ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপপ্রয়োগ করলে ব্যবস্থা

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ওবায়দুল কাদের

ওবায়দুল কাদের

  • Font increase
  • Font Decrease

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপপ্রয়োগ করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

রোববার (১০ মে) নিজের সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংকালে এ হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

এ সময় আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বিএনপির মহাসচিবের বক্তব্যের জবাবে বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলামের মন্তব্য দেশের রাজনৈতিক সমাজের মাঝে বিভ্রান্তি তৈরির অপকৌশল মাত্র।

তিনি বলেন, সরকারের সমালোচনার নামে রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়নের হীন কৌশল অবলম্বন করে যাচ্ছে বিএনপি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, রিলিফ কাজে অস্বচ্ছ কিছু হলে প্রকৃত সত্য যে কেউ তুলে ধরতে পারে। কিন্তু সেটিকে টুইস্ট করে রাজনৈতিক প্রপাগান্ডা হিসেবে প্রচার করাটা নিশ্চই অপরাধের সামিল। যে কোনো পদক্ষেপের সাথে যে কারো একমত বা দ্বিমত পোষণের সুযোগ রয়েছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পরিচালিত সরকার নাগরিকদের গণতান্ত্রিক অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তবে সত্যতা যাচাই না করে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়ানোর অপকৌশল কিছুতেই সমর্থনযোগ্য নয়।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, এই দুর্যোগের সময়ে প্রয়োজন সকলের ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস। সেই ঐক্যে ফাটল ধরানোর জন্য উস্কানিমূলক বক্তব্য দিচ্ছে বিএনপি।

জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে ঢালাওভাবে চাল চুরির অভিযোগ ঠিক নয় বলে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সারা দেশে বিভিন্ন পর্যায়ে জনপ্রতিনিধির সংখ্যা ৬১ হাজার ৫৬৯ জন। এদের সবার বিরুদ্ধে অভিযোগ নেই। যে কয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এসেছে সরকার তাৎক্ষণিকভাবে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়েছে। অপরাধী দলীয় লোক হলেও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তাই ঢালাওভাবে ত্রাণ চুরির অভিযোগ সঠিক নয়।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় এ পর্যন্ত ৪ কোটি মানুষের মাঝে নগদ অর্থ ও ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও দলীয়ভাবে সারাদেশে নেতাকর্মীরা প্রায় ১ কোটি পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা ও নগদ অর্থ বিতরণ করেছন।

তিনি আরো বলেন, করোনা সংকটে পরিবহন শ্রমিকদের সহায়তা দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা থাকার পরেও ঢাকা শহরে বেশ কিছু এলাকায় সংশ্লিষ্টরা দায়িত্ব পালন করেননি। তালিকা অনুযায়ী পরিবহন শ্রমিকদের সহায়তা করার আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী রোববার (১০ মে) থেকে সীমিত আকারে মার্কেট খোলার বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সবাই নিরাপদ দূরত্বে থেকে কেনাকাটা করবেন, সবাই স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলবেন। পোশাক কারখানাতেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :

  বাংলাদেশে করোনাভাইরাস