেলে আবার কমানো হবে। তাদের সেই বক্তব্য অনেকেই প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন। তারা বলেছিলেন তেলের দাম বাড়লে নানামুখী প্রতিঘাত হয়। বরং তেলের দাম অন্যভাবে সামাল দিলে অরাজকতা হতো না।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির এক বিবৃতিতে বলা হয়, আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় অক্টোবর ২০২১ মাসে মোট ৭২৬.৭১ কোটি টাকা লোকসান হয়েছে বলেছে বিপিসি। আর ভাড়া বাড়ানোর কারণে দৈনিক ২শ কোটি টাকা বাড়তি ভাড়া গুণতে হবে। বছরে ৬ হাজার কোটি টাকা মুনাফার জন্য ৭৩ হাজার কোটি টাকা লুটপাটের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

শুধু ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বৃদ্ধির উত্তাপে নয়, বছরজুড়েই নানা দুর্ঘটনায় সমালোচিত হয় জ্বালানি সেক্টর। আগের বছর (২০২০) নারায়ণগঞ্জ মসজিদে ভয়াবহ দুর্ঘটনায় ৩৪ জনের প্রাণহানির ক্ষত না মুছতেই ২০২১ সালে বেশ কয়েকটি দুর্ঘটনা সেক্টরের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে থাকে।

সবচেয়ে ভয়াবহ ঘটনাটি ঘটে জুনে রাজধানীর মগবাজারে। ভয়াবহতা এতো ব্যাপক ছিল আশপাশের ভবন ও রাস্তার ওপর বাসে থাকা যাত্রীরাও আহত হন। রাস্তার বিপরীত দিকের ভবনে থাকা আড়ংয়ের শো-রুমের সব কাঁচ ভেঙে রাস্তায় পড়ে যায়। কয়েকশো গজ দূরে থাকা একটি বাসের সবগুলো কাঁচ ভেঙে পড়ে যায়। দেশ বিদেশের মিডিয়ায় জায়গা করে নেয় মগবাজার ট্রাজেডি।

ওই ক্ষত দূর না হতেই ১২ নভেম্বর ফতুল্লায় একটি পাঁচতলা ভবনের নিচতলায় জমে থাকা গ্যাসের বিস্ফোরণ ঘটে। এতে ২ নারী নিহত ও ১৫ জন আহত হন। মগবাজার থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরত্বে পুরান ঢাকায় গ্যাস বিস্ফোরণে পাঁচজন দগ্ধসহ ১০ জন আহত হন। এছাড়াও ছোট খাটো আরও অনেক দুর্ঘটনা ঘটছে গ্যাস সংশ্লিষ্ট অগ্নিকাণ্ডে। বিদায়ী বছরে সব মিলিয়ে শতাধিক প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। ক্ষতি হয়েছে কোটি কোটি টাকার সম্পদের। প্রতিটি দুর্ঘটনার পর তদন্ত কমিটি হয়েছে কিন্তু খুব একটা কার্যকর ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি। অনেক সুপারিশ এসেছে কিন্তু সেগুলো যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করার নজির কমই রয়েছে।

জ্বালানি বিভাগ সূত্র জানিয়েছে, ঢাকাসহ আশপাশের অঞ্চলে গ্যাস বিতরণ ব্যবস্থা খুবই নাজুক। তিতাস গ্যাসের নেটওয়ার্কের অনেক লাইনই তিন-চার দশকের পুরোনো, শত শত লিকেজ, জীর্ণ লাইন রয়েছে। পাশাপাশি নিম্নমানের মালামাল ব্যবহার করে অবৈধ সংযোগ বাণিজ্য জটিল করে তুলেছে পরিস্থিতি। রাস্তার উন্নয়ন, ওয়াসা, বিদ্যুৎসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সংস্থার অপরিকল্পিত খোঁড়াখুঁড়িতেও নেটওয়ার্ক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। গ্যাসের পাইপলাইনের ক্ষয় রোধে ক্যাথডিক প্রটেকশন (সিপি) ব্যবহার করা হয়। অভিযোগ রয়েছে, অনেক সময় নিম্নমানের সিপি ব্যবহার করা হয়। পাইপের সঙ্গে থাকা ক্ষয়রোধী কভারও দেওয়া হয় নিম্নমানের। ফলে লাইন দ্রুত জীর্ণ হয়ে পড়ে। এভাবে জরাজীর্ণ লাইনগুলো হয়ে উঠছে প্রাণঘাতী।

