পদ্মা সেতু: উন্নয়নে নতুন দিগন্তের অপেক্ষায় ফরিদপুরবাসী

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার



এহসান রানা, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ফরিদপুর
পদ্মা সেতু: উন্নয়নে নতুন দিগন্ত, অপেক্ষা ফরিদপুরবাসীর

পদ্মা সেতু: উন্নয়নে নতুন দিগন্ত, অপেক্ষা ফরিদপুরবাসীর

  • Font increase
  • Font Decrease

ফরিদপুর জেলাকে দেশের মূল ভূখণ্ডের থেকে বিচ্ছিন্ন করে রেখেছে প্রমত্তা পদ্মা নদী। দক্ষিণ বঙ্গের ১৬ জেলার মানুষ ফরিদপুর হয়ে দৌলতদিয়া ও কাঁঠালবাড়ী ঘাট দিয়ে পার হয়ে রাজধানীতে যেত। আর এই দুটি ঘাট পারাপারে নৌযান সংকটসহ প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয় মানুষকে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করে পার হতে হতো নদী।

নানা প্রতিকূলতা কাটিয়ে সরকার পদ্মার বুকে গড়ে তুলেছে দক্ষিণ বঙ্গ তথা দেশের কোটি কোটি মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতু। যা জনসাধারণের জন্য খুলে দেয়া হবে আগামী ২৫ জুন। ২৬ জুন থেকে টোল দিয়ে যানবাহন চলাচল শুরু হবে। এমন খবরে বাঁধ ভাঙা আনন্দ, উচ্ছাসে উচ্ছ্বসিত তারা। আশায় বুক বাঁধছেন কৃষি প্রধান এ জেলার কৃষকরাও।

ব্যবসায়ী নেতারা বলছেন, যোগাযোগের সমস্যার কারণে এতোদিন এ অঞ্চলে গড়ে ওঠেনি শিল্প কল কারখানা, তবে এবার সে দুয়ার উন্মোচিত হলো, যা ভূমিকা রাখবে অর্থনৈতিক উন্নয়নে। সেই সাথে সার্বিক অবকাঠামোতেও।

জাতির বঙ্গবন্ধুর জন্মস্থানের তকমা থাকায় আওয়ামী লীগ ব্যতিত অন্যান্য সরকারের সময়ে ফরিদপুর অনেকটা অবহেলিত ছিল। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর উন্নয়নের দৃশ্যমান ছোঁয়া লাগতে শুরু করেছে ফরিদপুরে। এবার পদ্মা সেতুতে ভর করে পুরোপুরি ঘুরে দাড়াবে প্রাচীন এ জেলা, এমনটাই দাবি বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের।

ফরিদপুরের সফল কৃষি উদ্যোক্তা সাহিদা বেগম জানান, আমি প্রায় ৬০ একর জমিতে বিভিন্ন ফসল উৎপাদন করে থাকি। এর মধ্যে পেঁয়াজ, পেঁয়াজের বীজ, গম, ধান ও আম বাগানও আছে। পদ্মা সেতু হওয়ায় আমিসহ সকল কৃষক তাদের উৎপাদিত ফসল দ্রুত সময়ে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় পাঠাতে পারবেন কোন ঝামেলা ছাড়াই। ঘাটে জ্যামের জন্য অনেক সময় দ্রুত পচনশীল পণ্য পচে যেত। এই সেতু হওয়াতে এই ভোগান্তি আর পোহাতে হবে না। 

ফরিদপুর বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. শামসুল আলম জানান, এই সেতুর মাধ্যমে আমাদের স্বপ্ন পূরণ হলো। এতে আমাদের জীবনযাপনের মান বৃদ্ধি পাবে এবং ভোগান্তি লাঘব হবে।

ফরিদপুর চেম্বার অব কমার্সের পরিচালক মো. মহসিন শরীফ জানান, পদ্মা সেতু উদ্বোধন হলে আমাদের ব্যবসায়ীদের ব্যবসার প্রসার, সেবা ও সুবিধা আরো বাড়বে। সেই সাথে বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান, কারখানা তৈরি হবে ফলে দূর হবে বেকারত্ব। 

ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শামীম হক জানান, অনেক বাধা বিপত্তি, দেশি বিদেশি ষড়যন্ত্র থাকা সত্ত্বেও স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান। এই অসম্ভবকে সম্ভব করেছে আমাদের দেশরত্ন ও জাতির জনকের কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। পদ্মা সেতু তৈরি হওয়াতে দক্ষিণাঞ্চলসহ ২১ জেলা উপকৃত হবে।  

কানাইপুর ইউপি চেয়ারম্যান ফকির মো. বেলায়েত হোসেন জানান, পদ্মা সেতুর তৈরি হওয়াতে আমাদের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও শিক্ষাখাতের অনেক উন্নয়ন হবে ।  

