নাসিক নির্বাচন: নজিরবিহীন নির্বাচন, ঝড় নেট দুনিয়ায়

  নাসিক নির্বাচন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

শেষ হল নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ভোট গ্রহণ। কোনও প্রকার রক্তারক্তির ঘটনা ছাড়াই সকাল থেকে একটি সফল নির্বাচন দেখলো দেশবাসী। নেটিজেনরা বলছেন, এ সরকারের আমলে এমন ঘটনা নজিরবিহীন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করছেন ভোট প্রদান পরবর্তী ‘ভি ফিঙ্গার্ড’ ছবি।

রোববার (১৬ জানুয়ারি) সকাল আটটা থেকে শুরু হয় নাসিকের ভোটগ্রহণ। সারাদিন বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া বিকেল চারটায় উৎসবমুখরতা নিয়েই শেষ হয় ভোট। নাগরিকগণ সুষ্ঠুভাবেই ভোট দিতে পেরেছেন পছন্দের প্রার্থীকে।

উৎসাহের সাথে ভোট দিতে দেখা গেছে নেটিজান তরুণদের। প্রথমবারের মত ভোট দিতে যান তানভীর কারিম তরঙ্গ। কোনো রকম বাধার মুখে না পড়েই দিতে পেরেছেন নিজের ভোটটি। হাতে অঙ্কিত ভোট দেওয়ার চিহ্ন দেখিয়ে ফেসবুকে পোস্ট করেছেন নিজের ছবি। অনেকেই ভোট শেষে লাইভে এসে ব্যক্ত করছেন সুষ্ঠুভাবে ভোটদানের অনুভূতি। অনেকেই ‘নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন-২০২২’ লিখেও ছবি পোস্ট করছেন ফেসবুকে। আতঙ্কিত নেই কেউ। মাঝে মাঝে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা আর কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার উড়ো অভিযোগ ছাড়া সামনে আসছে না তেমন কিছু।

নেটিজান আল এমডি বিপ্লব চৌধুরী ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, সুষ্ঠু ভোটের মধ্যমে (মাধ্যমে) শেষ হলো নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন। এখন ফলাফলের অপেক্ষায়।

নারী ভোটারদের দীর্ঘলাইন

পূর্ব ঘোষিত ইশতেহার অনুযায়ী, পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী ও সংশ্লিষ্টদের সর্বোচ্চ সহযোগীতায় সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হতে যাচ্ছে এবারের নির্বাচন। নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন সর্বোত্তম একটি নির্বাচন। দেশবাসীর জন্য এটি একটি দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

তবে বরাবরের মত এবারও ইভিএম বিড়ম্বনায় পড়েছেন ভোটারগণ। কেউ কেউ পারছিলেন না ইভিএমের সাথে তাল মিলাতে; আবার কারো কারো মিলছিল না আঙুলের ছাপ। মাঝে মাঝে যান্ত্রিক ত্রুটি থাকায় কিছু সময়ের জন্য বন্ধও রাখতে হচ্ছে ভোটগ্রহণ। তবে সব বিড়ম্বনা ছাপিয়ে সহিংসতা আর মারকাটের ঘটনা ছাড়াই নির্বাচন সম্পন্ন হতে যাচ্ছে অভিজাত চুনকা-ওসমানের এলাকায়।

তবে কে হাসবে শেষ হাসি! আর কার বাড়াতে হবে আরও জনসম্পৃক্ততা; তাই দেখার পালা। নবাগত মেয়রের মুখ দেখতে ফুলের মালা নিয়ে অপেক্ষা করছেন নাসিকবাসী। এর মধ্যেই নগরজুড়ে আগেই বিজয় মিছিল দিচ্ছে তৈমুর সমর্থকদল। নিজের প্রার্থীর জয়ের বিষয়ে শতভাগ আশাবাদী তারা।

নির্বাচন শেষ পর্যন্ত অবাধ ও সুষ্ঠু হলে তৃতীয় মেয়াদেও মেয়র পদে জয়ী হবেন বলে আশাপ্রকাশ করেছেন সরকার দলীয় প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। চুনকা কন্যা বলেন, আমি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। তবে, নির্বাচনের ফলাফল যাই হোক আমি মেনে নেব।

উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দিচ্ছেন ভোটাররা

পরিবেশ এখনও পর্যন্ত অনুকূল এবং শান্তিপূর্ণ বলে মনে করছেন আইভীর একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার।

হাতি মার্কার এ জায়ান্ট প্রার্থী বলেন, পরিস্থিতি এখন পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ বলে মনে হচ্ছে, ভোট গণনার পর পুরোপুরি বলতে পারবো।

রিটার্নিং কর্মকর্তা মাহফুজা আক্তার জানান, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে ভোট হয়েছে শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে; গোলযোগবিহীন এ নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতিও তুলনামূলক ভালো।

নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোস্তাইন বিল্লাহ বলেন, আমরা বেশ কয়েকটি কেন্দ্র পরিদর্শন করেছি। মানুষ অত্যন্ত সুশৃঙ্খলভাবে ভোট দিয়েছেন। শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষভাবে ভোটগ্রহণ হয়েছে। ভোটের ফলাফল প্রকাশের পরেও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা মাঠে থাকবেন।

  নাসিক নির্বাচন

এপিএসসিএল’র বিদ্যুৎ প্রকল্পে ইলিশ প্রজনন বাধাগ্রস্ত হবে



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কলাপাড়ায় (পটুয়াখালী) নির্মাণাধীন এপিএসসিএল’র (আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন কোম্পানি) বিদ্যুৎ প্রকল্পের কারণে ইলিশ প্রজনন বাঁধাগ্রস্ত হবে। আন্ধারমানিক চ্যানেলের পানি ও পরিবেশ দুষিত হয়ে এমনটি হবে বলে দাবি করেছে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)।

বৃহস্পতিবার (২৬মে) বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এবং ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ যৌথ উদ্যোগে জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে এই দাবী করা হয়। এতে মূল প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিওমেটিক্স বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আশিকুর রহমান। প্রকল্প নিয়ে একটি আর্থসামাজিক সমীক্ষা’ শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। 

তিনি বলেন, প্রকল্পের কারণে ২৯ কিলোমিটার পানিপথ ভরাট করা হবে। এই প্রকল্পের আশপাশের শিল্পায়ন কলাপাড়া এলাকার নদী, পানি ও মৎস্য সম্পদসহ সাধারণ মানুষের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। প্রথমে ১৩২০ মেগাওয়াটের কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের পরিকল্কপ্পনা নিলেও, গতবছর তা বাতিল করে এলএনজি অথবা নবায়নযোগ্য জ্বালানী ভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের পরিকল্কপ্পনা গ্রহণ করে। এখন এখানে ২৪০০ মেগাওয়াটের এলএনজি ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করতে চায়।

সরকার গতবছর ১০টি কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয়। এর পেছনে মূল কারণ ছিল ওই বিদ্যুৎ প্রকল্পগুলো যথা সময়ে কাজ এগিয়ে নিতে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। সেই বাতিল হওয়ার প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে এপিএসসিএল’র প্রকল্পটিও।

সাংবাদিক সম্মেলনে বলা হয়, প্রকল্পের জন্য ৩ ফসলী কৃষিজমি অধিগ্রহণ হয়েছে। ক্ষতিপূরণ প্রদানে ব্যাপক অনিয়মের খবর মিলেছে।  

সভাপতির বক্তব্যে এমএস সিদ্দিকী বলেন, বাপা কখনই উন্নয়নের বিপক্ষে নয়। কিন্তু যে উন্নয়ন দেশের কৃষি, পরিবেশ, নদী, জীববৈচিত্র ও প্রাণিসম্পদ ধ্বংস করে সে উন্নয়ন আমরা চাই না। সম্ভাব্য অভিঘাতসমূহ সঠিকভাবে পর্যালোচনা করা জরুরি।