এক অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, গ্যাসের রাইজার থেকে চুলা পর্যন্ত অনেক বাসায় লিকেজ রয়েছে, সুইচের গোড়াতেও লিক রয়েছে। যারা প্রি-পেইড মিটার স্থাপন করছে, এরাই আমাকে বলেছে রাইজার থেকে চুলা পর্যন্ত লিকেজের কথা। এই সমস্যা সমাধানের দায়িত্ব গ্রাহককেই নিতে হবে, তাদেরকে সচেতন হতে হবে।

জ্বালানি বিভাগের দর্শন নিয়েও রয়েছে বিস্তর প্রশ্ন। বঙ্গবন্ধুর দর্শন ছিল নিজস্ব সম্পদের সর্বোচ্চ আহরণ ও ব্যবহার। কিন্তু বাংলাদেশ দিন দিন আমদানির দিকে ঝুঁকে যাচ্ছে, কখনও বাধ্য হয়ে কখনও স্বেচ্ছায় সপে দিয়েছে। জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা মনে করেন বঙ্গবন্ধু যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে স্বল্প সময়ে যে কাজ করেছেন অন্যরা দীর্ঘসময়ে তার ধারে কাছেও নেই।

বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী বেলায়েত হোসেন বলেছেন, জ্বালানি খাতে বঙ্গবন্ধু যেটুকু করে গিয়েছিলেন সেটার সুবিধা ভোগ করছি, আমরা তার নীতি, পথও অনেকটা হারিয়ে ফেলেছি।

তিনি বলেছেন, গ্যাসের উৎপাদন বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া উচিত ছিল। সেদিকে সেভাবে দৃষ্টি দেওয়া হচ্ছে না। দেশীয় জ্বালানির বিকল্প হতে পারে না। অবশ্যই বিকল্প রাখা উচিত।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক বদরুল ইমাম বলেন, বঙ্গবন্ধু ১/২ বছরে যেভাবে কাজ শুরু করেছিলেন, কিন্তু এতো বছরে যদি চলতে পারতাম তাহলে চিত্র ভিন্ন হতো। যিনি এক-দুই বছরে পুরো সাগরকে অনুসন্ধানের আওতায় আনলেন। তবে তেল-গ্যাস অনুসন্ধানের আইডিয়াল সিচুয়েশন আর দেখতে পেলাম না।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, বাংলাদেশের তেল-গ্যাস অনুসন্ধান এখনও তিমিরেই রয়ে গেছে। স্বাধীনতার পর মাত্র ৪০টি অনুসন্ধান কূপ খনন করা হয়েছে, একই সময়ে ত্রিপুরা কূপ খনন করেছে ১৬০টি। ত্রিপুরা (মাত্র ১০ হাজার বর্গকিলোমিটার আয়তন) ১৬০টি কূপ খনন করে মাত্র ১১টি গ্যাস ফিল্ড আবিষ্কার করেছে, এরমধ্যে ৭টি থেকে উৎপাদন করছে। অন্যদিকে বাংলাদেশের সফলতার হার অনেক উচ্চ। ১০টি কূপ খনন করে ১টি গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কারকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃত মানদণ্ড বিবেচনা করা হয়। সেখানে বাংলাদেশে তিনটি কূপ খনন করে ১টি গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছে। বাংলাদেশ ভূ-খণ্ডে প্রথম কূপ খনন করা হয় ১৯১০ সালে। বর্তমান সময় পর্যন্ত (১১০ বছরে) মাত্র ৯৫টি অনুসন্ধান কূপ খনন করা হয়েছে। এতে করে ২৮টি গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার হয়েছে। এর বাইরে মোবারকপুর, কশবা ও কুতুবদিয়ার মতো কয়েকটি ফিল্ড রয়েছে যেগুলোতে গ্যাসের আঁধার পেলেও বাণিজ্যিকভাবে উত্তোলনযোগ্য নয় বলে ঘোষণা করা হয়নি। যে কারণে বাংলাদেশের তেল অনুসন্ধান কার্যক্রম এখনও তিমিরেই বলা হয়।

তবে স্থবিরতা কাটিয়ে কিছুটা গতিতে ফেরাতে সক্ষম হয়েছে বর্তমান সরকার। গত ১১ বছরে ১৯টি অনুসন্ধান কূপ খনন করেছে। কূপ খননে বঙ্গবন্ধু সরকারের সাফল্য ছিল পিলে চমকানোর মতো। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে মাত্র সাড়ে তিন বছরে সময়ে ৯টি কূপ খনন করেছিলেন। অফসোরে (সাগরে) ৭টি এবং স্থলভাগে ছিল ২টি। আর অবশিষ্ট ৩৬ বছরে অনুসন্ধান কূপ খনন করা হয়েছে মাত্র ১২টি।

