পরিবর্তন চান তৃণমূল নেতাকর্মীরা

  আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল-২০১৯


স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সম্মেলন ঘিরে নেতা কর্মীদের মাঝে উৎসাহ উদ্দীপনা কাজ করছে, ছবি: শাহরিয়ার তামিম

সম্মেলন ঘিরে নেতা কর্মীদের মাঝে উৎসাহ উদ্দীপনা কাজ করছে, ছবি: শাহরিয়ার তামিম

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মাঝে উৎসাহ উদ্দীপনার শেষ নেই। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সম্মুখভাগ, টিএসসি, দোয়েল চত্বরসহ তার আশপাশের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান জুড়ে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত নেতা কর্মীদের পদচারণায় এখন মুখরিত।

এ সময় আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা কর্মীদের মধ্যে বিরাজ করছে বড় পরিবর্তনের আভাস। কে কোন পদে অধিষ্ঠিত হবে তারা এখনো জানেন না। তবে তারা মনে করছেন তরুণ নেতাদের হাত ধরে আসবে বর্তমান নেতৃত্ব।

টাঙ্গাইল জেলার গোপালপুর পৌরসভার মেয়র রকিবুল সানা বলেন, ‘সভাপতির পদ ১০০ ভাগ ঠিক রেখে পরিবর্তন আসুক আমরা এটা চাই। নেত্রীর প্রতি আমাদের পূর্ণ আস্থা আছে। তিনি সংগঠনের এমন নেতাই যুক্ত করবেন যারা আসলে সংগঠনের জন্য ভাল হয়। পরিবর্তন আসবে এটা আমরা সবাই বুঝতে পারছি, কিন্তু এখনও পরিষ্কার নয়।

কুষ্টিয়া জেলা তৃণমূল নেতা কোহিনুর বলেন, আশা করছি বড় পরিবর্তন হবে এমন আভাস আমরা পেয়েছি। এই পরিবর্তন সম্ভবত তরুণ নেতাদের হাত ধরেই আসবে।

ভোলা জেলার তৃণমূল নেতা জামাল বলেন, ‘কিছুটা পরিবর্তন আসবে বলে মনে করছি। সভাপতি পদ ঠিক রেখে অন্যান্য পদে পরিবর্তন আসা উচিত। এখানে তরুণ নেতাদের সুযোগ করে দেওয়া উচিত বলে মনে করছি। অন্যান্য সময় আমরা কিছুটা আভাস পেতাম কিন্তু এবার আমরা একেবারেই ধোঁয়াশার মধ্যে আছি।’

ধানমন্ডি থানা যুবলীগের সাবেক সদস্য সচিব লুৎফর রহমান বলেন, 'নতুন পুরাতন মিলিয়ে এই সংগঠনটি প্রতিষ্ঠিত হোক এটাই প্রত্যাশা। তবে সভাপতি পদে শেখ হাসিনা যতদিন বেঁচে আছেন উনিই যেন থাকেন এটাই চাই। তবে অন্যান্য পদের পরিবর্তন আশা করছি। বুঝতে পারছি এবার একটি বড় পরিবর্তন হবে।'

   

মিয়ানমার সরকার নয়, আরাকান আর্মি গুলি ছুড়েছে: ওবায়দুল কাদের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ সীমান্তের কাছে উত্তেজনা প্রসঙ্গে সেন্টমার্টিন’সে যে বুলেট পড়েছে, তা মিয়ানমার সরকার নয়, আরাকান আর্মি গুলি ছুড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে সরাসরি কোনো হামলার ঘটনা দেখা যায়নি। মিয়ানমারে বেশ কয়েকটি জাতিগত গোষ্ঠীর অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের অংশ হিসেবে সম্ভবত বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলো সাম্প্রতিক এসব ঘটনা ঘটিয়েছে, মিয়ানমার সরকার নয়।

