সংঘাতপূর্ণ ইউপি নির্বাচন

  সালতামামি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশে দশমবারের মতো ইউনিয়ন (ইউপি) পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। দলীয় প্রতীকের এ নির্বাচন বর্জন করেছে বিএনপি। ফাঁকা মাঠে আওয়ামী লীগ। তবে ফাঁকা মাঠে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচনের পরিবর্তে সহিংসতা-সংঘাতে রূপ নিয়েছে। দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে আওয়ামী লীগ নেতারা। এতে নির্বাচন সংঘাতে রূপ নিয়েছে।

তবে স্বতন্ত্র প্রার্থীর আড়ালে বিএনপি-জামাতের মতাদর্শী ও নেতাকর্মী এ নির্বাচনে অংশ নিতে দেখা গেছে। চার ধাপে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও বিদ্রোহী প্রার্থীর কাছে ভরাডুবি হয়েছে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর। ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বছর জুড়ে ছিল সহিংসতা-সংঘাত। এখন পর্যন্ত সহিংসতায় ৭০ জনের বেশি নিহত হয়েছেন।

চতুর্থ ধাপে ইউপি নির্বাচন

গত ২৬ ডিসেম্বর চতুর্থ ধাপে ৮৩৮টি ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আগের তিন ধাপের মত এ ধাপেও বিভিন্ন জায়গা সংঘর্ষ, গুলি বিনিময়, ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, প্রকাশ্যে ব্যালট পেপারে সিল, ভোটকেন্দ্র দখলসহ অনিয়মের খবর পাওয়া গেছে।

২৭ ডিসেম্বর রাত ৮টায় চতুর্থ ধাপের ৭৯৬টি ইউপি নির্বাচনের বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। কিছু ইউপির অনানুষ্ঠানিক ফলাফল স্থগিত হওয়ায় সেগুলোর ফল ঘোষণা করা হয়নি। ইসির পরিসংখ্যান অনুযায়ী নির্বাচনে ৩৯০টি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হয়েছেন। ৩৯৬টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। তাদের মধ্যে অন্তত ৪৮ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচনে জাতীয় পার্টির ৬ জন প্রার্থী এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ২ জন, জাতীয় পার্টি ও জাকের পার্টির ১ জন করে প্রার্থী জয়ী হয়েছেন।

তৃতীয় ধাপে ইউপি নির্বাচন

২৮ নভেম্বর তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ৯৯২টি ইউপি নির্বাচনের ফলাফলে দেখা যায়, ৫২৫টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৯৯ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়। ৪৪৬ জন স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে একজন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

তৃতীয় ধাপ ইউপি নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের একজন করে এবং জাতীয় পার্টির ১৭ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী জয়ী হয়েছেন।

১ হাজার ৮টি ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও মামলার কারণে ৭টি ইউপি নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছিল এবং বিভিন্ন কারণে আরও ৯টি ইউপি নির্বাচনের ফলাফল স্থগিত করা হয়।

দ্বিতীয় ধাপে ইউপি নির্বাচন

নভেম্বর ১১ তারিখে অনুষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। ৮৩৪ ইউপি নির্বাচনের চূড়ান্ত ফলাফল অনুযায়ী, আওয়ামী লীগ থেকে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন ৪৮৬ জন প্রার্থী। স্বতন্ত্র থেকে থেকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ৩৩০ জন। প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি থেকে ১০ জন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ থেকে চারজন এবং জাতীয় পার্টি (জেপি), বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি), খেলাফত মজিলিশ ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের একজন করে প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

প্রথম ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন

জুনের ২১ তারিখ প্রথম ধাপে ২০৪টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে ১৪৮ জন আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী জয়ী হয়। এদের মধ্যে ১২০ জন সরাসরি ভোটে এবং বাকী ২৮জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়।

এছাড়াও ৪৯টি ইউপিতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচিত হয়। এছাড়া বিরোধী রাজনৈতিক দল থেকে ৭ জন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়।

স্বতন্ত্রদের অধিকাংশই আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পেয়ে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে জয়লাভ করেছেন।

চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সম্পর্কে গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সহিংসতার জন্য সরকার দায়ী, নির্বাচন কমিশন দায়ী। তারা তাদের দায়িত্ব তারা পালন করে নাই। ৬৪ জন লোক মারা গেছে নির্বাচন কমিশন একটা মামলাও করে নাই।

দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হওয়ায় সহিংসতা বেশি হচ্ছে বলে মনে করেন তিনি। তিনি বলেন, সহিংসতা কারণ হচ্ছে নৌকা পাওয়া না-পাওয়ার নিয়ে। যদি দলীয় পরিচয়ে নির্বাচন না হত তাহলে এই মৃত্যুগুলো হত না।

