এক শতাব্দী পর বৈদেশিক ঋণ পরিশোধে খেলাপি রাশিয়া

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত


আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রাশিয়ার ওপর পশ্চিমা বিশ্বের নিষেধাজ্ঞার প্রভাব ইতিমধ্যেই পড়তে শুরু করেছে দেশটির অর্থনীতির ওপর। বলশেভিক বিপ্লবের পর এই প্রথমবারের মতো সময়মত বৈদেশিক ঋণ পরিশোধ করতে পারেনি রাশিয়া। রোববার (২৬ জুন) দেশটির ঋণ পরিশোধ করার শেষ সময় ছিল।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক (নিউইয়র্ক) ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে বলা হয়, ঋণ পরিশোধের রোববারের সময়সীমা মিস করায় রাশিয়া এক শতাব্দীরও বেশি সময় পর প্রথমবারের মতো তার বৈদেশিক ঋণে খেলাপি হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২৬ জুন ১০০ মিলিয়ন ডলারের সুদ পরিশোধ করার কথা ছিল রাশিয়ার। তবে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার কারণে ডলারের পরিবর্তে রুবলে শোধ করতে চেয়েছিল ক্রেমলিন, কিন্তু ঋণদাতাদের রুবলে অর্থ প্রদান করতে না পারায় ঋণ খেলাপের দায়ে পড়তে রাশিয়াকে। যা দেশটির মর্যাদার জন্য একটি বড় আঘাত।

রাশিয়ার অর্থমন্ত্রী আন্তন সিলুয়ানভ এ পরিস্থিতিকে একটি প্রহসন হিসাবে চিহ্নিত করেছেন।

শেষবার রাশিয়া ঋণ খেলাপি হয়েছিল ১৯১৮ সালে বলশেভিক বিপ্লবের সময়। যখন নতুন কমিউনিস্ট নেতা ভ্লাদিমির লেনিন রাশিয়ান সাম্রাজ্যের ঋণ পরিশোধ করতে অস্বীকার করেছিলেন।

ইউক্রেন আক্রমণের পর যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন কর্তৃক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার পর থেকে রাশিয়া ডিফল্টের একটি অনিবার্য পথে বলে মনে হচ্ছে।

রাশিয়ান সরকার বলেছে, তারা তার সমস্ত অর্থপ্রদান সময়মতো করতে চায়। তবে ইউক্রেন আক্রমণের পরে রাশিয়াকে একের পর এক নিষেধাজ্ঞার জালে জড়িয়ে ফেলে যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপের বেশ কয়েকটি মিত্র দেশ। এর ফলে বিদেশে মজুত রাশিয়ান রিজার্ভের প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ অকেজো হয়ে পড়ে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, রাশিয়া এ ঋণ পরিশোধ করতে না পারলে তা বিশ্ববাজারে বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে। কেননা, পৃথিবীর অন্যতম প্রধান উৎপাদনশীল দেশ হওয়ার কারণে এর ওপর আরোপিত আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা পৃথিবীব্যাপী দ্রব্যমূল্য এবং মুদ্রাস্ফীতির হার বাড়িয়ে দিচ্ছে।

   

মণিপুরের মুখ্যমন্ত্রীর বাস ভবনের কাছে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: এনডিটিভি

ছবি: এনডিটিভি

  • Font increase
  • Font Decrease

মণিপুরের রাজধানী ইম্ফলে উচ্চ-নিরাপত্তাশীল সচিবালয় কমপ্লেক্সের কাছে একটি ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। বিল্ডিংটি মুখ্যমন্ত্রী এন বীরেন সিংয়ের সরকারি বাস ভবন থেকে মাত্র কয়েকশ মিটার দূরে অবস্থিত।

চারটি ফায়ার ট্রাক ঘটনাস্থলে এসে শনিবার (১৫ জুন) সন্ধ্যায় আগুন নিভিয়েছে, পুলিশ জানিয়েছে, তারা কী কারণে আগুন লেগেছে তা খতিয়ে দেখছে।

ইম্ফল পশ্চিমের পুলিশ সুপার এক বিবৃতিতে বলেছেন, কুকি ইন, ওল্ড লাম্বুলানের কাছে একটি পরিত্যক্ত বাড়ি আগুনে পুড়ে গেছে। সঙ্গে সঙ্গে, ইম্ফল পশ্চিম পুলিশের দল এবং দমকল ট্রাক ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। বাড়ির প্রথম তলা আংশিকভাবে পুড়ে গেছে।

আগুনের সঠিক কারণ জানা যায়নি, পুলিশ বিবৃতিতে বলেছে, তথ্য ও পরিস্থিতি" দেখার জন্য একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। শর্ট সার্কিট সহ সকল বিষয় পরীক্ষা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় কেউ জড়িত থাকলে তাদের গ্রেফতার করা হবে।