বুধবার (১৯ জুন) মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে ঈদ পরবর্তী বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সীমান্তে গুলি আসতে পারে বা গুলির শব্দ শোনা যেতে পারে। এটা কি সার্বভৌমত্বের লঙ্ঘন! এসব ঘটনা তাদের বিদ্রোহীদের কারণে ঘটছে। এর জন্য আমরা কেন মিয়ানমার সরকারকে দায়ী করবো! যতদিন সম্ভব আমরা আলোচনা চালিয়ে যাবো।

সেন্টমার্টিন’স দ্বীপ ইস্যুতে ‘সরকার নতজানু পররাষ্ট্রনীতি অনুসরণ করছে’, বিএনপির এমন অভিযোগের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিরোধীরা সরকারের সিদ্ধান্তকে ‘আজ্ঞাবহ’ হিসেবে আখ্যায়িত করছে। কিন্তু কীভাবে তা আজ্ঞাবহ হয়! সেন্টমার্টিন’সে যে বুলেট পড়েছে, সেটি মিয়ানমার সরকারের নয়, আরাকান আর্মির বিদ্রোহীদের ছোড়া।

এ সময় যুদ্ধের পরিবর্তে সংলাপের মাধ্যমে সংঘাত নিরসনে বাংলাদেশের অঙ্গীকারের কথা বলেন তিনি।

সীমান্তের নাফ নদী থেকে মিয়ানমারের যুদ্ধ জাহাজ সরিয়ে ফেলা হয়েছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, মিয়ানমারের জাহাজটি সরিয়ে ফেলা হয়েছে। রোহিঙ্গারা যখন জোয়ারের মতো বাংলাদেশে প্রবেশ করে, তখনও উস্কানি ছিল। মাঝে-মধ্যে আমাদের আকাশসীমা লঙ্ঘন করা হচ্ছিল বলে অভিযোগ ওঠে। সে সময়ে ওয়াশিংটনে অবস্থানরত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সশস্ত্র বাহিনী প্রধানদের যেকোনো পরিস্থিতিতে যুদ্ধ এড়িয়ে চলার নির্দেশ দেন। মিয়ানমার উস্কানি দিলে আমরা সংলাপে বসবো এবং সমাধান বের করবো কিন্তু আমরা যুদ্ধে জড়াবো না।

তিনি বলেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর যদি যুদ্ধে জড়াতে চান, তাহলে আমরা উস্কানি ফাঁদে পড়তে পারি। আমরা সরকারে আছি, আমাদের দায়িত্ব আছে।’

মুক্তিযুদ্ধে ফখরুলের অবদান নিয়ে প্রশ্ন তুলে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমি জানি না, ফখরুল কী করেছিলেন বা মুক্তিযুদ্ধের সময় কোন সেক্টরে তিনি যুদ্ধ করেছিলেন।

এ ধরনের দাবি করে কোনো লাভ নেই। সার্বভৌমত্ব অক্ষুণ্ণ রয়েছে। যদি সত্যি সত্যিই সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘিত হয় এবং আলোচনা ব্যর্থ হয়, যদি তারা সত্যিই আক্রমণ করে, তাহলে আমরা কি চুপ করে বসে থাকব! আমাদের জবাব দিতেই হবে।

এর আগে ১৫ জুন বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে উত্তেজনা প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেছিলেন, আমাদের প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমারের অভ্যন্তরে কিছু সংঘর্ষ হচ্ছে। ৫৪টা কমিটি রয়েছে। এদের কারোর সঙ্গে কারোর মিল নেই। রাখাইন-আরাকান বিদ্রোহীরা প্রকাশে বিদ্রোহ করে যাচ্ছে। ওদের অভ্যন্তরীণ সংঘাতের জন্য আমরা যদি সাফার করি, সেটাও তো অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক!

