‘দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থেকেও জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে পেরেছি’

  আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল-২০১৯

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন শেখ হাসিনা

সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকলে অনেকে জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে পারে না। কিন্তু আমরা পেরেছি।

শনিবার (২১ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে ২১তম জাতীয় কাউন্সিলের দ্বিতীয় অধিবেশনের সূচনা বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধুর নীতি আদর্শ ও ত্যাগের মহিমা নিয়ে নেতাকর্মীদের গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ১০ বছরে দেশে অনেক কাজ করেছি। দেশ অনেক দূর এগিয়েছে। এখন সংগঠনকে শক্তিশালী করতে হবে, মানুষের আস্থা বিশ্বাস অর্জন করতে হবে। আমাদেরকে সেই লক্ষ্য নিয়ে কাজ করতে হবে। কে কি পেলাম সেই চিন্তা না করে। মানুষের মৌলিক অধিকার পূরণে সবাইকে কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, ক্ষমতায় থাকলে অনেকের জনপ্রিয়তা কমে। কিন্তু বাংলাদেশ আওয়ামী লীগই একমাত্র দল যার জনপ্রিয়তা বেড়েছে। সেটা ধরে রাখতে হবে। জাতির পিতা দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন, ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তোলা এবং বিশ্বের দরবারে মর্যাদা নিয়ে চলবে তিনি এই লক্ষ্য নিয়ে দেশকে স্বাধীন করেছেন। আমাদের একটাই লক্ষ্য বঙ্গবন্ধুর সেই স্বপ্নপূরণ করা। সেটা আমরা পূরণ করবো। ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশ গড়ে তুলবো।

লাখো শহীদের আত্মত্যাগ বৃথা যেতে দেওয়া হবে না উল্লেখ করে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, মানুষের আস্থা অর্জন করতে হবে। বিশ্বসভায় দেশের মানুষ যাতে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারে সেই লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছি। 

তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যা পরবর্তী ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে দীর্ঘদিন দেশে হত্যা ক্যু ষড়যন্ত্র চলছে। গণতন্ত্র নয়, কারফিউ গণতন্ত্র ও স্বৈরশাসন চলেছে। ২৯টা বছর জনগণের ভাগ্য নিয়ে যারা ছিনিমিনি খেলেছিলো তাদের বিরুদ্ধে আমাদের সংগ্রাম করতে হয়েছে। দীর্ঘ ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় আসে তখনই দেশের মানুষ বুঝতে পারে সরকার জনগণের সেবক, সরকার জনগণের কল্যাণ করতে পারে। কারণ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে জনগণ কিছু পায়, দেশের উন্নয়ন হয়। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে দেশ এগিয়ে যায়।

বিএনপি-জামায়াত সরকারের সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ক্ষমতায় যারা উড়ে এসে জুড়ে বসে, তারা শুধু নিজেদের ভাগ্য গড়ে। জনগণের কল্যাণ করতে পারে না।  এই যে ঋণখেলাপি কালচার, সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ, মাদক ও মেধাবী ছাত্রদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়ে দেশকে ধ্বংসের পথে নিয়ে গিয়েছিলো। যে দেশ লক্ষ্য নিয়ে চলতে না পারে, সেই দেশ যে ধ্বংস হয়ে যায়, সেটা প্রমাণ হয়েছে। একমাত্র আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পরেই দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নত হয়, সেটা আজকে প্রমাণিত।

তিনি সংগঠনকে শক্তিশালী করে গড়ে তোলার নির্দেশ দিয়ে তৃণমূলের নেতাকর্মীর উদ্দেশ্যে বলেন, সংগঠনকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে হবে। জাতির পিতার আদর্শ নিয়ে চলতে হবে। বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী ও কারাগারের রোজনামচা পড়ে আমরা মুক্তিযুদ্ধের সময় বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে পাকিস্তানের এসবি রিপোর্ট সংগ্রহ করে তা প্রকাশ করছি। এই রিপোর্টে স্বাধীনতা সংগ্রামের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাস, অনেক নেতার নাম ও ঘটনা কালের বিবর্তনে হারিয়ে গিয়েছে সেইসব তথ্য দেশের মানুষ ও তরুণ প্রজন্ম জানতে পারবে।

এর আগে গতকাল শুক্রবার (২০ ডিসেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুইদিনব্যাপী এই জাতীয় সম্মেলনের উদ্বোধন করেন।

 

আপনার মতামত লিখুন :

  আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল-২০১৯