আর প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানান, পদ্মা সেতু দেশের বৃহত উন্নয়নের মাইলফলক, যার ইতিবাচক প্রভাব পড়বে গোটা দেশে। অলিম্পিক ভিলেজ ও শেখ হাসিনা তাঁত পল্লী নির্মিত হলে এ অঞ্চলের মানুষের অর্থনৈতিক বিপ্লব ঘটবে।

ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলা চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে কৃতজ্ঞতা জানানোর ভাষা আমাদের নেই। তিনি যদি প্রধানমন্ত্রী না হতেন তাহলে আজীবন দক্ষিণাঞ্চল অবহেলিত থাকতো।

বিশিষ্ট সমাজসেবক ও ব্যবসায়ী এনটিকবিডি এর ম্যানেজিং পার্টনার মো মাহবুব আলম মনির জানান , পদ্মা সেতুর কল্যাণে  ফরিদপুরের মানুষ স্বপ্ন দেখছে শিল্পসমৃদ্ধ এক জেলার। ফরিদপুরে ইতিমধ্যে এর দৃশ্যমান অনেক কর্মকাণ্ড লক্ষ্য করা যাচ্ছে।  অনেক শিল্প প্রতিষ্ঠান জমি কিনে স্থাপনা নির্মাণ শুরু করেছে।  ফেরিঘাটের দেরি হওয়াতে আগে সময় লাগতো ২/৩ দিন কিন্তু এখন  তা সল্প সময়ে  চলে আসবে। প্রাকৃতিক গ্যাসের সংযোগ সুবিধা পেলে জনগণ এর সুফল ভোগ করবে।  এছাড়া কর্ম সংস্থানের সুযোগ বাড়বে। এতে সবাই  ব্যবসায়ীক, সামাজিক ও আর্থিকভাবে লাভবান হবেন। আর  এসব বাস্তবায়ন সম্ভব হয়েছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য।

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার জানান, সেতুকে কেন্দ্র করে এ জেলায় অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে নতুন দিগন্তের উম্মোচন হবে। পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নের পর ১ দশমিক ২৩ শতাংশ হারে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) বৃদ্ধি পাবে। এছাড়াও দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জিডিপি বাড়বে ২ দশমিক ৩ শতাংশ।

তিনি বলেন, ইতিমধ্যে সেতুকে কেন্দ্র করে ফরিদপুর-মাদারীপুর সীমান্তবর্তী এলাকায় অলিম্পিক ভিলেজ, শেখ হাসিনা তাঁত পল্লী তৈরি হচ্ছে, ভাঙ্গায় বঙ্গবন্ধু মহাকাশ পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র তৈরি হচ্ছে। এ জেলার প্রতিটি এ জেলার প্রতিটি জায়গায় অর্থনৈতিক উন্নয়নের ছোঁয়া লাগছে। 

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

প্রধানমন্ত্রী পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নতুন ভবন উদ্বোধন করবেন বৃহস্পতিবার



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রধানমন্ত্রী পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নতুন ভবন উদ্বোধন করবেন বৃহস্পতিবার

প্রধানমন্ত্রী পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নতুন ভবন উদ্বোধন করবেন বৃহস্পতিবার

  • Font increase
  • Font Decrease

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি নতুন ভবন নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী বৃহস্পতিবার (৭ জুলাই) এটির আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করবেন। মঙ্গলবার ( ৫ জুলাই) বিকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নতুন এই ভবন পরিদর্শনের সময় ভবনটি নির্মাণকাজের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে তিনি এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নবনির্মিত ৮ তলা ভবন সম্পন্ন হওয়ায় মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন দপ্তর, উইং ও  অন্যান্য শাখার জন্য স্থানসংকুলানের চাহিদা অনেকাংশে পূরণ হবে এবং আধুনিক সুবিধাবিশিষ্ট কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করা যাবে।

সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করায় সংশ্লিষ্টদের প্রতি ধন্যবাদ জানান তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন ভবনটির নির্মাণ কাজের বিভিন্ন পর্যায়ে কাজের অগ্রগতি দেখতে ইতিপূর্বে বেশ কয়েকবার আকস্মিক পরিদর্শন করেন এবং যথাসময়ে নির্মাণ কাজ সম্পন্নের জন্য আন্তরিকভাবে কাজ করতে সংশ্লিষ্টদের তাগিদ দেন।

মঙ্গলবার ভবনটি পরিদর্শনের সময় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক (সাধারণ সেবা) মোহাম্মদ হজরত আলী খান, মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডি এম সালাহ উদ্দিন মাহমুদ এবং অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন পাবে না