তিনি বলেন, মিয়ানমারে বর্তমানে মিলিটারি গভর্নমেন্ট। তাদের সঙ্গে আমাদের কোনো বৈরিতা নেই। আলাপ-আলোচনার দরজা এখনো খোলা আছে। আমরা কথা বলতে পারি। যতক্ষণ কথা বলা যাবে, আলাপ-আলোচনা করা যাবে, ‘উই আর নট এ মুভ ডাউন’, এমন পর্যায় না হলে আমরা আলাপ-আলোচনা মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করছি এবং করে যাবো।

  আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল-২০১৯

;

ভোটের রাজনীতির কারণে মহাসড়কে দুর্ঘটনা: কাদের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

সড়কে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা হচ্ছে মোটরসাইকেলের, এরপর অটোরিকশা। জনপ্রতিনিধিরা ভোটের রাজনীতি করতে গিয়ে অটোরিকশা মহাসড়কে চলাচলের অনুমতি দেয়ায় দুর্ঘটনা বেড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার (১৯ জুন) দুপুরে সচিবালয়ে ঈদুল আযহার পর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ইদানিং বেপরোয়া ড্রাইভিং, মোটরবাইক ও ইজিবাইকের কারণে দুর্ঘটনা বেড়েছে। এতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদেরও দায় আছে। ভোটের রাজনীতি করতে গিয়ে তারা ইজিবাইকগুলোকে মহাসড়কে চলতে দিচ্ছেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, রাজধানীতে একটি মোটরসাইকেলে দু'জন এবং হেলমেট পরার বাধ্যবাধকতা থাকায় দুর্ঘটনা অনেক কমেছে। এটা শুধু শহর নয়, মফস্বল ও‌ গ্রামেও মানছে। ‘নো‌ হেলমেট, নো‌ ফুয়েল’ কার্যকর করায় এটা সম্ভব হয়েছে। 

মন্ত্রী বলেন, বন্যা ও ঘূর্ণিঝড়ে দেশের অনেক জেলায় রাস্তা নষ্ট হয়ে গেছে। এসব রাস্তা‌ মেরামত করা জরুরি হয়ে পড়েছে। বন্যা ও ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত মহাসড়কগুলো শিগগিরই সংস্কার ও মেরামত করা হবে। এ ছাড়া এসব কাজের নিয়মিত মনিটরিং অব্যাহত রাখতে হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, পুরো বিশ্বই এখন অর্থনৈতিক মন্দার কবলে পড়েছে। সবাই ব্যয় সংকোচন করছে। সারা বিশ্বই এখন রণক্ষেত্র। বড় বড় দেশগুলো বিশ্বযুদ্ধের মহড়া দিচ্ছে। আমরাও এর শিকার হচ্ছি। এ কারণে বড় বড় প্রকল্পগুলো অনেকটা স্লো হয়ে গেছে। বিশ্বের অনেক দেশ অর্থ সংকোচন নীতি গ্রহণ করেছে। সারা বিশ্বে অর্থ সংকট কবে শেষ হবে তা বলা যাচ্ছে না।

পুরো বিশ্বই এখন রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, সব দেশের রাজনীতি এখন কঠিন ঝুঁকির মুখে পড়েছে। এ অবস্থায় বিদেশি ফান্ডিং কমে এসেছে। আমাদের এখন শ্যাম ও কুল দুটিই রক্ষা করে চলতে হচ্ছে।

  আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল-২০১৯

;

বিএনপি ঈদের দিনেও সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করেছে: কাদের



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপি ঈদের দিনেও সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার-অপপ্রচার করতে ছাড়েনি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।  

মঙ্গলবার (১৮ জুন) আওয়ামী লীগের ধানমন্ডি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, মূল্যস্ফীতির কারণে কোরবানি কমেছে বিএনপির এমন অভিযোগ সত্য নয়, গত বছরের চেয়ে কোরবানি বেড়েছে। সমস্যা হচ্ছে বিএনপি ও মির্জা ফখরুলদের।

তিনি বলেন, আমিতো ঈদের দিনে বিরোধীদলকে কোনো কটাক্ষ করিনি। সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়েছি। ঈদের দিনটা অন্তত পারস্পরিক কাদা ছোড়াছুড়ি থেকে বিরত থাকি।

