নারায়ণগঞ্জ নির্বাচনে উন্নয়নবিমূখ রাজনীতির চরম ভরাডুবি হয়েছে

  নাসিক নির্বাচন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নেতিবাচক ও উন্নয়নবিমূখ রাজনীতির চরম ভরাডুবি হয়েছে।

তিনি বলেন, ষড়যন্ত্র এবং অপপ্রচারের সংস্কৃতিতে যারা বিশ্বাসী তাদের ঘটেছে বিপর্যয়।

ওবায়দুল কাদের সোমবার (১৭ জানুয়ারি) তাঁর বাসভবনে  গতকাল অনুষ্ঠিত নির্বাচন পরবর্তী ব্রিফিংকালে একথা বলেন।

গতকাল অনুষ্ঠিত নির্বাচনে জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ এবং উৎসবমুখরতা সুস্পষ্টভাবে গণতন্ত্রের বিজয় উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে চলমান গণতান্ত্রিক অভিযাত্রার এ বিজয়।

তিনি বলেন, ইভিএম এ ভোট প্রদান এবং নির্বাচন কমিশনের যারা সমালোচনা করেছিলো তারা এখন গতকাল অনুষ্ঠিত নির্বাচনকে সেরা নির্বাচন বলে মনে করেন ।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বছরের শুরুতেই একটি বড় নির্বাচন ছিলো নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন।

অংশগ্রহণমূলক, শান্তিপূর্ণ এবং অবাধ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য জনগণ ও নির্বাচন কমিশনসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান ওবায়দুল কাদের।

  নাসিক নির্বাচন

বিএনপি-জামায়াত দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে: ফারুক খান



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বে দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে ঠিক সেই সময়ে বিএনপি-জামায়াত দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে।

শনিবার (২৮ জানুয়ারি) বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের প্রতিবাদে আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে আয়োজিত শান্তি সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

ফারুক খান বলেন, যখন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, যখন বাংলাদেশের জিডিপি সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়ার উপরে, যখন বাংলাদেশ বিশ্বের ৩৫তম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ ঠিক সেই মুহূর্তে বিএনপি-জামায়াত বাংলাদেশকে পিছনের দিকে নেওয়ার জন্য নানামুখী ষড়যন্ত্র করছে।

তিনি বলেন, বিশ্বব্যাংক, আইএমএফ, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক সবাই ভবিষ্যৎবাণী করেছে, বাংলাদেশ যেভাবে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে যদি এভাবে এগিয়ে যায় তাহলে ২০৩০ সালের মধ্যে এটি বিশ্বের ২৭তম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ হবে। আর এটা সম্ভব শুধুমাত্র রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে।

যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের সভাপতিত্বে সভায় আওয়ামী লীগ কার্যনির্বাহী সদস্য তারানা হালিম বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল।

তারানা হালিম বলেন, যাতে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে ভেঙে পড়ে, দুর্ভিক্ষ সৃষ্টি হয়, খাদ্য সংকট সৃষ্টি হয়, বেকার সমস্যা বৃদ্ধি পায়, মানুষের দুর্ভোগ বাড়ে তাই চায় বিএনপির, এটাই দলটির আসল চেহেরা। তারা কখনই এদেশের মানুষের ভালো চায় না।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের অভিজ্ঞতা আছে কিভাবে অর্থনৈতিক মন্দা কাটিয়ে তোলা যায়। সামনের যে বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক মন্দার কথা বলা হচ্ছে শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বের মাধ্যমে বাংলাদেশ তা কাটিয়ে উঠতে পারবে। আগামী নির্বাচনে নৌকায় ভোট দিলে বঙ্গবন্ধুকন্যা তার দূরদর্শী নেতৃত্বে একটি উন্নত সুখীসমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলতে পারবে।