বাপার সাধারণ সম্পাদক শরীফ জামিল বলেন, কয়লা ও জীবাশ্ম জ্বালানীভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পগুলো যেন এসডিজি বাস্তবায়নে বাধা হয়ে না দাঁড়ায় সেজন্যও সরকারকে সচেতন হতে হবে। কলাপাড়ায় চলমান শিল্পায়ন দেশের মৎস্য সম্পদের, বিশেষভাবে ইলিশ এবং তরমুজ উৎপাদনের উপর ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

স্থানীয় ভুক্তভোগী ফরিদ উদ্দিন বলেন, এলাকায় একরপ্রতি ৮০ মন ধান হয় প্রতি মৌসুমে। তিন ফসলী এ জমিতে ইরি-বোরো ছাড়াও তরমুজ চাষ হয়। প্রধানমন্ত্রী তিন ফসলী জমিতে যেন কল কারখানা না করা হয়। কিন্তু এখানে করা হচ্ছে। মাত্র ২০ শতাংশ লোক অধিগ্রহণের টাকা পেয়েছে।

  নাসিক নির্বাচন

;

‘ঐক্য ও অগ্রগতির ২৭ বছর’ ডিআরইউ’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
‘ঐক্য ও অগ্রগতির ২৭ বছর’ ডিআরইউ’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

‘ঐক্য ও অগ্রগতির ২৭ বছর’ ডিআরইউ’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

  • Font increase
  • Font Decrease

 ‘ঐক্য ও অগ্রগতির ২৭ বছর’-এই স্লোগানকে সামনে রেখে পালিত হয়েছে রাজধানীতে কর্মরত পেশাদার রিপোর্টারদের সবচেয়ে বড় সংগঠন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) ২৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।

বৃহস্পতিবার (২৬ মে) ডিআরইউ প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা, বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর উদ্বোধন করেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, এমপি। সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম হাসিবের সঞ্চালনায় এ সময় সংগঠনের পতাকা উত্তোলন করেন ডিআরইউ সভাপতি নজরুল ইসলাম মিঠু।

ডিআরইউ’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এ বছর ব্যতিক্রমী আয়োজন ছিল বীর মুক্তিযোদ্ধা সদস্যদের সংবর্ধনা দেয়া। সরকারের সমন্বিত তালিকা অনুযায়ী ১৩ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা ডিআরইউ সদস্যের হাতে সম্মাননা স্মারক ও উত্তরীয় তুলে দেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম. মোজাম্মেল হক, এমপি।


সংবর্ধনা প্রাপ্তরা হলেন- বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃণাল কৃষ্ণ রায়, বীর মুক্তিযোদ্ধা মুহম্মদ শফিকুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন হাবীব, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তাক আহমেদ মোবারকী, বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল বাশার চপল, বীর মুক্তিযোদ্ধা কার্তিক চ্যাটার্জী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আকরাম হোসেন খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া, বীর মুক্তিযোদ্ধা স্বপন দাশ গুপ্ত, বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান সরদার, বীর মুক্তিযোদ্ধা তালুকদার হারুন, বীর মুক্তিযোদ্ধা শংকর কুমার দে ও বীর মুক্তিযোদ্ধা হালিম আজাদ।

নসরুল হামিদ মিলনায়তনে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সাংবাদিকরা দেশে-বিদেশে বিশ্ব জনমত গড়ে তুলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। জাতি এ বীরদের আজীবন স্মরণ করবে। যারা কলম সৈনিক, তারাও মুক্তিযোদ্ধা। যারা চরমপত্র লিখেছেন, তারাও মুক্তিযোদ্ধা। কারণ মুক্তিযোদ্ধা শুধু একদিক থেকে নয়, সার্বিক দিক থেকে সবকিছু মিলিয়েই মুক্তিযোদ্ধা।

