নিরাপদ বলে বিন্দু পরিমাণ জায়গাও ইউক্রেনে নেই

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত



নাছরিন আক্তার উর্মি, নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়ার সেনাবহর ও সাংবাদিক মার্তা শোকালো (ইনসেটে )। ছবি: সংগৃহীত

ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়ার সেনাবহর ও সাংবাদিক মার্তা শোকালো (ইনসেটে )। ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

২৩ ফেব্রুয়ারি, বুধবার। উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় কাটছিল রাতটা। শেষরাতে তখনও জেগেছিলাম। হঠাৎ মোবাইলে স্ক্রিনে ভেসে উঠলো সহকর্মীর মেসেজ। তিনি লিখেছেন—‘ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনে আক্রমণের ঘোষণা দিয়েছেন’। তার মেসেজ পড়ে ঘোর কাটিয়ে ওঠার আগেই শুরু বিস্ফোরণ। বাড়ির খুব কাছে বিস্ফোরণের বিকট শব্দ শুনতে পাচ্ছিলাম।

কিয়েভ ও আশপাশের বিভিন্ন শহরেও বিস্ফোরণের খবর আসছিল আমাদের (সংবাদকর্মী) হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে। সবাই জানাচ্ছিলেন—তাদের বাড়ির খুব কাছাকাছি এলাকায় বিস্ফোরণ ঘটছে।

barta24
আবাসিক ভবনেও হামলা চালিয়েছে রুশ সেনারা। ছবি: বিবিসি

কারও বুঝতে বাকি রইলো না—সত্যিই কিয়েভ আক্রমণের মুখে পড়েছে। শুধু ইউক্রেনের পূর্ব দিকের সামনের অঞ্চলে নয়, তিনদিক থেকেই হামলা চালানো হচ্ছিল। রাজধানী কিয়েভের বিভিন্ন জায়গায়ও থেমে থেমে বিস্ফোরণের শব্দ। ইউক্রেনীয়দের জন্য এটি খুব বড় ধরনের ধাক্কা।

barta24
হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত একটি বাড়ি। ছবি: বিবিসি

তখন চোখে যেন স্পষ্ট ভাসছিল—ইউক্রেনে আর কোনো নিরাপদ জায়গা নেই। রুশ সেনাদের আক্রমণে ইউক্রেন এখন মৃত্যুপুরী। তবে সাধারণ মানুষের জন্য আরও বড় আতঙ্কের কারণ ছিল—শহরে বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকা এবং ইন্টারনেট পরিষেবা পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া। কিয়েভের বাসিন্দারা তখন একে-অন্যের থেকে কার্যত বিচ্ছিন্ন।

barta24
বোমা হামলায় জ্বলছে কিয়েভ। ছবি: বিবিসি

তবে আতঙ্কের কেন্দ্রে ছিল ডেনিপার নদীর ওপরের সেতুগুলো। সেখানে প্রথমেই বোমা ফেলতে পারে রাশিয়ার সেনারা। এটি করলে শহরের পূর্বের অংশ থেকে পশ্চিমের অংশ পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে।

টানা ৩০ মিনিট ধরে বিস্ফোরণ চলছেই। ঘরের সুরক্ষিত জায়গায় অবস্থান করছিলাম আমরা। কী ভেবে আমার ১০ বছরের ছেলেকে কাপড় পরিয়ে তৈরি করছিলাম। ততক্ষণে ভোর হয়ে গেছে। নাস্তা হিসেবে আমরা কিছু একটু খেয়ে নিচ্ছিলাম।

barta24
বিবিসির ইউক্রেনের সম্পাদক মার্তা শোকালো। ছবি: বিবিসি

জানালা থেকে যতটা সম্ভব দূরে বসেছিলাম। ঘরে কোণে একটি মোমবাতি জ্বলছিল। তবে আমার ছেলে খুবই ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছিল। একপর্যায়ে ছেলেটা বমি করতে শুরু করল। 

