আইনজীবীর জিম্মাতেই আদালতে আসবেন মিন্নি

  রিফাত হত্যাকাণ্ড



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি

আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি

  • Font increase
  • Font Decrease

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিষয়ে রায় ঘোষণার জন্য আগামীকাল ৩০ সেপ্টেম্বর  নির্ধারণ করেছে আদালত।

এদিকে মামলার সাক্ষী থেকে আসামি বনে যাওয়া আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় তাকে ফের বরগুনা জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল বারী আসলামের জিম্মায় জামিন দেওয়া হয়েছে। মিন্নির পক্ষে করা জামিন আবেদনের শুনানি শেষে এ আদেশ দেন বিচারক।

আগামীকাল বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) আইনজীবীর জিম্মাতেই রায় শুনতে আদালতে আসবেন মিন্নি।

মিন্নির আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘মিন্নিসহ প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়েছে। ইতিমধ্যে মিন্নিকে নির্দোষ প্রমাণের জন্য আদালতে আমরা যুক্তি উপস্থাপন করেছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘যুক্তিতর্ক শেষ হয়েছে। তবে উচ্চ আদালতের আদেশে জামিনে থাকা মিন্নির জামিনের মেয়াদও শেষ হয়েছে। তাই আমার জিম্মায় পুনরায় মিন্নির জামিনের জন্য আদালতে আবেদন করলে বিচারক তাকে আমার জিম্মায় দিয়েছেন।’

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ভুবন চন্দ্র হাওলাদার বলেন, ‘উভয়পক্ষের যুক্তি খণ্ডন শেষে বিচারক সন্তুষ্ট হয়ে ৩০ সেপ্টেম্বর মামলার রায়ের জন্য তারিখ নির্ধারণ করেছেন। আমরা রাষ্ট্রপক্ষ আশাবাদী যে এই রায়ের মধ্য দিয়ে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন হবে। সেই সঙ্গে নিহত রিফাতের পরিবার ন্যায্য বিচার পাবে।’ রিফাত হত্যা মামলায় মোট ৭৬ জন সাক্ষী তাদের সাক্ষ্য দিয়েছেন বলেও জানান এ আইনজীবী।

মামলার অন্য আসামিরা হচ্ছেন- রাকিবুল হাসান ওরফে রিফাত ফরাজী (২৩), আল কাইয়ুম ওরফে রাব্বি আকন (২১), মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত (১৯), রেজোয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয় (২২), মো. হাসান (১৯), মো. মুসা (২২), আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি (১৯), রাফিউল ইসলাম রাব্বি (২০), মো. সাগর (১৯) ও কামরুল হাসান সায়মুন (২১)।

১৫ মাস আগে দেশব্যাপী আলোড়ন তোলা রিফাত হত্যাকাণ্ডের পর পুলিশ যে ২৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিয়েছিল, তাদের মধ্যে ১০ জনের বিচার চলে জজ আদালতে। বাকি ১৪ জন অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় তাদের বিচার চলছে বরগুনার শিশু আদালতে।

আলোচিত এ মামলার অভিযোগপত্রভুক্ত ১ নম্বর আসামি রাকিবুল হাসান ওরফে রিফাত ফরাজী (২৩)। আর নিহত রিফাতের স্ত্রী মিন্নি অভিযোগপত্রের ৭ নম্বর আসামি। যার নাম মামলার এজাহারে ছিল এক নম্বর সাক্ষী হিসেবে।

প্রসঙ্গ ২০১৯ সালের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে নয়ন বন্ড ও তার সহযোগীরা প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে রিফাত শরীফকে গুরুতর আহত করে। এরপর বীরদর্পে অস্ত্র উঁচিয়ে এলাকা ত্যাগ করে। গুরুতর আহত রিফাত বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওইদিনই মারা যান।

  রিফাত হত্যাকাণ্ড