সংবর্ধনা পাওয়ার অনুভূতি জানিয়ে এবং স্মৃতিচারণ করে বীর মুক্তিযোদ্ধারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় দেশে-বিদেশে যে সাংবাদিকতা হয়েছিল সে সম্পর্কে নতুন প্রজন্মকে জানাতে হবে, দালিলিকভাবে ইতিহাস সংরক্ষণ করতে হবে। গণমাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের যারা জীবিত আছেন তাদের মূল্যায়ন করতে হবে। প্রজন্মের পর প্রজন্মে মুক্তিযোদ্ধাদের গৌরব প্রবাহিত হবে বলেও এ সময় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন বীর মুক্তিযোদ্ধারা।


ডিআরইউ সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম হাসিবের সঞ্চালনায় সভাপতির বক্তব্যে নজরুল ইসলাম মিঠু বলেন, মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে সাংবাদিকদের ভূমিকা ছিল উল্লেখযোগ্য। তাদের মধ্যে অনেকেই সামনের সারিতে থেকে যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়ে বাংলাদেশকে স্বাধীন করতে জীবন বাজি রেখে ছিলেন। তাদের সম্মান করতে পেরে আমরা গর্বিত।

২৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ও ডিআরইউ’র সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল কাফি এবং প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব ও ডিআরইউ’র প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক কামাল উদ্দিন সুমন মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন।

দিনব্যাপী আয়োজনে ডিআরইউ কার্যনির্বাহী কমিটির যুগ্ম সম্পাদক শাহনাজ শারমীন, অর্থ সম্পাদক এস এম এ কালাম, দপ্তর সম্পাদক রফিক রাফি, নারী বিষয়ক সম্পাদক তাপসী রাবেয়া আঁখি, তথ্য প্রযুক্তি ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক কামাল মোশারেফ, ক্রীড়া সম্পাদক মাকসুদা লিসা, সাংস্কৃতিক সম্পাদক নাদিয়া শারমিন, আপ্যায়ন সম্পাদক মুহাম্মাদ আখতারুজ্জামান ও কল্যাণ সম্পাদক কামরুজ্জামান বাবলু, কার্যনির্বাহী সদস্য হাসান জাবেদ, মাহমুদুল হাসান, সোলাইমান সালমান, সুশান্ত কুমার সাহা, মো: আল-আমিন, এসকে রেজা পারভেজ এবং মো: তানভীর আহমেদসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া সাবেক সভাপতি শাহজাহান সরদার, এম শফিকুল করিম, সাখাওয়াত হোসেন বাদশা, সাইফুল ইসলাম, ইলিয়াস হোসেন, রফিকুল ইসলাম আজাদ ও মুরসালিন নোমানী এবং সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু, রাজু আহমেদ, সৈয়দ শুকুর আলী শুভ ও কবির আহমেদ খান উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে ঘোড়ার গাড়ি ও বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালির আয়োজন করা হয়। র‌্যালিটি ডিআরইউ চত্বর থেকে বের হয়ে বারডেম হাসপাতাল (মহিলা ও শিশু) ও শিল্পকলা একডেমি মোড় ঘুরে ডিআরইউ চত্বরে এসে শেষ হয়।

র‌্যালি শেষে ডিআরইউ নসরুল হামিদ মিলনায়তনে কেক কাটা হয়। এছাড়া ডিআরইউ সদস্য ও পরিবারের জন্য দিনব্যাপী বিশেষ মেডিকেল ক্যাম্প ও সন্ধ্যায় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

  নাসিক নির্বাচন

;

রংপুরে হাইটেক পার্কের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন: লাখো তরুণের কর্মসংস্থান হবে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, শ্রমনির্ভর অর্থনীতি থেকে মেধা নির্ভর অর্থনীতিতে যাওয়ার জন্য হাইটেক পার্ক হবে সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশের চালিকাশক্তি। লাখ লাখ তরুণের কর্মসংস্থানের ঠিকানা হবে এ হাইটেক পার্ক। রংপুর বিভাগের তরুণদের আর ঢাকা কিংবা বিদেশমুখী হতে হবে না।