শেখ ফজলে শামস পরশ বলেন, বিএনপির মুখে গণতন্ত্রের কথা মানায় না, মানবাধিকারের কথা মানায় না। আপনাদের হিংসাত্মক রাজনীতি আর সন্ত্রাসের কারণে নতুন প্রজন্ম রাজনীতি করতে চায় না। আমি বিশ্বাস করি, আওয়ামী লীগ নয়, বিএনপির প্রধান শত্রু এদেশের সাধারণ জনগণ।

  নাসিক নির্বাচন

;

রাজশাহীতে স্মরণকালের সবচেয়ে বড় সমাবেশ হবে: কাদের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রাজশাহীতে স্মরণকালের সবচেয়ে বড় সমাবেশ হবে। এই সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী রাজশাহীবাসীর জন্য দিকনির্দেশনা দেবেন এবং আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে নৌকায় ভোট দিতে বলবেন।

শনিবার (২৮ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় রাজশাহী নগরীর আলিয়া মাদরাসা মাঠ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বাংলাদেশ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। বিএনপি-জামায়াতের সব অপতৎপরতা রুখে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে।

রাজশাহী জনসভায় আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পক্ষে ভোট চাইবেন শেখ হাসিনা উল্লেখ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচনের এখনও এক বছর বাকি। তবে আমাদের নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। আমাদের আহ্বান থাকবে, আগামী নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে নির্বাচিত করে দেশের মানুষের সেবা করার সুযোগ দিন।

তিনি বলেন, গত ১৪ বছরে বাংলাদেশের যে উন্নয়ন হয়েছে সেই ধারাবাহিকতায় রাজশাহীর উন্নয়ন হয়েছে। এ বরেন্দ্রভূমিতে বিপুল পরিবর্তন হয়েছে। অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে। উন্নয়ন আর অর্জনে বাংলাদেশ বদলে গেছে। রাজশাহী বদলে গেছে।

কাদের বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশকে স্মার্ট বাংলাদেশে রূপ দিতে প্রধানমন্ত্রী রাজশাহীবাসীকে দিকনির্দেশনা দেবেন। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে কীভাবে কাজ করতে হবে সে কথাও বলবেন তিনি।

  নাসিক নির্বাচন

;

প্রধানমন্ত্রীকে বরণে প্রস্তুত রাজশাহী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
প্রধানমন্ত্রীকে বরণে প্রস্তুত রাজশাহী

প্রধানমন্ত্রীকে বরণে প্রস্তুত রাজশাহী

  • Font increase
  • Font Decrease

দীর্ঘ পাঁচ বছর পর রোববার রাজশাহী যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। তার আগমন ঘিরে গোটা রাজশাহীজুড়ে যেন উৎসবের আমেজ সৃষ্টি হয়েছে। বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে রাজশাহী নগরীকে।

রোববার (২৯ জানুয়ারি) বিকেলে রাজশাহীর মাদরাসা মাঠে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের জনসভায় ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। এসময় তিনি ১৬০০ কোটি টাকা ব্যয়ে রাজশাহীতে বিভিন্ন চলমান ৩১টি উন্নয়ন প্রকল্পের ফলক উন্মোচন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। জনসভকে ঘিরে আওয়ামী লীগের নেতাদের ছবি সংবলিত ব্যানার-ফেস্টুন ও তোরণে ভরে গেছে পুরো শহর। সড়ক বিভাজকগুলোতে করা হয়েছে রঙ।

শনিবার মাদরাসা মাঠে গিয়ে দেখা গেছে, মঞ্চ তৈরির কাজ শেষ। মাঠও প্রস্তুত রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ প্রচার করতে শহরজুড়ে লাগানো হয়েছে মাইক। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের পক্ষ থেকে মাঠের পাশে বসানো হয়েছে অস্থায়ী টয়লেট। রাজশাহী ওয়াসা ব্যবস্থা করেছে পানি সরবরাহের। জনসভাস্থলে নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। শহরজুড়েও চলছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভিন্ন বাহিনীর টহল।