সঙ্গত কারণেই বাংলাদেশে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান কার্যক্রম এখনও প্রাথমিক ধাপেই রয়েছে বলে মনে করেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা। বিশেষ করে গভীর সমুদ্র অঞ্চল, পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং দেশের পশ্চিমাঞ্চল থেকে গেছে এই কার্যক্রমের বাইরে। সাগরে বাংলাদেশের সীমানার ওপার থেকে গ্যাস উত্তোলন করছে মিয়ানমার। অন্যদিকে পার্বত্য চট্টগ্রামের সীমানার ওপার থেকে ১১৬টি কূপ দিয়ে গ্যাস উত্তোলন করছে ত্রিপুরা। অবহেলিত পশ্চিমাঞ্চলের সীমান্ত ঘেষা অশোকনগরে তেল আবিষ্কার করেছে ভারত।

এতে করে এতোদিন যারা দেশের পশ্চিমাঞ্চলে (রংপুর, রাজশাহী এবং খুলনা অঞ্চল) তেল-গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা নেই মনে করতেন তারাও এখন নড়েচড়ে বসেছেন। বিশাল এই অঞ্চলটিকে গত ১১০ বছরে মাত্র ৬টি কূপ খনন করা হয়েছে তার মধ্যে ৫টিতেই তেল-গ্যাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। তারপর আর কাজ হয়নি কূপগুলো নিয়ে। এ কারণে আজকে দেশ জ্বালানি সংকটে পড়েছে। বিদেশ থেকে এলএনজি আমদানি করতে হচ্ছে। তারপরও সংকট সামাল দেওয়া যাচ্ছে না। বন্ধ আবাসিকে গ্যাস সংযোগ, শিল্পে দেওয়া হচ্ছে বেছে বেছে। সন্ধ্যা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত সিএনজি স্টেশন বন্ধ রাখতে হচ্ছে।

  সালতামামি

বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ডের সম্পূরক চুক্তি সম্পন্ন



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ, পেট্রোবাংলা ও শেভরন বাংলাদেশের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় সম্পূরক চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে।

রোববার (২ অক্টোবর) রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোঁনারগাও হোটেলে চুক্তিগুলো স্বাক্ষর হয়।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের পক্ষে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের উপসচিব মোছা. মোর্শেদা ফেরদৌস, পেট্রোবাংলার পক্ষে পেট্রোবাংলার সচিব (ঊর্ধ্বতন মহাব্যবস্থাপক) রুচিরা ইসলাম, শেভরনের পক্ষে শেভরন, বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট এরিক এম ওয়াকার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

অনুষ্ঠানে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) ড. মো. হেলাল উদ্দিন, এনডিসি ও পেট্রোবাংলা‘র চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত ছিলেন পেট্রোবাংলার পরিচালক (পিএসসি) প্রকৌশলী মো. শাহীনুর ইসলাম, শেভরন বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট এরিক এম ওয়াকার এবং করপোরেট অ্যাফেয়ার্স ডিরেক্টর মুহাম্মদ ইমরুল কবির সরকারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

উল্লেখ্য, শেভরনের বিবিয়ানা ফিল্ডের নতুর এলাকায় কূপ খনন করবে। এক সময় যে এলাকাগুলো শেভরনের আওতাধীন ছিল, কিন্তু তারা এগুলোর স্বত্বত্যাগ করেছিলেন। বর্তমানে বিবিয়ানায় শেভরনের কূপ সংখ্যা ২৬। শেভরন নতুন এলাকাতে ২০২৩ সালে ২৭ নম্বর উন্নয়ন কূপ খনন শুরু করবে। পরবর্তীতে ২৮ নম্বর কূপ খননের পরিকল্পনাও রয়েছে শেভরনের। এতে করে বাংলাদেশের সবচেয়ে বৃহৎ গ্যাস ফিল্ডটির মজুদ ও উত্তোলন বৃদ্ধির আশা করা হচ্ছে। বিবিয়ানায় প্রায় ১.২২ টিসিএফ অবশিষ্ট গ্যাস মজুদ রয়েছে। আমেরিকান কোম্পানি শেভরন দৈনিক উৎপাদন করছে ১২৩৭ এমএমসিএফ।