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন আর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন দলীয় প্রতীকে না করার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, এটা হলে অনেকে প্রার্থী হতে পারত। জনগণ ভালো মানুষকে নির্বাচিত করতে পারত।

উল্লেখ্য, বর্তমানে সারাদেশে ৪ হাজার ৫৭১টি ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছে। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে ইতিমধ্যে নয় বার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে ১৯৭৩ সালে প্রথম ইউপি নির্বাচন এবং সর্বশেষ ২০১৬ সালে নবম ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও ১৯৭৭, ১৯৮৩, ১৯৮৮, ১৯৯২, ১৯৯৭, ২০০৩, ২০১১ ইউপি নির্বাচন হয়েছে। চলতি ২০২১ সালে জুন জুলাই মাস থেকে শুরু হয়েছে দশম ইউপি নির্বাচন।

  সালতামামি

যুবকের ওপর হামলা: কুষ্টিয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান কারাগারে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুষ্টিয়া
যুবকের ওপর হামলা: কুষ্টিয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান কারাগারে

যুবকের ওপর হামলা: কুষ্টিয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান কারাগারে

  • Font increase
  • Font Decrease

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় পূর্ব শত্রুতার জেরে রিপন(২৮) নামে প্রতিপক্ষের এক যুবকের ওপর হামলা ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে রক্তাক্ত জখমের অভিযোগে করা মামলায় ভেড়ামারা উপজেলা যুবজোটের সভাপতি উপজেলার ৪নং চাঁদগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হাফিজ তপনকে কারাগারে প্রেরণ করেছে আদালত।

রোববার দুপুরে জেষ্ঠ্য বিচারিক আদালতের হাকিম জুয়েল রানার আদালতে জামিনাবেদন করেন এই মামলার এজাহার ভুক্ত ১নং আসামী হিসেবে আত্মসমর্পণ করেন ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হাফিজ তপন। আদালত শুনানী শেষে জামিনাবেদন না মঞ্জুর করেন।

তবে এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হাফিজ তপনের স্ত্রী রুমানা হাফিজ শিখা (৪৫) অভিযোগ, “রিপনের ওপর হামলার ঘটনার সময় ঘটনাস্থল থেকে প্রায় সাড়ে ৫ কিমি দুরত্বে চন্ডিপুরে আমাদের বাড়িতে পারিবারিক কাজে ব্যস্ত ছিলেন তপন; অথচ এই মামলার এজাহারকারী উল্লেখ করেছেন ঘটনার সময় হুকুমদাতা হিসেবে তিনি ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন। এটা সম্পূর্ণরূপে মিথ্যা বানোয়াট ও মনগড়া অভিযোগ এনে হীন উদ্দেশ্যে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের লোকজন আমার পরিবারকে বিপন্নের মুখে ঠেলে দিচ্ছেন। আমিও চাই রিপনের উপর হামলার ঘটনাটি সঠিক তদন্তে প্রকৃত দোষীরা শাস্তি পাক।”

আসামি পক্ষের আইনজীবী তানজিলুর রহামন এনাম জানান,‘দেখুন এটা যে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার মামলা বলেই এজাহারে উল্লেখিত ঘটনার সময় ভিকটিমের সাথে থাকা প্রত্যক্ষদর্শী স্ত্রী ইয়াসমিন খাতুন বাদি না হয়ে তার চাচাত ভাই ওয়াসিম বাদি হয়ে মামলাটি করেছেন। সে বিষয়টি আমরা আদালতকে অবহিত করে জামিনাবেদন করেছিলাম, ‘আদালত নামঞ্জুর করেছেন।’

উল্লেখ্য, এমাসের ১৬ মে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ভেড়ামারা রেল স্টেশন সংলগ্ন ঢাকা কোচ কাউন্টার ও সিএনজি স্ট্যান্ডে উপজেলার চাঁদ গ্রাম মসজিদ মোড়ের বাসিন্দা নুরুজ্জামানের ছেলে মো: রিপন বাড়ি ফেরার পথে অটোরিকশার জন্য স্ত্রীসহ অপেক্ষারত অবস্থায় একদল দূর্বৃত্ত রিপনের উপর দেশীয় ধারলো অস্ত্রসহ হামলা চালায়। এ ঘটনায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে রক্তাক্ত জখম ও গুরুতর আহত রিপনকে উদ্ধার করে স্থানীয় ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আশঙ্কাজনক রিপনের প্রয়োজনীয় উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেন। পরিবারের লোকজন দ্রুত আহত রিপনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান এবং সে এখনও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ঘটনায় হামলার শিকার আহত রিপনের চাচাতো ভাই মো: ওয়াসিম বাদি হয়ে চেয়ারম্যান আব্দুল হাফিজ তপনসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