এদিকে, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র ও আওয়াশী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, আগামীকালের জনসভা উপলক্ষে সব ধরনের প্রস্তুতি আমরা সম্পন্ন করেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ৫ বছরে সারা দেশের মতো রাজশাহীতেও অভূতপূর্ব উন্নয়ন করেছেন। এ জনসভা থেকে আমরা তাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই।

জনসভায় বিপুল সংখ্যক নতুন প্রজন্মের ছেলে-মেয়েরাও অংশ নিবেন। সবমিলিয়ে ৫-৭ লাখ মানুষের সমাগম হবে এ জনসভায় বলেন তিনি।

মেয়র লিটন বলেন, রাজশাহী ঐতিহাসিক মাদরাসা মাঠটিতে বেশি লোকের জায়গা হবে না। সেজন্য আমরা এ মাঠের সঙ্গে ঈদগাহ মাঠটিকে সংযুক্ত করেছি। আশেপাশের সিএন্ডবি মোড়, ফায়ারা বিগ্রেড মোড় থেকে চারদিকে অন্তত ২০০ মাইকের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ১২টি প্রজেক্টরের মাধ্যমে জনসভায় আগত মানুষ মাঠে ঢুকতে না পারলেও প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য শুনতে ও দেখতে পারবেন। এছাড়াও দেড় লাখ বোতাল পানি, টয়লেটসহ আনুসঙ্গিক সব ব্যবস্থায় আমরা রেখেছি।

  নাসিক নির্বাচন

;

‘আগামী নির্বাচনে বিএনপির রাজনৈতিক মরণ হবে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ওবায়দুল কাদের/ফাইল ছবি

ওবায়দুল কাদের/ফাইল ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

আগামী নির্বাচনে বিএনপির রাজনৈতিক মরণ হবে। ইতোমধ্যে তাদের মরণযাত্রা শুরু হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শনিবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে ঢাকার উত্তরার আজমপুর এলাকায় আমিন মার্কেটের সামনে ‘বিএনপির সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের’ প্রতিবাদে সমাবেশ ও দুস্থদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেছেন, ‘আগামী নির্বাচনে বিএনপির রাজনৈতিক মরণ হবে। ইতোমধ্যে তাদের মরণযাত্রা শুরু হয়ে গেছে। তারা নির্বাচনে ও আন্দোলনে পরাজিত হবে।’

বর্তমান সরকারের পদত্যাগ, নির্দলীয় নিরপেক্ষ অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের অধীনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানসহ ১০ দফা দাবি আদায়ে বিএনপি পদযাত্রা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। এই কর্মসূচি প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, এটা বিএনপির পদযাত্রা নয়, মরণযাত্রা। ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি এখন কথার রাজা। মির্জা ফখরুলের কাজ নেই শুধু কথা। আমরা কাজ করছি আর বাধ্য হয়ে তাদের কথার জবাব দিচ্ছি। তারা একতরফা মিথ্যাচার করবে, বিষোদগার করবে এবং যেটা তারা করে আসছে, আমরা চুপচাপ বসে থাকব? আমাদের অবশ্যই জবাব দিতে হবে।’

নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘ডাক দিলেই চলে আসবেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা লড়াই করছি। রাজপথে আছি, রাজপথে থাকব, রাজপথ আমরা ছাড়ব না আগামী নির্বাচন পর্যন্ত।’

আওয়ামী লীগে সব সময় সাধারণ মানুষের পাশে আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা মানুষের পাশে ছিলাম। এই শীতের কষ্টেও মানুষের পাশে আছি। মানুষের দুঃখে-কষ্টে, দুর্যোগে-ঝড়ে-বন্যায়-জলোচ্ছ্বাসে আমরা মানুষের পাশে ছিলাম, আছি। বঙ্গবন্ধু থেকে শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের ৭০ বছর মানুষের পাশে আমরা আছি। নির্বাচনে জিতলেও আছি, নির্বাচনে হেরে গেলেও আছি।’

  নাসিক নির্বাচন

;