যে বিল্ডিংটিতে আগুন লেগেছে সেটি একই কমপ্লেক্সে কুকি ইনপির প্রধান কার্যালয়। তারা আদিবাসী উপজাতি নেতা ফোরাম (ITLF) নামে অন্য একটি চুরাচাঁদপুর-ভিত্তিক কুকি গ্রুপের আহ্বানকে সমর্থন করে। তাদের জন্য মণিপুরে একটি "পৃথক প্রশাসন" রয়েছে।

আসামের সীমান্তবর্তী মণিপুরের জিরিবাম জেলায় উপত্যকা-অধ্যুষিত মেইতি সম্প্রদায় এবং পার্বত্য-অধ্যুষিত হামার উপজাতিদের মধ্যে নতুন সহিংসতার এক সপ্তাহের মধ্যে ঘটনাটি ঘটেছে।

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত

;

ইন্দিরা গান্ধীকে ‘মাদার অব ইন্ডিয়া’ বললেন বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সুরেশ গোপী



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীকে ‘মাদার অব ইন্ডিয়া’ বা ‘ভারতের মা’ বলে অভিহিত করেছেন বিজেপির কেন্দ্রীয় পেট্রোলিয়াম, প্রাকৃতিক গ্যাস ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী সুরেশ গোপী। সেই সঙ্গে কেরালার সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও কংগ্রেস নেতা কে করুণাকরণকে সাহসী প্রশাসক এবং সেই রাজ্যের বিখ্যাত মার্কসবাদী নেতা ইকে নায়নার কে নিজের ‘রাজনৈতিক গুরু’ বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি।

এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, শনিবার (১৫ জুন) কেরালার সাবেক মুখ্যমন্ত্রী কে করুণাকরণের সমাধি মুরালি মন্দিরমে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন তিনি। সেখানে সাংবাদিদের প্রশ্নে উত্তরে এসব মন্তব্য করেন তিনি।

সুরেশ কেরালা রাজ্য থেকে বিজেপির টিকিটে লোকসভা আসনে জিতেছেন। করুণাকরণের ছেলে এবং কংগ্রেস নেতাকে মুরালিধরনকে পরাজিত করেই লোকসভা ভোটে জিতেছেন সুরেশ গোপী। তিনি ত্রিশূর লোকসভা আসনে বিজেপির টিকিটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। গত ২৬ এপ্রিলের ভোটে কে মুরালিধরন তৃতীয় স্থানে ছিলেন।

সুরেশ গোপী বলেন, মার্ক্সবাদী নেতা নয়নার এবং তার স্ত্রী সারদা শিক্ষকের মতো করুণাকরণ এবং তার স্ত্রী কল্যাণিকুট্টি আম্মার সঙ্গেও তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। তিনি কান্নুরে নয়নার বাড়িতে গিয়েছিলেন। ১২ জুন তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে সম্পর্ক ঝালাই করে নিয়েছেন।

সুরেশ গোপী বলেন, ইন্দিরা গান্ধীকে তিনি ‘ভারতথিন্তে মাথাভু’ (ভারতের মা) হিসেবে দেখেন। করুণাকরণ তার চোখে ‘রাজ্যের কংগ্রেস দলের পিতা’ ছিলেন।

অভিনেতা থেকে রাজনীতিবিদ বনে যাওয়া কংগ্রেসের এ প্রবীণ নেতার (করুণাকরণ) প্রশাসনিক দক্ষতার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন সুরেশ গোপী। তাকে তার প্রজন্মের একজন ‘সাহসী প্রশাসক’ হিসেবে অভিহিত করেন তিনি।

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত

;

যুদ্ধ অবসানের প্রত্যাশায় সুইজারল্যান্ডে বিশ্বনেতারা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইউক্রেন যুদ্ধের অবসানের লক্ষ্যে শনিবার (১৫ জুন) সুইজারল্যান্ডের বার্গেনস্টক রিসোর্টে শুরু হয়েছে ‘ইউক্রেন শান্তি সম্মেলন।’

এই সম্মেলনে বিশ্বনেতাদের সমর্থন প্রত্যাশা করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

বিবিসি জানিয়েছে, রাশিয়ায় রুশ হামলা শুরুর ২৮ মাস পরে এই সম্মেলন নতুন আশা জাগিয়েছে।

শান্তি সম্মেলনে অংশ নিচ্ছে ৯০টির বেশি দেশ ও বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠান। সম্মেলনটির লক্ষ্য ইউক্রেন সংঘাতের অবসানের জন্য একটি মৌলিক চুক্তিতে পৌঁছানো।

সম্মেলনে অংশ নেওয়া নেতারা মনে করেন, স্থায়ী শান্তি প্রক্রিয়া বাস্তবায়নে এই সম্মেলন জোরালো ভূমিকা রাখবে। আর ইউক্রেনের জন্য এই সম্মেলন একটি বড় পাওয়া। রবিবার (১৬ জুন) শেষ হবে এই সম্মেলন।

তবে চীনের মতো গুরুত্বপূর্ণ শক্তি পূর্ণ প্রতিনিধিত্ব নিয়ে এই সম্মেলনে অংশ নিচ্ছে না।