এ মামলায় এজাহারভুক্ত বাকীরা হলেন, রেজাউল ইসলাম, ফাহাদ, সায়েম, আব্দুল হামিদ কটা, জনি, ড্যানী, রনি, আজিম ওরফে আকাশ, ইভন আলী, সুবেল, এবং সজিব হোসেন। এদের মধ্যে ৬জনকে ইতোমধ্যে গ্রেফতার করে আদালতে সৌপর্দ করেছে পুলিশ। আদালত গ্রেফতাকৃতদের কারাগারে প্রেরণ করেছেন।

  সালতামামি

;

তামাকদ্রব্যের ক্ষতিকর দিকগুলো তুলে ধরতে হবে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

তামাকদ্রব্য ব্যবহারের ক্ষতিকর দিকগুলো নতুন প্রজন্মের সামনে বেশি বেশি করে তুলে ধরতে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

রোববার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ডেভেলপমেন্ট অরগানাইজেশন অব দি রুরাল পুয়র-ডরপ আয়োজিত ‘তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সময়োপযোগীকরণে নীতি- নির্ধারকদের কাছে প্রত্যাশা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ আহ্বান জানান।

মন্ত্রী বলেন, তামাকদ্রব্য ব্যবহারের ক্ষতিকর দিক বিবেচনা করে তামাকলব্য নিয়ন্ত্রণে বর্তমান সরকার ২০১৩ সালে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের বেশ কিছু ধারা সংশোধন করে। এছাড়া ২০১৫ তামাক নিয়ন্ত্রণ বিধিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে।

সেমিনারে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সময়োপযোগীকরণে সকল প্রকার পাবলিক প্লেস এবং গণপরিবহনে ধুমপান সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করাসহ কিছু ধারা সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়।

এ সময় মন্ত্রী এ আইন সময়োপযোগী করতে আরও কিছু ধারা সংশোধনের উদ্যোগ সরকার ইতোমধ্যে নিয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

সেমিনারে ডরপ-এর চেয়ারম্যান মো. আজহার আলী তালুকদারের সভাপতিত্বে এ সময় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মকবুল হোসেন, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ও জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেল -এর সমন্বয়কারী হোসেন আলী খোন্দকার, সিটিএফকে, বাংলাদেশ এর লিড পলিসি এ্যাডভাইজার ও বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশন (বিসিআইসি) এর সাবেক চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমানসহ জনস্বাস্থ্য সুরক্ষা বিষয়ক বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃ-কর্মীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

  সালতামামি

;

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সোহেল সম্পাদক কামরুল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
সোহেল মিয়া ও কামরুজ্জামান কামরুল

সোহেল মিয়া ও কামরুজ্জামান কামরুল

  • Font increase
  • Font Decrease

 

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন মোহাম্মাদ সোহেল মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন কামরুজ্জামান কামরুল। সর্বসম্মতিক্রমে ২০২২-২৪ সালের জন্য ত্রিবার্ষিক কমিটি ঘোষণা করেন প্রেসক্লাবের আহবায়ক দেবাশীষ বিশ্বাস।
 
রোববার (২২ মে) সকালে বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাব কার্যালয়ে এক জরুরী সভায় বিগত দিনের কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় তা বিলুপ্তি ঘোষণা করেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. জাকির হোসেন। এরপর দেবাশীষ বিশ্বাসকে আহবায়ক করে তিন কমিটি বিশিষ্ট একটি নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়। জরুরী সভার শুরুতেই ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি প্রয়াত রঘুনন্দন সিকদারের আত্মার শান্তি কামনা করে এক মিনিট নিরবতা পালন করেন সকল গণমাধ্যমকর্মীরা।
 
নির্বাচন পরিচালনা কমিটি দুপুরের পর সবার সর্বসম্মতিক্রমে মোহাম্মাদ সোহেল মিয়াকে (বার্তা২৪.কম ও যায়যায়দিন) সভাপতি ও মো: কামরুজ্জামান কামরুলকে (সময়ের কাগজ) পুনরায় সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করে ১০ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করেন। 
 
কমিটির অন্যরা হলেন- সহসভাপতি দেবাশীষ বিশ্বাস (বাংলাদেশ প্রতিদিন ও ডিবিসি নিউজ), যুগ্ন-সম্পাদক তনু সিকদার সবুজ (দৈনিক ইত্তেফাক ও মাতৃকণ্ঠ), সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম মোর্তবা রিজু (দৈনিক গণসংহতি), কোষাধাক্ষ্য গোলাম মোস্তফা (অনুসন্ধান), সদস্য- মো: জাকির হোসেন (দৈনিক ফরিদপুর কণ্ঠ), সমীর কান্তি বিশ্বাস (সকালের সময়), অনিক সিকদার (দৈনিক আজকের পত্রিকা) ও মো: আশরাফুজ্জামান (দৈনিক কুষ্টিয়া)

