১৫ মাসেও পলাতক রিফাত হত্যা মামলার আসামি মুসা

  রিফাত হত্যাকাণ্ড



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির সাজা কি হতে চলেছে তা জানা যাবে আগামী বুধবার।

বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ মো. আছাদুজ্জামান এ মামলার রায় ঘোষণা করবেন। দুই পক্ষের যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে গত ১৬ সেপ্টেম্বর তিনি রায়ের জন্য আগামীকাল ৩০ সেপ্টেম্বর দিন ঠিক করেন।

১৫ মাস আগের এই হত্যাকাণ্ডের পর পুলিশ যে ২৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিয়েছিল, তাদের মধ্যে ১০ জনের বিচার চলছে জজ আদালতে। বাকি ১৩ জন অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় বরগুনার শিশু আদালতে আলাদাভাবে তাদের বিচার চলছে। তবে প্রাপ্ত বয়স্ক আসামি মুসাকে এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। তাকে পলাতক দেখিয়ে গত বুধবার প্রাপ্তবয়স্ক আসামিদের বিচারিক কার্যক্রম শেষ হয়। এখন তাকে ছাড়াই এ রায় ঘোষণা হচ্ছে।

রায়ের অপেক্ষায় থাকা এ মামলার প্রাপ্ত বয়স্ক ১০ জন আসামির হচ্ছেন- রাকিবুল হাসান ওরফে রিফাত ফরাজী (২৩), আল কাইয়ুম ওরফে রাব্বি আকন (২১), মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত (১৯), রেজোয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয় (২২), মো. হাসান (১৯), মো. মুসা (২২), আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি (১৯), রাফিউল ইসলাম রাব্বি (২০), মো. সাগর (১৯) ও কামরুল হাসান সায়মুন (২১)।

মুসা বন্ড মামলার এজাহারের প্রধান আসামি ‘নয়ন বন্ডের’ সহযোগী এবং বন্ড গ্রুপে ‘মুসা ভাই’ হিসেবে বরগুনায় পরিচিত ছিলেন। পুলিশের চার্জশিটে ‘মুসা ভাই’কে ৫ নম্বর আসামি এবং সরাসরি হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ আনা হয়েছে।
রিফাত শরীফ হত্যার পর থেকে সপরিবারে নিরুদ্দেশ হয় মুসার পরিবার।

এদিকে মামলার রায় ঘোষণা উপলক্ষে মঙ্গলবার থেকেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আদালত পাড়ায় নিরাপত্তা জোরদার করেছে। এ বিষয়ে বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন জানান, আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার রায়কে কেন্দ্র করে শহরে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। রায়কে কেন্দ্র করে যেনো কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সতর্ক আছে।

  রিফাত হত্যাকাণ্ড