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন পাবে না

ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন পাবে না

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) জানিয়েছে ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া কোনো মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন পাবে না বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) পরিচালক (ইঞ্জিনিয়ারিং) শীতাংশু শেখর বিশ্বাস।

মঙ্গলবার (৫ জুন) তিনি এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

শেখর বিশ্বাস বলেন, 'মোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন নম্বর দেওয়ার সময় গ্রাহকের ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকা নিশ্চিত করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। গত ১৪ জুনের এক বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আজ এই নির্দেশনা দেওয়া হয়।'

তিনি আরও বলেন, 'চলতি বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে মোটরসাইকেলের রেজিস্ট্রেশন নম্বর দেওয়ার সময় সংশ্লিষ্ট গ্রাহকের ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকার বিষয়টি রেজিস্টারিং অথরিটির নিশ্চিত করতে হবে। ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া কোনো মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন নম্বর পাবে না।'

এ বিষয়ে পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

টাঙ্গাইলে ভিজিএফ’র চালে বড় বড় পাথর, ক্ষুব্ধ উপকারভোগীরা



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, টাঙ্গাইল
টাঙ্গাইলে ভিজিএফ’র চালে বড় বড় পাথর, ক্ষুব্ধ উপকারভোগীরা

টাঙ্গাইলে ভিজিএফ’র চালে বড় বড় পাথর, ক্ষুব্ধ উপকারভোগীরা

  • Font increase
  • Font Decrease

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে হতদরিদ্রদের মাঝে ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় বিতরণ করা দশ কেজি চালে বড় বড় পাথর পাওয়া গেছে। এতে চাল নিতে আসা উপকাভোগীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

মঙ্গলবার (৫ জুলাই) ভূঞাপুর পৌরসভায় ভিজিএফ কর্মসূচির চাল বিতরণের সময় বেশ কিছু বস্তাতে পাথর পাওয়া যায়। পরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করলে পাথরযুক্ত চালের বস্তাগুলো পরিবর্তনের আশ্বাস দেয়া হয়। এছাড়াও পোকা, দুর্গন্ধ ও নিম্নমানের চাল বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা।

ভূঞাপুর উপজেলা গোডাউন কর্মকর্তা (ওসিএলএসডি) আব্দুল হালিম জানান, চালে পাথর পাওয়ার পরই বস্তাগুলো পরিবর্তনের জন্য উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তবে চালে এমন পাথর থাকতেই পারে। চাল যে চাতালগুলোতে শুকানো হয়, চাতালের পাথরগুলোই উঠে চালে মিশেছে।

ভূঞাপুর উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক কাজী হামিদুল হক বলেন, হতদরিদ্রদের মাঝে বিতরণের জন্য ভিজিএফ কর্মসূচির আওয়তায় ৬টি ইউনিয়নে ১০২ মেট্রিকটন এবং পৌরসভায় ৩০ মেট্রিকটন চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এই চালের বস্তাগুলো গত বছর গোডাউনে মজুদ করা হয়েছিল। এই মৌসুমটায় চালে পোকা ধরে। পোকা দমনে ওষুধ দেয়া হচ্ছে। 

মঙ্গলবার পৌরসভায় চালগুলো বিতরণের সময় বেশ কিছু বস্তাতে পাথর পাওয়া গেছে। সেগুলো পরিবর্তন করে দেয়া হবে।

ভূঞাপুর পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুদুল হক মাসুদ জানান, চাল বিতরণের সময় বেশ কিছু বস্তাতে পাথর পাওয়া যায়। পরে সংশ্লিষ্টদের জানানো হয়েছে। বস্তাগুলো পরিবর্তন করে দেয়ার কথা জানিয়েছেন কর্তৃপক্ষ।

এ ব্যাপারে ভূঞাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. ইশরাত জাহান জানান, পাথরযুক্ত চালের বস্তাগুলোতে পরিবর্তন করে দেয়ার জন্য খাদ্য পরিদর্শককে জানানো হয়েছে। কেন চালে পাথর পাওয়া গেলে সেটি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;

ইভিএম জনগণকে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে: সুজন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ইভিএম জনগণকে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে: সুজন

ইভিএম জনগণকে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে: সুজন

  • Font increase
  • Font Decrease

ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনকে (ইভিএম) নিকৃষ্ট যন্ত্র আখ্যা দিয়ে জাতীয় নির্বাচনে এটি ব্যবহারের কোনো যৌক্তিকতা দেখছে না সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন।

সেই সঙ্গে সংগঠনটির সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারকুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) জনগণকে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে বলে মন্তব্য করেছেন।