  সালতামামি

;

খোঁজ মিলছে না রাজেন্দ্র কলেজের ২৫ শিক্ষার্থীর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ফরিদপুর
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ফরিদপুরের সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের ২৫ শিক্ষার্থীর কোন খোঁজ মিলছে না। রোববার (২২ মে) দুপুরে এ তথ্য জানান কলেজটির অধ্যক্ষ অধ্যাপক অসীম কুমার সাহা।

তিনি বলেন, গত দুই বছর যাবত তারা হারিয়ে গেছে। তারা কলেজে আসছে না। কোন একাডেমিক সেশনে থাকছে না। পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে না। তাদের মোবাইলে ফোন দিয়েও তাদের পাচ্ছি না।

‘করোনা পরবর্তী বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষা ক্ষেত্রে সংকট ও চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় গৃহীত পদক্ষেপ’ শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যকালে এ তথ্য জানান কলেজ অধ্যক্ষ অসীম কুমার সাহা।

সেমিনারে প্রধান আলোচক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ও গবেষণা বিভাগের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক তাহমিনা আখতার বলেন, বর্তমানে পুরুষেরাও নারীর হাতে নিগৃহীত হচ্ছেন। রাজধানী ঢাকাতে ৬০ ভাগ পুরুষ নারীর নির্যাতনের শিকার। নারীবাদি মানে পুরুষকে অস্বীকার করা না উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের বাবা, ভাই, স্বামী সকলেই পুরুষ। তাদেরও দরকার রয়েছে। বরং নারী শিক্ষার প্রসার দরকার এই নিগ্রহ ও নির্যাতনের প্রতিকারের স্বার্থে।

রাজেন্দ্র কলেজের সমাজকর্ম বিভাগের উদ্যোগে শহরের বায়তুলআমানস্থ ক্যাম্পাসে সমাজকর্ম ভবনের ৩য় তলায় এর আয়োজন করা হয়। বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক এ.বিএ.এম সাইফুর রহমানের সভাপতিত্বে সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে আলোচনায় অংশ নেন উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক এস.এম. আব্দুস সালাম ও শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক অধ্যাপক মো. আশরাফুল আজম। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সহকারী অধ্যাপক মো. সাইফুর রহমান।

সেমিনারে আলোচকগণ বলেন, দু’একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাদে বেশিরভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান করোনাকালে অনলাইন শিক্ষাব্যবস্থা কার্যকর করতে পারেনি। এরও নানা কারণ রয়েছে। অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনলাইন কাঠামো ছিলো না। শিক্ষার্থীদেরও ডিভাইস বা ডেটা ক্রয়ের সামর্থ্য ছিলো না। গ্রামে এ সময়ে সমস্যা হয়েছে বেশি।

তারা বলেন, করোনার কারণে আমাদের পড়াশুনার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। জ্ঞানান্বেষণে আমরা পিছিয়ে পড়েছি। শিক্ষার্থীদের মাঝে হতাশা, অবসাদ, ক্রোধ, একাকিত্ব সহ নানা সমস্যা তৈরি হয়েছে। এসময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ না থাকায় বিশেষ করে শিশুরা মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বেশি। তাদের মাঝে মানসিক বৈকল্য দেখা দিয়েছে। শিক্ষার্জন থেকে ঝড়ে যাওয়ায় বেড়েছে শিশুশ্রম। এই সাইকোলজিক্যাল ট্রমা থেকে পরিত্রাণে এখনই কার্যকর উপায় বের করতে না পারলে সামনে এর বিরুপ প্রভাব সমাজে বহুদিন বিদ্যমান থাকবে।

করোনাসৃষ্ট পরিস্থিতির বড় শিক্ষা হলো আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজাতে হবে, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় ব্যবস্থাকে উপর থেকে নিচে পর্যন্ত বদলাতে হবে উল্লেখ করে তারা বলেন, শিক্ষার্থীদের মানসিক বিকাশে স্বশরীরে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা অপরিহার্য। এছাড়া শিক্ষাঙ্গনে সুস্থ রাজনীতির চর্চা নিশ্চিত এবং শিক্ষার এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে দুই তিন বছরের কর্মপরিকল্পনা হাতে নিয়ে কাজ শুরু করা দরকার।

  সালতামামি

;