  সালতামামি

;

পোশাক রফতানিতেও বড় ধাক্কা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সদ্য সমাপ্ত সেপ্টেম্বর মাসে ৩৯০ কোটি ৫০ লাখ মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য রফতানি হয়েছে। তবে এ সময়ে বাংলাদেশের প্রধান রফতানি পণ্য তৈরি পোশাক রফতানি তুলনামূলক হ্রাস পেয়েছে।

পোশাক রফতানি হয়েছে ৩১৬ কোটি ১৬ লাখ ডলারের যা গতবছরের সেপ্টেম্বরে ছিল ৩৪১ কোটি ৮৮ লাখ ডলার।

রোববার (২ অক্টোবর) রফতানি উন্নয়ন ব্যুারো (ইপিবি) প্রকাশিত সর্বশেষ পরিসংখ্যানে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী গতবছরের সেপ্টেম্বরের তুলনায় এবছরের সেপ্টেম্বরে পোশাকের রফতানি হ্রাস পেয়েছে ৭ দশমিক ৫২ শতাংশ।

এ বিষয়ে রফতানিমুখী তৈরি পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, বৈশ্বিক মন্দার পূর্বাভাষের প্রেক্ষিতে পোশাকের প্রতি ক্রেতাদের চাহিদা কমে গেছে। যে কারণে খুচরা পর্যায়ে বিক্রি হ্রাস পাচ্ছে। যার প্রভাব আমাদের পোশাক রফতানিতে পড়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

তবে বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে পোশাক রফতানির ব্যাপারে বাংলাদেশের শিল্পোদ্যোক্তারা সতর্ক রয়েছেন বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এদিকে, চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ১২৪৯ কোটি ৩৮ লাখ ডলারের পণ্য রফতানি হয়েছে। গতবছরের একইসময়ে এর পরিমাণ ছিল ১১০২ কোটি ১৯ লাখ ডলার। সেই হিসেবে গতবছরের প্রথম প্রান্তিকের তুলনায় এবছরের প্রথম প্রান্তিকে রফতানি আয় ১৩ দশমিক ৩৮ শতাংশ বেশি।

  সালতামামি

;

রিজার্ভ চুরি মামলার প্রতিবেদন ১৬ নভেম্বর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
রিজার্ভ চুরি মামলার প্রতিবেদন ১৬ নভেম্বর

রিজার্ভ চুরি মামলার প্রতিবেদন ১৬ নভেম্বর

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামি ১৬ নভেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত।

রোববার মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। তদন্ত সংস্থা সিআইডি প্রতিবেদন দাখিল না করায় ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আরাফাতুল রাকিব নতুন এ দিন ধার্য করেন।

২০১৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক থেকে জালিয়াতি করে সুইফট কোডের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার হাতিয়ে নেয় দুর্বৃত্তরা। পরে ওই টাকা ফিলিপাইনে পাঠানো হয়। দেশের অভ্যন্তরের কোনো একটি চক্রের সহায়তায় হ্যাকার গ্রুপ রিজার্ভের অর্থ পাচার করেছে বলে সংশ্লিষ্টরা ধারনা করেছে।

ওই ঘটনায় ২০১৬ সালের ১৫ মার্চ বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্টস অ্যান্ড বাজেটিং ডিপার্টমেন্টের উপ-পরিচালক জোবায়ের বিন হুদা বাদি হয়ে মতিঝিল থানায় মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন-২০১২ (সংশোধনী ২০১৫) এর ৪ ধারাসহ তথ্য ও প্রযুক্তি আইন-২০০৬ এর ৫৪ ও ৩৭৯ ধারায় একটি মামলা করেন। বর্তমানে মামলাটি তদন্ত করছে সিআইডি। মামলায় অজ্ঞাতদের আসামি করা হয়।

  সালতামামি

;

সোমবার সারাদেশে জুয়েলারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সোমবার সারাদেশে জুয়েলারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ

সোমবার সারাদেশে জুয়েলারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ

  • Font increase
  • Font Decrease

শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে সোমবার সারাদেশে জুয়েলারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস) এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

রোববার (২ অক্টোবর) বাজুস থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে অষ্টমী পূজার দিন সারাদেশে সব জুয়েলারি প্রতিষ্ঠান সম্পূর্ণরূপে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাজুস।

ষষ্ঠী পূজার মধ্যদিয়ে শনিবার থেকে শুরু হয়েছে হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা। সোমবার হবে অষ্টমী পূজা।

  সালতামামি

;