মঙ্গলবার (৫ জুন) দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের নবনির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের তথ্যের বিশ্লেষণ উপস্থাপন করে সুজন। সংবাদ সম্মেলনে ইভিএম নিয়ে সুজনের পর্যবেক্ষণ তুলে ধরা হয়।

সুজন সম্পাদক বলেন, ২০১২ সালে কুমিল্লা নির্বাচনে ব্যবহৃত বায়োমেট্রিক ইভিএমে ভোট পড়েছিল প্রায় ৭৫ শতাংশ, ২০১৭ সালে পেপার ব্যালটে ভোট পড়েছিল ৬৪ শতাংশ। এবারে সেখানে ভোট পড়েছে ৫৯ শতাংশ। ইভিএমে ভোট দিতে গিয়ে, বায়োমেট্রিক ছাপ না মেলায় অনেকে বিরক্ত হয়ে চলে গেছে। এখানে ইভিএম মানুষকে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে। ইভিএম যদি মানুষকে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করে, সেই ইভিএম ব্যবহারের যৌক্তিকতা কী?

গত কয়েকটি নির্বাচনে ইভিএম দিয়ে ভোট পড়ার হার তুলনা করেছে সুজন। তাতে দেখা যাচ্ছে ইভিএমে তুলনামূলকভাবে কম ভোট পড়ছে।

বদিউল আলম মজুমদার বলেন,গত জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহৃত হয়েছিল ৬টি আসনে আর ২৯৪টি আসনে নির্বাচন হয়েছিল পেপার ব্যালটে। নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী ২৯৪ আসনে যেখানে পেপারব্যালটে ভোট হয়েছে, সেখানে ভোট পড়েছে ৮১ শতাংশ। অন্যদিকে যে ৬টি আসনে ইভিএমে ভোট হয়েছে সেখানে ভোট পড়েছিল ৫১ শতাংশ। অর্থাৎ ৩০ শতাংশ পার্থক্য। এর মানে যেখানে পেপার ব্যালটে ভোট হয়েছে সেখানে কারসাজি করা হয়েছে, না হয় যেখানে ইভিএমে ভোট হয়েছে, সেখানে মানুষকে ভোটাধিকার বঞ্চিত করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বদিউল আলম মজুমদারের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন সুজন-এর কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য রোবায়েত ফেরদৌস এবং সুজন জাতীয় কমিটির সদস্য একরাম হোসেন। লিখিত প্রবন্ধ পাঠ করেন সুজন-এর কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী দিলীপ কুমার সরকার।

কুমিল্লা নির্বাচন সম্পর্কে সুজন-এর পর্যবেক্ষণ তুলে ধরে দিলীপ কুমার সরকার বলেন, এই নির্বাচনে মূল আলোচিত ঘটনা ছিল কুমিল্লা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়টি। তিনি এলাকা ছাড়ার ব্যাপারে ইসির নির্দেশ অমান্য করা সত্ত্বেও বিধিমালার ৩১ ও ৩২ ধারা অনুযায়ী শাস্তির বিধান প্রয়োগ না করায় কমিশন ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে। পরবর্তীতে কমিশন থেকে বলা হয় বাহাউদ্দিনকে এলাকা ছাড়ার কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। এই ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়ে যেমন প্রশ্ন উঠেছে, তেমনি কমিশনের মর্যাদাও ক্ষুণ্ণ হয়েছে বলে আমরা মনে করি।

তিনি আরও বলেন, আমরা মনে করি নির্বাচন কমিশনের ওপর রাজনৈতিক দলগুলোর আস্থা না ফিরলে, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন কখনই সম্ভব নয়। তাই, নির্বাচন কমিশনের ওপর আস্থা ফেরানোর প্রয়োজনেই কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে, যথাযথ তদন্ত পূর্বক এ সম্পর্কে নির্বাচন কমিশনকে তাদের স্বচ্ছতা প্রমাণ করতে হবে।

রোবায়েত ফেরদৌস বলেন, কুমিল্লা নির্বাচন ছিল এই কমিশনের প্রথম পরীক্ষা। প্রথম পরীক্ষাতেই তারা অনেকগুলো প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। ইভিএমে প্রিন্টআউট না থাকার কারণে পুনঃগণনার সুযোগ নেই। যারা ইভিএমে ভোট দিতে না পেরে ফেরত যান, তাদের জন্য বিকল্প ভোটের ব্যবস্থা রাখা যেতে পারে। সরকারি লোকজন যদি সুষ্ঠু নির্বাচনে বাধা হয়ে দাঁড়ায়, তাহলে পদত্যাগ করার সাহস ও দৃঢ়তা দেখাতে হবে। কমিশন এই দৃঢ়তা দেখাতে ব্যর্থ হয়েছে।

  ‘স্বপ্ন ছুঁয়েছে’ পদ্মার এপার-ওপার

;