বাড়ির খুব কাছে সুপারমার্কেট। সেখানে হইচই শোনা যাচ্ছিল। উঁকি দিতেই দেখলাম মার্কেটের সামনে বিশাল সারি। এটিএম বুথে ঢুকতে মানুষের হুড়োহুড়ি। বেশিরভাগ পেট্রল স্টেশন খালি হয়ে গেছে।

barta24
সুপারমার্কেট ও বাস স্টপেজে উপচেপড়া ভিড়। ছবি: বিবিসি

অনেকে আতঙ্কে আগেই পেট্রল স্টেশন বন্ধ করেছেন। কারণ সেখানে রাশিয়ার সেনাদের বিমান হামলা চালানোর শঙ্কা বেশি। দৃশ্য দেখে স্পষ্ট—গোটা দেশ ভয়াবহ আক্রমণের মুখে।

শহরের সব রাস্তায় যানজট। অভ্যন্তরীণ এবং শহর থেকে বের হওয়ার মূল রাস্তায় রেড সিগন্যাল। গাড়ির দীর্ঘ সারি, চলছে ধীরগতিতে, যা কিয়েভে একেবারে অচেনা। ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক। কিন্তু ট্রেনে ওঠা দায়!

barta24
কিয়েভের রাস্তায় নজিরবিহীন যানজট। ছবি: বিবিসি

মানুষের ভিড়ে সিট তো দূরের কথা, দাঁড়িয়ে যাওয়ার উপায়ও নেই। ওদিকে আকাশপথে নিষেধাজ্ঞা। প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির জারি করা সামরিক আইনের কারণে সব বিমান বন্ধ।

রাশিয়ার আক্রমণের আগে বলা হচ্ছিল—ইউক্রেনের সামরিক স্থাপনাগুলো রুশ সেনাদের মূল লক্ষ্যবস্তু হতে পারে। তবে রুশ সেনারা শুধু সামরিক স্থাপনাকে লক্ষ্যবস্তু করেনি। ইউক্রেনের বিভিন্ন শহরের অসংখ্য আবাসিক ভবনে হামলা করা হয়েছে। হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত ভবনের অসংখ্য ছবি আসছিল আমাদের কাছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও তা ছড়িয়ে পড়েছে।

barta24
এটিএম বুথে মানুষের উপচেপড়া ভিড়। বিবিসি

রাশিয়ান বাহিনীর বোমা হামলায় ইউক্রেনের সব অঞ্চলই ক্ষতিগ্রস্ত। এমনকি লভিভ শহর, যেটি পোল্যান্ডের সীমান্তঘেঁষা, সেখানেও হামলার আঁচ পড়েছে। সকালে সেখানে সাইরেন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল এবং একজন সংবাদকর্মীকে বোমা হামলা থেকে বাঁচতে নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান করতে হয়েছিল বলে খবর পেলাম।

barta24
ভীতসন্ত্রস্ত শিশুকে অভয় দিচ্ছেন এক বাবা। ছবি: বিবিসি

আরেক সহকর্মী রাশিয়ার আক্রমণ থেকে নিজের এবং পরিবারের জীবন বাঁচাতে কিয়েভ থেকে বেরিয়ে গেছেন আগেই। তার ধারণা ছিল—গ্রামাঞ্চল শহরের থেকে নিরাপদ হতে পারে। তবে ঘটেছে উল্টোটা। তাদের ভাগ্যে কি ঘটছে, তা তখনও জানা ছিল না।

barta24
রুশ সেনাদের ছোড়া বোমায় রক্তাক্ত এক নারী। ছবি: বিবিসি

কিন্তু উত্তর, পূর্ব এবং দক্ষিণ থেকে একটি দেশে আক্রমণ করা হলে, সত্যিকার অর্থে আর কোনো নিরাপদ জায়গা থাকে না। ইউক্রেনেও এখন নিরাপদ বলে বিন্দু পরিমাণ জায়গাও নেই। রুশ সেনাদের হামলায় গোটা ইউক্রেনই এখন নরকপুরী।

লেখক: মার্তা শোকালো, বিবিসির ইউক্রেনের সম্পাদক।

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত

অবৈধভাবে মালয়েশিয়ায় প্রবেশের চেষ্টা, ৩৭ বাংলাদেশি আটক



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অবৈধভাবে মালয়েশিয়ায় প্রবেশের চেষ্টার অভিযোগে ৩৭ বাংলাদেশিকে আটক করেছে দেশটির মেরিটাইম এনফোর্সমেন্ট এজেন্সি (এমএমইএ)।