বৃহস্পতিবার (২৬ মে) সকালে রংপুর নগরীর খলিশাকুড়ি বিল এলাকায় ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া হাইটেক পার্কের নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সততা, সাহসিকতা ও দূরদর্শিতার কারণে করোনার ধাক্কা সামলেও দেশকে এগিয়ে নিতে পেরেছেন । প্রধানমন্ত্রীর হাত ধরে আমরা এখন ডিজিটাল এবং উন্নত। ২০৪১ সালের মধ্যে আধুনিক স্মার্ট বাংলাদেশ গড়া আমাদের অন্যতম ভিশন।

এর আগে সকালে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ড. এমএ ওয়াজেদ মিয়া হাইটেক পার্ক নির্মাণে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের ফলক উন্মোচন করেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর আদর্শবিষয়ক তথ্যচিত্র ও ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন পূরণের তথ্য চিত্র এবং প্রকল্পের উদ্যোগে হাইটেক পার্ক রংপুরের তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। এর পাশাপাশি অনুষ্ঠানে ফ্রিল্যান্সারদের মধ্যে ল্যাপটপ বিতরণ করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল আলীম মাহমুদ, জেলা প্রশাসক আসিব আহসান, জেলা পর্যায়ে হাইটেক পার্ক নির্মাণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক একেএএম ফজলুল হক, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মমতাজ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মণ্ডল প্রমুখ।

ভারতীয় অর্থায়নে রংপুরসহ বাংলাদেশের ১২টি জেলায় হাইটেক পার্ক স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এরই অংশ হিসেবে এবার রংপুরে এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে। কথা ছিল ২০১৮ সালে রংপুরে হাইটেক পার্ক নির্মাণ শুরু হবে। কিন্তু নির্মাণকাজ শুরুর আগেই ২০২০ সালের জুনে এই প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। দীর্ঘ অপেক্ষার পর অবশেষে নগরীর খলিশাকুড়ি এলাকায় বহুল প্রতীক্ষিত হাইটেক পার্কের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন হওয়ায় আনন্দিত রংপুরবাসী। ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া হাইটেক পার্কটি দশ একর জায়গার ওপর ১৭০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে।

  নাসিক নির্বাচন

;

শিশু ধর্ষণ মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
শিশু ধর্ষণ মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন

শিশু ধর্ষণ মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন

  • Font increase
  • Font Decrease

রংপুরের তারাগঞ্জে ১০ বছরের শিশুকে ধর্ষণ মামলায় আতিকুল ইসলাম ওরফে আতিক (২৫) নামের এক যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৭ মে) দুপুরে এ রায় দেন রংপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালত-৩ এর বিচারক এম আলী আহমেদ। রায় ঘোষণার সময় আসামি কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

আদালত ও মামলা সূত্রে জানা যায়, আতিকুল ইসলাম ওরফে আতিক স্থানীয় মসজিদের ইমাম ছিলেন। তিনি সকালে এলাকার ছেলেমেয়েদের আরবি পড়াতেন। ২০২০ সালের ৪ নভেম্বর সকাল ৭টার দিকে ১০ বছর বয়সী ওই শিশু আরবি পড়তে যায়। সকাল ৮টার দিকে অন্যান্য ছেলেমেয়েদের ছুটি দিলেও ওই শিশুকে পরে যেতে বলেন ইমাম আতিক। এরপর শিশুটিকে মসজিদ সংলগ্ন তার ঘরে নিয়ে ধর্ষণ এবং এ ঘটনা কাউকে না জানানোর জন্য হুমকি দেয়। পরে বাড়িতে যাওয়ার পর শিশুটির প্রচণ্ড রক্তক্ষরণ শুরু হলে বিষয়টি জানাজানি হয় এবং এলাকাবাসী ধর্ষক আতিকুলকে আটক করে। পরে গুরুতর অবস্থায় শিশুটিকে প্রথমে তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদী হয়ে তারাগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। তদন্ত শেষে পুলিশ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন।

মামলায় সরকার পক্ষের আইনজীবী বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) তাজিবুর রহমান লাইজু বলেন, মামলায় সাক্ষীদের জেরা ও শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার বিজ্ঞ বিচারক আসামি আতিকুল ইসলামকে দোষি সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন।

  নাসিক নির্বাচন

;