এ ছাড়া রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনকে আত্মসমর্পণের দাবি জানিয়ে যে আল্টিমেটাম দিয়েছেন, তাতে শান্তি প্রক্রিয়ায় অগ্রগতির প্রত্যাশা কম বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

উল্লেখ্য, এই শান্তি সম্মেলনে রাশিয়াকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।

সম্মেলনটি এমন সময় অনুষ্ঠিত হচ্ছে, যখন খারকিভের কাছে উত্তর-পূর্বে রাশিয়া নতুন করে হামলা চালিয়েছে। রাশিয়ান ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে সেখানে বাড়িঘর, বিদ্যুৎকেন্দ্র ধ্বংস হয়েছে।

ইউক্রেনের সংসদ সদস্য আলেক্সান্ডার মেরেকো মনে করেন, ভবিষ্যৎ শান্তির জন্য একটি রাজনৈতিক ও আইনি কাঠামো প্রতিষ্ঠা করা গুরুত্বপূর্ণ। এই শান্তি কেবলই আসতে পারে ২০২২ সালে তুলে ধরা জেলেনস্কির ১০ দফার ভিত্তিতে।

ওই ১০ দফাতে ইউক্রেনের আঞ্চলিক অখণ্ডতা ও সার্বভৌমত্ব অগ্রাধিকার পেয়েছে।

সেন্টার ফর ইউরোপিয়ান পলিসি অ্যানালাইসিসের (সিইপিএ) স্যাম গ্রিন বলেন, ‘আমি মনে করি এই সম্মেলনের উদ্দেশ্য হলো ইউক্রেনের দৃষ্টিভঙ্গির পেছনে সমর্থন জোগাড় করা।

সম্মেলনে ব্যক্তিগতভাবে হাজির হচ্ছেন না মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, যদিও এই সিদ্ধান্ত জেলেনস্কিকে রাগান্বিত করেছে। ভারত ও ব্রাজিল সম্মেলনে নিম্ন স্তরের প্রতিনিধি পাঠাচ্ছে।

এদিকে, এই সম্মেলনকে ‘অর্থহীন’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ।

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত

;

সুইডেনের আকাশসীমা লঙ্ঘন করলো রুশ যুদ্ধবিমান



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইউক্রেন যুদ্ধের নানা জটিলতার মধ্যে সুইডেনের আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে রাশিয়ার বোমারু বিমান। রাশিয়ার এসইউ-২৪ যুদ্ধবিমান কৌশলগত বাল্টিক সাগরের গটল্যান্ড দ্বীপের কাছে এই আকাশসীমা লঙ্ঘন করে।

রয়টার্সকে শনিবার (১৫ জুন) এ খবর নিশ্চিত করেছে সুইডেনের সামরিক বাহিনী।

স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশটির সঙ্গে এমন সময় ঘটনাটি ঘটাল রাশিয়া, যখন ন্যাটো সদস্য হিসেবে সুইডেনের বয়স মাত্র তিনমাস পার হয়েছে।

সুইডেনের সশস্ত্র বাহিনী জানায়, শুক্রবার (১৪ জুন) আকাশসীমা লঙ্ঘনের পর রাশিয়াকে মৌখিকভাবে সতর্ক করা হয়েছে। তবে এই সতর্কতাকে গুরুত্ব দেয়নি রাশিয়া। তবে লঙ্ঘনের ঘটনাটি ছিল সংক্ষিপ্ত।

সুইডেনের বিমানবাহিনীর প্রধান জোনাস উইকম্যান বলেছেন, ‘রাশিয়ার পদক্ষেপ গ্রহণযোগ্য নয় এবং আমাদের আঞ্চলিক অখণ্ডতার প্রতি দেশটি অশ্রদ্ধা দেখিয়েছে।’

গটল্যান্ড দ্বীপটি রাশিয়ার এক্সক্লেভ থেকে ৩৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। সুইডিশ সামরিক বিশেষজ্ঞদের মতে, যে গটল্যান্ড দ্বীপ নিয়ন্ত্রণ করে, সে বাল্টিক সাগরে বিমান ও নৌ চলাচলকে ব্যাপকভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম।

সুইডেন ২০০৪ সালে সামরিক ব্যয় হ্রাস করার পর ২০১৮ সালে গটল্যান্ডে তার গ্যারিসন পুনরায় চালু করে।

২০১৪ সালে ক্রিমিয়ান উপদ্বীপে রাশিয়ার একতরফা অধিগ্রহণের ঘটনা সুইডেনকে তার সামরিক বাহিনীকে ফের শক্তিশালী করতে প্ররোচিত করে।

২০২২ সালে ইউক্রেনে মস্কোর হামলার পর থেকে ন্যাটো সামরিক জোটে যোগদানের ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নেয় সুইডেন।

উল্লেখ্য, রাশিয়া শেষবার সুইডিশ আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছিল ২০২২ সালের মার্চ মাসে।

  রুশ-ইউক্রেন সংঘাত

;