সংস্থাটির বরাত দিয়ে শুক্রবার (০১ জুলাই) মালয়েশিয়ার সংবাদমাধ্যম দ্য স্টারের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সেলাঙ্গর প্রদেশের কুয়ালা সেপাং অঞ্চলের জলসীমা দিয়ে নৌকায় অবৈধভাবে প্রবেশের সময় তাদের আটক করা হয়।

নৌকায় করে মানবপাচারের অভিযোগে এ সময় ৪ ইন্দোনেশিয়ান নাগরিককেও আটক করা হয়।

মেলাকা এবং নেগ্রি সেম্বিলান এমএমইএ-র পরিচালক ক্যাপ্টেন ইস্কান্দার ইশাক বলেছেন, গত ৩০ জুন রাত ১১টার দিকে আমাদের রাডারে মালয়েশিয়ার জলসীমায় একটি নৌকার সন্দেহজনক গতিবিধি ধরা পড়ে। তখন আমরা সেখানে অভিযান পরিচালনা করি।

আমাদের একটি টহল নৌকা কুয়ালা সেপাং থেকে প্রায় ১ দশমিক ২ নটিক্যাল মাইল দূরে একটি অনিবন্ধিত নৌকা খুঁজে পায়, বলেন তিনি।

ক্যাপ্টেন ইস্কান্দার বলেন, নৌকায় ৪ ইন্দোনেশিয়ান নাগরিক ছিলেন, তাদের পরিচয়পত্র দিতে বলা হলে তারাও তা দিতে ব্যর্থ হন।

তিনি বলেন, বোর্ডে থাকা ৪১ জনকে এরপর এমএমইএ জেটিতে নিয়ে এসে আটক করা হয়।

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় মানবপাচার আইনে একটি মামলা হয়েছে এবং তার তদন্ত চলছে।

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত

;

ইসরায়েলের অন্তর্বর্তী নতুন প্রধানমন্ত্রী হলেন ইয়ার লাপিদ



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ইসরায়েলের অন্তর্বর্তী নতুন প্রধানমন্ত্রী হলেন ইয়ার লাপিদ

ইসরায়েলের অন্তর্বর্তী নতুন প্রধানমন্ত্রী হলেন ইয়ার লাপিদ

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসরায়েলের অন্তর্বর্তী নতুন প্রধানমন্ত্রী হলেন ইয়ার লাপিদ। ক্ষমতাসীন জোট সরকারের ওপর বাড়তে থাকা চাপ নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে ক্ষমতা থেকে সরে গেলেন প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট। তার এই দায়িত্ব নিলেন জোট অংশীদার পররাষ্ট্রমন্ত্রী লাপিদ।

ইসরায়েলী আইনপ্রণেতারা আগামী সপ্তাহে পার্লামেন্ট বিলুপ্ত করতে ভোট দেন। এতে পার্লামেন্ট বিলুপ্তের পক্ষে ৯২-০ ভোট দেওয়ার পড়ে। ফলে দেশটিতে তিন বছরের মধ্যে পঞ্চম নির্বাচনের পথ তৈরি হলো।

এক বছর আগে পার্লামেন্টের বিরোধীদলগুলোর এ জোট সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজামিন নেতানিয়াহুর রেকর্ড ১২ বছরের শাসনের অবসান ঘটিয়েছিল। ক্ষমতাসীন জোটের সবচেয়ে বড় দলের নেতা সাবেক সাংবাদিক লাপিদ নতুন নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বপালন করবেন।

লাপিদের পাশে দাঁড়িয়ে টেলিভিশনে দেয়া এক বিবৃতিতে বেনেট বলেন, এমন এক মুহূর্তে আমরা আপনাদের সামনে দাঁড়িয়েছি যা সহজ নয়; কিন্তু বোঝাপড়ার মধ্যদিয়ে ইসরায়েলের জন্য সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা।