তিনি আরও বলেন, গতবছর ঈদুল আজহার প্রথমদিনে ১ কোটি ৩ হাজার কোরবানি হয়েছিল, এবার প্রথম দিনেই ৩ লাখ বেশি হয়েছে। আজ ও কাল সময় রয়েছে। মূল্যস্ফীতি ১০ শতাংশের কাছাকাছি রয়েছে এ কথা স্বীকার করি। তবে পাকিস্তানের মতো ২৫ শতাংশ, তুর্কিয়ের মতো ৭০ শতাংশ কিংবা আর্জেন্টিনার মতো ৩০০ শতাংশ হয় নি। এত প্রোপাগান্ডা, সমালোচনা, কিছু বুদ্ধিজীবীতো বাংলাদেশকে শ্রীলঙ্কা বানিয়ে ছাড়তে চেয়েছিল। আমাদের আন্তরিকতা রয়েছে, চেষ্টা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী অবিরাম চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। অতীতের ভুলত্রুটি সংশোধন করার মানসিকতা রয়েছে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলেন, সর্বোভৌমত্বের প্রতি কোথায় আঘাত হলো। সেন্টমাটিন থেকে জাহাজ সরে গেছে, ভেতরে যারা অনুপ্রবেশ করেছিল তাদেরও তারা ফিরিয়ে নিয়েছে। আরাকান বিদ্রোহীদের একটি গুলি সেন্টমার্টিনের দিকে এসেছিল। তারাতো সেদেশের সরকারের বিরুদ্ধে লড়ছে, মিয়ানমারের যে সরকার, যেভাবেই থাক। বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘনের কোনো ঘটনা বা সংঘাত সরকারের পক্ষ থেকে উসকানি দেওয়া হয় নি। আমরাতো মির্জা ফখরুলের বক্তব্যের আগেই বলেছি, আমরা কাউকে উসকানি দিবো না। তবে আক্রান্ত হলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

সাবেক পুলিশ কর্মকর্তাদের দুর্নীতি এবং তারা দায়িত্বে থাকার সময় কেন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি এমন প্রশ্রের জবাবে বলেন, সরকারের নজরে আসার আগে কীভাবে ব্যবস্থা নেবে, ব্যক্তির দুর্নীতি তখন দুদকও তদন্ত করেনি, তখন আমরা কি করে জানবো। দুদকও এবং বিচার বিভাগ স্বাধীন তারা যে কারো দুর্নীতি তদন্ত করতে পারে, মামলা করতে পারে। এখানে সরকারের পক্ষ থেকে কোন রকম বাধা দেওয়া হয় নি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতিকে আশ্রয় প্রশয় দেন নি। যেই হোক তাকে বিচারের আওতায় আসতে হবে। কিন্তু যদি বিএনপি ও জাতীয় পার্টির শাসনামলের কথা বলি তখন কিন্তু অনেক দুর্নীতি ও সন্ত্রাস ছিল। তাদের বিচার হতো না।

  আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল-২০১৯

;

খালেদা জিয়ার সঙ্গে বিএনপির সিনিয়র নেতাদের ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা ২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে ঈদুল আজহার রাতে দেখা করেছেন দলটির সিনিয়র ৬ জন নেতা।

সোমবার (১৭ জুন) রাতে তারা রাজধানীর গুলশানে ফিরোজা বাসভবনে যান।

বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়া দলের নেতৃত্ব দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নিজ এলাকা ঠাকুরগাঁও ঈদ করায় কারণে তিনি শুভেচ্ছা বিনিময়ে যোগ দিতে পারেননি। বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য শায়রুল কবির খান এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র জানায়, দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যরা রাত ৮টা ৫ মিনিটে ফিরোজা বাসভবনে প্রবেশ করেন। খন্দকার মোশাররফ ছাড়াও খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান ও বেগম সেলিমা রহমান।

  আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল-২০১৯

;