এর আগে বেনেট  পার্লামেন্ট ভেঙে দেওয়ার আভাষ দিয়েছিলেন।ইসরাইলের আট দলের ক্ষমতাসীন জোটের অভ্যন্তরে ফিলিস্তিন ইস্যু থেকে শুরু করে নানা ইস্যুতে বিরোধ রয়েছে। পক্ষত্যাগের কারণে জোটের সামান্য সংখ্যাগরিষ্ঠতার ওপর চাপ ক্রমেই বাড়ছে। এ কারণেই পার্লামেন্ট ভেঙে দেওয়া সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল।  মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ইসরাইল সফরের কয়েক দিন আগেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হলো। জানা গেছে, জুলাই মাসে তিনি ইসরাইল সফর করবেন।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ায় ইয়ার লাপিদকে অভিনন্দন জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। একই সঙ্গে তিনি বন্ধুত্ব বজায় রাখার জন্য আগের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেটকে ধন্যবাদ জানান। তিনি এক টুইটার পোস্টে বলেন, আমি উন্মুখ হয়ে আছি জুলাইয়ে আপনাদের সাথে দেখা করার জন্য।  

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত

;

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিলেন মার্কোস জুনিয়র



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ফিলিপাইনের নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছেন ফার্দিনান্দ মার্কোস জুনিয়র। তিনি দেশটির বিদায়ী নেতা রদ্রিগো দুতার্তের স্থলাভিষিক্ত হলেন।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) ম্যানিলার জাতীয় জাদুঘরে এক আড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানে দেশি-বিদেশি শতাধিক প্রতিনিধি এবং সাংবাদিকের উপস্থিতিতে শপথ নেন।

বিবিসির খবরে বলা হয়, ফার্দিনান্দ মার্কোস জুনিয়র দেশটির প্রয়াত স্বৈরশাসক ফার্দিনান্দ ইমানুয়েল এড্রলিন মার্কোসের ছেলে। ফার্দিনান্দ জুনিয়র দেশটিতে বংবং নামেই অধিক পরিচিত।

তার অভিষেক মার্কোস রাজনৈতিক রাজবংশের দীর্ঘদিন পর রাজনীতিতে ফেরার উল্লেখযোগ্য ঘটনা হিসেবে দেখা হচ্ছে। ৩৬ বছর আগে গণরোষের মুখে শাসন ক্ষমতা থেকে তার পরিবারের পতন হয়েছিল।

বিদায়ী প্রেসিডেন্টের মেয়ে সারা দুতের্তে ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার প্রথম বক্তৃতায়, তিনি ফিলিপাইনের গণতন্ত্রের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় নির্বাচনী আদেশ হিসাবে বর্ণনা করার জন্য জনতাকে ধন্যবাদ জানান।

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত

;

প্যারিস হামলা: সালেহ আবদেসলামকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

২০১৫ সালের নভেম্বরে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে হামলা চালানো গ্রুপের একমাত্র জীবিত সন্দেহভাজন সালেহ আবদেসলামকে সন্ত্রাসবাদ ও হত্যার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।

বন্দুক ও বোমা হামলায় ১৩০ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় সালাহ আবদেসলামকে আমৃত্যু যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ মামলায় আরও ১৯ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে, যাদের মধ্যে ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, আধুনিক ফ্রান্সের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় এ বিচারকাজ শুরু হয়েছিল গত বছরের সেপ্টেম্বরে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ফ্রান্সে সবচেয়ে ন্যক্কারজনক হামলা মামলার শুনানিতে অংশ নিতে ৯ মাসের বেশি সময় প্যারিসের বিশেষ আদালতে হাজির হন ভুক্তভোগী, সাংবাদিক ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যরা।

২০১৫ সালের ১৩ নভেম্বর কয়েকটি বার, রেস্তোরাঁ, জাতীয় ফুটবল স্টেডিয়াম ও বাটাক্লানের সংগীতানুষ্ঠানে হামলায় নিহতের পাশাপাশি শতাধিক আহত হয়েছিল।

হামলা মামলার বিচারের শুরুতে আবদেসলাম নিজেকে তথাকথিত ইসলামিক স্টেটের (আইএস) ‘সেনা’ হিসেবে দাবি করেন। পরবর্তী সময়ে তিনি হতাহতদের কাছে ক্ষমা চেয়ে বলেন, তিনি খুনি নন। তাকে খুনের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করা হবে অন্যায়।

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত

;